কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মানুষের মাঝে হৃদ্যতা কমেছে


 মু আ লতিফ | ২০ জুলাই ২০১৯, শনিবার, ১২:৩৭ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


বর্তমান স্টেশন রোডের খেলাঘরের পশ্চিমেই ছিলো রায় ব্রাদার্স নামে একটি প্রতিষ্ঠান। এর স্বত্বাধিকারী ছিলেন শচিন্দ্র কিশোর রায়। প্রতিষ্ঠানটি স্টেশনারি দোকান হিসেবে প্রসিদ্ধ ছিলো।

পরবর্তীতে কাজী মোহসিন, যিনি পৌরসভার কমিশনার নির্বাচিত হয়েছিলেন- এই দোকানটি কিনে নেন। ফলে রায় ব্রাদার্সের অস্তিত্ব বিলুপ্ত হয়। এখন সেখানে মিষ্টির দোকান ও সেলুন হয়েছে।

তখনকার দিনে শহরের হিন্দু সম্প্রদায়ের সম্ভ্রান্ত ব্যক্তিবর্গ এ দোকানে আড্ডা জমাতেন। বিকাল অথবা সন্ধ্যার পর অনেককেই এখানে গল্প-গুজবে মগ্ন হতে দেখা যেতো।

কিশোরগঞ্জ শহর বলতে আমরা এখন যা দেখছি তখন ততটা বড় ছিল না। সরু রাস্তা, বেশিরভাগ চালা ও টিনসেডের দোকানঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর এত জৌলুসও ছিল না। বহুতল বাড়িঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ছিলই না।

অল্প কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছিল মাত্র। সড়কগুলো লাগতো ফাঁকা ফাঁকা। সড়কের পাশে গাছ গাছালি আর সবুজের হাতছানি। আর শহরের এধারে ওধারে ছিলো খাল বিল ও পুকুর। পুকুরে পদ্মফুল,শাপলা শালুকের ঝিলিমিলি আর স্বেতশুভ্র হাঁসদলের সাঁতার কাটার অপরূপ দৃশ্য।

সবই ছিল যেন খোলামেলা, প্রাকৃতিক ও মনোরম পরিবেশ। এখন অনেক পরিবর্তন হয়েছে। শহরে ৪-৫ টি কলেজ হয়েছে, হাসপাতালের বেড সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে, নার্সিং ইনস্টিটিউট হয়েছে, মেডিকেল কলেজ হয়েছে, প্রাইভেট ক্লিনিক হয়েছে, অফিসের সংখ্যা বেড়েছে, বড় বড় শপিং কমপ্লেক্স হয়েছে।

মানুষের জীবনে আধুনিকতার ছোঁয়া লেগেছে, মানুষ বেশি করে আরো তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর হয়ে ওঠছে। অর্থাৎ সময়ের চাহিদা অনুযায়ী সবই বেড়ে ওঠছে।

আগে শহরে লোকসংখ্যাও ছিল কম। হাতেগোনা কজন ব্যক্তির শহরে বেশ দাপট ছিল। তাদের মধ্যে শোলাকিয়ার বাদশা মিয়া ও তারা মিয়া দুই ভাই ছিলেন। শোলাকিয়াবাসীর কাছে তাঁরা ছিলেন বেশ জনপ্রিয়। দীর্ঘদিন মিউনিসিপ্যালিটির প্রতিনিধি হিসেবে উভয়ই দায়িত্ব পালন করেছেন।

শহরে আরো বেশ কজন নেতৃস্থানীয় ব্যক্তি ছিলেন। তাদের মধ্যে আমার যতদূর মনে পড়ে তাড়ইলের উকিল আবদুল ওয়াদুদ চৌধুরী, ওয়ালী নেওয়াজ খান, আবদুল আলী মেনু মিঞা, মাওলানা আতহার আলী, ডা. শরফুদ্দিন বাদশা মিয়া, ডা. প্রফুল্লচন্দ্র বীর, ডা. প্রভাত চক্রবর্তী, এমদাদুল হক মতি মিয়া, সিরাজ মিয়া, শৈলেন্দ্র শেখর সরকার কালু বাবু, আশরাফউদ্দিন খান মিল্কী, আবদুল আউয়াল খান, আফতাবউদ্দিন মাস্টার, উকিল আবদুল আজিজ খাঁ, ডা. জে.বি রায় এর নাম উল্লেখ করা যায়। এঁরা প্রত্যেকেই এ জনপদের উন্নয়নে কম-বেশি অবদান রেখেছেন।

১৯৫৬ সালে এদেশে ভয়াবহ বন্যা হয়েছিল। সে সময় গৌরাঙ্গবাজার রাস্তা বন্যার পানিতে তলিয়ে যায়। আমি তখন ছোট। ডিঙ্গি নৌকায় চড়ে আমাদের লাইব্রেরিতে যাতায়াত করেছি আমার বেশ মনে আছে।

এরপর যতবার বন্যা হয়েছে কখনো গৌরাঙ্গ বাজারের রাস্তা তলিয়ে যেতে দেখিনি। আগে সন্ধ্যা হলেই শহরে কোলাহল কমে যেত। গৌরাঙ্গবাজার মোড়ে দাঁড়িয়ে পূর্বে পুরানথানার দিকে তাকালে রাস্তার প্রায় সবটুকুই ফাঁক ফাঁকা লাগতো। মনে হতো সমগ্র শহরটাই যেন ঝিমিয়ে পড়েছে।

আজকে এমনটা কল্পনা করাও কঠিন। তখনকার সময় পৌর কর্তৃপক্ষ রাস্তার মোড়ে মোড়ে ‘গাছবাতি’ জ্বালিয়ে দিতো রাস্তা আলোকিত করার জন্য। পথচারি ওই আলোতেই রাতে পথ চলতেন। এসব গাছবাতি হ্যারিকেনের চেয়ে বেশী আলো দিতো।

হোটেল মুবারকের পশ্চিম পাশের ঢাকাইয়া গল্লি দিয়ে ছোট বেলায় আমরা নদীতে গোছল করতে যেতাম। ঘন্টার পর ঘন্টা নদীতে সাঁতার কেটে কাটিয়ে দিতাম। নরসুন্দা নাব্য ও খরস্রোতা থাকতো।

তবে গ্রীষ্মকালে নরসুন্দায় চর পড়তো। ওই সময় আমরা ওই চরে মারবেল খেলতাম। ঢাকাইয়া গল্লি দিয়ে প্রবেশ করে চরের উপর দিয়ে পুরানথানা বাজার হয়ে তখন অবাদে যাওয়া আসা করা যেত। এসব কথা বললে বর্তমান প্রজন্মের সদস্যরা হয়তো বিশ্বাসই করতে চাইবে না।

আজকের মানুষের জীবন এতটাই ফার্স্ট হয়েছে যে, কেউ কারো নয়। পাশাপাশি থেকেও অনেকের সঙ্গে দেখা সাক্ষাতই হয় না। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর