কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মায়ের জন্য আজো কাঁদে শুভদেব


 স্টাফ রিপোর্টার | ৭ জুলাই ২০১৯, রবিবার, ৮:১০ | এক্সক্লুসিভ 


গলিটার নাম সবুজবাগ। নতুন করে গলিটির নামকরণ করা রয়েছে, ‘শহীদ ঝর্ণা রাণী ভৌমিক সড়ক’। শোলাকিয়া ঈদগাহের উত্তর পশ্চিম কোণার দিকে এর অবস্থান। গলির মাঝামাঝি স্থানের ১০৯৭ নম্বর বাসাটিই ‘ভৌমিক নিবাস’। রোববার (৭ জুলাই) দুপুরে এ বাসার সামনে গেলে শোকের আবহ চোখে পড়ে।

ছোট পুরনো বাসাটির পশ্চিম দিকের সবুজ রঙের দেয়ালের মাঝামঝিতে টিনের জানালা। জানালাটার নিচেই কালো রঙের ওপরে সাঁটানো মমতা মাখানো একটি ছবি। নাম লেখা, ‘শহীদ ঝর্ণা রাণী ভৌমিক’। এই জানালার টিন ভেদ করেই লেগেছিল গুলিটা। মাকে স্মরণে রাখতে দুই ছেলে সাঁটিয়েছে এই ছবি।

তিন বছর আগে ২০১৬ সালের ৭ই জুলাই ঈদুল ফিতরের দিন ঘড়িতে তখন পৌনে নয়টা বাজে। হঠাৎ বোমার শব্দ। একটু পরেই গোলাগুলির শব্দ। খবর এলো বাসার ৫০ গজ দূরে আজিম উদ্দিন স্কুলের পাশে পুলিশ-জঙ্গিদের মধ্যে গোলাগুলি চলছে।

দরজা জানালা বন্ধ করে ঘরের ঝর্ণা রাণীর বাসার সবাই ভয়ে জড়োসড়ো। আশপাশের বাসার লোকজনও তাদের দরজা জানালা বন্ধ করে দিয়েছে। জঙ্গিরা চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে দুই পুলিশকে মেরে সবুজবাগ গলি থেকে পুলিশের ওপর গুলি ছুঁড়ছে। নিক্ষেপ করছে হাতবোমা। বিপরীত দিক থেকে পুলিশও পাল্টা গুলি ছুঁড়ছে। এর মধ্যে একটি গুলি টিনের জানালা ভেদ করে ঘরের ভেতর থাকা ঝর্ণা রাণীর মাথায় এসে লাগে। সাথে সাথেই মেঝেতে লুটিয়ে পড়েন তিনি।

দুই ছেলে বাসুদেব ভৌমিক (৩৫) ও শুভদেব (১৩) এবং স্বামী গৌরাঙ্গ ভৌমিককে নিয়ে চার সদস্যের সংসার মমতা দিয়ে আগলে রেখেছিলেন ঝর্ণা রাণী। ঝর্ণা রাণীর মৃত্যুর তিন বছর পেরিয়ে গেছে। কিন্তু তার মর্মান্তিক মৃত্যুর শোক এখনো ভুলতে পারছেন না পরিবারের সদস্যরা।

কথা বলে জানা গেছে, নানা হতাশায় বিপর্যস্ত অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে নিহত গৃহবধূ ঝর্ণা রানী ভৌমিকের পরিবারের সদস্যরা। নিহতের স্বামী গৌরাঙ্গনাথ ভৌমিক বলেন, ‘এই শোক এখনো আমরা কাটিয়ে উঠতে পারিনি। কোনদিনই হয়তো এই দুঃসহ বেদনা ভুলা যাবে না।’

গৌরাঙ্গ ভৌমিক বলেন, ‘ছোট ছেলে শুভদেব মায়ের ছবি নিয়ে এখনো কাঁদে। বাইরে কোনো কিছুর শব্দ হলেই ভয়ে আতঁকে ওঠে সে। রাতে ‘মা’ ‘মা’ করে চিৎকার করে প্রায়ই ঘুম থেকে জেগে ওঠে। ঘুমানোর আগে দরজা জানালা ভালো করে বন্ধ করতে বলে আমাকে।

তিনি আরো বলেন, ‘মা মারা যাওয়ার পর শুভকে ময়মনসিংহের একটা স্কুলে ভর্তি করানো হয়েছিল। কিন্তু মা ছাড়া ও কোনোদিন দূরে থাকেনি। বাড়িতে আসার জন্য কান্নাকাটি করতো। বাধ্য হয়ে স্কুল বদলাতে হয়। বাসার পাশের আজিম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ে তাকে ভর্তি করা হয়েছে। এবার নবম শ্রেণিতে পড়ছে সে।

মাঝে মাঝেই আমাকে জড়িয়ে ধরে বলে, আমি মার কাছে যাব। মায়ের কথা ভাবতে ভাবতে ছেলেটা দিন দিন অসুস্থ হয়ে যাচ্ছে। সারাদিন ঝিম মেরে বসে থাকে।

বাইরে খেলাধুলা করতে যায় না। আর অসুস্থ হবেই না কেনো, ও তো সব সময় ওর মায়ের আঁচল ধরেই থাকতো। ওকে আদর করে ঘুম পাড়িয়ে দেয়া, গল্প শোনানো, মুখে তুলে ভাত খাওয়ানো সব ওর মা-ই করতো।’

রোববার (৭ জুলাই) দুপুরে শোলাকিয়ার সবুজবাগ গলির ভৌমিক নিবাসে গিয়ে দেখা যায়, শুভদেব একটা কক্ষে মায়ের ছবি নিয়ে বসে আছে। ওর থাকার ঘরে বালিশের পাশে মায়ের ছবি। মন খারাপ হলে ও মায়ের ছবি দেখে। ছবিতে হাত বুলায়। দিনের বড় একটি অংশ কাটে তার মায়ের ছবি নিয়ে।

মায়ের কথা জিজ্ঞেস করতেই চোখ ছল ছল। বাইরে এসে বাবার সাথে মায়ের ছবিটার পাশে দাঁড়ায়। নির্বাক দৃষ্টিতে অসীমের মাঝেই যেন মায়ের মুখচ্ছবিকে খুঁজে ফিরছিল শুভদেব।

গৌরাঙ্গ ভৌমিক জানান, ঝর্ণা রাণী মারা যাওয়ার পর তার নামে বাসাসংলগ্ন সড়কের নামকরণ করা হয়েছে। সরকার বড় ছেলে বাসুদেব ভৌমিককে এনআরবি গ্লোব্যাল ব্যাংকে চাকুরি দিয়েছে। রাজধানীর ধানমণ্ডি শাখায় সে চাকুরি করছে।

গৌরাঙ্গ ভৌমিক বলেন, ছোট ছেলে শুভদেবকে নিয়েই আমার যতো চিন্তা। তার একটা নিশ্চিন্ত জীবন দেখে মরে গেলেও শান্তি পেতাম। গৌরাঙ্গ ভৌমিক জানান, ঝর্ণা রাণী মারা যাওয়ার পর তার পরিবারকে সরকার পুনর্বাসনের আশ্বাস দিয়েছিল। এ ব্যাপারে সরকারি দপ্তরে চিঠি চালাচালি হলেও এখনো তা বাস্তবায়িত হয়নি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর