কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


জাহেদের চা স্টলের আড্ডা


 মু আ লতিফ | ২১ জুলাই ২০১৯, রবিবার, ১২:০৫ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


একটি স্মৃতিময় স্থানের কথা আজো আমার মনে আছে। সেটি হলো জাহেদের চা-স্টল । এটি ছিল তখনকার দিনে ছাত্র রাজনীতির মিনি মন্ত্রণালয়। কারণ এখানে বসেই ছাত্র রাজনীতির প্রাথমিক কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ণ করা হতো।

বিশেষ করে ছাত্র ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দের আড্ডা জমতো এখানেই। তৎকালে ছাত্র ইউনিয়ন মানেই সৎ, চরিত্রবান, মেধাবি, সচেতন ও প্রগতিশীল একদল তরুণের সমাহার।

রঙমহল সিনেমা হলের পাশেই অবস্থিত জাহেদের চা-স্টলে রাতদিন চা- সিঙ্গারা খাওয়ার পাশাপাশি আন্দোলনের পরিকল্পনা নিয়ে ছাত্র নেতৃবৃন্দের মধ্যে চলতো শলা পরামর্শ। সেখানে বসেই তৈরি হতো খসরা  কর্মসূচি। পরবর্তীতে দলীয়ভাবে এই খসরা কর্মসূচি বিশ্লেষণ ও পর্যালোচনা করে চুড়ান্ত করা হতো।

১৯৬৯ সালে দেশব্যপী ১১ দফার আন্দোলন চলছিল। ওই দিনগুলোতে ছাত্র নেতৃবৃন্দের পদচারণায় জাহেদের চা-স্টল প্রায় সব সময় মুখরিত থাকতো। এখানে ন্যাপ নেতা কাজী আবদুল বারী, কমিউনিস্ট নেতা তাড়াইলের আবদুর রাজ্জাক ভুইয়া ও  গঙ্গেশ সরকার, মানিকখালির বীর আবদুল মান্নান প্রায়ই আমাদের সঙ্গে আড্ডা দিতেন। এঁরা প্রত্যেকেই রাজনীতি করতে গিয়ে জেল খেটেছেন।

আইয়ুবের মার্শাল ল’র সময় কমরেড কাজী বারীকে জেলে নিয়ে বেত্রাঘাত করায় তাঁর শ্রবণশক্তি নষ্ট হয়ে যায়। এত জুলুম নির্যাতন সত্বেও রাজনীতিবিদগণ কখনো জনগণ থেকে বিচ্যুত হননি।

জাহেদের চা-স্টলের সামনেই ছিল নিরাময় ফার্মেসী। এর পেছনেই থাকতেন জননেতা জমিয়ত আলী। তিনি ন্যাপের নেতা ছিলেন। আমরা যারা ছাত্র রাজনীতি করি তাদেরকে শ্রদ্ধেয় জমিয়ত আলী খুব স্নেহ করতেন। তিনি আজীবন অসাম্প্রদায়িক রাজনীতি ও শোষনের বিরুদ্ধে কথা বলেছেন।

এখানকার আড্ডায় ছাত্র ইউনিয়ন (মতিয়া) এর নেতাদের মধ্যে মিজান ভাই, রতন, মশিহুর, নির্মল, দীপক, বিমলাংশু রায়, বিকাশ মজুমদার, আমিরুল ইসলাম, ইফতেখার আহমেদ খসরু, দোলন ভৌমিক, অশোক সরকার, গোলাম হায়দার, হাবিবুর রহমান মুক্তু, হারুন অর রশিদ সহ অনেকেই।

যাক, যে কথা বলছিলাম ওই সময় জাহেদের চা-স্টলের গরম সিঙ্গারা ও চায়ের কাপে বইতো রাজনীতির তুফান। জাহেদ খুবই সহজ-সরল প্রকৃতির মানুষ। ছাত্র নেতৃবৃন্দের শত আবদার সহজেই সে কবুল করতো। কোন অভিযোগ তার স্বভাবে কখনো দেখা যায়নি।

জাহেদ ২০ গজ পূবে একটি প্রায় ভাঙ্গা ঘরে কিছুদিন আগেও চা-স্টল চালাতো। সম্প্রতি জাহেদ সবাইকে কাঁদিয়ে বিদায় নিয়েছে।

দেশ স্বাধীন হয়েছে। তবে জাহেদ আগের মতই সহজ-সরল এবং ঠিক আগের জাহেদই ছিলো। ওই সময় চা-স্টলে তার সঙ্গে তার আর একটি ছোট ভাই ছিল, নাম আহাদ। সেও এখন আর বেঁচে নেই।

তাদের পিতা মো. ছুবেদ আলী  অনেক আগেই গত হয়েছেন। আমরা তাঁকে আবু চাচা বলে ডাকতাম। তিনিও আমাদের খুব স্নেহ করতেন।

এখানে আরো একটি কথা বলতে হয়। কারণ এগুলো ইতিহাসের কথা। ১৯৭১ সালে ২৫ শে মার্চ পাকিস্তানি  হায়েনার দল যখন ঢাকায় নিরস্ত্র মানুষের উপর হামলা করে, এখান থেকেই প্রথম প্রতিবাদের ঝড় উঠেছিল।

জাহেদের চা-স্টল, ছাত্র ইউনিয়ন ও ন্যাপ অফিস থেকে ২৬শে মার্চ প্রতিবাদ মিছিল বের করা হয়েছিল। এতে অংশ নেন ন্যাপনেতা জমিয়ত আলী, তৎকালীন ছাত্রনেতা অশোক সরকার, ভুপেন্দ্র ভৌমিক দোলন,একেএম নুরুন্নবী বাদল, বিমলাংশু রায়, হাবিবুর রহমান মুক্তু, গোলাম হায়দার, আলী আসগর স্বপন, আকবর হোসেন খান, নূর হোসেনসহ আরো অনেকেই।

ওই মিছিলে জাহেদের ভাই আহাদও অংশ গ্রহণ করেছিল। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর