কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


৬০-৭০ দশকের ছাত্র রাজনীতি


 মু আ লতিফ | ২৬ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার, ১:১৪ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


কিশোরগঞ্জে রাজনীতি কখনোই মসৃণ ছিলো না। সরকারের নির্যাতনের পাশাপাশি তাদের পেটুয়া বাহিনীর হামলা-অত্যাচার তো ছিলোই। এসব নানা ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে ছাত্র সমাজের আন্দোলন-সংগ্রামও অব্যাহত ছিলো।

তখনকার কয়েকটি ঘটনার কথা বলি। এটা ১৯৫৩ সালের ঘটনা। মুখ্যমন্ত্রী নুরুল আমিন মুসলিম লীগের এক নির্বাচনি সভা উপলক্ষে কিশোরগঞ্জে আসবেন। খবর পেয়ে ছাত্রসমাজ উত্তেজিত হয়ে উঠে।

৫২-এর ভাষা আন্দোলনের খুনিকে ছাত্রসমাজ প্রতিহত করতে প্রস্তুত। তারা পণ করে নুরুল আমিনকে ‘না’ বলবে এবং কালো পতাকা দেখাবে।

যেই কথা সেই কাজ। এনিয়ে ছাত্র সংগঠনগুলো দফায় দফায় বৈঠকে বসে। আলোচনা শেষে সিদ্ধান্ত নেয়া হয় কালো পতাকা প্রদর্শনের।

এদিকে মুসলিমলীগের কর্মীরা ও ন্যাশনাল গার্ড নামে স্বেচ্ছাসেবক বাহিনীর গুন্ডাবাহিনীও প্রস্তুত। কিন্তু সকল অপতৎপরতা ও ভয়-ভীতিকে উপেক্ষা করেই নুরুল আমিন কিশোরগঞ্জ এলে তাকে ছাত্রসমাজ কালো পতাকা দেখায়।

এতে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন তুখোড় ছাত্রনেতা আবু তাহের খান পাঠান। এ ঘটনায় আশরাফউদ্দিন মাস্টার, একে খুরশিদ উদ্দিন আহমদ, গোলাম মোস্তফা, আবু লায়েছ, গঙ্গেশ সরকার, ডা. সফিউদ্দিন ও মিছির উদ্দিন আহমদকে গ্রেফতার করা হয়।

১৯৬৩ সালের ১লা জানুয়ারি। তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী মুসলিমলীগ নেতা ফজলুল কাদের চৌধুরী কিশোরগঞ্জে আসেন। ঠিক তখনই ছাত্ররা ফুঁসে উঠে ও ছাত্রদের মধ্যে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

ছাত্ররা মিছিল করে কিশোরগঞ্জ রেলস্টেশন সংলগ্ন ডাকবাংলোয় শিক্ষামন্ত্রীকে কালো পতাকা  প্রদর্শণ করে। বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা মিছিল নিয়ে জামিয়া ইমদাদিয়া ও পাবলিক লাইব্রেরির মধ্যবর্তী রাস্তায় শিক্ষামন্ত্রীর জন্য নির্মিত সুদৃশ্য তোরণটিতে আগুন ধরিয়ে দেয়।

এসময় জামিয়া ইমদাদিয়া মাদ্রাসার উপর থেকে সরকারের দালাররা ছাত্রদের উপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এতে কলেজছাত্র কাজী মোজাম্মেল হক ও এআর খানসহ কয়েকজন আহত হন। এসময় ছাত্ররা প্রবল উত্তেজনায় ফেটে পড়ে।

বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা আহতদের রক্তমাখা শার্ট নিয়ে মিছিল শুরু করেন। মিছিলটি এক পর্যায়ে জনসভাস্থলে প্রবেশ করে পুরাতন স্টেডিয়ামে বক্তৃতারত শিক্ষামন্ত্রীর মঞ্চে জুতা নিক্ষেপ ও অগ্নিসংযোগ করে।

ফজলুল কাদের চৌধুরী তৎকালীন মহকুমা প্রশাসক এম এ সাঈদকে (পরে সিইসি) ছাত্রদের উপর গুলি করার নির্দেশ দিলেও তিনি তা পালনে অপারগতা প্রকাশ করেন। অবস্থা বেগতিক দেখে শিক্ষামন্ত্রী সভাস্থল ত্যাগ করেন।

এ আন্দোলনের নেতৃত্বদানকারী ছাত্রনেতা মো. আবদুল হামিদ (বর্তমান রাষ্ট্রপতি), আনোয়ার হোসেন, এসএ করিম কুসু ও ৯ম শ্রেণির ছাত্র মুনকে গ্রেফতার করা হয়।

১৯৬৮ সালের আরো একটি ঘটনা। গভর্নর মুনায়েম খানের ভাই খুর্শিদ উদ্দিন খান কিশোরগঞ্জে আসবেন। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে ছাত্রসমাজ বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে।

তার সফর বানচাল করতে ছাত্রনেতৃবৃন্দ কলেজ চত্তরে বৈঠকে বসেন। বৈঠকে ছাত্রলীগ, ছাত্র ইউনিয়ন (উভয় গ্রুপ) অংশ গ্রহণ করে। এখানে তারা বিস্তারিত আলোচনা করে খুর্শিদ খানকে প্রতিহত করার সিদ্ধান্ত নেয়।

সিদ্ধান্ত অনুযায়ী খুর্শিদ খানের জিপটি রথখোলা হয়ে ফায়ারব্রিগেডের সামনে আসার পরই গুরুদয়াল কলেজ থেকে আগত ছাত্রদের একটি বিরাট মিছিল তাকে কালো পতাকা দেখায় এবং ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করতে শুরু করে। বেগতিক দেখে পুলিশ প্রহরায় তিনি পালিয়ে যান।

এঘটনায় ছাত্রলীগ নেতা আবদুল হামিদ (বর্তমান রাষ্ট্রপতি), খলিলুর রহমান, গোলাম রব্বানী বুলবুল, সাধন সাহা, ছাত্র ইউনিয়ন (মতিয়া) নেতা মিজানুর রহমান, ছাত্র ইউনিয়ন (মেনন) নেতা লতিফুর রহমান খান মরু ও আনম তওফিক পানুকে পুলিশ গ্রেফতার করে।

এরও আগের কথা, ১৯৫৮ সালের ৭ই অক্টোবর শামরিক শাসন জারির মাধ্যমে ফিল্ডমার্শাল আইয়ুব খান পাকিস্তানের ক্ষমতা দখল করে বসেন। তার সময় ছাত্র রাজনীতি আরো কঠিন হয়ে পড়েছিল। তিনি উন্নয়নের নাম করে গণতন্ত্রকে গলা টিপে ধরেন।  মৌলিক গণতন্ত্রের আড়ালে শোষনের রাজত্ব কায়েম করেন। তার লেখা ‘প্রভু নয় বন্ধু’ গ্রন্থে তিনি জনগণকে বুঝাতে চেষ্টা করেছিলেন, আগে উন্নয়ন পরে গণতন্ত্র।

কিন্তু দেশবাসি ঘৃণাভরে তা প্রত্যাখ্যান করেছিলো। এসময় আইয়ুব খান প্রথমে ‘শরিফ শিক্ষা কমিশন’ চালু করতে চাইলে ছাত্রসমাজ প্রবল আন্দোলন শুরু করে। আন্দোলনের মুখে ১৯৬২ সালের ১৭ ই সেপ্টেম্বর আইয়ুব খান ‘শরিফ শিক্ষা কমিশন’ বাতিল করেন।

পরে আইয়ুব খান আবারো বিচাপতি হামুদুর রহমানের নেতৃত্বে ‘হামুদুর রহমান শিক্ষা কমিশন’ গঠন করেন। এর মাধ্যমে দেশে একটি সামন্তবাদী ও মৌলবাদী শিক্ষা ব্যবস্থা কায়েম এবং আধুনিক ও বিজ্ঞানমনস্ক শিক্ষার বিরুদ্ধে চক্রান্তে তিনি লিপ্ত হন। কিন্তু ছাত্রসমাজ এর বিরুদ্ধেও রুখে দাড়ায়।

তৎকালে কিশোরগঞ্জের সার্বিক পরিবেশ মূলত প্রগতিশীল রাজনৈতিক ধারা বিকাশের অন্তরায় ছিলো। বরং আইয়ুব শাহীর সেবাদাস মোনেম খান ও অন্যান্য সাম্প্রদায়িক শক্তির প্রাবল্য ও প্রাধান্য এখানে শক্তভাবে শেকড় গেড়ে বসেছিল।

কিন্তু তা সত্বেও ছাত্রনেতা আবদুল হামিদ ও ছাত্রনেতা মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে আইয়ুব শাহী বিরোধী এক প্রবল আন্দোলন গড়ে উঠেছিল। শত বাধা, নির্যাতন ও প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে এখানে সৃষ্টি হয়েছিল গণতান্ত্রিক চেতনাসম্পন্ন একটি প্রগতিশীল রাজনৈতিক ধারার। যে ধারা পরবর্তীতে ৬-দফা ও ১১-দফা আন্দোলনের সোনালি ইতিহাসের জন্ম দিয়েছিল।

এখানে আরো একটি কথা জরুরি যে, এ সময় কেন্দ্রীয় ছাত্রনেতা (হাওরের কৃতী সন্তান) আইয়ুব রেজা চৌধুরী এখানকার ছাত্রনেতৃবৃন্দকে রাজনৈতিকভাবে সচেতন করে গড়ে উঠতে ব্যাপকভাবে কাজ করেন। তিনি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক রাজনীতির গতিধারা বিশ্লেষণকরে সাম্রাজ্যবাদি শোষণ, আগ্রাসন ও সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের সুফল সম্পর্কে ছাত্রনেতৃত্বকে অবহিত করতে পেরেছিলেন। পরে তাঁরই আগ্রহে এখানে ছাত্র ইউনিয়ন মেনন গ্রুপের জন্ম হয়।

আইয়ুব রেজা চৌধুরী সম্পর্কে আরো কয়েকটি কথা বলা দরকার। তিনি ৭০ এর দশকে নগুয়া হোয়াইট হাওজে থাকতেন। তাঁর কারণে এ বাড়িটি বেশ পরিচিত হয়ে উঠেছিল।

রাজনীতির পাশাপাশি সাহিত্য-সংস্কৃতির প্রতি তাঁর যথেষ্ট অনুরাগ ছিলো। তিনি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, সুকান্ত, জীবনানন্দ দাশের কবিতা আবৃত্তি করতেন। গোর্কী, টলষ্টয় নিয়ে তাঁর সরস আলোচনা তরুণদেরকে দারুণভাবে আকৃষ্ট করতো।

একজন বোদ্ধা, সংস্কৃতিবান ও রুচিবোধসম্পন্ন মানুষ হিসেবেও সে সময় তিনি সকলের কাছে সমাদৃত হয়ে উঠেছিলেন।

ছাত্র রাজনীতির প্রসঙ্গে ইতি টানার আগে আমি তৎকালীন ১১-দফা আন্দোলন সম্পর্কে কয়েকটি কথা বলতে চাই। কারণ কিশোরগঞ্জের জাগ্রত ছাত্রসমাজ স্বৈরাচারি আইয়ুব শাহীর পতনের আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছিলেন।

১৯৬৯ সালে ঢাকার রাজপথে সংগ্রাম পরিষদ ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে যে বিক্ষোভ মিছিল বের করেছিল এতে প্রথম শহীদ হন ছাত্রইউনিয়ন নেতা আসাদুজ্জামান আসাদ। আসাদের মৃত্যুতে সমগ্র বাংলা বিক্ষোভে ফেটে পড়েছিল।

সেদিন গুরুদয়াল কলেজ থেকেও বের করা হয়েছিল বিরাট বিক্ষোভ মিছিল। আন্দোলনকে দুর্বার ও জোরদার করার লক্ষে সেদিন গঠন করা হয়েছিল মহকুমা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ। উক্ত সংগ্রাম কমিটির সদস্যরা ছিলেন কবিরউদ্দিন ভূইয়া, মো. ফজলুর রহমান, শওকত আল ফারুক ছানা (ছাত্রলীগ), মশিহুর রহমান, মোজম্মেল হক খান রতন (মতিয়া ছাত্র ইউনিয়ন), লতিফুর রহমান খান মরু, আনম তওফিক পানু (মেনন ছাত্র ইউনিয়ন) ও এনএসএফ দোলন গ্রুপ এর আকরাম হোসেন।

এছাড়াও বহু ছাত্রনেতা এ আন্দোলনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছিলেন। তাদের মধ্যে ছিলেন লিয়াকত হোসেন মানিক, মো. জিল্লুর রহমান, সাহাবুদ্দিন ঠাকুর, মো. ইদ্রিস আলী, শাহাদৎ হোসেন, এম এ আফজাল, গোলাম রব্বানী বুলবুল, নুরুল ইসলাম নুরু, মোস্তাফিজুর রহমান, মাহমুদ হোসেন, মলং আবদুল্লাহ মাহমুদ, আমিরুল ইসালাম, ভুপেন্দ্র ভৌমিক দোলন, অশোক সরকার, মো. আমিরুজ্জামান, মো. মজনু ভুইয়াসহ আরো অনেকে।

তবে ওই সংগ্রামেও মূল নেতৃত্বে ছিলেন বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর