কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


প্রতিধ্বনি থিয়েটার এর ২২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে নাট্যপ্রেমীদের মিলনমেলা


 স্টাফ রিপোর্টার | ৭ জুলাই ২০১৯, রবিবার, ২:৫৩ | সংস্কৃতি 


‘‘সত্য ও সুন্দরের জন্য নাটক” এই স্লোগানকে উপজীব্য করে আজ থেকে বাইশ বছর আগে একদল উদ্যমী তরুণ চোখে মুখে অজানা স্বপ্ন নিয়ে সময়ের দাবিতে গড়ে তুলেছিল প্রতিধ্বনি থিয়েটার নামক একটি সাংস্কৃতিক সংগঠন। এই তরুণ দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন সাইদুল হক শেখর এবং ম ম জুয়েল। তাঁরা আজও আমাদের সাথে সহযোদ্ধা হয়ে, নাট্যকর্মী হয়ে, আমাদের মাথার উপর বটবৃক্ষের মতো ছায়া হয়ে সর্বোপরি আমাদের অভিভাবক হয়ে প্রতিধ্বনি থিয়েটারে আছেন। মূলত এই দু’জনের হাত ধরেই ১৯৯৭ সালের ৫ জুলাই ষোড়শ শতকের সাংস্কৃতিক রাজধানী খ্যাত কিশোরগঞ্জে প্রতিধ্বনি থিয়েটার যাত্রা শুরু করেছিল।

প্রতিধ্বনি থিয়েটারের ২২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা ও স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন সংগঠনের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন শামীম।

শনিবার (৬ জুলাই) সন্ধ্যায় শহরের সমবায় ভবনের দ্বিতীয় তলায় ঘরোয়া পরিবেশে এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে উদযাপিত হয় প্রতিধ্বনি থিয়েটারের এবারের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এই আয়োজনকে ঘিরে নাট্যপ্রেমীদের মিলনমেলায় মুখরিত হয় অনুষ্ঠানস্থল।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই সংগঠনের এক সময়ের নিবেদিত কর্মী নাট্যজন- উবায়দুর রহমান, মিলন, শফিউল আলম যারা পৃথিবী নামক নাট্যমঞ্চ ছেড়ে চলে গেছেন ওপারে তাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে এক মিনিট দাঁড়িয়ে নীরবতা পালন করা হয়।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজনে জেলা শহরের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত থেকে তাদের অভিব্যাক্তি প্রকাশ করেন।

কিশোরগঞ্জ সংস্কৃতি মঞ্চের সভাপতি জিয়াউর রহমান বলেন, প্রতিধ্বনি থিয়েটার কিশোরগঞ্জের একটি ঐতিহ্যবাহী সাংস্কৃতিক সংগঠন। এখন এই সংগঠনের নাটক খুব একটা মঞ্চায়িত না হলেও এক সময় প্রতিধ্বনির নাটক কিশোরগঞ্জ তথা সারাদেশে প্রশংসিত হয়েছে। প্রতিধ্বনির সেই সোনালী অতীত ফিরে আসুক এমন প্রত্যাশাই করি।

চর্যাপদ থিয়েটারের সভাপতি এবং কিশোরগঞ্জ থিয়েটার ফোরামের সভাপতি আব্দুল ওয়াহাব বলেন, প্রতিধ্বনি সংগঠনটিকে আমি দীর্ঘদিনে থেকে চিনি-জানি। কোন নাটক যতক্ষণ পর্যন্ত মানসম্মত না হবে ততক্ষণ পর্যন্ত তারা সেটাকে মঞ্চায়ন করে না। প্রতিধ্বনি মানের ব্যপারে কোন ছাড় দেয় না। প্রতিধ্বনি অনেক অনেক দূর এগিয়ে যাক এই প্রত্যাশা করি।

মানবাধিকার নাট্য পরিষদের জেলা কমিটির সভাপতি হারুন আল রশিদ বলেন, প্রতিধ্বনি থিয়েটারকে সেই শুরু থেকেই দেখে আসছি, একসময় এই সংগঠনের সাথে যুক্তও ছিলাম। প্রতিধ্বনির কিছু নাটক সারাদেশে প্রশংসিত হয়েছে তার মধ্যে- মানুষ, ১৯৭১, ক্ষ্যাপা পাগলার প্যাঁচাল উল্লেখযোগ্য। সময়ের দাবিতে মানুষ নাটকটি আবারো প্রতিধ্বনির ব্যানারে মঞ্চায়নের আহবান জানাচ্ছি।

প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে ম ম জুয়েলের মতো কিছু নাটক পাগল নাট্যকর্মী নাটককেই যারা ধ্যান জ্ঞান করেছিলেন যাদের কাছে জীবনের আরেক নাম ছিল নাটক। তাদের মধ্যে অন্যতম- সাইদুল হক শেখর, মাইনুল হক তালুকদার মোহন, কামরুজ্জামান স্বপন, বাবলু সাহা, এ্যাড. নূর, আফরোজা হাসান পারুল, মিনা, সোনালী সাহা, মাসুদুর রহমান মিলন প্রমুখ।

২২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা ও স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানে এই দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে গিয়ে নানান অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেন সংগঠনের বর্তমান উপদেষ্টা সাইদুল হক শেখর।

প্রতিধ্বনি থিয়েটার প্রতিষ্ঠার কথা বলতে গিয়ে নতুন কর্মীদের উদ্দেশ্যে সংগঠন করতে হলে কি কি করা যাবে আর কি কি করা যাবে না এমন অনেক শিক্ষণীয় বিষয় তুলে ধরেন সংগঠনের অধিকর্তা ম ম জুয়েল। তিনি সবার উদ্দেশ্যে বলেন, আসুন সংগঠক, অভিনেতা, আবৃত্তি শিল্পী হওয়ার আগে প্রকৃত মানুষ হই।

প্রতিষ্ঠার পর প্রথম যে নাটকটি দিয়ে মঞ্চে প্রতিধ্বনি থিয়েটারের যাত্রা শুরু হয়েছিল তাহলো- ম ম জুয়েলের রচনা ও নির্দেশনায় নাটক ‘‘মশা মাছির উপদ্রপ”। ম ম জুয়েল রচিত আরেকটি নাটক ‘‘স্বর্গ ভেঙ্গে সাম্য” জাতীয় নাট্য উৎসবে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছিল। সময় যত গড়িয়েছে প্রতিধ্বনি থিয়েটার জেলার গণ্ডি পেরিয়ে সারাদেশে এমনকি জাতীয় নাট্য উৎসবেও সুনামের সাথে পারফর্ম করেছে। পাবনার বনমালী ইন্সটিটিউটে মাসব্যাপী নাট্য উৎসবে প্রতিধ্বনি থিয়েটার আমন্ত্রিত হয়ে অংশগ্রহণ করে এবং প্রশংসিত হয়।

সমালোচক-শুভানুদ্ধায়ীসহ অনেককে প্রায়শই বলতে শোনা যায় বর্তমানে প্রতিধ্বনি থিয়েটার তেমন কোন প্রোডাকশান করতে পারছেনা। হ্যাঁ এটা আংশিক সত্য স্বীকার করে নিয়ে সভাপতি বলেন, আমরা হয়তো অনেকের মতো নাটক মঞ্চায়ন করছি না। কিন্তু তাই বলে আমাদের কাজ থেমে নেই। আমরা নিয়মিতই রিহার্সেল করছি এবং বেশ কয়েকটি নাটক আমাদের উঠানো আছে। সময় সুযোগ মতো সেগুলো মঞ্চায়ন হবে। জেলার সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের কেন্দ্রবিন্দু শিল্পকলা একাডেমির সংস্কার কাজ এবং কিছু পারিপার্শ্বিকতার কারণে আমরা মঞ্চায়ন করার মতো প্রোডাকশন প্রস্তুত থাকার পরও তা উপস্থাপন করতে পারছি না।

এ যাবতকালে প্রতিধ্বনি থিয়েটার কিশোরগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় যে প্রযোজনা গুলো মঞ্চায়ন করেছে তার একটি ছোট্ট পরিসংখ্যান- ১. গিট্রু- ২৭ বার ২. কঞ্জুস- ৭ বার ৩. মানুষ- ৫ বার ৪. ১৯৭১- ২৪ বার ৫. সখিনার বিলাপ- ১৫ বার ৬. খেলা খেলা- ২ বার ৭. জনৈক ঈমান আলী- ১০ বার ৮. স্বর্গ ভেঙ্গে সাম্য- ৫ বার ৯. রুপবান- ৮ বার ১০. রয়েল বেঙ্গল টাইগার- ৪ বার ১১. নৃপতি- ১৫ বার ১২. মশা মাছির উপদ্রপ- ৬ বার ১৩. সুবচন নির্বাসনে- ৫ বার ১৪. ইঙ্গিত- ২ বার ১৫. ক্ষ্যাপা পাগলার প্যাঁচাল- ২০ বার ১৬. সুন্দর আলীরা সাবধান- ৪ বার মোট- ১৫৯ বার।

আলোচনায় উঠে আসে বর্তমানে সারাদেশেই এক ধরণের সাংস্কৃতিক স্থবিরতা বিরাজ করছে। এখন আর আগের মতো জীবনমুখী, মানুষের হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়া তেমন কোন নাটক সিনেমা তৈরি হচ্ছে না। এত বেশী টিভি চ্যানেল এবং বিভিন্ন অনলাইন মাধ্যম থাকার পরও সাংস্কৃতিক কর্মীরা একধরনের অর্থনৈতিক নিরাপত্তাহীনতায় জীবনযাপন করছে। অথচ আমাদের ভুলে গেলে চলবে না আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পীরা গান গেয়ে মুক্তিযোদ্ধা তথা সারাদেশের মানুষকে যেভাবে উজ্জীবিত রেখেছিল তা সত্যিই স্মরণ রাখার মতো। এ দেশের প্রতিটি আন্দোলন-সংগ্রামে সাংস্কৃতিক কর্মীদের ভূমিকা অনস্বীকার্য। সাংস্কৃতিক কর্মীদের অর্থনৈতিক সুরক্ষায় সরকার এগিয়ে আসবে প্রতিধ্বনি থিয়েটারের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর ছোট্ট পরিসর থেকে জোর দাবি জানানো হয়।

অনেকে আক্ষেপ করে বলেন, সাংস্কৃতিক কর্মীদেরকে এখনও মানুষের কাছে হাত পেতে নাটকের টাকা জোগাড় করতে হয়। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নাট্যজন আতাউর রহমান খান মিলন, কাব্বী পারভেজ, মানস কর ও আবু জাবিদ ভুইঁয়া সোহেল প্রমূখ।

প্রতিধ্বনির ডাকে সাড়া দিয়ে ২২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর আয়োজনে উপস্থিত হওয়ার জন্য সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা এবং ধন্যবাদ জানিয়ে সংগঠনের সভাপতি আহবান জানান, আসুন আমরা সবাই মিলে সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলকে আগাছামুক্ত রাখি এবং সাংস্কৃতিক কর্মীদের অধিকার আদায়ে সচেষ্ট ও একতাবদ্ধ হই।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর