কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


খ্যাতির শীর্ষ-ছোঁয়া মসূয়ার রায় পরিবার


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ৯ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার, ৯:৩৮ | সাহিত্য 


অন্তহীন গর্বের ধারক কিশোরগঞ্জ। বৈচিত্র্যময় ভূ-প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের গর্ব, লোকসংস্কৃতির অপরিমেয় উত্তরাধিকারের গর্ব, মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য ভূমিকার গর্ব, খ্যাতি-সুখ্যাতির শীর্ষ-ছোঁয়া মহান মনীষীদের জন্মের গর্ব। এ-রকম হাজারো গর্বের ঋজুতায় ঋদ্ধ আমাদের কিশোরগঞ্জ।

সমগ্র কিশোরগঞ্জের বহুমুখী গৌরবগাথা লিখতে গেলে রচনার পরিধি দীর্ঘতর হবে। তারচেয়ে বাংলা শিশুসাহিত্যের বিস্তৃত অঙ্গনে কিশোরগঞ্জের অবদানের বিষয়টিকেই আপাতত প্রাধান্য দেয়া যাক। যে সাহিত্য শিশুর মনস্তত্ত্বকে ধারণ ক’রে শিশুর মনোরঞ্জনে রচিত হয় আপাতদৃষ্টে তাকেই শিশুসাহিত্য বলা যেতে পারে।

শিশুসাহিত্য রচনা যথার্থই কঠিনতর কাজ। শিশুর মন-মানসিকতা, শিশুর চাহিদা ইত্যাদি যথাযথভাবে উপলব্ধি করতে না পারলে শিশুসাহিত্য রচনা সম্ভব নয়। অর্থাৎ মনোগতভাবে শিশুকে বুঝতে না পারলে যত বড় লেখকই হন, তার দ্বারা প্রকৃত শিশুসাহিত্য রচনা কখনোই সম্ভব হয় না।

কিশোরগঞ্জ জেলার এক ঐতিহাসিক জনপদ কটিয়াদী। এ উপজেলার আর দশটি গ্রামের মতোই এক সাধারণ গ্রাম মসূয়া। সাধারণ হলেও রবীন্দ্র সমসাময়িক যুগে ধীরে ধীরে এ গ্রাম অসাধারণ হয়ে উঠতে থাকে। মসূয়ার বিখ্যাত রায়বাড়িকে কেন্দ্র করে এ গ্রামের খ্যাতি আর জৌলুস পূর্ববঙ্গের সীমানা ছাড়িয়ে সুদূর পশ্চিমবঙ্গ পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছিল। এর পেছনে রায়বাড়ির পারিবারিক প্রতিপত্তি নয়, রায়-পরিবারের অসামান্য সাহিত্যপ্রীতি এবং শিশুসাহিত্যে নতুন ধারা প্রবর্তনের কৃতিত্বই মূল নিয়ামক।

বহুল আলোচিত মসূয়ার রায় পরিবারে শিল্প-সাহিত্যের বিচিত্রমুখী চর্চাই শুধু ছিল না; ছিল বাংলাসাহিত্যে নতুন মাত্রা সংযোগের নিরীক্ষাধর্মী প্রয়াস। যে প্রয়াসে ব্রতী হয়েছিলেন শিশুসাহিত্যের পথিকৃৎ বলে খ্যাত উপেন্দ্রকিশোর রায় চৌধুরী, তাঁর ছান্দসিক পুত্র সুকুমার রায়, সুবিনয় রায়, সুকোমল রায়, কন্যা সুখলতা রাও, পুণ্যলতা চক্রবর্তী, শান্তিলতা, পৌত্র সত্যজিৎ রায়, কনিষ্ঠ ভ্রাতা কুলদারঞ্জন রায় প্রমুখ। এক পরিবারে ৯ জন খ্যাতিমানের জন্ম শুধু মসূয়াকেই নয়, পুরো কিশোরগঞ্জ জেলাকেই গৌরবের উচ্চাসনে প্রতিষ্ঠিত করেছে।

উপেন্দ্রকিশোর রায় চৌধুরী:
১৮৬৩ খ্রিষ্টাব্দের ১০ মে উপেন্দ্রকিশোরের জন্ম। পিতা কালীনাথ রায়, মাতা জয়তারা। উপেন্দ্রকিশোরের পিতৃদত্ত নাম কামদারঞ্জন রায়। পাঁচ বছর বয়সে কাকা হরিকিশোরের দত্তক পুত্র হিসেবে তিনি উপেন্দ্রকিশোর রায় চৌধুরী নাম লাভ করেন। উচ্চশিক্ষিত উপেন্দ্রকিশোর ছেলেবেলা থেকেই শিল্প-সাহিত্যের প্রতি অনুরাগী হয়ে ওঠেন।

১৮৮৩ খ্রিষ্টাব্দে ‘সখা’ পত্রিকায় তাঁর প্রথম লেখা প্রকাশ পায়। শিশুসাহিত্যই ছিল তাঁর লেখালেখির প্রধান অঙ্গন। ১৯১০ সালে তিনি শিশুদের জন্য ‘সন্দেশ’ পত্রিকার প্রকাশনা শুরু করেন। ছেলেদের রামায়ণ, ছেলেদের মহাভারত, সেকালের কথা, টুনটুনির কথা, হারমোনিয়াম শিক্ষা, বেহালা শিক্ষা, গুপিগাইন ও বাঘাবাইন, মহাভারতের গল্প, বেচারাম ও কেনারাম, শিশুমন এবং শিশুসাহিত্য তাঁর উল্লেখযোগ্য বই। ১৯১৫ সালের ২৭ ডিসেম্বর এই কৃতী সাহিত্যিক ইহলোক ত্যাগ করেন।

উপেন্দ্রকিশোর রায় চৌধুরীর শিশুতোষ ছড়া থেকে ‘খুকুমণি’ ছড়াটি আমরা স্মরণ করতে পারি:

এই যে আমাল থোনাল বাবা, থ্যাকলা দিল গলে
লাঙ্গা তুলি থিল হাতে, খেলতে গেল পলে।
নিদে হাতে তিপ পলেথি, কলে আঙ্গল দিয়ে
থোত্ত কাকাল দোয়াত থেকে কালি তুলে নিয়ে।
দেখ আমাল কেমন কাপল মা দিয়েথে ভাই
ধুলোল উপল বথক নাকো, নোংলা হবে তাই।
দিদি দিল লাল ফিতা বেঁধে আমাল তুলে
বাবা খেল এত্তো তুমু কোলেল উপল তুলে।
তাই ত আমাল তুল এথেথে তোখেল উপল তলে
দাদা বলবে নোংলা মেয়ে নেবে না আল কোলে।
থবি আমি কলতে পালি, তোমলা দেখ বথে
এক্ষুনি তুল থিক কলে দি, বুলুথ দিয়ে ঘথে।

সুকুমার রায়:
মসূয়ার রায়বাড়িতে সুকুমার রায়ের জন্ম না হলেও পিতার ঐতিহ্যে তিনি তো রায়বাড়িরই সন্তান। ৩০ অক্টোবর ১৮৮৭-তে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। মায়ের নাম বিধুমুখী রায়। অসাধারণ প্রতিভার অধিকারী এই বহুমাত্রিক লেখক ছিলেন আপাদমস্তক একজন শিল্পবোদ্ধা শব্দতাত্ত্বিক, দর্শন ও প্রদর্শনের সার্থক রূপকার এবং অভিনব ছন্দ-জ্ঞানসম্পন্ন ছান্দসিক মানুষ।

লেখালেখির পাশাপাশি চিত্রশিল্পেও তিনি অসাধারণ ব্যুৎপত্তি লাভ করেছিলেন। অঙ্কন বিষয়ে কোনো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা না থাকলেও ছবি অঙ্কনে বিশেষ করে ইলাস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে তিনি নতুন মাত্রা যুক্ত করেন। পত্রিকা সম্পাদনা কিংবা সংগঠন প্রতিষ্ঠা ও পরিচালনায়ও তাঁর দক্ষতা ছিল ঈর্ষণীয়। ‘স্বদেশ’ পত্রিকা প্রকাশ অথবা ‘ননসেন্স ক্লাব’ এবং ‘মন-ডে ক্লাব’ তাঁর সেই দক্ষতার কথাই মনে করিয়ে দেয়।

নিরীক্ষাধর্মী ছড়াশিল্পে সুকুমার রায়ের অবদান অবিস্মরণীয়। শিশুরঞ্জনী ছড়াকে বড়দের কাছেও যে উপভোগ্য করে তোলা যায় সেটি খুব দক্ষতার সাথেই তিনি প্রমাণ করেছেন। বাংলা ছড়ায় ঝধঃরৎব-ধর্মিতার প্রবর্তক সুকুমার রায়। উদ্ভট বিষয়কে কুশলী হাতের ছোঁয়ায় ছড়ার বিষয়ে পরিণত করে সব পাঠকের কাছে উপভোগ্য করার ক্ষেত্রেও তিনি অগ্রপথিক। সুকুমার রায়ই সর্বপ্রথম অদ্ভুত শব্দ তৈরি করে নিজের ছড়ায় তা প্রয়োগ করেছেন। ‘হাঁসজারু’, ‘বকচ্ছপ’, ‘সিংহরিণ’ ইত্যাদি শব্দ তাঁরই আবিষ্কার।

উপস্থাপনার স্বাতন্ত্র্যে আর বিষয়বৈচিত্র্যে সুকুমার রায়ের তুল্য আর কেউ নেই। শুধু ছড়া রচনাই নয়, তিনি গল্প, কবিতা, নাটক, প্রবন্ধও লিখেছেন। তাঁর উল্লেখযোগ্য বইগুলো হচ্ছে- আবোল-তাবোল, খাইখাই, অবাক জলপান, ঝালাপালা, লক্ষণের শক্তিশেল, হিংসুটি, ভাবুকসভা, শব্দকল্পদ্রুম ইত্যাদি। তাঁর প্রবন্ধের বই অতীতের ছবি, বর্ণমালা তত্ত্ব এবং গল্পের বই হ-য-ব-র-ল, পাগলা দাশু, বহুরূপী।

১০ সেপ্টেম্বর ১৯২৩-এ মাত্র ৩৬ বছর বয়সে কালাজ্বরে আক্রান্ত হয়ে এই কালজয়ী শিশুসাহিত্যিক অকালে মৃত্যুবরণ করেন।

সুকুমার রায়ের অজস্র ছড়া থেকে বহুল পঠিত ও অতি জনপ্রিয় ‘বাবুরাম সাপুড়ে’ ছড়াটি দেখা যাক:
বাবুরাম সাপুড়ে/কোথা যাস বাপুরে?/আয় বাবা দেখে যা!/
দুটো সাপ রেখে যা!/যে সাপের চোখ নেই/শিং নেই, নোখ নেই,/
ছোটে নাকি হাঁটে না/কাউকে যে কাটে না,/করে নাকো ফোঁসফাঁস/
মারে নাকো ঢুঁশঢাশ/নেই কোন উৎপাত/খায় শুধু দুধভাত/
সেই সাপ জ্যান্ত/গোটা দুই আনতো?/তেড়ে মেরে ডাণ্ডা/করে দেব ঠান্ডা।

সুকুমার রায়ের অপর দুই ভাই সুবিনয় রায় চৌধুরী, সুকোমল রায় চৌধুরী এবং তিন বোন সুখলতা, পুণ্যলতা, শান্তিলতাও লেখক ও সাহিত্যিক হিসেবে যথেষ্ট সুখ্যাতি অর্জন করেছিলেন। সুবিনয় রায় শিশু বয়সেই রবীন্দ্রসঙ্গীতের প্রতি আকৃষ্ট হন। শান্তিনিকেতনে রসায়ন বিদ্যায় অধ্যয়নকালে তিনি আচার্য শৈলজারঞ্জন মজুমদারের সান্নিধ্যে আসেন। এরপর সঙ্গীতগুরুর দীক্ষায় রবীন্দ্রসঙ্গীতে তিনি অধিকতর ব্যুৎপত্তি লাভ করেন।

এছাড়া পণ্ডিত গিরিজাশঙ্কর চক্রবর্তীর কাছে শাস্ত্রীয় সঙ্গীতে দীক্ষা নেন। রবীন্দ্রনাথের ধ্রুপদ, ধামাদ ও খেয়ালধর্মী গানেও তিনি যথেষ্ট পারদর্শী হয়ে ওঠেন। তার গায়কী ও শুদ্ধস্বর তাকে সঙ্গীতে নতুন পরিচিতি এনে দেয়। ১৯৪৯ সালে সুবিনয় রায়ের গান প্রথম রেকর্ড হয়।

সঙ্গীতচর্চার পাশাপাশি তিনি একজন বিশিষ্ট লেখক ও শিশুসাহিত্যিক হিসেবেও খ্যাত ছিলেন। তার রচনাবলী নিয়ে কলকাতায় প্রকাশ পেয়েছে ‘সুবিনয় রায় চৌধুরীর রচনাসংগ্রহ’। অপর ভাই সুকোমল রায় চৌধুরীও একজন সুসাহিত্যিক হিসেবে খ্যাতি লাভ করেন। তার রচিত সাহিত্যকর্ম পশ্চিমবঙ্গের পাঠকমহলে যথেষ্ট সমাদৃত হয়।

সত্যজিৎ রায়:
সুকুমার রায়ের সুযোগ্য পুত্র সত্যজিৎ রায় শুধু একজন জীবনঘনিষ্ঠ লেখক হিসেবেই নন, একজন অসাধারণ ও প্রজ্ঞাবান চলচ্চিত্রকার হিসেবেও বিশ্বজোড়া খ্যাতি অর্জন করেছেন। তাঁর জন্ম ১৯২১ সালের ২ মে। মায়ের নাম সুপ্রভা রায়। মসূয়া গ্রামে তিনি কোনোদিনই আসেননি। কিন্তু পিতা আর পিতামহের যোগ্য উত্তরাধিকার বহন করায় মসূয়া এবং কিশোরগঞ্জ তাঁকে নিয়েও গর্ববোধ করে। কলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে ১৯৪০ সালে অর্থনীতি বিষয়ে সম্মানসহ বিএ পাশ করেন সত্যজিৎ রায়।

প্রথমদিকে কিছুদিন বিজ্ঞাপনী সংস্থায় চাকরি করলেও এসবে তাঁর পোষাচ্ছিল না। যাঁর ভেতর সৃষ্টির উন্মাদনা তিনি কী করে চাকরি নামের শৃঙ্খলে আবদ্ধ থাকেন? তাই চাকরি ছেড়ে পুরোমাত্রায় নতুন ধারার চলচ্চিত্র নির্মাণে আত্মনিয়োগ করেন। তাঁর উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রগুলো হচ্ছে পথের পাঁচালি, মহানগর, অশনি সংকেত, অপুর সংসার, হীরক রাজার দেশে, গণশত্রু, শাখা-প্রশাখা, আগন্তুক ইত্যাদি।

পথের পাঁচালি চলচ্চিত্রের জন্য তিনি রাষ্ট্রপতির স্বর্ণপদকে ভূষিত হন। এছাড়া ভারত সরকার কর্তৃক জাতীয় অধ্যাপক ও ভারত-রত্ন উপাধিও তিনি লাভ করেন। ১৯৯২ সালে একাডেমি অব মোশন পিকচার কর্তৃক লাইফটাইম এচিভমেন্টের জন্য ‘বিশেষ অস্কার’ লাভ করে নিজেকে তিনি বিশ্বজোড়া খ্যাতির শীর্ষে নিয়ে যান। তাঁর এ অর্জন বাংলা ভাষাভাষী প্রতিটি মানুষকেই আন্দোলিত করেছে।

লেখক হিসেবেও সত্যজিৎ রায়ের প্রসিদ্ধি সর্বজনবিদিত। তাঁর উল্লেখযোগ্য বইগুলো হচ্ছে স্বয়ং প্রফেসর শঙ্কু, একডজন গপ্পো, রয়েল বেঙ্গল, সাবাস প্রফেসর শঙ্কু, জয়বাবা ফেলুনাথ, মহাসঙ্কটে শঙ্কু, যত কা- কাঠমুণ্ডুতে, নয়ন রহস্য ইত্যাদি। ১৯৯২ সালের ২৩ এপ্রিল এই ক্ষণজন্মা চলচ্চিত্র-নির্মাতা ও কালজয়ী পুরুষ কলকাতার বেলভিউ হাসপাতালে শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

ডার্মি টমসনের ‘থ্রি পুওর বেগারম্যান’ অবলম্বনে সত্যজিৎ রায় রচিত ‘তিন ভিখারী’ নামের ছড়াটি আমরা প্রাসঙ্গিক বিবেচনায় স্মরণ করতে পারি:
তিন বুড়ো ভিখিরিতে এলো গোয়ালন্দ
তিনটেই খোঁড়া আর তিনটেই অন্ধ
হয়তো-বা জুটে যেত টাকা-আনা-পাইটা
সব ফাঁস করে দিল শিংনাড়া গাইটা
নিমেষেতে ভেস্তায় ভিক্ষের ফিকির
চোখ খুলে চম্পট দেয় তিন ভিখিরি।

সুখলতা রাও:
উপেন্দ্রকিশোর রায়ের কন্যা ও সুকুমার রায়ের জ্যেষ্ঠ ভগ্নি সুখলতা রাও। ১৮৮৬ সালের ২০ অক্টোবর কলকাতায় জন্ম। বেথুন কলেজ থেকে গ্র্যাজুয়েশন করে শিক্ষকতাকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করেন। বিয়ে হয় উড়িষ্যায়। স্বামী ডক্টর জয়ন্ত রাও। সুখলতা নিজের সম্পাদনায় বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় ‘আলোক’ নামে একটি পত্রিকা বের করতেন।

একজন শিশুসাহিত্যিক ও সমাজকর্মী হিসেবে সমকালে তিনি যথেষ্ট খ্যাতি অর্জন করেন। স্বামীর সহযোগিতায় তিনি কটকে শিশু ও মাতৃমঙ্গল কেন্দ্র এবং উড়িষ্যায় নারীসেবা সংঘ প্রতিষ্ঠা করেন। সমাজকর্মে বিশেষ অবদান রাখায় ১৯৫৬ সালে ভারত সরকার তাকে ‘কাইজার-ই-হিন্দ’ পদকে ভূষিত করে।

এছাড়া ‘নিজে পড় নিজে শেখ’ বইয়ের জন্য তিনি লাভ করেন ভারত সরকারের সাহিত্য পুরস্কার। বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় সুখলতা রাও অনেক বই রচনা করেন। তার প্রকাশিত বইগুলো হচ্ছে- গল্প আর গল্প (১৯১০), গল্পের বই (১৮১২), আরও গল্প (১৯১৬), খোকা এলো বেড়িয়ে (১৯১৬), নতুন পড়া (১৯২২), সোনার ময়ূর (১৯৫২), নতুন ছড়া (১৯৫২), বিদেশী ছড়া (১৯৬২), লালিভুলির দেশে, নানান দেশের রূপকথা, পথের আলো ও ঈশপের গল্প। ইংরেজি ভাষায় লেখা তার দু’টি বই হচ্ছে- ঘবি ঝঃবঢ়ং ও খরারহম খরমযঃং.

১৯৬৯ সালের ৯ জুলাই সুখলতা রাও ইহধাম ত্যাগ করেন।

পুণ্যলতা চক্রবর্তী:
উপেন্দ্রকিশোরের আরেক কন্যা পুণ্যলতা চক্রবর্তী। তার স্বামী অরুণনাথ চক্রবর্তী ছিলেন ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট। পুণ্যলতা চক্রবর্তীও শিশুসাহিত্যিক হিসেবে সুখ্যাতি অর্জন করেছিলেন। ১৮৯০ সালের ১০ সেপ্টেম্বর কলকাতায় জন্ম নেন পুণ্যলতা। তার প্রকাশিত বইগুলো হচ্ছে ছোটবেলার দিনগুলি. ছোট ছোট গল্প, সাদিব ম্যাজিক, গাছপালার কথা ইত্যাদি। এছাড়া তার লেখা ‘রাজবাড়ি’ উপন্যাসটি সে সময় খুবই পাঠকপ্রিয় হয়েছিল।

১৯৭৪ সালের ২ সেপ্টেম্বর পুণ্যলতা চক্রবর্তী মৃত্যুবরণ করেন। তার দুই মেয়ে যথাক্রমে কল্যাণী কারলেকার ও নলিনী দাশ। কল্যাণী কারলেকার ইংরেজি সাহিত্যের একজন বিশিষ্ট অধ্যাপক, শিক্ষাবিদ ও শিশুসাহিত্যিক। ছোট মেয়ে নলিনী দাশও অধ্যাপক ও শিশুসাহিত্যিক। উপেন্দ্রকিশোরের আরেক মেয়ে শান্তিলতাও একজন সাহিত্যিক ছিলেন।

সারদারঞ্জন রায় চৌধুরী:
উপেন্দ্রকিশোর রায় চৌধুরীর সর্বজ্যেষ্ঠ ভাই সারদারঞ্জন রায় চৌধুরী। ভারত উপমহাদেশে তাকেই ক্রিকেটের প্রথম প্রবর্তক হিসেবে গণ্য করা হয়। বাল্যকালে তিনি কিশোরগঞ্জ মাইনর স্কুলে পড়াশুনা করেন। সারদারঞ্জন তার অপরাপর চার ভাই যথাক্রমে উপেন্দ্রকিশোর, শক্তিদারঞ্জন, কুলদারঞ্জন ও প্রমদারঞ্জনকে নিয়ে ১৮৭০ সালে সর্বপ্রথম ঢাকা ক্রিকেট ক্লাব গড়ে তোলেন। পরে কলকাতায় প্রতিষ্ঠা করেন টাউন ক্লাব। দুই দলেরই ক্যাপ্টেন ছিলেন সারদারঞ্জন নিজে।

১৮৮০ সালে ঢাকা কলেজ ক্লাব নামে অখণ্ড বঙ্গের প্রথম ক্রিকেট ক্লাবটিও তার হাত ধরেই গঠিত হয়। ১৮৮৪ সালে কলকাতা ইডেন গার্ডেনে ক্যালকাটা প্রেসিডেন্সি ক্লাবের সাথে এক খেলায় ঢাকা কলেজ জয়লাভ করেছিল। আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয়ে গণিত বিভাগের শিক্ষক হিসেবে যোগদানের পর তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদেরও ক্রিকেটে হাতেখড়ি দেন।

ইংরেজ সাহেবদের হাত থেকে তিনিই সর্বপ্রথম বাংলায় ক্রিকেটযাত্রার শুভ সূচনা করেন। বাংলায় জেলাভিত্তিক ক্রিকেট দল গঠন করে সারদারঞ্জন এবং তার ভাইয়েরা আন্তঃজেলা ক্রিকেট টুর্নামেন্টেরও আয়োজন করতেন। ক্রিকেটের নিয়মকানুন বিষয়ে ‘ক্রিকেট খেলা’ নামে সারদারঞ্জনই সর্বপ্রথম বাংলায় বই রচনা করেন। স্কুল ছাত্রদের জন্যও তিনি গণিত বিষয়ে দুটো বই লিখেছিলেন। তিনিই বাংলায় ক্রিকেট খেলার জনক এবং উপমহাদেশে ক্রিকেটের অগ্রদূত।

মসূয়ার রায়বাড়ির উত্তরাধিকার নিয়ে এই কীর্তিমান কালজয়ী মানুষেরা বাংলার শিল্প-সাহিত্য ও ক্রীড়ায় যে অবদান রেখে গেছেন তা বাংলা ভাষাভাষী প্রতিটি মানুষকেই যুগপৎ আন্দোলিত করে। শুধু ক্রীড়াতেই নয়, বিশ্বসাহিত্যে নন্দনতত্ত্বের যে ধারা প্রবহমান তাকেও বেগবান করেছে মসূয়ার রায় পরিবার। একই বৃন্তে ফোটা এত এত ফুলের দিগন্তবিস্তারী সৌরভে দিনের পর দিন আন্দোলিত হচ্ছে ক্রীড়া ও শিল্প-সাহিত্যের সকল অঙ্গন। মসূয়া তথা কিশোরগঞ্জ সেই গৌরবেরও সমান অংশীদার।

আগামীর বিষয়: কিশোরগঞ্জের মুদ্রণশিল্প

(জাহাঙ্গীর আলম জাহান, ছড়াকার, প্রাবন্ধিক, ইতিহাস-মুক্তিযুদ্ধ ও লোকসংস্কৃতির গবেষক, প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৪১টি।)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর