কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ঘুরে আসুন মরিচখালী হাওর


 মো. তরিকুল ইসলাম | ২৯ জুলাই ২০১৯, সোমবার, ৯:৩৪ | হাওর 


চারদিক থৈ থৈ করা পানি। বিশাল জলরাশিতে এখন যৌবনবতী হাওর। যেন সৌন্দর্যের বিপুল পসরা সাজিয়ে বসে আছে হাওরের প্রকৃতি। হাওরের প্রকৃতির এমন রূপ-বৈচিত্র আপনার মনে এক ধরনের প্রশান্তি এনে দিবে। প্রকৃতির মুক্ত আর শীতল হাওয়ায় জুড়িয়ে যাবে প্রাণ। আপনাকে নিয়ে যাবে সুখের এক অচিন রাজ্যে।

বর্ষার এই সৌন্দর্যের খোঁজে আমরা ক’জন বের হলাম মরিচখালী হাওরের জলধারায়। ১০ সহপাঠিকে নিয়ে মরিচখালী বাজারের পূর্ব পাশে মরিচখালী ঘাট থেকে নৌকা ভাড়া করলাম।

নৌকাযোগে রওনা দিলাম বিশাল জলধারার মাঝ পথ দিয়ে। কিছু দূর এগোতেই চোখে পড়লো, জলরাশির মাঝে ছোট ছোট গ্রাম। এই ছোট ছোট গ্রামগুলোকে দূর থেকে দেখলে মনে হবে, একেকটা ভাসমান ছোট ছোট দ্বীপ।

বিশাল হাওরের মাঝখানে নাক ডুব দিয়ে আছে হিজলসহ বিভিন্ন গাছের সারি। এই গাছগুলো আপনাকে আপন মনে ডাকছে। আমরাও দেরি না করে হিজল গাছের সান্নিধ্যে চলে গেলাম ও তাদের ভালোবাসার স্পর্শ ক্যামেরায় বন্দি করে নিলাম।

আমাদের নৌকা  হাওরের মধ্য দিয়ে চলতে লাগলো হেলে-দুলে আপন মনে, আপন গতিতে। মাঝে মাঝে পানির গর্জন বুকে কাঁপন ধরিয়ে দেয়।

তবু ভয়কে জয় করে হাওরের সৌন্দর্যের খোঁজে আমাদের নৌকা যখন ইন্দা গ্রামের পিছনে তখন একদল ডাহুক পাখি, পানকৌড়ির দলের পানিতে লাফ-ঝাপ আমাকে ফিরিয়ে নিয়ে যায় শৈশবে।

পানকৌড়ি পাখিদের লাফ-ঝাপ মনকে মুহুর্তের মাঝে ভালো করে দিবে। মরিচখালী হাওরটাই এমন।

হাওরের অপার সৌন্দর্যের খোঁজ পাবেন মরিচখালী হাওরের মাঝে। পল্লী পরিবেশ, গ্রামের মানুষের সরলতা এবং আতিথেয়তা। জারি গান, ভাটিয়ালি গান ও পুঁথিগান তাদের মূল আনন্দের খোরাক।

আমরা যখন ধীরুয়াইল গ্রামের পাশ দিয়ে ছুটে চলেছি তখনি এক নবদম্পতির বিয়ের যাত্রা। নৌকা সাজানো হয়েছে কলা গাছ আর নানান রংয়ের কাগজের আল্পনা দিয়ে। হাওরের মানুষের জীবনযাত্রার ঐতিহ্য ধারণ করে আছে নৌকাযাত্রার বিবাহগুলো।

যখন বিকাল ঘনিয়ে আসে, তখন আমরাও রওনা দিলাম হাওরবাসীদের কাছে অবসর সময় কাটানোর স্থান ইন্দা রোডে।

এই ইন্দা রোড বর্ষাকালে স্থানীয়দের কাছে ইন্দা বীচ নামে পরিচিত। ইন্দারোডের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য যে কাউকে বিমোহিত করবে। বর্ষায় ইন্দারোডের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য নিজ চোখে না দেখলে  বিশ্বাস করা কঠিন।

চারদিকে থৈ থৈ পানি আর বিশাল জলবাশির মাঝ বরাবর হাঁটু পানি, এ যেন এক রহস্যের মায়াজাল। আমরা যখন প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে বিভোর তখন হঠাৎ বৃষ্টির স্পর্শ। আমরাও আনন্দ-চিত্তে এক ঘন্টার মতো গা ভিজিয়ে নিলাম। এ যেন এক পরম শান্তি!

মায়ের মমতা মাখা ভালোবাসার মতই ইন্দারোডের জলরাশির স্পর্শ। ভালোবাসা আর পরম মমতায় জড়িয়ে নিল আমাদের। গোধূলীলগ্নে হাওরের দৃশ্য যেন রংধনুর সাত রংয়ের মত।
সারাদিন ক্লান্তি শেষে এক অপার্থিব আনন্দ নিয়ে আমরা সবাই যাত্রা শুরু করলাম গন্তব্যের দিকে।

যেভাবে যাবেন: কিশোরগঞ্জ শহর থেকে মরিচখালী যাতায়াতও খুব সহজ। কিশোরগঞ্জ শহরের একরামপুর এলাকা থেকে সিএনজি অটো বা মোটরসাইকেলে করে যেতে হয় মরিচখালী। ভাড়া মাত্র ৩০-৪০ টাকা। যাত্রাপথের সময়ও কম। এক ঘণ্টার মাঝেই পৌঁছে যাওয়া যায় মরিচখালী বাজারে।

মরিচখালী বাজারের দক্ষিণ দিকে ঘাটে গেলেই পাওয়া যায় ছোট-বড় অসংখ্য নৌকা। ঘণ্টায় দুইশ’ টাকা করে পছন্দসই নৌকা ভাড়া করা যায় হাওর বিলাসের জন্য।

যেখানে থাকবেন: কিশোরগঞ্জের বাইরে থেকে আসা অতিথিদের ভ্রমণ শেষে শহরে সার্কিট হাউস বা কোনো আবাসিক হোটেলে উঠতে হবে। তাই ফেরার জন্য পর্যাপ্ত সময় রাখতে ভুলবেন না।

সতর্কতা: খাবারের সুব্যবস্থা না থাকায় শুকনো খাবার সঙ্গে নেয়া ভালো। কোনো অপচনশীল দ্রব্য ফেলে আসবেন না। লাইফজ্যাকেট অবশ্যই সঙ্গে নিবেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর