কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ছদ্মবেশী ভয়ঙ্কর প্রতারক


 বিশেষ প্রতিনিধি | ৫ আগস্ট ২০১৯, সোমবার, ৪:৩৩ | অপরাধ 


তাড়াইলের প্রতিষ্ঠিত মুরগী ব্যবসায়ী খোরশেদ মিয়া। মাঝে মধ্যেই বড় ধরনের অর্ডারের মাধ্যমে মুরগী কেনেন জেলার কুলিয়ারচর উপজেলার আগরপুর বাসস্ট্যান্ড এর নিয়ামত পোল্ট্রি ফিড থেকে। নিয়ামত পোল্ট্রি ফিড এর মালিক কুলিয়ারচরের পূর্ব জগৎচরের পোল্ট্রি খামারি মো. হাবিবুর রহমান। ব্যবসার সূত্রে দু’জনের মধ্যে গড়ে ওঠে একটি ভালো সম্পর্ক।

মুরগী ব্যবসায়ী খোরশেদ মিয়ার লেনদেন ভালো হওয়ায় হাবিবুর রহমান বাকিতে মুরগী সরবরাহ করতেন। দু’জনের ব্যবসায়িক এই ভালো সম্পর্কের মাঝে গত ১১ই মে একটি ফোন আসে হাবিবুর রহমানের কাছে।

ফোনের ওপ্রান্ত থেকে খোরশেদ মিয়ার নাম উল্লেখ করে বলা হয়, তার ৫ হাজার কেজি ব্রয়লার মুরগী লাগবে। পূর্ব ব্যবসায়িক সম্পর্কের সূত্র ধরে খোরশেদ মিয়ার নাম বলা চালকের মাধ্যমে মো. হাবিবুর রহমান তার পূর্ব জগৎচরের খামার থেকে বাকিতে প্রায় ৫ লাখ টাকা মূল্যমানের ৫ হাজার কেজি ব্রয়লার মুরগী ২টি পিকআপ গাড়িতে তুলে দেন।

কিন্তু পরে হাবিবুর রহমান জানতে পারেন, খোরশেদ মিয়ার নাম ব্যবহার করে প্রতারণার মাধ্যমে তার প্রায় ৫ লাখ টাকা মূল্যমানের ৫ হাজার কেজি ব্রয়লার মুরগী এক প্রতারক নিয়ে গেছে।

এ ঘটনায় গত ২৫শে জুলাই কুলিয়ারচর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন হাবিবুর রহমান। এই অভিযোগের সূত্র ধরে বিষয়টি নিয়ে তদন্তে নামে পুলিশ।

তদন্তের দায়িত্ব পান কুলিয়ারচর থানার এসআই আবুল কালাম আজাদ। তদন্তের এক পর্যায়ে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার মাধ্যমে তিনি নিশ্চিত হন ছদ্মবেশী এই প্রতারক ময়মনসিংহ জেলার তারাকান্দায় বঙ্গবন্ধু সরকারি কলেজ গেইট সংলগ্ন একটি বাসায় অবস্থান করছে।

রোববার (৪ আগস্ট) দুপুরে এসআই আবুল কালাম আজাদ সঙ্গীয় ফোর্সসহ হানা দেন ওই বাসায়। সেখান থেকে ১৫টি সিম এবং চারটি মোবাইল হ্যান্ডসেটসহ মো. আবুল কালাম (৩৬) নামের ছদ্মবেশী প্রতারককে আটক করে কুলিয়ারচর থানার পুলিশের টিমটি।

পরে রাতে তাকে কুলিয়ারচর থানায় নিয়ে আসা হয়। সেখানে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে বেরিয়ে আসতে থাকে ছদ্মবেশে অন্যের নাম ব্যবহার করে আবুল কালামের একের পর এক প্রতারণার ঘটনা।

ছদ্মবেশী এই প্রতারকের গ্রেপ্তার হওয়ার খবরে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় এ ধরনের প্রতারণার শিকার হওয়া ব্যবসায়ীরা সোমবার (৫ আগস্ট) সকাল থেকে কুলিয়ারচর থানায় এসে ভীড় জমান।

আটক হওয়া ছদ্মবেশী প্রতারক মো. আবুল কালাম ময়মনসিংহ জেলার ফুলপুর উপজেলার কুচন্দরা গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে। সে বাড়িতে অবস্থান না করে ময়মনসিংহ জেলার তারাকান্দায় বঙ্গবন্ধু সরকারি কলেজ গেইট সংলগ্ন মোকামিয়াকান্দা এলাকায় আবুল কাশেমের বাসায় ভাড়া থাকতো।

কুলিয়ারচর থানার এসআই আবুল কালাম আজাদ জানান, প্রতারক আবুল কালাম ২০০৫ সাল থেকে বিভিন্ন ধরনের প্রতারণামূলক কর্মকা- চালিয়ে আসছে। তার নামে বগুড়া এবং ফুলপুর থানায় দু’টি মামলা রয়েছে। এর আগে সে র‌্যাব ও পুলিশের হাতে দুইবার গ্রেপ্তার হয়েছে।

তিনি জানান, প্রতারণাই আবুল কালামের পেশা। সে মুরগীর ব্যবসায়ীদের মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে সেইসব ব্যবসায়ীর ভালো ক্রেতাদের নাম সংগ্রহ করতো। পরে মোবাইল ফোনে নিজেই সেসব নামের ক্রেতা সেজে পিকআপে করে মুরগীর চালান বাকিতে সংগ্রহ করতো। এভাবে দিনের পর দিন অসংখ্য ব্যবসায়ীর কাছ থেকে কোটি টাকারও বেশি সে প্রতারণা করে আত্মসাত করেছে।

প্রতারক কালাম বিভিন্ন জনের নামে সীমকার্ড তুলে সেসব নম্বর ব্যবহার করে প্রতারণা করতো। ফলে কোন ব্যবসায়ী প্রতারিত হলেও পরে আর এই প্রতারকের কোন হদিস পেতো না।

এসআই আবুল কালাম আজাদ জানান, প্রতারক আবুল কালাম তাদের হাতে আটক হওয়ার পর অন্তত ১০০ জন ব্যবসায়ী নিজেদের প্রতারিত হওয়ার কথা পুলিশকে জানিয়েছেন। এর মধ্যে ২০-২৫ জন থানায় সশরীরে এসে নিজেদের প্রতারিত হওয়ার বর্ণনা দিয়েছেন। তাদের মধ্যে রাজধানীর কাপ্তান বাজারেরও একাধিক ব্যবসায়ী রয়েছেন।

প্রতারিত ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, রাজধানীর কাপ্তান বাজারের মুরগী ব্যবসায়ী ইউনুসের কাছ থেকে আড়াই লাখ টাকার, রাজধানীর কোনাবাড়ির হিরনের কাছ থেকে এক লাখ ২০ হাজার টাকার, কোনাবাড়িরই ছালামের কাছ থেকে দুই লাখ ৮০ হাজার টাকার, কুলিয়ারচরের বাজরার পলাশের কাছ থেকে দেড় লাখ টাকার, কটিয়াদীর মসূয়ার শহীদুল্লাহর কাছ থেকে ৮০ হাজার টাকার মুরগী প্রতারণার মাধ্যমে লুট করে নিয়ে গেছে ছদ্মবেশী এই প্রতারক।

এসআই আবুল কালাম আজাদ আরো জানান, গ্রেপ্তারের পর প্রতারক আবুল কালামকে সোমবার (৫ আগস্ট) দুপুরে আদালতে চালান দেয়া হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে রিমান্ডের আবেদন করা হবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর