কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নরসুন্দাকে ঘিরেই সৃজিত কিশোরগঞ্জ


 মু আ লতিফ | ৩১ জুলাই ২০১৯, বুধবার, ১২:৩১ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


আমাদের প্রিয় শহর কিশোরগঞ্জ যে নদীকে ঘিরে সৃজন হয়েছে-সেই নরসুন্দার রূপ-বৈচিত্র ও যৌবনের কথা জানার আগ্রহ আমাদের থাকাটাই স্বাভাবিক। এর প্রাথমিক চেহারাটা কি ছিলো তা আমার জানা নাই।

তবে ৫০-৬০ বছর আগের নরসুন্দাকে আমার দেখার সৌভাগ্য হয়েছিল। সেই সময় থেকেই প্রিয় নরসুন্দার সঙ্গে আমার সখ্যতা। আমার শৈশব-কৈশর নরসুন্দার জল, জলের স্রোতধারা ও এর বালুচরের সঙ্গে মিশে আছে।

নদীর নিরবধি বয়ে চলা, বর্ষায় টই-টম্বুর খরস্রোতা নরসুন্দার ছবি এখনো আমাকে উন্মনা করে। আমার শরীর-মন ও আমার চৈতন্যকে বিকশিত করেছে-আমার শখা নরসুন্দা।

ছেলেবেলায় যে নরসুন্দাকে দেখেছি এখনো সেই স্মৃতিই মানসপটে আঁকা রয়েছে। খরস্রোতা যৌবনা নরসুন্দার কল্লোলধ্বনি এখনো কানে বাজে।

ওই সময়ের নরসুন্দার শোভার কথা বললে কেউ বিশ্বাস করবে না, জানি। কিন্তু ছেলেবেলার রোমাঞ্চকর স্মৃতি তো ভুলার নয়। কেউ বিশ্বাস করুক আর নাই করুক, সুখময় সেই স্মৃতিই আমার মনের আয়নায় চিরকাল বেঁচে থাক।

আগের সেই নরসুন্দা নেই। কিন্তু এটা সত্য যে, আজকের ঝলমল কিশোরগঞ্জের শুরুটা হয়েছিল এ নদীকে ঘিরেই। সুদূর কোনো অতীতে এ নদীকে ঘিরেই জনবসতির সৃজন ও অবশেষে এ শহরের গোড়াপত্তন হয়েছিল। তখন নদীই ছিলো এ শহরের প্রাণ।

প্রবাহমান নদীর মতই ছিলো এখানকার মানুষের ছন্দোময় জীবন। বর্ষায় টলমল জল, পালতোলা নৌকার চলাচল আর নদীর ঘাটে ঘাটে নৌকায় সন্ধ্যাপ্রদীপের আলোর ঝিকিমিকি জলের উপর খেলা করতো। চন্দ্রিমা রাতে আপরূপ চাঁদ জলে ভেসে বেড়াতো।

এ নদীর সঙ্গে এখানকার মানুষের আবেগ জড়িয়ে আছে। শুধু কী আবেগ-আবেগের সঙ্গে রয়েছে স্বপ্নও। এ স্বপ্নের ডালা চারদিকে বিস্তৃত। কারণ নদী মানেই বাংলাদেশ।

নদী ছাড়া বাংলাকে কল্পনা করা যায় না। বাংলার বৈশিষ্ট্যই নদী। যত ইতিহাস-উপাখ্যান এবং ঐতিহ্য সবই নদীকে ঘিরে। বিখ্যাত মৈমনসিংহ গীতিকার মহুয়া-মলুয়া ও কেনারামসহ সব পালাগানই রচিত হয়েছে নদীর পটভূমি ও সবুজ-শ্যামল প্রকৃতিকে উপজীব্য করে।

নদীই আমাদের জীবন-নদী ছাড়া আমরা বাঁচি না। নদী ব্যতীত আমাদের জীবন ধুসর-মরুভূমির মত।

৫০-৬০ বছর পূর্বেও দেখেছি নরসুন্দার স্রোত পশ্চিম থেকে পূবে বয়ে যেত। শহরের পাগলা মসজিদের আরো পশ্চিমে অর্থাৎ হোসেনপুরের ব্রহ্মপুত্র নদ থেকে কলকল, ছলছল রবে বয়ে আসতো। নদীর দুই ধারের সবুজ-শ্যামলিমায় অপরূপ গ্রামগুলো আমার মন জুড়িয়ে দিত।

নদীর এখানে ওখানে খড়াজাল দিয়ে মাছ ধরতো জেলেরা। ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা নদীতে কলাগাছ দিয়ে ভেলা বানিয়ে সাঁতার কাটতো।

শহরের কাচারি বাজারের পেছনে নদীতে কুড় ছিল। প্রচুর মাছের বংশ ছিল এই কুড়ে। এখন এসবের কোনো অস্থিত্বই নেই। এখন নদীতে স্রোত নেই, মাছ নেই এমনকি নদীও নেই। বাঙালির ভাষা যদি বাংলা না থাকে বাঙালি থাকে না। নদীর দেশে নদী না থাকলে কী হয়?

এসব নিয়ে আমরা কেউ ভাবি না। ওই সময় শহরের মণিপুরিঘাট ও পুরান থানায় বড় বড় বাণিজ্যিক নৌকা ভিড়তো। বড় বাজারের নবদ্বীপ চন্দ্র সাহা, রাম দয়াল সাহা, উমেষ চন্দ্র সাহা, পরশু রাম সাহা, রাজ চন্দ্র সাহা, সুরেন্দ্র চন্দ্র সাহা ও নারায়ণ চন্দ্র সাহা এবং আবদুর রহমান বেপারী, রুস্তম বেপারী, আক্কাস বেপারী, ছফিরউদ্দিন বেপারীসহ সব ব্যবসায়ীর মালামাল নদী পথেই পরিবহন করা হতো।

ভৈরব, তাড়াইল, নিকলী, ধুলদিয়া এবং পাবনা, সিলেট, ইশ্বরদী, নরসিংদী, আজমীরিগঞ্জ থেকে বড় বড় বেপারীদের নৌকা আসতো নদী পথে এই কিশোরগঞ্জে। এমনকি ভারতের মণিপুর থেকে মালবোঝাই বড় বড় নৌকা আসতো মণিপুর ঘাটে।  এ জন্যে এ ঘাটের নাম হয়েছে মণিপুর ঘাট।

আগে নরসুন্দায় শীতের সময়ও পানি থাকতো। একপাশে ভেসে উঠতো বালুচর। সেই বালুচরে বন্ধুদের নিয়ে দৌড়াদৌড়ি ও মারবেল খেলতাম। আবার কখনো ছোট ডিঙ্গি নৌকায় চড়ে শখ করে পুটিমাছ, টেংরা মাছ ধরতাম।

বর্ষায় গৌরাঙ্গ বাজারের জ্ঞানাদাসুন্দরি ব্রীজের উপর থেকে নদীতে লাফিয়ে সাঁতার কাটতাম। এখনো নরসুন্দার পাড়ে এলে শৈশব-কৈশরের ছবিটা চোখের সামনে ভেসে উঠে। মনে পড়ে বর্ষায় জলের টলমল রূপ।

জলেভাসা শাপলা-শালুকসহ নানা ফুল ও গুল্মভরা ছলছল জল। জলের ভেতর নানা প্রজাতির মাছের আনাগোনা। সেই নদীতে এখন জলও নেই, জলের স্রোতও নেই। আমাদের প্রকৃতি, পরিবেশ ও ভূগোলকে আমরা একেবারে ধ্বংস করে ফেলেছি।

আমি নিজের চোখে দেখেছি রথখোলার উত্তর পাশে রাস্তা ঘেঁষে কোন দোকান ছিলো না। বর্তমান আওয়ামীলীগ অফিসের দক্ষিণে রাস্তা ঘেঁষেও কোন দোকান ছিলো না। এ দুটো স্থানেই শত শত যাত্রীবাহী নৌকা নোঙর ফেলতো। হিন্দু সম্প্রদায়ের দুর্গাপূজা ও ঝুলন যাত্রার সময় এর সংখ্যা বেড়ে যেত।

সে সময় এখানে ঝুলনযাত্রা খুব জমজমাট, সপ্তাহব্যাপী ও সারারাত ধরে চলতো। হাওরের মানুষ বজরা নিয়ে শহরে আসা যাওয়া করতেন। এসব নৌকার মধ্যে অনেকসময় সুন্দর সুন্দর নৌকা দেখা যেত। নৌকাগুলো কারুময়, শিল্পীর আঁকা ছবিতে বৈচিত্রপূর্ণ থাকতো। বাহারি ও শৈল্পিক নৌকাগুলো সহজেই সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করতো।

ওই সময় একরামপুর ব্রীজের নিচেও প্রচুর নৌকা নোঙর করতো। এদিকে পুরানথানা বাজার থেকে নরসুন্দার যে বাঁকটি মণিপুরিঘাট হয়ে উথারিয়া বিলে মিশেছে এর মধ্যে মণিপুরিঘাট পর্য্ন্ত অংশটি কাটাখাল নামে পরিচিত ছিল।

কাটাখাল অংশটি পরে খননকৃত। এ প্রসঙ্গে একটি সূত্রের দাবি, তৎকালীন প্রামাণিক বাড়ির নন্দ কিশোর প্রামাণিক তাঁর অমর কীর্তি একুশ রত্ন ভবনের উদ্বোধন ও বিগ্রহ প্রতিষ্ঠার সময় যে মহাসমারোহের আয়োজন করেছিলেন, তার জন্যে দূর-দূরান্তের অতিথিদের আগমনের সুবিধার্থে এ খালটি তিনি খনন করেছিলেন।

ভিন্ন একটি মতও রয়েছে। সেটি নিম্নরূপ, জঙ্গলবাড়ি ও জাফ্রাবাদের জমিদারদের নৌবহরের প্রধান ঘাটি ও রাজস্ব আদায়ের প্রধান কার্যালয় ছিলো এটি। জলপথে ধুলদিয়ার সঙ্গে সহজ কোন পথ না থাকায় ওই দেওয়ানরাই তাদের সুবিধার্থে পুরানথানা বাঁক থেকে মণিপুরি ঘাট পর্যন্ত নরসুন্দার এ খনন কাজটি সম্পন্ন করেছিলেন।

মাত্র এক শতক সময়ের মধ্যে উৎসকে আমরা নিজেরাই ধ্বংস করেছি। আমরা আর কখনো কী নরসুন্দা হয়ে ব্রহ্মপুত্রে যেতে পারবো? নদী পথে করিমগঞ্জ হয়ে চামড়া বন্দর, তাড়াইল বাজার অথবা হাওরের বিভিন্ন অঞ্চলে আমরা আর কখনো কী যেতে পারবো? যেমনটি যেতেন আমাদের পূর্ব পুরুষরা। আমরা কেউ জানি না।

আরো একটা গল্প আমরা শুনি, একদিন এই নরসুন্দা নদী পথেই বারভূইয়া প্রধান বীর ঈশা খাঁর বজরা বীর দর্পে জঙ্গলবাড়ি দূর্গে যাতায়াত করেতেন। ঈশা খাঁ’র দ্বিতীয় রাজধানী হলো করিমগঞ্জের এই জঙ্গলবাড়ি।

ইতিহাস হচ্ছে, ষোড়শ শতকে ঈশা খাঁ লক্ষন হাজোর রাজধানী জঙ্গলবাড়ি আক্রমণ করে দখল করেন। তারপর তিনি এর প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সুদৃঢ়করণ, দুর্গের সংস্কার সাধন, তিনদিকে পরিখা খনন এবং নরসুন্দার সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে দুর্গটিকে একটি গোলাকার দ্বীপের আকার দেন।

তখন থেকেই জঙ্গলবাড়ি হয়ে ওঠে জাঁকজমকপূর্ণ ও জমজমাট নগর। আজ এ ঐতিহাসিক স্থানটিও চরম অবহেলার শিকার। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর