কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সাহিত্যচর্চা ও মহল্লার পাঠাগার


 মু আ লতিফ | ২৮ জুলাই ২০১৯, রবিবার, ১২:৪২ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


আমরা যখন ছাত্র ছিলাম তখন সাহিত্য ও সংস্কৃতিচর্চা যথেষ্ট ছিলো। তখন পাড়া বা মহল্লায় পাঠাগার বেশ দেখা যেত। অবশ্য তখন হিন্দু সম্প্রদায়ই এর সঙ্গে বেশি জড়িত ছিলেন।

সমাজে নানা অসঙ্গতি সত্বেও তৎকালে রুচিবোধের পরিচর্যা ছিলো। স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা পাড়ার পাঠাগারে যাওয়া আসা করতো। এসব পাঠাগারে সদস্য করার ব্যবস্থা থাকতো। সদস্যরা তাদের চাহিদা অনুযায়ী বাড়িতে বই নিয়ে পড়তে পারতো।

আমার মনে আছে নগুয়ার শেষ মোড়ে ‘বিবেকানন্দ পাঠাগার’ নামে একটি পাঠাগার দেখেছি। সেই পাঠাগারে দেয়াল পত্রিকা ছিলো। হাতে লেখা এসব দেয়াল পত্রিকায় পাঠাগারের সদস্যদের কবিতা, গল্প প্রকাশিত হতো।

আবার পাঠাগারগুলোতে বিভিন্ন অনুষ্ঠান হতো। যেমন রবীন্দ্র-নজরুল জয়ন্তি, বর্ষাবরণ, পহেলা বৈশাখ পালন করা হতো। এতে স্থানীয় শিল্পীরা অংশ গ্রহণ করতেন।

পাঠাগারে যাওয়া ও লেখালেখির প্রতি তৎকালে তরুণদের মধ্যে বেশ প্রবল ছিলো। আমি নিজেও পাঠাগারে যেতাম। আমি নিজে দেয়াল পত্রিকা করতাম।

আমার নিজের লেখা কবিতা বা প্রবন্ধ ছাড়াও বন্ধুদের লেখা নিয়ে এইসব দেয়ালিকা প্রকাশ করতাম। এর নাম ছিলো ‘জাগরণ’। কাঠের ফ্রেমের উপর শক্ত কাগজের বোর্ড সেঁটেদিয়ে তার উপর নিজ হাতে কাগজে নানা রঙয়ের কালিতে গল্প-কবিতা-প্রবন্ধগুলো লিখতাম।

পরে আমাদের বাড়ির অঙ্গিনায় সেই দেয়াল পত্রিকা টাঙ্গিয়ে রাখতাম। এই অভ্যাসটা তখন ছাত্রদের মধ্যে গড়ে উঠেছিলো।

কিশারগঞ্জ রেলস্টেশন এলাকা থেকে সৈয়দ কামরুল হাসানের নেতৃত্বেও একটি দেয়াল পত্রিকা বের করা হতো। মো. হাবিবুর রহমান (কবি আবিদ আজাদ) এর ‘জাগরণী সংঘ’ নামে একটি সাহিত্য সংগঠন ছিলো। ‘জাগরণী’ নামে উক্ত সংঘ থেকে তখন একটি দেয়াল পত্রিকা বের করা হতো। তখন আবিদ আজিমউদ্দিন হাই স্কুলের ছাত্র ছিলো।

সাইফুল আলম চৌধুরী কাইসার ‘কলরব সাহিত্য সংসদ’ থেকে ওই নামেই নিয়মিত দেয়াল পত্রিকা বের করতো। কাইসার নিজেই এর সম্পাদনা করতো।

বত্রিশ এলাকায় তরুণরাও একটি সংগঠনের মাধ্যমে দেয়াল পত্রিকা ও সাময়িকী প্রকাশ করতো দেখেছি। সে সংগঠনটির নাম ছিলো ‘শতদল’। এর সদস্যরা নিজেরা তাদের লেখাগুলো দিয়ে প্রতি তিনমাস অন্তর একটি দেয়াল পত্রিকা করতেন।

নিউটাউন এলাকায়ও এমনি একটি সংগঠন ছিলো। নাম ছিলো ফ্রেন্ডস এসোসিয়েশন। এরা নিয়মিত দেয়াল পত্রিকা প্রকাশ করতো। উপল হাসানের সম্পাদনায় বিভিন্ন জাতীয় দিবসে এগুলো বের করা হতো।

এ সংগঠনের উদ্যোগে এর কর্মীদের মধ্যে পাঠচক্রের আয়োজনসহ আবৃত্তি প্রতিযোগিতারও আয়োজন করা হতো। এছাড়াও সংগঠনটি প্রচুর নাটক মঞ্চায়ন করেছে। পররবর্তীতে এই সংগঠনের অনেক সদস্যই কবি-সাহিত্যিক হিসাবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছেন।

কিন্তু কিশোরগঞ্জে এর আগের অবস্থা খুব ভালো ছিলো না। সমাজ নৈতিকতা ও শিক্ষা-দীক্ষার অবস্থা নিম্ন পর্যায়ের ছিলো। উনবিংশ শতকের শেষ দিক থেকে অবস্থার পরিবর্তন শুরু হয়।

১৯৩৫ সালে পুরান থানায় মুসলিম ইনস্টিটিউট (বর্তমান পাবলিক লাইব্রেরি) প্রতিষ্ঠা করা হয়। একসময় এ লাইব্রেরিটি এতদঞ্চলে শিক্ষা-সাহিত্য-সংস্কৃতিচর্চায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের উন্নত জীবন গঠনে এ লাইব্রেরির অবদান অনৈস্বীকার্য।

এ লাইব্রেরিটি জ্ঞানতাপস ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ ও পল্লীকবি জসিম উদদীন পরিদর্শন করে এর ভূঁয়সি প্রশংসা করেছেন। ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ লাইব্রেরিটি পরিদর্শন করে পরিদর্শন বইয়ে লিখেছিলেন,‘ কিশোরগঞ্জের সাধারণ পাঠাগার একটি বিশেষ দর্শনীয় ও প্রয়োজনীয় জ্ঞান বিস্তারক নিকেতন ...... ইহা কিশোরগঞ্জের একটি গৌরব।’

আগে সব ক্ষেত্রে হিন্দুরা এগিয়ে থাকলেও ধীরে ধীরে মুসলমানরাও শিক্ষাসহ অন্যান্য ক্ষেত্রে এগিয়ে আসতে শুরু করেন। আগেকার দিনে মুসলমানরা আরবি-ফার্সি পড়া আদবের মনে করতেন।

ইংরেজি বিধর্মীদের বুলি ও একে অনেকেই হারাম বলেও ফতোয়া দিতেন। ওই সময় এক শ্রেণির মোল্লাদের পাল্লায় পড়ে এরা রসাতলে নিপতিত হয়েছিল।

মাওলানারা আধুনিকতাকে বিধর্মীদের কাজ বলেও  প্রচার করতেন। তাদের আগ্রহ ছিলো কেবল মক্তব ও মাদরাসা তৈরির। একটি সময় ছিল যে বিদেশি ভাষা কেন, বাংলা ভাষার প্রতিও তাদের দরদ ছিলো না।

বাংলা-ইংরেজি পড়েও যে উৎকৃষ্ট ধর্মপ্রাণ হওয়া যায় সেটা তারা বিশ্বাস করতেন না। জ্ঞানার্জনের জন্য যে কোনো ভাষা শিক্ষা এবং প্রয়োজনে যে কোনো দেশে যাওয়াও যে নিষিদ্ধ নয় তারা তা মানতেন না। যে কারণে তখনকার দিনে সংস্কৃতির চর্চা মুসলমানদের মধ্যে একেবারেই ছিলো না।

কিন্তু হিন্দুরা সক্রিয়ভাবে এর চর্চা করতেন। যে কোন অনুষ্ঠানে হিন্দু ছেলে মেয়েরাই কবিতা আবৃত্তি, বিতর্ক প্রতিযোগিতা, গান-নাচে অংশ গ্রহণ  করতো। এরা লেখাপড়ায় যেমন এগিয়ে ছিলো তেমনি সাহিত্য-সংস্কৃতি ও সৃজনশীল কর্মকাণ্ডে অগ্রসর ছিলো। তাদের অভিভাবকরাও এ কাজে সহায়ক ভূমিকা পালন করতেন। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর