কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যায় হোতা পিয়াস গ্রেপ্তার


 স্টাফ রিপোর্টার | ২১ জুলাই ২০১৯, রবিবার, ১:৫৩ | বিশেষ সংবাদ 


পাকুন্দিয়া উপজেলার গাংধোয়ারচর গ্রামে নানাবাড়িতে নবম শ্রেণির ছাত্রী স্মৃতি আক্তার রিমা (১৪) কে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় মূল হোতা পিয়াস মিয়া (১৮) কে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। র‌্যাব-১৪, সিপিসি-২, কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের কোম্পানী অধিনায়ক লে. কমান্ডার, বিএন এম শোভন খান এর নেতৃত্বে র‌্যাবের একটি চৌকস দল চট্টগ্রামের পশ্চিম মাদার বাড়ি এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তার হওয়া পিয়াস মিয়া পাকুন্দিয়া উপজেলার চরফরাদী গ্রামের রুবেল মিয়ার ছেলে। সে রিমা ধর্ষণ-হত্যায় দায়ের করা মামলার ২নং আসামি।

রোববার (২১ জুলাই) দুপুরে র‌্যাব-১৪, সিপিসি-২, কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে কোম্পানী অধিনায়ক লে. কমান্ডার, বিএন এম শোভন খান জানান, গত ১৭ জুলাই দিবাগত রাতে পাকুন্দিয়া উপজেলার গাংধোয়ারচর এলাকায় নবম শ্রেণির স্কুল ছাত্রী নানার বাড়ি বেড়াতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার হয়।

ঘটনার পর পরই র‌্যাবের একটি চৌকস দল ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ছায়া তদন্ত শুরু করে। এ সংক্রান্ত তথ্য-উপাত্ত এর মাধ্যমে ঘটনায় জড়িত আসামিদের সনাক্ত করে গ্রেপ্তারের জোর প্রচেষ্টা চালায়।

এরই ধারাবাহিকতায় এ ঘটনায় মূল পরিকল্পনাকারী ধর্ষণের সাথে সরাসরি জড়িত এজাহারনামীয় ২নং আসামি পিয়াস মিয়াকে শনিবার (২০শে জুলাই) দিবাগত রাত ২টার দিকে চট্টগ্রামের পশ্চিম মাদার বাড়ি এলাকায় অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করে।

র‌্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পিয়াস ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে।

জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায়, ঘটনার রাত্রে সে সুকৌশলে স্কুল ছাত্রীকে বাড়ি থেকে ডেকে প্রথমে নিজে ধর্ষণ করে এবং পরে তার ঘনিষ্ঠ বন্ধুদেরকে নিয়ে গণধর্ষণ করে।

এ ঘটনায় জড়িত অন্যদের ধরতে র‌্যাবের অভিযান চলমান রয়েছে বলেও র‌্যাবের এই কোম্পানী অধিনায়ক জানান।

নিহত স্মৃতি আক্তার রিমা পার্শ্ববর্তী হোসেনপুর উপজেলার জামাইল গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের কন্যা ও হোসেনপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে নবম শ্রেণির ছাত্রী।

গত বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সকাল ১১টার দিকে পাকুন্দিয়া উপজেলার চরফরাদী ইউনিয়নের গাংধোয়ারচর গ্রামে নানার বাড়ির পাশে পুকুর পাড়ের একটি বরই গাছের ডালে ঝুলন্ত অবস্থায় কিশোরীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় পরদিন শুক্রবার (১৯ জুলাই) রাতে নিহতের মা আঙ্গুরা খাতুন বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে পাকুন্দিয়া থানায় মামলা (নং-৮) দায়ের করেন।

মামলায় একই উপজেলার চরফরাদী গ্রামের খুরশিদ মিয়ার ছেলে জাহিদ মিয়া, রুবেল মিয়ার ছেলে পিয়াস মিয়া, ফারুক মিয়ার ছেলে রুমান মিয়া ও কফুল উদ্দিনের ছেলে রাজু মিয়াসহ অজ্ঞাত আরও ৫-৬জনকে আসামি করা হয়েছে।

ভিডিও:




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর