কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জ সদরের বধ্যভূমি: বর্বরতার জীবন্ত সাক্ষ্য (শেষ পর্ব)


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ১৫ জুলাই ২০১৯, সোমবার, ৯:২৩ | মুক্তিযুদ্ধ 


কিশোরগঞ্জ শহরের বর্ধিষ্ণু একটি জনপদের নাম মণিপুরঘাট। মূল শহরের বড়বাজার এলাকা থেকে এক কিলোমিটার দক্ষিণে এই এলাকার অবস্থান। জনশ্রুতি মতে একসময় নরসুন্দা নদীপথে ভারতের মণিপুর এলাকা থেকে বড় বড় ব্যবসায়ীরা ব্যবসার প্রয়োজনে কিশোরগঞ্জে আসতেন।

তারা শহরতলীর এই স্থানটিতে বাণিজ্যতরী নোঙর করতেন বলে এলাকাটি ধীরে ধীরে মণিপুরঘাট নামে পরিচিত হয়ে ওঠে। এখানে নরসুন্দা নদীর ওপর একটি পাকা ব্রিজ নির্মিত ছিল। কিশোরগঞ্জ রেলস্টেশন সংলগ্ন জেলা পরিষদের ডাকবাংলোতে অবস্থিত হানাদার পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর মূল কার্যালয় ও টর্চার সেল থেকে আধা কিলোমিটার পশ্চিমে এই ব্রিজের অবস্থান।

মুক্তিযুদ্ধকালে জুন মাস থেকে নভেম্বর মাসের শেষ সময় পর্যন্ত দখলদার পাকিস্তানি সেনারা এই ব্রিজে অন্তত ১২ জন নিরীহ বাঙালিকে হত্যা করেছে বলে জানা যায়। নিহত ১২ জনের মধ্যে মাত্র ৪ জনের পরিচয় উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে।

উল্লেখ্য যে, আজ অবধি এই বধ্যভূমিতে কোনো স্মৃতিফলক নির্মিত হয়নি এবং বধ্যভূমিটি সংরক্ষণেরও কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। মণিপুরঘাট বধ্যভূমিতে শহিদ হওয়া ৪ হতভাগ্যের নাম-পরিচয় নিম্নে তুলে ধরা হলো:

ক্র.নং    শহীদের নাম    পিতা/স্বামীর নাম    গ্রামের নাম    বয়স
০১.    কার্তিক নাথ    শিবা নাথ    গ্রাম-প্যারাভাঙ্গা, কিশোরগঞ্জ সদর    ৪৫
০২.    আব্দুস ছাত্তার গন্ধি    পিয়ার বক্স গন্ধী    গ্রাম-বত্রিশ, নূরানী সড়ক, কিশোরগঞ্জ শহর    ৪৫
০৩.    আঃ রাশিদ ভূঁইয়া    জমধর ভূঁইয়া    গ্রাম-স্বল্পমারিয়া (ভূঁইয়াবাড়ি), কিশোরগঞ্জ সদর    ৪৫
০৪.    মোজাফ্ফর আলী    ইদু শেখ    গ্রাম-বগাদিয়া, কিশোরগঞ্জ     ৪০

যশোদল গ্রামে নরসুন্দা নদীরপাড় বধ্যভূমি:
কিশোরগঞ্জ রেলস্টেশন থেকে দক্ষিণ-পূর্বদিকে নিকলী উপজেলাগামী পাকা সড়ক ধরে আনুমানিক ২ কিলোমিটার অগ্রসর হলেই তদানীন্তন  ন্যাশনাল সুগার মিল (অধুনালুপ্ত) ও কিশোরগঞ্জ টেক্সটাইল মিলের অবস্থান। কিশোরগঞ্জ টেক্সটাইল মিল বর্তমানে বন্ধ আছে। এখানে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান (র‌্যাব)-এর অস্থায়ী দপ্তর স্থাপন করা হয়েছে।

অন্যদিকে ন্যাশনাল সুগার মিলটি স্বাধীনতার অব্যবহিত পরেই চিরস্থায়ীভাবে বন্ধ হয়ে যায়। সুগার মিলের পরিত্যক্ত অফিস ভবনে বর্তমানে শহিদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ গড়ে উঠেছে।

বিশাল এই স্থাপনার পশ্চিমপাশ ঘেঁষে বয়ে চলেছে এককালের খরস্রোতা নরসুন্দা নদী। এলাকাটি কিশোরগঞ্জ পৌরসভার দক্ষিণ-পূর্বদিকের শেষ সীমানায় যশোদল ইউনিয়নের একটি ছোট্ট জনপদ। শহর থেকে পায়ে হেঁটে, রিকশায় কিংবা ইজিবাইকে সহজে এখানে যাওয়া যায়।

ন্যাশনাল সুগার মিল ও কিশোরগঞ্জ টেক্সটাইল মিল সংলগ্ন (হালে শহিদ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ সংলগ্ন) এই স্থানটিতে জনৈক জুবেদ বেপারীর বাড়ির কাছে নরসুন্দা নদীর ওপর একটি ব্রিজ রয়েছে। হানাদার পাকিস্তানি সেনারা এই ব্রিজের পাশে নরসুন্দা নদীর পাড়ে ৭ থেকে ৮ জন নিরীহ বাঙালিকে নির্মমভাবে হত্যা করে এবং লাশগুলো নদীতে ভাসিয়ে দেয়।

১৯৭১-এর আগস্ট থেকে অক্টোবর মাসের মধ্যে ৩ দফায় এখানে হত্যাযজ্ঞ চালানো হয় বলে এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়। এখানে বধ্যভূমির কোনো স্মৃতিফলক নির্মাণ করা হয়নি এবং এ বধ্যভূমিটি সংরক্ষণেরও কোনো উদ্যোগ লক্ষ করা যায় না। নিহত শহিদদের পরিচয় অনেক সন্ধান করেও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

গণকবর:
কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় একমাত্র একটি গণকবরের সন্ধান পাওয়া গেছে। কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ সড়কপথের পুলিশ লাইন্স সংলগ্ন মহাসড়কে বড়পুল বধ্যভূমির অবস্থান। শহর থেকে এ স্থানের দূরত্ব মাত্র ৩ কি.মি.।

মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় জুলাই থেকে অক্টোবর মাসের মধ্যে এই বধ্যভূমিতে হানাদার পাকিস্তানি সেনারা ৩ দফায় অন্তত ৩৫ জন নিরীহ বাঙালিকে হত্যা করে। প্রথম দফায় জুলাই মাসের মাঝামাঝি সময়ে যে সকল বাঙালিকে হানাদার পাকিস্তানি সেনারা এই বড়পুলে হত্যা করে তাদের সকলের লাশ পুলের নিচে বহমান খালের প্রবল স্রোতে পূর্বদিকে ভাস্করখিলা বিলের মাঝখানে গিয়ে ভাসতে থাকে।

বিলের দৈর্ঘ্য-প্রস্থ এতো বিশাল ছিল যে কারো পক্ষেই সেই বিলের মাঝখান থেকে লাশ উদ্ধার করা সম্ভব ছিল না। ফলে লাশগুলো বিলের পানিতেই পঁচে-গলে একাকার হয়ে যায়। পরবর্তী সময়ে বর্ষা মওসুম চলে যাবার পর অক্টোবর মাসের প্রথমদিকে হানাদার বাহিনী ২য় দফায় আরও ৭ জন নিরীহ বাঙালিকে একসাথে বেঁধে এই পুলে হত্যা করে।

এই সকল লাশ ভেসে ভেসে খালের পূর্ব মাথায় বিশ্বনাথ ব্রিজের কাছে (সার্কিট হাউজের পাশ দিয়ে মুকসেদপুর হয়ে কাটাবাড়িয়া গ্রামের সাথে সংযুক্ত রাস্তার ওপর নির্মিত ব্রিজ, যা স্থানীয় ভাষায় বিছনার পুল নামে পরিচিত) আটকে গেলে এলাকাবাসী পরিবেশ রক্ষার স্বার্থে লাশগুলো উদ্ধার করে এবং পাশের ‘বড়দিঘি’ নামে খ্যাত বিশাল পুকুরের পূর্বদিকে চিতাশালের (শ্মশানের) কাছে মাটিচাপা দেয়।

অতঃপর নভেম্বর মাসের শেষদিকে হানাদার পাকিস্তানি সেনারা আরও ৬ জন নিরীহ বাঙালিকে ৩য় দফায় এই ব্রিজে (বড়পুলে) এনে হত্যা করে। এই সকল লাশও খাল দিয়ে ভেসে বিছনার পুলের কাছে আট্কে গেলে এলাকাবাসী লাশগুলো উদ্ধার করে একই স্থানে (চিতাশালের পাশে) মাটিচাপা দেয়।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার একমাত্র গণকবরটি সংরক্ষণের অভাবে আজ অস্তিত্বহীন হয়ে পড়েছে। নতুন প্রজন্ম জানেও না মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় এই স্থানে দুই দফায় ১৩টি লাশকে সমাহিত করা হয়েছিল।

উল্লেখ্য যে, এই গণকবরটি কিশোরগঞ্জ শহর থেকে ৩ কিলোমিটার উত্তরদিকে লতিবাবাদ ইউনিয়নের কাটাবাড়িয়া গ্রামের বিখ্যাত বড়দিঘির পূর্বপাড়ে অবস্থিত। শহর থেকে মূল সড়ক ধরে বড়পুল হয়ে রিক্শা বা ইজিবাইকে সহজে এখানে যাওয়া যায়।

এছাড়াও কিশোরগঞ্জ সার্কিট হাউজের পূর্বপাশ দিয়ে জেমিনি টেক্সটাইল মিল রোড ধরে মুকসেদপুর গ্রাম হয়ে এই স্থানে রিক্শা বা ইজিবাইকে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে। এটিও বর্তমানে পাকা রাস্তা।

তথ্যসূত্র:
১। রক্তে ভেজা কিশোরগঞ্জ, লেখক- জাহাঙ্গীর আলম জাহান, প্রকাশকাল-২০০১, প্রকাশক- দৃশ্যপট ’৭১ (মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক গবেষণা ও সাহিত্য কেন্দ্র), কিশোরগঞ্জ, মহান মুক্তিযুদ্ধে কিশোরগঞ্জ জেলার সকল শহীদের সচিত্র বিবরণ সম্বলিত ৫০০ পৃষ্ঠার বই)

২। কিশোরগঞ্জ জেলার মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, লেখক- জাহাঙ্গীর আলম জাহান, প্রকাশকাল- ২০১১, প্রকাশক- গতিধারা, বাংলাবাজার, ঢাকা।

৩। মোঃ আজিজুল হক, অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক, আজিমউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়, কিশোরগঞ্জ-এর সাথে কথোপকথন।

৪। মোঃ শহিদুল ইসলাম ভূঁইয়া, সহ-অধ্যাপক, মাথিয়া সিনিয়র মাদ্রাসা, কিশোরগঞ্জ সদর-এর সাথে কথোপকথন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর