কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কলেজ থেকেই জাতীয় নেতৃত্ব গড়ে উঠতো


 মু আ লতিফ | ২৪ জুলাই ২০১৯, বুধবার, ১:০৭ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


৭০ এর দশকে গুরুদয়াল কলেজে পড়ার সময় লক্ষ্য করেছি সাধারণ ছাত্রদের মধ্যেও লেখাপড়া করার বেশ প্রবণতা ছিল। এর কারণ ছিল। তখন নিয়মিত ক্লাস হতো ও শিক্ষকদের মধ্যে থেকেও পড়ার জন্য তাগাদা দেয়া হতো।

তাঁরা জানতেন, প্রতিটি স্বপ্নের মাঝে হাজারো সম্ভাবনা লুকিয়ে থাকে। তাই যে কোনো প্রতিবন্ধকতায়ও  স্বপ্ন যেন হারিয়ে না যায়। শিক্ষকগণ শিক্ষার্থীদের এভাবেই গড়ে তোলার চেষ্টা করতেন।

আর একটা বিষয় হলো তৎকালে যারা ছাত্র রাজনীতি করতেন বিশেষ করে নেতৃত্বের আসনে যেতে হলে তাকে অবশ্যই বিভিন্ন গুণের অধিকারী হতে হতো। ছাত্র সংসদ নির্বাচনে প্রতিটি সংগঠন তাদের মনোনয়ন চুড়ান্ত করার সময় বিষয়গুলো তারা ভাবতেন।

সাধারণ ছাত্ররাও উপযুক্ত ব্যক্তিকেই ভোট দিতেন। ১৯৬৭ সালে আমি তখন. ইন্টার মিডিয়েটের দ্বিতীয় বর্ষে পড়ি। সে সময়ই আমি কলেজ ছাত্র সংসদের নির্বাচিত কর্মকর্তা ও ছাত্র ইউনিয়নের নেতৃত্বে চলে আসি।

গুরুদয়াল কলেজে তখন কিন্তু নিয়মিত ক্লাসের বাইরেও এক্সট্রা কারিকুলাম একটিভিটিজের ব্যবস্থা থাকতো। অর্থৎ শিক্ষার্থীদের পড়াশুনার পাশাপাশি সুকুমারবৃত্তির উৎকর্ষ সাধনে নানা কর্মসূচি নেয়া হতো। এসবের কথা আজো বেশ মনে পড়ে।

মনে আছে তখন কলেজে বাৎসরিক নাটক মঞ্চস্থ হতো। কমার্সের প্রফেসর সিএল রায় ছিলেন এর মূল কারিগর। তাঁর সঙ্গে থাকতেন প্রফেসর আতিকুল্লাহ চৌধুরী, প্রফেসর নরেন্দ্রচন্দ্র ঘোষ ও প্রফেসর প্রাণেশ কুমার চৌধুরী।

সিএল রায় স্যার, আতিকুল্লাহ স্যারেরাও অভিনয় করতেন। তাঁদের অভিনয় আমি শিল্পকলা হলে দেখেছি। কলেজে বার্ষিক ভ্যারাইটি শো হতো এবং তখনকার সময় কলেজ বিতর্ক প্রতিযোগিতা খুবই একটি ফলপ্রসু প্রোগ্রাম ছিল। নিয়মিত এসব বিতর্ক প্রতিযোগিতা আয়োজনের ফলে শিক্ষার্থীদের মেধার বিকাশ ও আত্মপ্রত্যয়ী হতে সাহস জোগাতো।

আমার মনে আছে ১৯৬৬ সালের ৯ই সেপ্টেম্বর এসটি হলে আয়োজিত একটি বিতর্ক প্রতিযোগিতার বিষয়বস্তু ছিল ‘আধুনিক যুগ কাব্যের পরিপন্থি’। প্রাণবন্ত ও প্রতিদ্বন্দিতাপূর্ণ ওই প্রতিযোগিতার বিচারক ছিলেন ইংরেজির শিক্ষক প্রফেসর রফিকুর রহমান চৌধুরী।

বিতর্ক শেষে প্রিন্সিপাল মো. ওয়াসিমুদ্দীন স্যার ও রফিকুর রহমান চৌধুরী তাঁদের সংক্ষিপ্ত ও তাৎপর্যময় ভাষণ ছিল অনুপ্রেরণাদায়ক।

আরো একটি বিতর্কের কথা মনে পড়ে। সেটি হয়েছিল ১৯৬৮ সালের ৩০ শে মার্চ। এর বিষয় ছিল ‘আধুনিক সভ্যতা, সভ্যতা নয়’। এতে আমিও বিষয়টির পক্ষে বিতর্কে অংশ নিয়েছিলাম।

ওই সময় কলেজ থেকে বাৎসরিক ম্যাগাজিন প্রকাশ করার রেওয়াজ ছিল। ছাত্র সংসদের ম্যাগাজিন সম্পাদকের দায়িত্বে কলেজ ম্যাগাজিন বের করা হতো। এতে কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের ও শিক্ষকদেরও  লেখা থাকতো।

ওই সময় লেখালেখির প্রতিও আমি কিছুটা আসক্ত হয়ে পড়েছিলাম। এর পেছনে অবশ্যই কলেজের এক্সট্রা কারিকুলাম একটিভিটিজ ও শিক্ষকদের উৎসাহ কাজ করেছিল।

আমার মনে আছে কলেজের বাংলার অধ্যাপক জিয়াউদ্দিন আহমদ এর সাহিত্য মজলিস ও প্রফেসর নরেন্দ্রচন্দ্র ঘোষের সাহিত্য সংসদ লেখক সৃষ্টিতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছিল।

একসময় আমরা বেশ ক’জন বন্ধু মিলে ‘তরুণ লেখক গোষ্ঠী’ নামে অন্য একটি সাহিত্য সংগঠন গড়ে তুলি। কারণ আমরা ওইসময় আধুনিক গদ্য কবিতা লিখার প্রতি ঝুঁকে পড়েছিলাম। এর পেছনে কাজ করেছিলেন কলেজের ইংরেজির শিক্ষক প্রফেসর প্রাণেশ কুমার চৌধুরী।

সদ্য পাশ করা ঢাকা ইউনিভার্সিটির ছাত্র তিনি।  গুরুদয়াল কলেজে এসে যোগদান করেন। তিনি খুব সুন্দর করে কথা বলতেন এবং তাঁর মধ্যে বেশ আধুনিকতার ছাপ ছিল। তিনি শেক্সপিয়রের নাটক, শেলি, কিটস ও ওয়ার্ডসওেয়ার্থ এর কবিতার চমৎকার ও সরস আলোচনা করতেন।

তাঁর আলোচনা আমাদের মুগ্ধ করতো। তিনিই ওইসময় আমাদেরকে প্রথম আধুনিক গদ্য কবিতা লেখার প্রতি অনুপ্রাণীত করেছিলেন। ফলশ্রুতিতে আমরা তরুণ লেখক গোষ্ঠী নামে সাহিত্য সংগঠনটি করেছিলাম।

এ্ সংগঠনের অন্যান্য সদস্যরা ছিলেন আজিজুল হক এরশাদ, সাজেদুল ইসলাম, শহীদুল ইসলাম, সাধন সাহা, বিকাশ মজুমদার, আবিদ আজাদ, আশুতোষ ভৌমিক ও আরো অনেকে। আমাদের সংগঠন থেকে তখন আমরা ‘সংবর্ত্ত’, ‘ইদানিং’ ইত্যাদি বেশ ক’টি সাহিত্য সাময়িকী বের করেছিলাম।

১৯৬৭ সালে আমি গুরুদয়াল কলেজ ছাত্র সংসদের খেলাধুলা সম্পাদক নির্বাচিত হই। ওই সময় ইন্টার ক্লাস ফুটবল প্রতিযোগিতায় আমাদের ইন্টারমিডিয়েট দ্বিতীয় বর্ষ চ্যাম্পিয়ান হয়েছিল। ফাইনাল খেলায় এতে আমি সেরা ফুটবলার হিসেবে ট্রফি পাই। এর পর সবার অনুরোধে আমাকে ছাত্র ইউনিয়নের প্যানেল থেকে ছাত্রসংসদ নির্বাচন করতে হয়। এতে আমি ছাত্রলীগের পার্থীকে পরাজিত করে খেলাধুলা সম্পাদক হিসেবে জয়ী হই।

এসময় কিশোরগঞ্জ পুরাতন স্টেডিয়ামে মহকুমা ফুটবল লীগ শুরু হয়। ছাত্র সংসদ সিদ্ধান্ত নেয় ওই প্রতিযোগিতায় কলেজ ফুটবল দল অংশ গ্রহণ করার। যথাবিহিত খেলা শুরু হয় এবং একসময় আমাদের দল ফাইনালে পৌছে যায়।

মনে আছে ফাইনাল খেলাটি ছিল তৎকালীন যশোদল সুগার মিল ফুটবল দলের সঙ্গে। আমাদের প্রতিদ্বন্দ্বী দলটি ফাইনালে ঢাকা থেকে নামি-দামি খেলোয়ার নিয়ে আসে। তখন আমাদেরকেও  ঢাকা থেকে ক’জন ফুটবলার আনতে হয়।

কিন্তু কলেজ সংসদের তখন এত টাকা ছিল না। এ অবস্থায় কলেজের শিক্ষার্থীরা নিজেরা উদ্যোগী হয়ে ক্লাসে ক্লাসে চাঁদা সংগ্রহ করা শুরু করে। এভাবে চাঁদা তুলে শিক্ষার্থীরা আমাদের সাহায্য করেছিল। আমরা ফাইনালে সুগার মিল ফুটবল (চাঁদ-তারা) দলকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়নের গৌরব অর্জণ করেছিলাম। ওই সময় খেলাধুলা সম্পাদক হিসেবে আমাকেই এর নেতৃত্ব দিতে হয়েছিল।

১৯৬৮ সালের ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ছাত্র ইউনিয়ন আমাকে সাধারণ সম্পাদক পদে দাঁড় করায়। কিন্তু সেই নির্বাচনে আমি ছাত্রলীগের প্রার্থীর কাছে পরাজিত হই।  ওইসব সোনালি অতীতের কথা মনে হলে হৃদয়ে এখনো শিহরণ জাগে।

গুরুদয়াল কলেজের এসটি হল, সিএস হল এবং জিআরসহ সারিসারি হল, কলেজ ক্যান্টিন ও বিশাল মাঠের সঙ্গে মিশে আছে আমার কলেজ জীবনের বহু সুখ, সংগ্রাম, সাফল্য-ব্যর্থতা ও বন্ধুদের সাহচর্যের রোমাঞ্চকর স্মৃতি- যা ভুলা যায় না। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর