কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মদনে এক সড়কে সাত ব্রিজ, আসছে না কাজে, যান চলাচল বন্ধ


 মো. সাকের খান, মদন, নেত্রকোনা | ১৪ জুলাই ২০১৯, রবিবার, ৫:০৯ | ময়মনসিংহ-নেত্রকোনা 


নেত্রকোনার মদন উপজেলার মদন বৈশ্যবাড়ি থেকে ফতেপুর দেওয়ানবাড়ি পর্যন্ত ১০ কিলোমিটার এলজিইডি কাচাঁ  সড়কের  সংস্কার না করায় ৭টি ব্রিজ কাজে আসছে না। ফলে যাতায়াত নিয়ে দুর্ভোগে পড়েছেন এলাকাবাসী।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, এ সড়কে অধিকাংশ লোক যাতায়াত বন্ধ রাখলেও কয়েকটি গ্রামের শিক্ষার্থী ও  লোকজনকে চরম দুর্ভোগের মধ্যে যাতায়াত করতে হচ্ছে। এর মধ্যে মধ্যে ৬ কিলোমিটার রাস্তাই কাঁচা ভাঙাচোরা। পৌরসভার কিছু অংশ পাকা থাকলেও সেটিও ভাঙাচোরা। কোন যানবাহন চলার সুযোগ নেই এ সড়কে।

আকাশে মেঘ দেখলেই  থেমে যায়  শিশুদের বিদ্যালয়ে আসা যাওয়া। দল বেঁধে বিদ্যালয়ে যেতে আসতে হয়। একা একা পায়ে হেঁটে বিদ্যালয়ে যেতে ভয় পায় শিশুরা। বিকেল হওয়ার আগেই আসতে হয় গন্তব্যে। এ নিয়ে অভিভাবকরা থাকেন উদ্বিগ্ন।

উপজেলার সদর থেকে  ৫/৬ কিলোমিটার দূরে ফেকনি, মাধবপুর, বৈঠাখালী, বাধাগাতি গ্রামে কোন মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নেই। ফলে যে কোন মূল্যে তাদের উপজেলা সদরে আসতে হয়।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, জনপ্রতিনিধিরা নির্বাচনের সময়েই আসেন এসব এলাকায়। পরে তাদের আর কোন দিন  এলাকায় দেখা মেলে না। তাদের দুঃখ-দুর্দশার কথা কেউ শোনেও না।

নেত্রকোনার  মদন উপজেলার পৌরসভাসহ মদন সদর ইউনিয়নের ফেকনি, বৈঠাখালী, তিয়শ্রী, বাদাতি পর্যন্ত প্রায় ৬ কিলোমিটার সড়ক চলাচলের সম্পূর্ণ অযোগ্য। এ রাস্তা দিয়ে এক সময় কয়েক হাজার লোকের যাতায়াত  ছিল। এ রাস্তায় রয়েছে ৭টি ব্রিজ। এলাকাবাসী জানান, এ ব্রিজগুলো এখন আর কাজে আসছে না।

ভাঙাচোরা দশা ও খানাখন্দের কারণে রাস্তাটিতে যানবাহন  চলাচল  দূরের কথা পায়ে হেটেও চলাচল দুষ্কর হয়ে পড়েছে।

সম্প্রতি সরেজমিনে ওই সড়কে গিয়ে দেখা যায়, এ রাস্তায় ৭টি ব্রিজ রয়েছে। ব্রিজগুলোতে এপ্রোচ না থাকায় অকেজো অবস্থায় রয়েছে। গোটা রাস্তাতেই অসংখ্য গর্ত রয়েছে।

ভূক্তভোগী ফেকনি গ্রামের তাইজুল ইসলাম মাষ্টার, সাকিল মিয়া, বৈঠাখালী গ্রামের জসিম উদ্দিন, রহিছ মিয়া, ইসলাম উদ্দিন জানান, কাচাঁ এ রাস্তাটি মূলত এলজিইডি’র। প্রায় ১৭/১৮ বছর যাবৎ কোন সংস্কার না করায় সড়কটির এ হাল হয়েছে। এতে সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। জরুরী প্রয়োজনে ওই পথে বাইসাইকেল, ভ্যানরিকশা, মোটর সাইকেলে চলাচল করলেও সেগুলোও হরহামেশাই দুর্ঘটনায় পড়তে হয়।

বিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থী তন্বী, আশা মনি, মারিয়া আক্তার জানায়, আমরা প্রতিদিন ৫ কিলোমিটার হেঁটে যাই। বৃষ্টি হলে আর যেতে পারি না। বিদ্যালয়ে থাকা অবস্থায় বৃষ্টি হলে অনেক কষ্টে বাড়ি যেতে হয়। এতে মা বাবা চিন্তিত থাকেন। আমরা নিয়মিত বিদ্যালয়ে আসতে পারি না। ইচ্ছা করলে বিদ্যালয়ে একা একা যেতে পারি না। একা আসলে মনের মধ্যে সব সময় ভয় থাকে। কখন বাড়ি আসব। আমরা চাই জরুরী ভিত্তিতে এ কাঁচা সড়কটি পাকা করে দেয়া হোক।

মদন সদর ইউপি চেয়ারম্যান বদরুজ্জামান মানিক বলেন, আমার সদর ইউনিয়নে তিনটি গ্রামই অবহেলিত। এ সব এলাকার মানুষ আরো বেশি অবহেলিত। রাস্তা থাকার পরেও তারা কষ্টে আছে। আগামী বৎসর অবশ্যই এ রাস্তার জন্য আমি বরাদ্দ দেব।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর