কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নাগরিক সভায় কিশোরগঞ্জের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে হতাশা-ক্ষোভ


 বিশেষ প্রতিনিধি | ৭ জুলাই ২০১৯, রবিবার, ৪:৩৭ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জে অনুষ্ঠিত নাগরিক সমাজের এক সভায় কিশোরগঞ্জের সামগ্রিক উন্নয়ন এবং সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে হতাশা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বক্তারা। তারা এসব সমস্যা থেকে উত্তরণে নাগরিক সমাজের সক্রিয় এবং জোরালো ভূমিকার তাগিদ দিয়েছেন।

শনিবার (৬ জুলাই) সন্ধ্যায় কিশোরগঞ্জ শহরের খরমপট্টি এলাকায় জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ মিলনায়তনে এই নাগরিক সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। ‘সুন্দর নিরাপদ আধুনিক কিশোরগঞ্জ: আমাদের প্রত্যাশা প্রাপ্তি ও করণীয়’ শীর্ষক এই মতবিনিময় সভার আয়োজন করে কিশোরগঞ্জ সম্মিলিত নাগরিক ফোরাম।

সভায় মুক্তিযোদ্ধা, রাজনীতিক, সাংবাদিক, কবি, লেখক, সংস্কৃতিজন, আইনজীবী, শিক্ষক, নারীনেত্রীসহ বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

কিশোরগঞ্জ সম্মিলিত নাগরিক ফোরাম এর প্রধান সমন্বয়ক এনায়েত করিম অমি তার বক্তব্যে বলেন, আমরা আমাদের নাগরিক অধিকারের বিষয়গুলো নিয়ে সোচ্চার হতে পারছি না। এ কারণে আমরা আমাদের কাঙ্ক্ষিত নাগরিক অধিকার অর্জনে ব্যর্থ হচ্ছি। আজকে আমরা নাগরিক সমাজ আমাদের সমস্যাগুলো নিয়ে বসতে পেরেছি। আমরা আমাদের এসব নাগরিক সমস্যাগুলোর সমাধানের পথে এবার ঐক্যবদ্ধভাবে হাঁটতে পারবো।

জেলার পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট শাহ আজিজুল হক বলেন, আমাদের প্রজন্মের সময় আমাদের মেরুদণ্ড শক্ত ছিল। নিজেদের অধিকার নিয়ে প্রতিবাদী হতে পারতাম। মেরুদণ্ড শক্ত ছিল বলেই আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি, দেশ পেয়েছি। কোন প্রজন্মে এসে আমাদের মেরুদণ্ড বাঁকা হয়েছে এটা খুঁজে বের করতে হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক পরিচালক ডা. দীন মোহাম্মদ বলেন, চাকরির খাতিরে আমি বাংলাদেশের ৬৪টি জেলাতেই ঘুরেছি। মনে হয়েছে সবচেয়ে নোংরা শহর এই কিশোরগঞ্জ। আমি শহরের নগুয়া এলাকায় বসবাস করি। বর্ষাকালে এ এলাকার রাস্তাঘাট পানির নিচে তলিয়ে যায়। সরকার কোটি কোটি টাকা খরচ করছে অথচ আমাদের শহরের ড্রেনেজ ব্যবস্থাগুলোর সমাধান হচ্ছে না।

কিশোরগঞ্জ শহরের যানজট অসহনীয় পর্যায়ে। যানজট কমাতে হলে একাধিক বাইপাস সড়কের দরকার। কিশোরগঞ্জের জন্য ভালো মানের কোনো বাস সার্ভিস নাই। ট্রেনের অবস্থা আরো খারাপ। নরসুন্দা নদী কাকে বলে, যে নরসুন্দার মাথা কেটে ফেলা হয়েছে, গলা কেটে ফেলা হয়েছে- সে নরসুন্দা এখন নদী হয় কিভাবে। কিশোরগঞ্জ শহরকে আমি পরিস্কার শহর হিসেবে দেখতে চাই।

আইনজীবী নাসিরউদ্দিন ফারুকী বলেন, নরসুন্দা নদী, হয় এটা ভরাট করে ফেলতে হবে, নয় চালু করতে হবে। নরসুন্দায় স্রোত প্রবাহ আনতে হবে।

প্রবীণ সাংবাদিক মু আ লতিফ বলেন, নরসুন্দা নদী আমাদের প্রাণের বিষয়। ছোট সময় এ নদীতে লাফ-ঝাঁপ করতাম, সাঁতার কাটতাম। এক সময় প্রবাহিত ছিল এই নদী। সেই নরসুন্দাকে আমরা নিজেরাই মেলে ফেলেছি। আজকে যে দল সরকারে আছে, তাদের এ ব্যাপারে দৃষ্টি দিতে হবে কি করে নরসুন্দাকে আবার জীবিত করা যায়। আমরা বিকেল বেলায় নরসুন্দার তীর ঘেঁষে হাঁটতে চাই। ওয়াকওয়েগুলো নিরাপদ নেই। নোংরা আবর্জনায় ভর্তি। এসব সমস্যারও সমাধান হওয়া দরকার।

রাজনীতিবিদ সাকাউদ্দিন আহাম্মদ রাজন বলেন, নরসুন্দা নদী আমাদের স্বপ্নের নদী। ময়মনসিংহ বা ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে এসে কেউ এই নদীকে দূষিত করেনি। সব পয়ঃনিষ্কাশন নদীতে আমরা দিচ্ছি। নদী দূষিত হওয়ার পেছনে আমরা সাধারণ জনগণও দায়ি। এখানে আমরা শুধু হতাশার বিষয়গুলোই বলছি। কিন্তু আমাদের প্রাপ্তিও অনেক। সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম কিশোরগঞ্জের ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। এগুলো আমাদের স্বীকার করতে হবে।

জেলা উইম্যান চেম্বারের সভানেত্রী ফাতেমা জোহরা বলেন, প্রতিটি সামাজিক-সাংস্কৃতিক-মানবিক আন্দোলনই এস্টাবলিস্টমেন্টের বিপক্ষে যায়। কিন্তু আমরা এখানে কোন রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে বসিনি। একেবারেই সাধারণ নাগরিকদের সমস্যাগুলো, আমাদের একান্ত সমস্যাগুলো বলার জন্য বসেছি।

নারীনেত্রী বিলকিস বেগম বলেন, নিরাপদ কিশোরগঞ্জের কথা আমরা বলছি, বর্তমানের যে কিশোরগঞ্জ, নিরাপত্তাহীনতায় আছি। আমরা এখন মাদকের জোনে বসবাস করছি। সুন্দর কিশোরগঞ্জ দেখতে চাইলে আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। নরসুন্দাকে দেখার কেউ নেই। নরসুন্দাকে রক্ষা করতে হলে নাগরিকদের সোচ্চার হতে হবে।

মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক আবুল কাসেম বলেন, আমাদের অধিকারগুলো নিয়ে আমাদেরকেই প্রতিবাদমুখর হতে হবে। বলতে হবে, আমরা ভোট দিয়েছি, ড্রেনের পানি উল্টা দিকে যায় কেনো। নরসুন্দা নদীর বিষয়ে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, আমাদের কোনো ‘নরসুন্দর’ নেই যে কেটে ছেঁটে আমাদের নরসুন্দাকে সুন্দর করে দেবে। নরসুন্দায় লুটপাট হয়েছে বলার লোক নেই। প্রতিবাদের লোক নেই।

অধ্যক্ষ গুলশান আরা বেগম বলেন, আমাদের সমস্যাগুলো নিয়ে সম্মিলিতভাবে কথা বলতে হবে। আজকে একটা প্লাটফর্ম তৈরি হতে যাচ্ছে। এটা সুখের বিষয়।

আবৃত্তি শিল্পী মম জুয়েল বলেন, নিরাপদ কিশোরগঞ্জের কথা যদি বলতে চাই তাহলে বলবো, এই শহরে আমরা এখন নিরাপত্তাহীনতায় আছি। কিশোরদের হাতে এখন ড্রাগ, অস্ত্রের ঝনঝনানি। প্রতিবাদের জায়গাটাও এখন নেই। আমাদের প্রতিবাদের জায়গাটা তৈরি করতে হবে। আর এটা সম্মিলিত প্রচেষ্টায় সম্ভব।

লেখক আবুল এহসান অপু বলেন, এই শহরে আমরা অনেক সমস্যায় জর্জরিত। আমাদের সমস্যাগুলো নিয়ে প্রয়োজনে বুকলেট তৈরি করে সরকারের কাছে উপস্থাপন করতে হবে।

কবি আমিনুল ইসলাম সেলিম বলেন, এ শহরের কিশোর গ্যাং একটি বড় সমস্যা। এদের পেছনে কারা আছে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে হবে। কিশোরগঞ্জ শহরে পাবলিক টয়লেটের কোনো ব্যবস্থা নেই। যে শহরে পাবলিক টয়লেটের ব্যবস্থা থাকে না, সে শহর কী করে আধুনিক শহর হয়। প্রশ্ন রাখেন তিনি।

শিল্পী আবুল হাশেম বলেন, আমাদের দরকার আধুনিক উন্নত ট্রেন। জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে দীর্ঘদিন ধরে কমিটি নেই। সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড স্থবির। এ ব্যাপারে সরকারকে ব্যবস্থা নিতে হবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর