কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মুক্তিযুদ্ধে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ইতিকথা (পর্ব-২)


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ১০ আগস্ট ২০১৯, শনিবার, ৮:২০ | মুক্তিযুদ্ধ 


১৯ এপ্রিল, মঙ্গলবার। বেলুচ রেজিমেন্টের মেজর সারোয়ার খান ও ক্যাপ্টেন বোখারীর নেতৃত্বে দেড় শতাধিক পাকিস্তানী সেনা ও পাঞ্জাব মিলিশিয়া ট্রেনযোগে কিশোরগঞ্জের দিকে এগিয়ে আসে। যশোদল স্টেশনের কাছাকাছি স্থানে পূর্ব থেকেই ছাত্র-জনতা রেললাইন বিচ্ছিন্ন করে রেখেছিল বলে সেনাবাহী ট্রেনটি যশোদল স্টেশন পার হতে পারেনি। তাই পাকিস্তানী সেনারা যশোদল স্টেশনে নেমে পায়ে হেঁটে কিশোরগঞ্জ শহরের দিকে এগিয়ে আসতে থাকে।

আসার সময় নির্বিচার গুলি ও বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগের মাধ্যমে সমগ্র এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। শহরে ঢুকে একইদিনে ঘাতকবাহিনী শহরের নিরীহ অন্তত ৯জন বাঙালিকে নির্মমভাবে হত্যা করে। বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ করে ছারখার করে দেয় শহরের শান্তিপূর্ণ বসতি।

শহরবাসী প্রাণ রক্ষার জন্য যে যেভাবে পারে দূর-দূরান্তে পালিয়ে যেতে থাকে। হানাদার বাহিনী শহরের দিকে এগিয়ে আসছে জেনেও আজিমউদ্দিন হাই স্কুল মাঠে প্রশিক্ষণরত কয়েকজন তরুণ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে পাকিস্তান বাহিনীকে প্রতিহত করার ভূমিকায় অবতীর্ণ হন।

কিশোরগঞ্জ থানার সামনে রক্ষিত চারটি খালি জীপ হানাদার বাহিনী যাতে ব্যবহার করতে না পারে সে জন্য বিক্ষুব্ধ তরুণেরা ধারালো দায়ের আঘাতে জীপগুলো বিকল করে দেন। এ সকল তরুণের কয়েকজন হচ্ছেন ছাত্রনেতা এম.এ. আফজল, কবির উদ্দিন ভূঞা, নিজাম উদ্দিন, মতিউর রহমান, এ.বি. সিদ্দিক, কামরুজ্জামান কমরু, মিহির বসাক, সাব্বির আহমদ মানিক, রেজাউল করিম খসরু, গোলাম রব্বানী বুলবুল এবং আনোয়ার কামাল।

এতকিছু করেও হানাদার বাহিনীর আগমন প্রতিরোধ করা যায়নি। ঘাতক বাহিনী কিশোরগঞ্জ রেলস্টেশন সংলগ্ন তৎকালীন জেলা বোর্ডের ডাকবাংলোয় তাদের ক্যাম্প স্থাপন করে পুরো জনপদের নিয়ন্ত্রণ হাতে তুলে নেয়।

দখলদার বাহিনী কাচারিবাজার সম্মুখস্থ ডাকবাংলোয় স্থাপন করে উপ-সামরিক আইন প্রশাসকের কার্যালয়। এছাড়া শহরের টেনিসগ্রাউন্ড সংলগ্ন অধুনালুপ্ত তথ্যকেন্দ্রে, আখড়াবাজার এলাকার প্রাইমারি টিচার্স ট্রেনিং ইনস্টিটিউটে (পিটিআই) এবং মহকুমা প্রশাসক কার্যালয় চত্বরে (বর্তমান পুরাতন কোর্ট) দখলদার পাকিস্তানি সেনাবাহিনী পৃথক পৃথক ক্যাম্প স্থাপন করেছিল।

জুলাই মাসের দিকে মেজর সারোয়ার খানকে কিশোরগঞ্জ থেকে প্রত্যাহার করে মেজর ইফতেখারকে এ মহকুমার দায়িত্ব প্রদান করা হয়। দায়িত্ব পেয়ে মেজর ইফতেখার তার নৃশংসতা ও জঘন্য নারী-লিপ্সার অনেক নজির তৈরি করেন।

উপজেলায় রাজাকার/আলবদর/আলশামস বাহিনী গঠন ও তৎপরতা: মে মাস থেকেই কিশোরগঞ্জে হানাদার পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সহযোগী ফোর্স হিসেবে রাজাকার, আলবদর ও আল-শামস বাহিনী গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হয়। মহকুমা শান্তি কমিটির সভাপতি ও জেলা পিডিপি প্রধান মওলানা সৈয়দ মুছলেহ উদ্দিনের নেতৃত্বে গঠিত হয় রাজাকার বাহিনী।

এ বাহিনীতে তার দুই পুত্র সৈয়দ মুহম্মদ হাসান ও সৈয়দ মুহম্মদ হুসেইন কমান্ডার হিসেবে অনেক অপকর্মের উদাহরণ তৈরি করে। হাসান তাড়াইল থানার এবং হুসেইন নিকলী থানার স্বঘোষিত ওসি হিসেবে মানবতা বিরোধী অনেক অপকর্ম সংঘটন করেছে। এই দুই সহোদরের বিরুদ্ধে মানবতা বিরোধী আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে সুনির্দিষ্ট মামলায় ফাঁসির দণ্ড হয়েছে। দুই ভাই বর্তমানে পলাতক।

এছাড়াও রাজাকার বাহিনীর কুখ্যাত সদস্য হিসেবে অনেকের নাম এখনও জনমনে আতঙ্ক তৈরি করে। কিশোরগঞ্জ পুরাতন স্টেডিয়াম সংলগ্ন আনসার অফিসকে রাজাকার বাহিনীর সদর দপ্তরে রূপান্তর করা হয়।

এছাড়া পুরানথানাস্থ ইসলামিয়া ছাত্রাবাসে স্থাপন করা হয় আল-বদর, আল-শামস্ ও মুজাহিদ বাহিনীর ক্যাম্প এবং রেলস্টেশন সংলগ্ন স্টেশন মাস্টারের বাসভবনে স্থাপন করা হয় আল-বদর বাহিনীর ক্যাম্প ও নির্যাতন কেন্দ্র।

অন্যদিকে গুরুদয়াল কলেজের তৎকালীন শিক্ষক জামায়াতে ইসলামীর স্থানীয় একজন নেতার নেতৃত্বে তুলনামূলক মেধাবী তরুণ-যুবকদের সমন্বয়ে গঠিত হয় আলবদর বাহিনী। কিশোরগঞ্জ রেলস্টেশন সংলগ্ন স্টেশন মাস্টারের পরিত্যক্ত বাসভবনটি আলবদর বাহিনীর স্থানীয় কার্যালয় ও টর্চার সেল হিসেবে আজও অনেক নৃশংসতার সাক্ষ্য বহন করছে। অষ্টগ্রাম উপজেলার কেএম আমিনুল হক (রজব আলী) দুর্ধর্ষ আলবদর কমান্ডার হিসেবে পরিচিত ছিল।

তদানীন্তন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ও নেজামে ইসলাম পার্টির প্রধান মওলানা আতাহার আলীর নেতৃত্বে কিশোরগঞ্জ মহকুমায় হানাদার পাকিস্তান সেনাবাহিনীর অক্সিলারি ফোর্স হিসেবে আল-শামস বাহিনী গঠিত হয়।

মূলত মুসলিম লীগপন্থী ছাত্র সংগঠন এনএসএফ-ভূক্ত তরুণদের সমন্বয়েই আল-শামস বাহিনী গঠন করা হয়েছিল। গুরুদয়াল কলেজের তৎকালীন ছাত্র শাহজাহান চেঙ্গিস ও গাইটাল গ্রামের আবুল কাসেম ছিল এ বাহিনীর অন্যতম সক্রিয় সদস্য।

এর বাইরেও কিশোরগঞ্জ শহরে মওলানা আতাহার আলীর নেতৃত্বে মুজাহিদ বাহিনী নামে আরও একটি অতিরিক্ত অস্ত্রধারী বাহিনী গঠিত হয়। এ বাহিনীতে মওলানা মহিউদ্দিন আজমী, মফিজ উদ্দিন, আব্দুর রহমান, তারা মিয়া, মওলানা আব্দুল হান্নান ও মৌলবি আখতার শাহ সবচেয়ে কুখ্যাত হিসেবে পরিচিত ছিল।

হত্যা, গণহত্যা, নারী নির্যাতন, অগ্নিসংযোগ ও লুণ্ঠনের ভয়াবহতা: ১৯ এপ্রিল কিশোরগঞ্জে প্রবেশ করেই হানাদার বাহিনী ৯ জন নিরীহ বাঙালিকে নৃশংসভাবে হত্যা করে। এছাড়া নির্বিচারে অগ্নিসংযোগ ও লুণ্ঠনের মাধ্যমে তারা সমগ্র শহরে কায়েম করে ভয়াবহ নৈরাজ্য ও ভীতিকর পরিবেশ।

শহরের পাকিন্তানপন্থী একশ্রেণির প্রভাবশালী ব্যক্তি এবং স্থানীয় অবাঙ্গালি বিহারীরা সরাসরি হানাদার বাহিনীর সহযোগিতায় এগিয়ে আসে। এদের মধ্যে কদম রসুল বিহারী, সোলেমান বিহারী, ইছহাক বিহারী, মজিদ বিহারী প্রমুখ অন্যতম।

রাজাকার ও স্থানীয় দালালদের সহযোগিতায় হানাদার পাকিন্তান সেনাবাহিনী কিশোরগঞ্জ জেলা সদরে বিভিন্ন গ্রামে হানা দিয়ে অগণিত মানুষকে হত্যা করেছে। তন্মধ্যে শহরতলীর রশিদাবাদ, সগড়া, কাটাবাড়িয়া দিঘিরপাড়, ভাস্করখিলা, কানকাটি, নীলগঞ্জ  গ্রাম ছাড়াও শহরের বত্রিশ, বিন্নগাঁও, খড়মপট্টি, হয়বতনগর, নগুয়া, মেলাবাজার ইত্যাদি মহল্লার অগণিত নিরীহ বাঙালিকে ধরে এনে নৃশংসভাবে হত্যা করে।

শুধু হত্যাকাণ্ডের মধ্যেই তারা সীমাবদ্ধ ছিল না। শহরে ও গ্রামে বেছে বেছে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষাবলম্বনকারী জনগণের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ, লুণ্ঠন ও নারী ধর্ষণেও হানাদার বাহিনী ও তাদের সহযোগীরা অনেক নিকৃষ্ট উদাহরণ সৃষ্টি করেছে।

জেলা সদরের সবচেয়ে ভয়াবহ গণহত্যা সংঘটিত হয় বরইতলা নামক স্থানে। ১৩ অক্টোবর দুপুরে একটি তিন বগির বিশেষ ট্রেনে চড়ে পাকিস্তানী মিলিশিয়া ও খাকি পোশাকধারী ৪০/৫০জন সৈন্য যশোদল স্টেশন পার হয়ে বরইতলা নামক গ্রামে পৈশাচিক গণহত্যা সংঘটন করে।

কথিত আছে যে, দামপাড়া, চিকনীরচর, গোবিন্দপুর, তিলকনাথপুর, কড়িয়াইল, বাদে কড়িয়াইল, কালিকাবাড়ি ও ঘাগর গ্রামের অন্তত সাড়ে তিন শতাধিক নিরীহ বাঙালিকে বরইতলায় জড়ো করে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। স্বাধীনতার পর স্থানীয় অধিবাসীরা এলাকার নাম রাখেন শহীদনগর এবং স্থানীয় জনসাধারণের উদ্যোগে এখানে একটি গণহত্যার স্মৃতিন্তম্ভ নির্মিত হয়। পরবর্তী সময়ে কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদ বরইতলায় শহিদদের নাম সংবলিত একটি স্থায়ী স্মৃতিফলক ও স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করে।

হানাদার পাকিস্তান সেনাবাহিনীর নির্যাতন কেন্দ্র ও বন্দিশিবির: কিশোরগঞ্জ রেলস্টেশন সংলগ্ন জেলা বোর্ডের ডাকবাংলোকে হানাদার পাকিস্তান বাহিনী তাদের নির্যাতন কেন্দ্র ও বন্দিশিবির হিসেবে ব্যবহার করে। জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে নিরীহ বাঙালি ও হিন্দুদের ধরে এনে এই ডাকবাংলোয় বন্দি রাখা হতো।

সেখানে বন্দিদের উপর অকথ্য শারীরিক নির্যাতন চালানোর পর গভীর রাতে বিভিন্ন রেল ও সড়কব্রিজে কিংবা নদীর পাড়ে বন্দিদের নির্বিচারে হত্যা করে পানিতে ভাসিয়ে দেওয়া হতো।

এছাড়া রেলস্টেশন সংলগ্ন স্টেশন মাস্টারের পরিত্যক্ত কোয়ার্টারটিকে আলবদর বাহিনী তাদের নির্যাতন কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করেছে। (চলবে)

# জাহাঙ্গীর আলম জাহান, ছড়াকার, প্রাবন্ধিক, ইতিহাস-মুক্তিযুদ্ধ ও লোকসংস্কৃতির গবেষক, প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৪১টি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর