কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জ সদরের বধ্যভূমি: বর্বরতার জীবন্ত সাক্ষ্য


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ১৩ জুলাই ২০১৯, শনিবার, ৯:৫৩ | মুক্তিযুদ্ধ 


মহান মুক্তিযুদ্ধের নয় মাসে দখলদার পাকিস্তানি সেনাবাহিনী তাদের এদেশিয় দোসর রাজাকার, আল-বদর ও আল-সামস বাহিনীর সহায়তায় দেশব্যাপী বর্বরোচিত গণহত্যা চালিয়েছে। বিনাদোষে নিরীহ বাঙালিদের ধরে এনে ধৃতদের দলবদ্ধভাবে বিভিন্ন ব্রিজে, নদীর পাড়ে অথবা নির্জন খোলা জায়গায় নিষ্ঠুরভাবে  হত্যা করে।

হত্যাকাণ্ডের সেই স্থানগুলোকে স্বাধীনতার পর বধ্যভূমি হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। সারা বাংলাদেশের ন্যায় কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলাতেও এ-রকম অনেক বধ্যভূমি রয়েছে। বক্ষমান নিবন্ধে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ৭টি বধ্যভূমি ও ১টি গণকবরের বিস্তারিত বিবরণ তুলে ধরা হলো।

বরইতলা বধ্যভূমি: কিশোরগঞ্জ শহরের দক্ষিণ-পূর্বদিকে আনুমানিক ৬ কিলোমিটার দূরে বরইতলার অবস্থান। কিশোরগঞ্জ রেলস্টেশনের পাশ দিয়ে নিকলী উপজেলার দিকে যে পাকা রাস্তাটি চলে গেছে সেই রাস্তা ধরে বরইতলায় যেতে হয়। এটি সদর উপজেলার কর্শাকড়িয়াইল ইউনিয়নে অবস্থিত। শহরের একরামপুর মোড়, বিওসি’র মোড় ও রেলস্টেশনের সামনে থেকে রিকশা, সিএনজি বা ইজিবাইকে অতিসহজে বরইতলা বধ্যভূমিতে যাওয়া যায়।

১৯৭১-এর ১৩ অক্টোবর বুধবার দুপুর আনুমানিক আড়াইটার দিকে ৩ বগি সম্বলিত একটি বিশেষ ট্রেনে চড়ে ১৫/২০ জন কালো পোশাকধারী পাক মিলিশিয়া ও খাকী পোশাকধারী একই সংখ্যক রাজাকার কিশোরগঞ্জ থেকে যশোদল রেলস্টেশন পার হয়ে বরইতলা নামক স্থানে ট্রেনটি দাঁড় করায়। অতঃপর পাক মিলিশিয়া ও রাজাকারের দল ট্রেন থেকে নেমে পার্শ্ববর্তী দামপাড়া গ্রামে ঢুকে পড়ে।

সেখানে জনৈক হাফেজ আব্দুল তৌহিদ নামক ব্যক্তির বাড়িসহ অন্যান্য বাড়িঘরে তারা নির্বিচারে অগ্নিসংযোগ করতে শুরু করে এবং দামপাড়া গ্রামের আব্দুল খালেকের পুত্র আব্দুল মান্নান, জনৈক গুরুদয়াল সরকার (পিতা-অজ্ঞাত)সহ নিম্নগোত্রীয় কডু নমঃদাস ও ডেঙ্গু নমঃদাস নামক দুই নিরীহ হিন্দুকে বিনা কারণে হত্যা করে।

পাক মিলিশিয়া ও রাজাকার দলের এই অপারেশনে ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে দামপাড়া, চিকনীরচর, কালিকাবাড়ি, তিলকনাথপুর ও গোবিন্দপুর গ্রামের প্রায় ৫ শতাধিক নিরীহ বাঙালি বাড়িঘর ছেড়ে কিশোরগঞ্জ আজিমউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মোঃ আজিজুল হকের বাড়ি সংলগ্ন নরসুন্দা নদীর বাঁকে অবস্থিত একটি আঁখখেতে আশ্রয় নেয়। হানাদার মিলিশিয়া ও রাজাকার দল একপর্যায়ে উক্ত আঁখখেতে জড়ো হওয়া সকল বাঙালিকে বরইতলা সংলগ্ন রেললাইনের পাশে এনে সমবেত করে।

এর মধ্যে স্থানীয় দু’জন রাজাকারের ইন্ধনে একজন অতিলোভী পাক মিলিশিয়া লুটপাটের উদ্দেশ্যে নিজেদের দল ছেড়ে গ্রামের ভেতর ঢুকে পড়ে এবং বিভিন্ন বাড়ি থেকে স্বর্ণালঙ্কারসহ টাকা-পয়সা লুট করতে করতে জিনারাই নামক গ্রাম হয়ে শহরতলীর মণিপুরঘাট এলাকা দিয়ে কিশোরগঞ্জ শহরে চলে আসে। তাদের এই চলে আসার বিষয়টি পাক মিলিশিয়া কিংবা রাজাকার দলের অন্য কেউ জানতো না।

হঠাৎ নিজেদের দলে একজন সদস্যের স্বল্পতা দেখে পাক মিলিশিয়ারা চিন্তিত হয়ে পড়ে এবং অন্তর্হিত মিলিশিয়া সদস্যকে খুঁজতে থাকে। এর মধ্যে চিকনীরচর গ্রামের রাজাকার আবুল হাশিম মিলিশিয়া দলের কাছে এ মর্মে একটি মনগড়া তথ্য তুলে ধরে যে, পার্শ্ববর্তী গ্রামের জনগণ উক্ত মিলিশিয়া সদস্যকে হত্যা বা গুম করে ফেলেছে।

এ সংবাদের সত্যতা যাচাই না করেই ক্ষিপ্ত মিলিশিয়া দল বরইতায় জড়ো হওয়া নিরীহ বাঙালিদেরকে লোহার শাবল দিয়ে পিটিয়ে, বেয়নেটে খুঁচিয়ে এবং সবশেষে ব্রাশফায়ারে নৃশংসভাবে হত্যা করে। কিছু বাঙালি নামাজ পড়ার অজুহাতে পার্শ¦বর্তী মসজিদে আশ্রয় নিয়ে প্রাণে বেঁচে যায়। বরইতলার এই হত্যাকাণ্ডে সর্বসাকূল্যে ৩৬৫ জন নিরীহ বাঙালির শহিদ হওয়ার প্রমাণ পাওয়া যায়।

স্বাধীনতার পর এলাকাবাসী উক্ত গণশহিদদের স্মরণে বরইতলা গ্রামের নাম পাল্টিয়ে শহিদনগর নাম রাখেন এবং হত্যাকাণ্ডের স্থানে একটি স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করেন। গত ১৯৯৯-২০০০ সালে কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদের তদানীন্তন সচিব (পরে উপ-সচিব পদমর্যাদার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা) সুভাষ চন্দ্র সরকারের একান্ত আগ্রহে ও জেলা পরিষদের ব্যবস্থাপনায় উক্ত স্থানে গণশহিদদের স্মরণে নির্মিত হয়েছে একটি দৃষ্টিনন্দন স্মৃতিস্তম্ভ।

২০০৮-০৯ অর্থবছরে জেলা পরিষদের সাবেক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বনমালী ভৌমিকের উদ্যোগে এবং এ লেখকের দেয়া তালিকা অনুযায়ী উক্ত মধ্যভূমিতে শহিদদের নাম-ঠিকানা সংবলিত একটি সুউচ্চ স্মৃতিফলক নির্মিত হয়েছে। বধ্যভূমির চারপাশে নির্মাণ করা হয়েছে সীমানা প্রাচীর।

বরইতলার নির্মম গণহত্যার ভয়াবহতা থেকে ভাগ্যক্রমে বেশ কয়েকজন সাধারণ গ্রামবাসী প্রাণে বাঁচতে পেরেছিলেন। তাদের অনেকে এখনও সেই ভয়াবহ স্মৃতি নিয়ে বেঁচে আছেন। তাদেরই একজন দামপাড়া গ্রামের জনৈক আবদুর রহিম। হানাদার ঘাতক বাহিনী যখন বরইতলায় জড়ো করা গ্রামবাসীর উপর নির্বিচারে গুলিবর্ষণ শুরু করে, তখন উক্ত আবদুর রহিম গুলিবিদ্ধ হয়ে পার্শ্ববর্তী বীজতলায় ঝাঁপিয়ে পড়েন এবং জ্ঞান হারিয়ে মৃতের মতো সেখানে পড়ে থাকেন। পরে তার স্বজনেরা তাকে অজ্ঞান ও আহত অবস্থায় সেখান থেকে উদ্ধার করে নিয়ে আসেন। সেই ভয়াবহ স্মৃতির কথা মনে হলে আবদুর রহিম আজও মৃত্যুর হিমশীতল অনুভূতিতে বিষণ্ন হয়ে পড়েন।

দামপাড়া গ্রামের জনৈক ইমান আলী ঘটনাচক্রে সেদিনের সেই মৃত্যুপুরী থেকে অক্ষত অবস্থায় বেঁচে এসেছিলেন। আজও তিনি সেই মৃত্যুর শীতল স্মৃতি নিয়ে বেঁচে আছেন। উক্ত ইমান আলীর পুত্র হাফিজ ঐদিনের ঘটনায় ঘাতক বাহিনী কর্তৃক মাথায় গুলিবিদ্ধ হন। সেই গুলির আঘাতে তার মস্তিষ্কে বিকৃতি দেখা দেয়। অর্থাৎ তিনি পাগল হয়ে যান। আজও উক্ত হাফিজ এলাকায় ‘পাগলা হাফিজ’ নামে পরিচিত।

কালিকাবাড়ি গ্রামের জনৈক আব্দুল মান্নান ঐদিন বরইতলায় ঘাতক বাহিনীর হাতে নৃশংসভাবে প্রাণ হারান। একই দিন একই স্থানে উক্ত আব্দুল মান্নানের পুত্র গিয়াসউদ্দিন মৃতের ভান করে দীর্ঘক্ষণ পড়ে থাকেন। এভাবেই সেদিন গিয়াসউদ্দিন অবধারিত মৃত্যুর হাত থেকে বেঁচে এসেছিলেন। বরইতলার নির্মম গণহত্যার হাত থেকে বেঁচে আসা এইসব প্রত্যক্ষদর্শীরা আজও সেদিনের কথা মনে হলে আতঙ্কে শিউরে ওঠেন।

সময়ের বিবর্তনে বরইতলার গণহত্যায় প্রাণ হারানো সকল শহিদের নাম-ধাম আজ আর খুঁজে পাওয়া সম্ভব নয়। স্থানীয় অধিবাসী ও কিশোরগঞ্জ আজিমউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রবীণ শিক্ষক মো. আজিজুল হক মাস্টারের সাথে কথা বলে এবং শহিদনগরের (বরইতলা) বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. জয়নাল আবেদীন ও মাথিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার প্রভাষক মো. শহীদুল ইসলাম ভুঁইয়া’র তথ্য মতে ওইদিন বরইতলায় ৭৩ জন নিরীহ বাঙালি অকুস্থলে প্রাণ হারান। অপর ৩৭ জন বুলেট ও বেয়নেটের খোঁচায় গুরুতর আহত হয়ে কয়েকদিন পর মৃত্যুবরণ করেন।

১৩ অক্টোবর হানাদার বাহিনীর হাতে নিহত ৭৩ জন এবং আহত ৩৭ জনসহ (পরবর্তী সময়ে যারা মৃত্যুবরণ করেন) মোট ১১০ জন শহিদের পরিচয় নিম্নে তুলে ধরা হলো:

ক্রমিক    শহীদের নাম    পিতা/স্বামীর নাম    গ্রামের নাম    বয়স
০১.    মো. আব্দুল মন্নান    মো. আ. খালেক    দামপাড়া    ৫২
০২.    মো. আ. মোতালিব    মো. জনাব আলী    দামপাড়া    ৬৫
০৩.    মো. আব্দুল কাদির    মো. আ. আজিজ    দামপাড়া    ৫৫
০৪.    মো. সিরাজুল ইসলাম    মো. ফয়েজ উদ্দিন মুন্সী    দামপাড়া    ৪৮
০৫.    মো. আব্দুল মজিদ    মো. খুদ সেক    দামপাড়া    ৬০
০৬.    মো. ফজর আলী    মো. আ. রাজ্জাক    দামপাড়া    ৪২
০৭.    মো. আসাদ মিয়া    মো. আ. ছাত্তার    দামপাড়া    ১৮
০৮.    মো. আব্দুল হাই    মো. আবিদ সেক    দামপাড়া    ৫৫
০৯.    মো. তৈয়ব আলী    আব্দুল সেক    দামপাড়া    ৭০
১০.    মো. হাছেন আলী    আব্দুল সেক    দামপাড়া    ৫৫

১১.    মো. শামসুল হক    মো. হাছেন আলী    দামপাড়া    ২২
১২.    মো. জাহেদ আলী    সৈয়দ আলী    দামপাড়া    ৬০
১৩.    মো. আ. জলিল    মো. কলিম সেক    দামপাড়া    ৬০
১৪.    মো. হাবিবুর রহমান    মো. আলী মুন্সী    দামপাড়া    ৬৮
১৫.    মো. আব্দুর রশিদ    মো. মামুদ আলী    দামপাড়া    ২৫
১৬.    মো. আবু তাহের    মো. শমশের আলী    দামপাড়া    ৪০
১৭.    মো. হাছু মিয়া    মো. আমজত আলী    দামপাড়া    ৪৫
১৮.    গুরুদয়াল নমদাস    সামুরাম নমদাস    দামপাড়া    ৭৫
১৯.    হাফেজ আ. তৌহিদ    মো. আব্বাছ মুন্সী    দামপাড়া    ৭৫
২০.    মো. আা. কাদির    মো. আছির উদ্দিন    দামপাড়া    ২০

২১.    মোমতাজ উদ্দিন    মো. আ. করিম    দামপাড়া    ৪৫
২২.    মো. সুরুজ আলী    মো. আ. হাফিজ মিয়া    দামপাড়া    ৬০
২৩.    মো. রমজান আলী    মো. মামুদ আলী    দামপাড়া    ৫৫
২৪.    মো. আ. জব্বার    মো. আব্দুল জলিল    দামপাড়া    ৪০
২৫.    মো. তৈয়ব আলী    মো. মাসুম আলী    চিকনীরচর    ৩৫
২৬.    মো. রইছ আলী    মো. আইন উল্লাহ    চিকনীরচর    ৫৫
২৭.    মো. আছর আলী    মো. নইমুল্লাহ    চিকনীরচর    ৫০
২৮.    মো. জহুর আলী    মো. আইন উল্লাহ     চিকনীরচর    ৫২
২৯.    মো. জলিল    মো. মন্নান    চিকনীরচর    ২৫
৩০.    মো. আ. হাসিম    মো. আবেদ আলী    চিকনীরচর    ৪৫

৩১.    মো. আইয়ুব আলী    মো. উছেন আলী    চিকনীরচর    ৩২
৩২.    মো. আব্দুল বারিক    মো. একরাম হোসেন    চিকনীরচর    ৬০
৩৩.    মো. ঈমান আলী    মো. তৈয়ব আলী    চিকনীরচর    ৩৫
৩৪.    মো. মীর হোসেন    মো. আছির উদ্দিন    চিকনীরচর    ৫০
৩৫.    মো. মশ্রব আলী    মো. রইছ আলী    চিকনীরচর    ২৮
৩৬.    মো. হুসমাইল    মো. আছমত আলী    চিকনীরচর    ৭২
৩৭.    মো. আ. হাসিম    হাজী মো. ইব্রাহিম    চিকনীরচর    ৩২
৩৮.    মো. মফিজ উদ্দিন    মো. হাছু মিয়া    চিকনীরচর    ২৭
৩৯.    মো. কালু মিয়া    মো. ফজর আলী    চিকনীরচর    ৫৫
৪০.    মো.  কাছম আলী    মো. ছাবিদ সেক    চিকনীরচর    ৫৫

৪১.    মো. শুক্কুর আলী    মো. কিয়ামত আলী    চিকনীরচর    ৩৫
৪২.    মো. আ. হামিদ    মো. নাছির উদ্দিন    চিকনীরচর    ২৮
৪৩.    মো. তমিজ উদ্দিন    মো. আ. মজিত    চিকনীরচর    ৩০
৪৪.    আব্দুল মজিদ সরকার    আবুল হোসেন সরকার    চিকনীরচর    ৭০
৪৫.    মো. সৈয়দ হোসেন    আমীর হোসেন ভূঞা    চিকনীরচর    ৬০
৪৬.    মো. ইনু ভূইয়া    মো. দরবেশ ভূইয়া    চিকনীরচর    ২০
৪৭.    মো. মাহতাব উদ্দিন    মো. শাহনেওয়াজ খান    চিকনীরচর    ২৪
৪৮.    মো. হাছু মিয়া    মো. নানু মিয়া    চিকনীরচর    ৩০
৪৯.    মো. ইন্নছ আলী    মো. ছুবেদ আলী    চিকনীরচর    ৫৬
৫০.    মো. হাছু মিয়া    মো. ডেঙ্গু মিয়া    চিকনীরচর    ৫০

৫১.    মো. আ. কুদ্দুছ    মো. আ. হাই ভূঁইয়া    চিকনীরচর    ৩৫
৫২.    মো. আ. রাশিদ    মো. কালা চাঁন    চিকনীরচর    ৩২
৫৩.    আ. আমীন ভূইয়া    মো. হামিদ ভূঞা    চিকনীরচর    ৫৫
৫৪.    মো. আ. রহিম    মো. আ. আজিজ    চিকনীরচর    ৩৫
৫৫.    মো. জাহেদ মিয়া    মো. বুধু মিয়া    চিকনীরচর    ৪০
৫৬.    মো. সানু ভূইয়া    মো. নবী নোয়াজ ভূঞা    চিকনীরচর    ৫৫
৫৭.    মো. মাহতাব উদ্দিন    মো. শাহনেওয়াজ    চিকনীরচর    ২৪
৫৮.    আ. ওয়াহেদ ভূইয়া    মো. আ. জামিদ ভূঞা    চিকনীরচর    ৬০
৫৯.    মো. আশু    মো. মিশ্রীর বাপ    চিকনীরচর    ১৮
৬০.    মো. ফতে আলী    মো. আবু    চিকনীরচর    ২০

৬১.    মো. জয়সাল     মো. মোহাম্মদ খন্দকার    চিকনীরচর    ২৫
৬২.    মো. ঈমাম হোসেন    মো. মনসুর আলী    গোবিন্দপুর    ৪৫
৬৩.    মো. আতিবুল্লাহ    মো. ছমেদ আলী    গোবিন্দপুর    ৫৫
৬৪.    মো. রৌশন আলী    মো. আবুল হোসেন    তিলকনাথপুর    ৪০
৬৫.    সুকুমার চন্দ্র সূত্রধর    সতীশ চন্দ্র সূত্রধর    কড়িয়াইল    ৪০
৬৬.    মো. চাঁন মিয়া    অজ্ঞাত    বাদে কিড়য়াইল    ৩৫
৬৭.    মো. আ. করিম    মো. আতর আলী    কালিকাবাড়ি    ৩৫
৬৮.    মো. মর্তুজ আলী    মো. আব্দুছ সাত্তার    কালিকাবাড়ি    ৪০
৬৯.    মো. আ. হাসিম    হাজী জুম্মন আলী    কালিকাবাড়ি    ৫০
৭০.    মো. আ. হেলিম    হাজী হাসন    কালিকাবাড়ি    ৫৫

৭১.    মো. আ. মান্নান    মো. মাহমুদ নবী    কালিকাবাড়ি    ৬০
৭২.    মো. আ. রশিদ    মো. আলী হোসেন    ঘাগর    ৩০
৭৩.    মো. মাহতাব উদ্দিন    মো. সিরাজুল হক    কামালিয়ারচর    ৩৫

উল্লেখ্য যে, রাজাকারদের হুমকির কারণে বরইতলার গণহত্যায় নিহত অধিকাংশ লাশেরই ধর্মীয় বিধান মোতাবেক দাফন কিংবা সৎকার করা যায়নি। ব্যথাতুর স্বজনেরা নিজেদের জীবনের মায়ায় রাজাকারদের হুমকির মুখে প্রিয় স্বজনের লাশ পার্শ্ববর্তী ক্ষীণস্রোতা নরসুন্দার পানিতে ভাসিয়ে দিতে বাধ্য হন। সে সকল লাশ পঁচে-গলে নরসুন্দার সাদা পানিতে একাকার হয়ে যায় এবং পানিবাহিত নানারকম রোগের সৃষ্টি করে।

বরইতলার নৃশংসতম ঘটনায় তাৎক্ষণিকভাবে ৭৩ জন নিরীহ বাঙালি হানাদার পাক-মিলিশিয়াদের হাতে নিহত হন। অনেকে হানাদার বাহিনীর নির্মম বুলেট ও বেয়নেটের আঘাতে গুরুতর জখম হয়ে ওইদিন প্রাণে বেঁচে যান। কিন্তু ঘাতকদের আঘাতের চিহ্ন এতই তীব্র ছিল যে, ঘটনার দিন তারা ভাগ্যক্রমে বেঁচে গেলেও পরে সে আঘাতের যন্ত্রণা নিয়ে তারা মৃত্যুবরণ করেন।

সে রকম কয়েকজন হতভাগ্য শহীদের তালিকা নিম্নে তুলে ধরা হলো:

ক্রমিক    শহীদের নাম    পিতা/স্বামীর নাম    গ্রামের নাম    বয়স
০১.    মো. খলিলুর রহমান    মো. আলী মুন্সী    দামপাড়া    ৬২
০২.    মো. ইমান আলী    সৈয়দ আলী    ঐ    ৫০
০৩.    মো. হাফিজ উদ্দিন    ইমাম আলী    ঐ    ২৫
০৪.    মো. খুর্শিদ উদ্দিন    মো. আ. করিম    ঐ    ৩৫
০৫.    মো. আ. রাজ্জাক    আবিদ সেক    ঐ    ৫৫
০৬.    মো. ইমাম হোসেন    খদু সেক    ঐ    ৬০
০৭.    মো. কিতাব আলী    মদন সেক    ঐ    ৪৫
০৮.    মো. আ. আজিজ    জনাব আলী    ঐ    ৬০
০৯.    মো. সাইকুল ইসলাম    তৈয়ব আলী    দামপাড়া    ৩০
১০.    মো. আ. গফুর    নোয়াজ    ঐ    ৫৫

১১.    মো. আ. আজিজ    আ. করিম    চিকনিরচর    ৭০
১২.    মো. আ. রাশিদ    আ. করিম    ঐ    ৪০
১৩.    মো. সমজু ভূঞা    আ. ওয়াহেদ ভূঞা    ঐ    ৪০
১৪.    মো. সিরাজ    হাছু মিয়া    ঐ    ৪৫
১৫.    মো. সাহেব আলী    মিয়া চাঁন সরকার    আউলিয়াপাড়া    ৬০
১৬.    মো. বোরন    ডেঙ্গু ভূইয়া    চিকনীরচর    ৩৫
১৭.    মো. জমির উদ্দিন    নাছির উদ্দিন    ঐ    ৬৫
১৮.    মো. লাল মিয়া    ফজর আলী    ঐ    ৪০
১৯.    মো. সরাফত ভূইয়া    ছাদির ভূঞা    ঐ    ৫০
২০.    মো. আজিজুল হক    মির্জা আলী    ঐ    ৫৫

২১.    মো. মীর হোসেন    আমীর হোসেন    ঐ    ৬০
২২.    মো. ইব্রাহিম    ইসলাম    ঐ    ৬০
২৩.    মো. মিয়ার বাপ    তাজুল ইসলাম    ঐ    ৫০
২৪.    মো. সিরাজ ভূঞা    রবির বাপ    ঐ    ৪০
২৫.    মো. মহারাজ মিয়া    আ. হাই    ঐ    ৪০
২৬.    আহাম্মদ আলী    হাজী মুক্তার উদ্দিন    চিকনিরচর    ৬০
২৭.    মো. আ. রাশিদ    আ. আজিজ    ঐ    ৪৫
২৮.    হাজী ইব্রাহিম    আ. ওয়াদুধ মুন্সী    ঐ    ৭০
২৯.    মো. চান্দু মিয়া    ফালু ভূঞা    ঐ    ২৮
৩০.    মো. মঞ্জিল মিয়া    ফালু ভূঞা    ঐ    ২৬

৩১.    মো. সিরাজু মিয়া    আতর আলী    দামপাড়া    ৬০
৩২.    মো. ইদ্রিছ আলী    ইন্তাজ আলী    ঐ    ৪৫
৩৩.    মো. সিরাজ উদ্দিন    মো. আবু    মুসলিমপাড়া    -
৩৪.    মো. সাহেদ আলী    মো. রজব আলী    ঐ    -
৩৫.    মো. কডু মিয়া    মো. সোনা মিয়া    ঐ    -
৩৬.    মো. ছুরত আলী    মো. মামুদ আলী    ঐ    -
৩৭.    কডু নমঃদাস    দারীকা নমঃদাস    দামপাড়া    -

আগামী পর্ব: নীলগঞ্জ ব্রিজ বধ্যভূমি

(জাহাঙ্গীর আলম জাহান, ছড়াকার, প্রাবন্ধিক, ইতিহাস-মুক্তিযুদ্ধ ও লোকসংস্কৃতির গবেষক, প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৪১টি।)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর