কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


গুরুদয়াল কলেজে সাহিত্য-সাংস্কৃতিক কার্যক্রম


 মু আ লতিফ | ২৬ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার, ১১:৫৮ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


আমাদের সময় শিক্ষাঙ্গণে লেখাপড়ার পাশাপাশি সাহিত্য-সংস্কৃতিচর্চা ছিলো। ফলে শিক্ষাঙ্গণগুলোর পরিবেশ ছিলো অনেকটা শান্ত-সোম্য-নির্মল। জ্ঞানার্জন ও সৃজনশীলতা একে অপরের হাত ধরে চলতো।

শিক্ষকগণ শিক্ষার্থীদের এসব কাজে উৎসাহিত করতেন। লেখাপড়ার সঙ্গে সাহিত্য ও সংস্কৃতিচর্চা শিক্ষার্থীদের উন্নত জীবন গড়তে জরুরি সবাই এমনটিই অনুভব করতেন। তাই তৎকালে গুরুদয়াল কলেজেও সাহিত্য ও সংস্কৃতিচর্চা যথেষ্ট ছিলো।

তখন নির্বাচিত ছাত্র সংসদ প্রতিবছরই কলেজ থেকে সাহিত্য বার্ষিকী প্রকাশ করতো। এসব বার্ষিকীতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের লেখা প্রকাশিত হতো। এর ফলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে লেখা-লেখির প্রতি আগ্রহ সৃষ্টি হতো। এ কারণে তারা পাঠ্যসূচি ছাড়াও অন্যান্য নানা ধরণের বই পাঠে অভ্যস্থ ছিলো।

কলেজের ইংরেজির সাবেক অধ্যাপক প্রাণেশ কুমার চৌধুরী’র নিকট ওইসময়ের প্রকাশিত কলেজের বেশ কতগুলি বার্ষিকী আমি দেখেছি।

এর মধ্যে ১৯৬৪-৬৫ সালে ‘গুরুদয়াল কলেজ বার্ষিকী’ নামে একটি বার্ষিকী প্রকাশিত হয়েছিল। এর সম্পাদনা করেছিলেন নাজমুল হোসেন।

১৯৬৬-৬৭ সালে মোহাম্মদ আবদুল লতিফ সম্পাদিক বার্ষিকীটির নাম ‘পূর্ব্বাশা’। ১৯৬৭-৬৮ সালে প্রকাশিত হয় ‘প্রবাহ’। এর সম্পাদনা করেছেন সাধন চন্দ্র সাহা। ১৯৭০-৭২ সালে ‘পদ্মা মেঘনা যমুনা’ নামে প্রকাশিত বার্ষিকীর সম্পাদনা করেছেন মো.এখলাছ উদ্দিন।

‘নিনীষা’ নামে প্রকাশিত বার্ষিকীটি প্রকাশিত হয় ১৯৭২-৭৩ সালে। এর সম্পাদনা করেন আজহারুল ইসলাম। ‘অরণী’ নামে প্রকাশিত বার্ষিকীটি সম্পাদনা করেছেন কেএম শহীদুল হক। এটি ১৯৭৩-৭৪ সালে প্রকাশিত হয়েছিল।

১৯৮০-৮১ সালে প্রকাশিত হয় ‘উত্তরণ’। এর সম্পাদনা করেছেন মো. ফখরুল ইসলাম (গোলাপ)। ১৯৮১-৮২ সালে প্রকাশিত হয় ‘পরিচয়’। এর সম্পাদনা করেছেন মো. গোলাম মোস্তাফা জহির।

এছাড়াও আরো কয়েকটি সাময়িকী প্রকাশিত হয়েছে বলে জানা যায়। তবে দুঃখজনক সত্য হলো এখন আর কোনো বার্ষিকী প্রকাশিত হয় না।

গুরুদয়াল কলেজে একসময় প্রায় নিয়মিত নাটক মঞ্চায়ণ করা হতো। এতে কলেজের ছাত্রছাত্রীরা অংশ গ্রহণ করতো। কলেজ সংসদের নাট্য সম্পাদক যখন শেখ ফরিদ আহমদ তখন ‘সূর্য মহল’ নামে নাটকটি মঞ্চায়িত হয়েছিল। এর পরিচালনায় ছিলেন অধ্যাপক প্রাণেশ কুমার চৌধুরী। এটি ১৯৮১ সালে মঞ্চায়িত হয়েছিল।

আবদুল্লাহ আল-মামুন রচিত ‘সেনাপতি’ নাটকটি মঞ্চায়ন করা হয়েছিল ১৯৮২ সালে ও মামুনুর রশীদ রচিত ‘ইবলিশ’ নাটকটি ১৯৮৯ সালে। এ দুটি নাটকের পরিচালনায় ছিলেন অধ্যাপক প্রাণেশ কুমার চৌধুরী।

মুক্তি চৌধুরী রচিত ‘কেমন আছি আমরা’ নাটকটি মঞ্চায়িত হয়েছিল ১৯৯০ সালে।  তখন নাট্য সম্পাদক ছিলেন মো. ওয়াহিদুজ্জামান (লিটন)।

১৯৯২ সালে মঞ্চায়িত হয় হুমায়ুন আহমেদ রচিত ‘১৯৭১’। পরিচালনায় ছিলেন মুক্তি চৌধুরী ও নাট্য সম্পাদক ছিলেন তখন এফএম তাজুল ইসলাম (সোহেল)।

এছাড়াও বার্ষিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজনসহ বিভিন্ন সময়ে বিতর্ক প্রতিযোগিতারও আয়োজন করা হয়েছে গুরুদয়াল কলেজে। কারণ উন্নত জীবন গঠনে সাহিত্য-সংস্কৃতিচর্চার আবশ্যকতা জরুরি, এমনটি সবাই অনুভব করতেন।

এসবই এখন অতীত ইতিহাস মাত্র। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর