কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জের মুদ্রণশিল্প


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ১০ জুলাই ২০১৯, বুধবার, ৯:৫৬ | অর্থ-বাণিজ্য 


প্রযুক্তির ছোঁয়ায় মুদ্রণশিল্পে যথেষ্ট উৎকর্ষ সাধিত হয়েছে। এখন আর কাঠের ছোট ছোট খোপ থেকে একটি একটি শিসার বর্ণ তুলে বাক্য সাজাতে হয় না। কিংবা পায়ে ট্রেডল মেশিন চেপে করতে হয় না মুদ্রণের কাজও।

সময়ের বিবর্তনে মুদ্রণশিল্পে সংঘটিত হয়েছে যুগান্তকারী বৈপ্লবিক পরিবর্তন। অত্যাধুনিক যন্ত্রচালিত অফসেট মেশিনে এখন সহজেই সেরে নেওয়া যায় প্রয়োজনীয় ছাপার কাজ। কাঠের খোপ থেকে শিসার বর্ণ তুলে আর কম্পোজ করতে হয় না। কম্পিউটারেই খুব সহজে সম্পাদন করা যায় প্রয়োজনীয় কম্পোজকর্ম।

মুদ্রণশিল্পে আধুনিক উৎকর্ষ সাধিত হবার পূর্বে কেমন ছিল কিশোরগঞ্জের মুদ্রণ-জগৎ- সে নিয়েই বক্ষমান আয়োজন।

ইতিহাসবিদ কেদারনাথ মজুমদারের লেখা থেকে জানা যায়, ১৯০৪ খ্রিষ্টাব্দের দিকে বৃহত্তর ময়মনসিংহে মোট ৭টি মুদ্রণযন্ত্র ছিল। তার মধ্যে ১টি ছিল কিশোরগঞ্জে; যার নাম ‘আর্য্যযন্ত্র’। এই আর্য্যযন্ত্র প্রেসে কিশোরগঞ্জের প্রথম পত্রিকা সাপ্তাহিক ‘আর্য্যগৌরব’ মুদ্রিত হতো বলে অনুমান করা হয়।

তবে ‘আর্য্যযন্ত্র’ প্রেসটি শহরের কোথায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল সে সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট তথ্য পাওয়া যায় না। গত শতকের চল্লিশের দশকে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পূর্বে কিশোরগঞ্জ শহরের গৌরাঙ্গবাজারে (বর্তমানে যেখানে মদন গোলাপ সুইটস কেবিন অবস্থিত) ‘কৃষ্ণকলী প্রেস’ নামে একটি মুদ্রণ প্রতিষ্ঠান ছিল। এটির মালিক ছিলেন যশোদলের ভট্টাচার্যপাড়ার জনৈক কৃষ্ণ ভট্টাচার্য।

একই সময়ে কিংবা তারও কিছু আগে কম্যুানিস্ট পার্টির ব্যবস্থাপনায় শহরের একরামপুরে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ‘জুবিলী প্রেস’। এটি পরিচালনা করতেন বিশিষ্ট কম্যুানিস্ট নেতা ওয়ালীনেওয়াজ খান।

পঞ্চাশ দশকের প্রথমদিকে কিশোরগঞ্জ শহরের বড়বাজার তেরিপট্টি সংলগ্ন ইন্দিরার মোড়ে ‘পূর্ণিমা প্রেস’ নামে একটি মূদ্রণালয় পরিচালিত হতো। একজন হিন্দু ভদ্রলোক এই প্রেসের মালিক ছিলেন।

পাকিস্তানের সামরিক প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খানের শাসনামলে তদানীন্তন ইউনিয়ন কাউন্সিলের নির্বাচিত চেয়ারম্যান-মেম্বারদের সংগঠন ‘ইউনিয়ন কাউন্সিল এসোসিয়েশন’ প্রতিষ্ঠিত হয়। এই প্রতিষ্ঠানের জন্য কিশোরগঞ্জ শহরে বর্তমান টেনিস গ্রাউন্ডের পেছনের জায়গায় ভূমি প্রদান করা হলে সেখানে প্রতিষ্ঠানের অফিসগৃহ তৈরি করা হয়। একই সঙ্গে মহকুমার সকল ইউনিয়ন কাউন্সিলের প্রয়োজনীয় ফরম ও কাগজপত্র মুদ্রণের জন্য এবং সংগঠনের আয় বৃদ্ধির জন্য অফিসগৃহের পাশে ‘ইউনিয়ন কাউন্সিল প্রেস’ (ইকা প্রেস) নামে একটি মুদ্রণ প্রতিষ্ঠান স্থাপন করা হয়।

এই প্রেসেই ‘নতুন দিন’ নামক পত্রিকাটি ছাপা হতো। মুক্তিযুদ্ধের সময় উক্ত সংগঠনের কার্যক্রম স্তিমিত হয়ে পড়লে প্রেসটি বন্ধ হয়ে যায়। পরে বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম. এ. আফজল সরকারের কাছ থেকে উক্ত ভূমি বরাদ্দ নিয়ে ‘ইকা প্রেস’ নামে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে মুদ্রণ ব্যবসা শুরু করেন। আশির দশকের মাঝামাঝি সময়ে  প্রেসটি স্টেশন রোডে স্থানান্তরিত হয়। বর্তমানে প্রেসের কোনো অস্তিত্ব নেই।

কিশোরগঞ্জ মাল্টিপারপাস এসোসিয়েশনের নিয়ন্ত্রণাধীন মাল্টিপারপাস প্রেসটি ছিল এ শহরে একটি উল্লেখযোগ্য মুদ্রণ প্রতিষ্ঠান। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর এই প্রেসের যাত্রা শুরু হয়। কুমিল্লার শামসুদ্দিন নামক জনৈক ব্যক্তি দীর্ঘদিন এ প্রেসে ম্যানেজার হিসেবে চাকরি করেছেন।

শহরের পুরানথানা জামিয়া বিল্ডিংয়ের পাশে ‘ক্রিসেন্ট প্রেস’ নামক একটি মুদ্রণ প্রতিষ্ঠান পরিচালিত হতো। কাজী মো. মহসীন ও কাজী মো. হারুন এটি পরিচালনা করতেন। মুক্তিযুদ্ধের পূর্বে এই প্রেস থেকে মহকুমার সকল রাজনৈতিক প্রচারপত্র মুদ্রিত হতো। এ কারণে এই প্রেসের মালিক কাজী মো. মহসীনের বিরুদ্ধে মামলাও হয়েছিল।

শহরের পুরানথানায় ইউনিয়ন প্রেস নামে একটি প্রেস পরিচালিত হতো। এছাড়া রথখলা এলাকার শরীফ প্রেস, স্টেশন রোডের রহিম প্রিন্টিং প্রেস, গৌরাঙ্গবাজারের করিম আর্ট প্রেস, জামিয়া বিল্ডিং সংলগ্ন জনতা প্রেস ইত্যাদি এই শহরের পুরনো মুদ্রণ প্রতিষ্ঠানগুলোর অন্যতম।

সত্তর দশকের শেষদিকে কিশোরগঞ্জ স্টেডিয়াম মার্কেটে স্থাপিত সুবর্ণ প্রিন্টিং প্রেস এবং কালীবাড়ি মার্কেটে স্থাপিত প্রিয়নাথ বসাকের প্রেসটি আজ শুধুই ইতিহাসের অংশ।

শহরের নিউমার্কেট এলাকায় প্রয়াত এম. এ. আজিজের মালিকানাধীন ‘কিশোর প্রেস’টিও এ শহরের পুরনো প্রেসগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি। বর্তমানে এটি মু. কামরুল আনাম-এর মালিকানায় কিশোর অফসেট প্রিন্টার্স নামে পরিচালিত হচ্ছে। এ প্রেস থেকেই কামরুল আনামের সম্পাদনায় প্রকাশ পাচ্ছে ট্যাবলয়েড সাইজের দৈনিক পত্রিকা ‘আজকের সারাদিন’।

সাংবাদিক কাজী শাহীন খানের মালিকানায় গত নব্বই দশকের প্রথমার্ধে কিশোরগঞ্জ শহরের আখড়াবাজারে প্রতিষ্ঠিত হয় শাহীন প্রিন্টার্স। এ প্রেস থেকে তিনি নিজের সম্পাদনায় প্রথমে সাপ্তাহিক কিশোরগঞ্জ বার্তা নামক একটি পত্রিকা প্রকাশ করতেন। পরবর্তী সময়ে দৈনিক আজকের দেশ নামক পত্রিকার অনুমোদন পেয়ে তিনি সাপ্তাহিকীটির প্রকাশনা বন্ধ করে ‘আজকের দেশ’-এর প্রকাশনা শুরু করেন; যা এখনও অব্যাহত আছে।

আশির দশকের শুরুতে (১৯৮২) গুরুদয়াল সরকারি কলেজের বিশিষ্ট শিক্ষক অধ্যাপক জিয়াউদ্দীন আহমদ চাকরি থেকে অবসর নেন। তাঁর ঘনিষ্ঠ বন্ধু বিদ্যুৎ বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী আব্দুর রাজ্জাকের সাথে যৌথ মালিকানায় কিশোরগঞ্জ পৌর মার্কেটের অভ্যন্তরে অধ্যাপক জিয়াউদ্দীন আহমদ প্রতিষ্ঠা করেন ‘কথাকলি প্রেস’। এই প্রেস থেকে জিয়াউদ্দীন স্যারের সম্পাদনায় জেলা পাবলিক লাইব্রেরির ত্রৈমাসিক সাহিত্যপত্র ‘সৃষ্টি’ ছাপা হতো। ২০০৪-০৫ সালের দিকে প্রেসটি বন্ধ হয়ে যায়।

আশির দশকে প্রতিষ্ঠিত এ শহরের অন্যান্য প্রেসগুলো হচ্ছে আহমাদ প্রেস (জামিয়া বিল্ডিংয়ের বিপরীতে), লিপিকা প্রিন্টার্স (স্টেশন রোড), রুমা প্রিন্টিং প্রেস (স্টেশন রোড), খেলাঘর প্রেস (গৌরাঙ্গবাজার গলি), সাদ্দাম আর্ট প্রেস (স্টেশন রোড), সোনালী প্রিন্টিং প্রেস (স্টেশন রোড), রূপালি প্রিন্টিং প্রেস (স্টেশন রোড), হাসান প্রিন্টার্স (স্টেশন রোড) ইত্যাদি।

১৯৮৮ সালে শহরের তমালতলা এলাকায় ইসলাম আর্ট প্রেস নামে একটি প্রেস প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। বছরখানেকের মধ্যেই এটি বন্ধ হয়ে যায়। বাবুল রেজার সম্পাদনায় জেলা শহর থেকে ‘প্রাত্যহিক চিত্র’ নামক দৈনিক পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয় ১৯৯৭ সালে। এই পত্রিকা মুদ্রণের জন্য স্টেশন রোডে প্রতিষ্ঠা করা হয় ‘বর্ণবিন্যাস’ নামক একটি প্রেস। পত্রিকা বন্ধ হওয়ার পর প্রেসটিও আর টিকে থাকেনি।

গত শতকের ত্রিশের দশকে হোসেনপুর উপজেলার গলাচিপা গ্রামের প্রখ্যাত পুঁথিকার আব্দুর রহিম মুন্সি তাঁর বাড়িতে একটি প্রেস স্থাপন করেছিলেন বলে জানা যায়। কাঠ নির্মিত এই প্রেসটি অনেকদিন টিকে ছিল।

কিশোরগঞ্জে মুদ্রণশিল্পের ইতিহাস খুব প্রাচীন নয়। তবে এই পশ্চাৎপদ জনপদে যে সকল মুদ্রণ প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন সময় গড়ে উঠেছিল তা দ্বারা মালিকপক্ষ শুধু মুদ্রণ-ব্যবসাই করেননি, একই সাথে এই জনপদের শিল্প-সাহিত্যের চর্চাকেও তারা প্রণোদনা যুগিয়েছেন। ট্রেডল মেশিনের যুগ আজ কেবলি অতীত। সেগুলো আর খুুঁজে পাওয়া যাবে না।

উপরে বর্ণিত প্রেসগুলোর মধ্যে অনেক প্রেসই যুগের সাথে তাল মেলাতে না পেরে কালের কপোলতলে হারিয়ে গেছে। আবার কিছু কিছু প্রেস অক্ষর সংরক্ষণের কাঠনির্মিত খোপ, শিসার বর্ণ ইত্যাদি পরিবর্তন করে আধুনিক প্রযুক্তির সাথে তাল মিলিয়েছে। তারা নতুন অফসেট মেশিন স্থাপন করে কিশোরগঞ্জের মুদ্রণশিল্পে টিকে আছে ঐতিহ্যের অহঙ্কারে। মুদ্রণশিল্পের বিলুপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলো আজ তাই পরিণত হয়েছে আমাদের ইতিহাসের অংশে।

আগামীর বিষয়: উন্নয়নের ধারায় ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদ

(জাহাঙ্গীর আলম জাহান, ছড়াকার, প্রাবন্ধিক, ইতিহাস-মুক্তিযুদ্ধ ও লোকসংস্কৃতির গবেষক, প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৪১টি।)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর