কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


উনবিংশ শতাব্দিতে মানুষের জীবন ও সমাজ


 মু আ লতিফ | ১০ জুলাই ২০১৯, বুধবার, ৯:২৯ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


উনবিংশ শতাব্দির শেষ প্রান্তে এখানকার জীবন ও সমাজ ব্যবস্থায় হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রাধান্য ছিলো। শিক্ষায়, চাকরি ক্ষেত্রে, ব্যবসা ও অন্যান্য সামাজিক আচার অনুষ্ঠানে তারাই ছিলেন নিয়ামক ও প্রধান। তাদের বাড়ি-ঘর পরিপাটি ও সুন্দর ছিলো। তাদের বাড়ির আঙ্গিনায় ফুলের বাগান ছিলো।

অন্যদিকে মুসলিম সম্প্রদায় ছিলো সর্ব ক্ষেত্রে পিছিয়ে। তারা শিক্ষায়, ব্যবসায় ও সামাজিকভাবে ছিলেন দুর্বল। আঁধারে ঢেকে ছিল তাদের মন-মস্তিস্ক এবং সর্বোপরি তাদের জীবনাচার। ওই সময় ইংরেজ ও হিন্দু সম্প্রদায় মুসলমানদের নানাভাবে অবহেলা করতেন। এসময় কিশোরগঞ্জে ইংরেজি শিক্ষার প্রচলন হিন্দু গণ্যমান্য ব্যক্তিরাই শুরু করেছিলেন। কিশোরগঞ্জ হাই স্কুলও তারাই প্রতিষ্ঠা করেন।

এ প্রসঙ্গে কবি আজহারুল ইসলাম সাহিত্য সাময়িকী সৃষ্টিতে লিখেছেন, ‘কিশোরগঞ্জের হিন্দু সমাজ অনেক আগেই আধুনিক শিক্ষার পথে অগ্রসর হয়েছিলেন। তাদের মধ্যে অনেক গুণী ব্যক্তির আবির্ভাব ঘটেছিল। শিক্ষা, সংস্কৃতিতে, আইন ব্যবসায়ে, চিকিৎসা শাস্ত্রে এমন কি শিল্প ও সংগীত ক্ষেত্রে কিশোরগঞ্জের হিন্দুসম্প্রদায় যথেষ্ট কৃতিত্ব দেখিয়েছে।’

পরবর্তীতে মুসলমানদের মধ্যেও ইংরেজি শিক্ষার প্রতি আগ্রহ সৃষ্টি হয়। ১৯০৬ সালে শিক্ষা নিয়ে তাদের মধ্যে একটি আন্দোলনের সূত্রপাত হয়। মুসলিম নেতৃবৃন্দ তৎপর হন ও আধুনিক শিক্ষার অভাবে মুসলমানরা যে সব ক্ষেত্রে পিছিয়ে রয়েছেন তা সাধারণ মুসলমাদের বুঝাতে সক্ষম হয়েছিলেন। ফলে ধিরে ধিরে সবাই এগিয়ে আসতে থাকেন। মুসলমান ছেলেরাও তখন স্কুলে ভর্তি হতে শুরু করে।

এভাবেই মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যেও শিক্ষার বিস্তার শুরু হয়। তবে নতুন করে কিছু সমস্যাও দেখা দেয়। কারণ তখন মুসলমানদের জন্য স্থানীয় ও সহজলভ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং জায়গিরের ব্যবস্থা ছিলো না। ফলে দরকার হয়ে পড়ে স্কুল প্রতিষ্ঠার ও জায়গিরের ব্যবস্থার।

ফলশ্রুতিতে কিশোরগঞ্জে স্কুল প্রতিষ্ঠা ও মুসলিম ছাত্রদের থাকার জন্য জায়গির ও বোর্ডিং নির্মাণের প্রয়োজন দেখা দেয়। পুরানথানার  ইসলামিয়া বোর্ডিং ও মুসলিম ইনস্টিটিউট (পরে পাবলিক লাইব্রেরি) এ ভাবেই প্রতিষ্ঠিত হয়। এরই ধারাবাহিকতায় স্থানীয় সাঁতারপুর গ্রামের মহৎপ্রাণ ও শিক্ষানুরাগী মুন্সি আজিমউদ্দিন আহমদ দিশাহীন সমাজের মানুষকে শিক্ষার আলোয় আলোকিত করার উদ্দেশ্যে ১৯১৬ সালে আজিমউদ্দিন হাই স্কুলটি প্রতিষ্ঠা করেন।

এর আগে এখানে মুসলিম সম্প্রদায় মাদরাসা শিক্ষার প্রতি আকৃষ্ট ছিলেন। কারণ তারা মনে করতেন মাদরাসা শিক্ষাই পরকালকে হেফাজতের উত্তম পন্থা। মৌলবীরা মনে করতেন ইংরেজি বিধর্মীদের ভাষা তাই এটা পড়া যাবে না। বাংলার প্রতিও তাদের কোনো আগ্রহ ছিলো না। বরং তারা আরবি ও ফার্সিকেই প্রাধান্য দিতেন। ফলে তৎকালে স্কুল নয় বরং মাদরাসা প্রতিষ্ঠার উপর তারা জোর দিতেন।

কবি আজহারুল ইসলাম সৃষ্টি’র ৩য় বর্ষ-২য় সংখ্যায় (১৯৮৮) আরো লিখেছেন, ‘মওলবীরা বলেন, “নাসারা কা (খৃষ্টান) জবান কুত্তাকা জবান” নাসারা কা তালিম কুত্তা কা তালিম।” অতএব দেখা যায়, ওইসময় এ জেলায় হিন্দুরাই প্রথম স্কুল প্রতিষ্ঠা করে শিক্ষার আলো ছড়াতে চেষ্টা করেন।

অন্যদিকে মুসলমানরা মাদরাসা শিক্ষার প্রতি জোর দেন। তারা ধর্মীয়  শিক্ষায় পাক্কা মুসলমান হওয়াকেই প্রকৃত শিক্ষা বলে গণ্য করলেন। এছাড়া তৎকালে মুসলমানরা দরিদ্র ছিলেন। এ কারণেও সন্তানদের তারা মক্তব ও মাদরাসায় পাঠাতেন।

এসময় কিশোরগঞ্জ শহরে এমএলসি আবদুল হামিদ শাহ একটি মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। এটি রেল স্টেশনের পশ্চিমে একটি বিরাট টিনের ঘরে এটি চালু হয়েছিল। মাদ্রাসাটি প্রতিষ্ঠার দিন ভাওয়ালের মওলানা ছফিরউদ্দিন ও মওলানা হাফেজ ফজলুর রহমান বয়ান করেছিলেন। এটি বেশ ক’বছর চলার পর বন্ধ হয়ে যায়। তখন মওলানা আতহার আলী সাহেব জামিয়া ইমদাদিয়া মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেন এবং তা ধীরে ধীরে জমে ওঠে।

তৎকালে মুসলমান সমাজের ওপর মওলানাদের বিশেষ প্রভাব ছিলো। তারা ওয়াজ মাহফিলে স্কুল পড়া ছাত্রদেরকে কোরআন, হাদিস না পড়ার জন্য নিন্দা এবং ধর্মহীনতার অপবাদে সাধারণ মুসলমানরা সহজেই বিভ্রান্ত হতেন। আবার অশিক্ষা ও দারিদ্রতার কারণে তাদের সন্তানদেরকে তারা স্কুলে পড়াতে পারতেন না।

এতদসত্বেও কিশোরগঞ্জে আধুনিক শিক্ষার জন্য বিচক্ষণ মুসলিমরা কাজ করে গেছেন। এখানে আঞ্জুমানের মাধ্যমেও আন্দোলন হয়েছিল। যার ফলে কিশোরগঞ্জে বেশ কিছু আধুনিক শিক্ষিত ব্যক্তির দেখা আমরা পাই। তাঁদের মধ্যে হলেন খান বাহাদুর মোয়াজ্জেমুদ্দিন হোসেন, খান বাহাদুর মওলবী ইছমাইল, খান বাহাদুর সৈয়দ মিছবাহ উদ্দিন, উকিল ছমেদ আলী এমএবিএল, শিক্ষাবিদ আবদুস সামাদ এমএ কলকাতা হাইকোর্টের এডভোকেট সৈয়দ মোহাম্মদ আতিকুল্লাহ, উকিল আবদুল খালেক বিএল, উকিল মেহের আলী, এডভোকেট আবদুর রউফ প্রমুখ। এঁরা তৎকালে মুসলিম সমাজের মুখ উজ্জ্বল করেছিলেন।

তারপরও কথা থাকে। বাঙালি মুসলিম মানষে বিভ্রান্তি তখনো দূর হয়নি। তারা বাঙালির চাইতে মুসলিম পরিচয়ে নিজেকে ধন্য মনে করতেন।

আমরা ছেলেবেলায় স্কুলে পড়েছি, ইখতিয়ারউদ্দিন মুহম্মদ বিন বখতিয়ার খলজির বাংলা বিজয়কে তৎকালে কতটা গুরুত্ব দেওয়া হতো। ভিনদেশি একজন নৃপতি বাংলা আক্রমণ করে লুটপাট করলো, তাতেও আমরা খুশি। অথচ আমার দেশ রক্তাক্ত হলো,আমাদের সম্পদ পাচার হলো সেদিকে ভ্রুক্ষেপ আমাদের একশ্রেণির মুসলিমের ছিলো না।

পাকিস্তানি রাষ্ট্রব্যবস্থায়ও শিক্ষার মধ্যদিয়ে মানুষের মন ও মননকে এভাবেই গঠন করতে চেয়েছিলো শোষকরা। ঠিক ১৯৭১ সালেও যখন বর্বর পাকিস্তানিরা বাংলার মাটিতে হামলা চালালো তখনও একদল মানুষ তাদের সমর্থন জানালো। ইসলাম রক্ষার নামে, পাকিস্তান রক্ষার নামে পাকিস্তানিরা নিরিহ মানুষকে হত্যা করলো, নারী ধর্ষণসহ বাড়ি-ঘর জ্বালিয়ে পুড়িয়ে দিলো। তারপরও একদল মানুষ স্বাধীনতার বিপক্ষে অবস্থান নিলো। দেশ-মাটি ও মানুষের প্রতি তাদের কোনো ভালোবাসা নেই। এটা কী তাদের অজ্ঞতা না ধর্মান্ধতা, এ প্রশ্নটা থেকেই যায়।

যাক সেসব কথা। আবার আগের কথায় ফিরে আসি। গুণী মুসলিমদের মত সেই সময়  হিন্দুদের মধ্যেও এখানে বহু প্রাজ্ঞ ও বিজ্ঞ ব্যক্তির আবির্ভাব ঘটেছিল। তাঁদের মধ্যে ছিলেন র‌্যাংলার আনন্দ মোহন বসু, ডক্টর সুকুমার রায়, অধ্যক্ষ সারদা চন্দ্র রায়, রেজিস্টার যোগেশ চন্দ্র চক্রবর্তী, শিশু সাহিত্যিক উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী, জাস্টিস দ্বারিকচন্দ্র চক্রবর্তী প্রমুখ। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর