কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জের ছড়া, ছড়াকার ও ছড়ার গতি-প্রকৃতি


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ৫ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার, ৯:১৪ | সাহিত্য 


কিশোরগঞ্জের ছড়া নিয়ে কথা বলতে গেলে প্রথমেই বলতে হবে এ জনপদের হাজারো লোকছড়ার কথা। কারণ কিশোরগঞ্জ হচ্ছে লোকসাহিত্যের এক অপরিমেয় খনি। এ মাটির পরতে পরতে ছড়িয়ে আছে লোকসাহিত্যের নানান উপাদান। প্রবাদ, প্রবচন, লোকগল্প, ছড়া, লোককাহিনী, কিসসা, পালা, জারী, সারি মিলিয়ে লোকসাহিত্যের এমন কোনো ক্ষেত্র নেই যা এখানে পাওয়া যাবে না।

‘মৈমনসিংহ গীতিকা’র বৃহৎ অংশ জুড়ে ছড়িয়ে আছে কিশোরগঞ্জের লোক উপাখ্যান। বক্ষমান রচনার বিষয় যেহেতু ছড়া তাই এ রচনায় কিশোরগঞ্জের কয়েকটি লোকছড়ার উদ্ধৃতি অপরিহার্য। লোকছড়ার অবয়ব দেখেই এ জেলার ছড়াশিল্প সম্পর্কে একটি স্বচ্ছ ধারণা পাওয়া যাবে। কিশোরগঞ্জ মৃত্তিকার প্রান্তিক জনমানুষ প্রতিদিনের অর্জিত অভিজ্ঞতায় মুখে মুখে অনেক ছড়া তৈরি করেছেন; যা পুরুষানুক্রমে যুগ থেকে যুগান্তরে আজও সমান আবেদন বহন করে চলেছে।

সে সকল লোকছড়ার উদ্ধৃতি থেকেই ছড়াসাহিত্যের গতি-প্রকৃতি ও বিকাশ-বিবর্তনের ইঙ্গিত স্পষ্ট হবে। যেমন-
(ক)
চৈত্ মাইয়া আহালে/ভূইত্যা আলু কপালে/
কই গেলে রে পোলাপান/বদনা ভইরা পানি আন্।

(শব্দার্থ: চৈত্ মাইয়া-চৈত্র মাসের, আহালে-আকালে, ভূইত্যা আলু-মিষ্টি আলু)

(খ)
আলাবালা ফুলের ডালা/মায়ে কয় জ্বালা জ্বালা
বাপে কয় বিয়া দিয়ালা/ভাইয়ে কয় থাউক/বাড়া বাইন্যা খাউক।

(গ)
ঝিয়ে ভাঙ্গে মুছি/দুই পায়ে পুঁছি
বউয়ে ভাঙ্গে হরা/দ্যাশ দিগালে ছড়া।
(মুছি- মাটির প্রদীপ, পুঁছি-অগ্রাহ্য করি, হরা-মাটির তৈরি ঢাকনা, দ্যাশ দিগালে-দেশ জুড়ে)

(ঘ)
কাউল্হা আনছি কুমারের ঝি
আউজ্জা জিগায় পাইল্যা কী?
(কাউল্হা-গতকাল, আউজ্জা-আজকে, পাইল্যা-পাতিল)

(ঙ)
অশিপাতা যশি যশি/নারকেল পাতার তরকারি
ছুডুলোক বড় অইয়্যা/জুতারে কয় আলমারি।

ছড়া হচ্ছে সাহিত্যের আদিতম সৃষ্টি। লেখ্য রূপ লাভ করার বহু আগেই সৃষ্টি হয়েছে মৌখিক ছড়া। যখন অক্ষর বা বর্ণমালা আবিষ্কৃত হয়নি তখনও মানুষ মুখে মুখে ছন্দোবদ্ধ কথা তৈরি করতো। সেই কথাগুলোই মুখ থেকে মুখে বিস্তারিত হয়েছে। প্রাচীন মানুষের ছন্দোবদ্ধ সেই কথামালার স্বীকৃত রূপই হচ্ছে লোকছড়া।

বাংলা সাহিত্যের আদি নিদর্শন চর্যাপদেও ছড়ার চরিত্র খুঁজে পাওয়া যায়। চর্যার প্রথম পদটিই স্বরবৃত্ত ছন্দে অর্থাৎ ছড়ার ছন্দে রচিত। মোট কথা, ছড়াই হচ্ছে সাহিত্যের আদি পিতা। সেই ছড়া নিয়ে অনেকের মধ্যেই নাক সিটকানো প্রবণতা লক্ষ করা যায়। কেউ কেউ ছড়াকে সাহিত্যের পদবাচ্যই বিবেচনা করতে চান না। তাদের ভাবখানা এ-রকম যে, যারা ছড়া লেখে তারা অন্য কিছু লিখতে পারে না বলেই ছড়া লেখে। বিশেষ করে একশ্রেণির কট্টর কবিতা লেখক (প্রকৃত অর্থে কবি নয়) ছড়া লিখিয়েদের প্রতি এ-রকম তাচ্ছিল্যের মনোভাব প্রদর্শন করেন।

অথচ বাস্তব সত্য হচ্ছে, ছড়া লিখতে না জানলে কবিতাও লেখা যায় না। কারণ কবিতা লিখতেও ছন্দ-জ্ঞানের আবশ্যকতা রয়েছে। যার ছন্দ-জ্ঞান নেই তার কবিতা কখনোই কবিতা হয় না, হতে পারে না। এমন অনেক কবি আছেন যিনি কোনোদিনই ছড়া লেখেননি। তাহলে তার কবিতা কি কবিতা হয় না? বিষয়টি তা নয়। কবিতা লিখতে হলে ছড়া লিখতেই হবে এমন কোনো কথা নেই। কথা হচ্ছে যিনি কবি তিনি ছড়া লিখবেন কি লিখবেন না সেটা একান্তই তার ব্যাপার। তবে তার মধ্যে ছন্দ-জ্ঞান ও ছন্দের দ্যোতনাবোধ অবশ্যই থাকতে হবে। তা না-হলে যথার্থ কবি হিসেবে তিনি স্বীকৃতি আশা করতে পারেন না।

কবিতার ছন্দ হয়তো ছড়ার ছন্দকে অনুসরণ করে না। কিন্তু কবিতা লিখতেও ছন্দের নিয়ম মেনে চলতে হয়। সে কারণেই আমাদের বড় বড় অনেক কবিও ছড়াকে তুচ্ছ-জ্ঞান করেননি। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম থেকে শুরু করে জসীম উদ্দীন, শামসুর রাহমান, আল-মাহমুদেরাও অসাধারণ ছড়া লিখে ছড়াকে ‘সাহিত্য’ হিসেবে গণ্য করেছেন।

১৮৯৯ খ্রিষ্টাব্দে যোগীন্দ্রনাথ সরকার লৌকিক ছড়ার সমন্বয়ে ‘খুকুমণির ছড়া’ প্রকাশ করেছিলেন। এ গ্রন্থের ভূমিকায় রামেন্দ্রসুন্দর ত্রিবেদী সর্বপ্রথম ছড়াকে ‘ছড়াসাহিত্য’ বলে স্বীকৃতি দেন। ছড়াকে ‘সাহিত্য’ হিসেবে কে স্বীকার করলো, কে করলো না সেটি আজ আর কোনো বিষয় নয়। ছড়া তার স্বকীয় বৈশিষ্ট্য নিয়ে ছড়া-বিদ্বেষীদের চোখে আঙুল দিয়ে প্রমাণ করেছে যে, সাহিত্যের গুণবিচারে ছড়াও আজ শক্তিশালী সাহিত্য-মাধ্যম। একে অস্বীকার করার এবং এর আবেদনকে তুড়ি মেরে উড়িয়ে দেবার কোনো সুযোগ নেই।

বাংলা ছড়াসাহিত্যের আধুনিকায়নে কিশোরগঞ্জ এক অগ্রসর জনপদ। শিশুসাহিত্য তথা ছড়াসাহিত্যের পথিকৃৎ উপেন্দ্রকিশোর রায় চৌধুরী, তাঁর পুত্র সুকুমার রায়, কন্যা সুখলতা রাও এবং পৌত্র সত্যজিৎ রায় এই কিশোরগঞ্জ মৃত্তিকার গর্বিত উত্তরাধিকার। এঁদের হাত ধরেই বাংলা ছড়ার নির্মাণ-কৌশলে ঘটেছে নবতর উদ্বোধন। ছড়ার ক্ষেত্রে এঁদের নিরীক্ষাধর্মী নবায়ন ছড়াশিল্পে এক অভিনব মাত্রা যোগ করে। এঁদের কল্যাণে বাংলা ছড়া শিশুতুষ্টির পাশাপাশি বড়দেরও মনোরঞ্জনের বিষয় হয়ে ওঠে। ছড়ায় Satire-ধর্মিতার পথিকৃৎ সুকুমার রায় মজার মজার শব্দ তৈরির মাধ্যমে যে অভিনবত্ব সৃষ্টি করেছেন তা-ও অতুলনীয়। হাঁসজারু, বকচ্ছপ, সিংহরিণ এ জাতীয় শব্দ ব্যবহার করে সুকুমার রায় ছড়াসাহিত্যে একজন সফল Satirist হিসেবে স্বীকৃত হন। উপেন্দ্র-পরিবারভুক্ত ছড়াশিল্পীদের হাত ধরেই বাংলা ছড়াশিল্প উপস্থাপনার স্বাতন্ত্র্যে আর বিষয়-বৈচিত্র্যে নব আঙ্গিক লাভ করেছে। ছড়াশিল্পীদের কাছে এঁরা নমস্য।

স্বাধীনতা-উত্তর সময়ে কিশোরগঞ্জের ছড়াশিল্পে নবতর উদ্বোধন ঘটে। শিশুতোষ ছড়ার বলয় ভেঙে অন্নদাশংকর রায়ের অনুসরণে ছড়ায় সমাজ-সচেতনতার নতুন আবহ তৈরি হয়। কিশোরগঞ্জের অনেক ছড়াকার আজ জাতীয় ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত। এই প্রতিষ্ঠার পেছনে তাঁদের নিরন্তর শ্রম এবং ছন্দ-প্রকৌশলীর ভূমিকা গুরুত্বের দাবি রাখে। এঁরা ছড়া লেখেন না, ছড়া নির্মাণ করেন। বিষয়বস্তুর অভিনবত্ব, ছন্দের ভাঙচুর আর অন্ত্যমিল তৈরির কুশলতা এঁদেরকে ছন্দ-প্রকৌশলীর মর্যাদা এনে দিয়েছে।

একজন প্রকৌশলী যেমন রড-সিমেন্ট-বালির যথাযথ সংমিশ্রণে মজবুত ভবন নির্মাণের কুশলতা দেখাতে পারেন, তদ্রুপ একজন প্রকৃত ছড়াকার ছন্দ-মাত্রা-অন্ত্যমিলের যথার্থ প্রয়োগে ছন্দ-প্রকৌশলী হিসেবে নিজেকে উন্নীত করতে পারেন। ইটের পর ইট সাজিয়ে রাজমিস্ত্রি ভবন নির্মাণ করেন বটে, কিন্তু তিনি যেমন প্রকৌশলী নন, তেমনি দায়সারা ছন্দ-মাত্রা-অন্ত্যমিল দিয়ে বাক্য সাজালে ছড়াকার হয়তো হওয়া যায়; ছড়া নির্মাতা বা ছন্দ-প্রকৌশলী হওয়া যায় না।

কিশোরগঞ্জের বেশকিছু ছড়াকার ছন্দ-প্রকৌশলীর ভূমিকায় ইতোমধ্যে কুশলী ছড়া নির্মাতা হিসেবে নিজেদের আসন পাকাপোক্ত করে নিয়েছেন। সেই সকল কুশলী ছন্দ-প্রকৌশলী সম্পর্কে নিম্নে সংক্ষেপে আলোকপাত করা হলো:

মনির উদ্দীন ইউসুফ: গত শতকের ৪০ থেকে ৮০’র দশক পর্যন্ত নিরলসভাবে সাহিত্য জগতে সরব ছিলেন কবি মনির উদ্দীন ইউসুফ। তিনি একাধারে কবি, গবেষক, প্রাবন্ধিক, ঔপন্যাসিক, নাট্যকার, গজল রচয়িতা এবং সফল অনুবাদক। শিশুসাহিত্যেও তাঁর রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ অবদান। ২০০২ সালে বাংলাদেশ শিশু একাডেমি থেকে প্রকাশ পায় তাঁর ছড়ার বই ‘চলো যাই ছড়ার দেশে’। এছাড়াও তাঁর আরও অনেক ছড়া অগ্রন্থিত অবস্থায় রয়েছে।

মনির উদ্দীন ইউসুফের ‘শিশু-কিশোর রচনাসমগ্র’ বইটিও তাঁর শিশুমনস্কতার একটি বাস্তব উদাহরণ। ফারসি কবি ফেরদৌসীর ‘শাহনামা’ বাংলায় অনুবাদ করে তিনি অনুবাদ-সাহিত্যে নিজের শক্তিমত্তার পরিচয় দেন। প্রায় চার হাজার পৃষ্ঠার এই অনুবাদকর্ম সম্পন্ন করতে তাঁর ১৭ বছর সময় লেগেছিল। শ্রমসাধ্য ও অসাধারণ এই অনুবাদকর্মের জন্য তিনি ১৯৭৮ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার এবং ১৯৯৩ সালে মরণোত্তর একুশে পদক লাভ করেন।

ইমরান নূর: ১৯৩৬ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি কিশোরগঞ্জে ইমরান নূরের জন্ম। একজন প্রথিতযশা কবি হিসেবে তিনি সর্বমহলে খ্যাতি অর্জন করেন। জাতীয় পত্রপত্রিকায় নিয়মিত তার কবিতা প্রকাশ পায়। ছড়া রচনায়ও তিনি নিজের দক্ষতা ও যোগ্যতার স্বাক্ষর রেখেছেন। তার প্রকাশিত ছড়াগ্রন্থ ‘রাজ্য আমার মনের মতো’ (১৯৮৪) এবং ‘ছড়ায় ছড়ায় গল্প’ পাঠক মহলে আদৃত হয়। সাহিত্যে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি স্বর্ণপদকসহ অনেক পদক ও পুরস্কার লাভ করেন। বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের সর্বোচ্চ পদে (সচিব) চাকরি শেষে বর্তমানে তিনি অবসর জীবন যাপন করছেন।

মোহাম্মদ ফিরোজ: অষ্টগ্রাম উপজেলার শেখেরহাট গ্রামে ১৯৪৭ সালের ৪ জানুয়ারি মোহাম্মদ ফিরোজ-এর জন্ম। তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের অবসরপ্রাপ্ত উপসচিব। পেশাগত দায়িত্বের অবসরে তিনি সাহিত্যচর্চার সাথে জড়িত। তিনি কবিতা, গান ও ছড়া লিখে থাকেন। তার প্রকাশিত ছড়ার বই ‘নানা রঙে ঝিলমিল’ (১৯৯১) এবং ‘বাঁদরামি’ (১৯৯৩)। ছড়াসাহিত্যে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ২০০৬ সালে তিনি কিশোরগঞ্জ ছড়া উৎসবে সুকুমার রায় সাহিত্য পদকে ভূষিত হন।

আবিদ আনোয়ার: কটিয়াদী উপজেলার চরআলগী গ্রামের বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা ও বহুমাত্রিক লেখক আবিদ আনোয়ার এ জেলার গর্বিত সাহিত্যিক। সাহিত্যের বিভিন্ন শাখায় তাঁর অসাধারণ কাজ রযেছে। একজন সফল ছড়া নির্মাতা হিসাবেও তিনি অগ্রগণ্য ও নমস্য। তাঁর ‘আগল ভাঙা পাগল ছড়া’ এবং ‘সৃষ্টি ছাড়া ত্রিশটি ছড়া’ পাঠক মহলে আদৃত ও প্রশংসিত হয়। সাহিত্যে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখার স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি বেশকিছু পুরস্কার ও পদকে ভূষিত হয়েছেন। কিশোরগঞ্জ ছড়া উৎসবেও তাঁকে ‘সৃষ্টি ছাড়া ত্রিশটি ছড়া’ গ্রন্থের জন্য সুকুমার রায় সাহিত্য পদক ও বিশেষ সম্মাননায় ভূষিত করা হয়েছে। ঢাকায় অবস্থান করলেও তিনি কিশোরগঞ্জের সন্তান।

বেগম রাজিয়া হোসাইন: কিশোরগঞ্জ জেলার মিঠামইন উপজেলার বৈরাটি গ্রামের বাসিন্দা বেগম রাজিয়া হোসাইন। তিনি চাকরি সূত্রে জেলার বাইরে বেশি সময় কাটিয়েছেন। সাহিত্যের বিভিন্ন বিষয়ে লেখালেখি করলেও একজন ছড়াশিল্পী হিসাবেও তিনি কাজ করে আসছেন। তার প্রকাশিত শিশু-কিশোর উপযোগী ছড়া-কবিতার বইগুলো হচ্ছে ‘মিষ্টি ছড়ার ঝাঁপি’ ‘টাপুস টুপুস’ ‘একশো একটি ছড়া’ ‘ঘাসের নূপুর’ ‘ছোট্ট সোনার নাও’ ‘ঈশান বিষাণ তেপান্তর’ ইত্যাদি। নারীর অগ্রগতিতে গৌরবজনক ভূমিকা রাখায় তিনি রাষ্ট্রীয়ভাবে বেগম রোকেয়া পদকে ভূষিত হয়েছেন। এছাড়াও সাহিত্যকর্মের জন্য অনেক পুরস্কার ও পদক লাভ করেন। কিশোরগঞ্জ ছড়া উৎসবেও তাঁকে সুকুমার রায় সাহিত্য পদক ও বিশেষ সম্মাননায় ভূষিত করা হয়।

সিরাজুল ফরিদ: পাকুন্দিয়ার সালুয়াদী গ্রামের প্রবীণ ছড়াশিল্পী সিরাজুল ফরিদের নামটিও এক্ষেত্রে প্রণিধানযোগ্য। চাকরির সুবাদে ঢাকায় বসবাস করলেও তিনি কিশোরগঞ্জ থেকে বিচ্ছিন্ন নন। আশির দশকে তাঁর লেখা ‘লাগাম টেনে ধর’ গ্রন্থটি ছড়াসাহিত্যে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করেছিল। তাঁর ‘পায়রা নাচে সূর্য হাসে’ নামক কিশোর কবিতার বই এবং ‘লড়াই গণতন্ত্রের’ শীর্ষক সমকালীন ছড়ার বই পাঠকদের যথার্থই আলোড়িত করেছে। এছাড়া সিরাজুল ফরিদের ‘বৈরী সময়’ ছড়ার বইটি পাঠকমহলে আদৃত হয়। ২০০৮ সালে প্রকাশ পেয়েছে তাঁর আরও দুটো ছড়ার বই। বই দুটো হচ্ছে ‘ফটাটিং ফটাটিং ফট’ এবং ‘১০০ লিমেরিক’। পরে ‘পঞ্চক’, ‘গল্প শোনো সবাই’ ইত্যাদি ছড়াগ্রন্থ প্রকাশ পায়। বাংলাদেশ শিশু একাডেমি থেকে প্রকাশ পায় তার ছড়ার বই ‘চাঁদ হেঁটে যায় আমার সাথে’। ২০১২ সালে প্রকাশ পায় তাঁর ‘নির্বাচিত হাজার ছড়া’। ছড়াসাহিত্যে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখার স্বীকৃতিস্বরূপ ছড়া উৎসব পরিচালনা পর্ষদ তাঁকে ২০০৭ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে ‘সুকুমার রায় সাহিত্য পদক ও বিশেষ সম্মননা’য় ভূষিত করে। এছাড়াও কিশোরগঞ্জ ছড়াকার সংসদ আয়োজিত আঞ্চলিক ছড়া সম্মেলন ২০১৪ উপলক্ষে তাকে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্মৃতি পদক ও বিশেষ সম্মাননায় ভূষিত করা হয়। এই প্রবীণ ছড়াশিল্পী এখনও তারুণ্যের উদ্দীপনায় তাঁর সাহিত্যচর্চা অব্যাহত রেখেছেন।

দেলওয়ার বিন রশিদ: তাড়াইল উপজেলার দড়িজাহাঙ্গীরপুর গ্রামের বাসিন্দা ছড়াশিল্পী দেলওয়ার বিন রশিদ। চাকরির সূত্রে তিনি ঢাকায় বসবাস করেন। ছড়া রচনায় তাঁর কুশলতা ঈর্ষণীয়। মূলত তিনি শিশুতোষ ছড়াই বেশি লেখেন। তাঁর ছড়ার বইও প্রকাশ পেয়েছে। প্রকাশিত বইগুলো হচ্ছে ‘শাপলা পাতা শীতলপাটি’, ‘ইষ্টিশনে বিষ্টি’, ‘ভেন্নাপাতার দই’, ‘খুকুর মুখে চাঁদের হাসি’, ‘খুকুসোনা চাঁদের কণা’ এবং ‘আল্লাহপাক স্রষ্টা মহান’। দেলওয়ার বিন রশিদের ছড়া সব বয়সী পাঠকদের সমানভাবে আকর্ষণ করে। ২০০৮ সালে ৪র্থ কিশোরগঞ্জ ছড়া উৎসব উপলক্ষে ছড়াসাহিত্যে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখার স্বীকৃতিস্বরূপ ছড়া উৎসব পরিচালনা পর্ষদ তাঁকে আনুষ্ঠানিকভাবে ‘সুকুমার রায় সাহিত্য পদক ও বিশেষ সম্মাননা’য় ভূষিত করে। ২০১৬ সালে ৪র্থ কিশোরগঞ্জ ছড়া সম্মেলনে তিনি লাভ করে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্মৃতি পদক ও বিশেষ সম্মাননা। সাহিত্যে বিশেষ অবদান রাখায় তিনি আরও কয়েকটি পদক, পুরস্কার ও সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন।

রানা জামান: তাড়াইল উপজেলার কারঙ্কা গ্রামে জন্ম নেন রানা জামান। তাঁর মূল নাম সামছুজ্জামান ভূঁইয়া হলেও লেখালেখির ক্ষেত্রে তিনি রানা জামান নামে পরিচিত। সাহিত্যের বিভিন্ন বিষয়ে তিনি লেখালেখি করেন। ছড়া রচনায়ও তিনি পিছিয়ে নেই। প্রকাশিত অনেক বইয়ের মধ্যে তাঁর লেখা ছড়াগ্রন্থ ‘জল পড়ে পাতা নড়ে’ এবং ‘আগডুম বাগডুম’ অন্যতম। মাত্রা ও অন্ত্যমিলের ক্ষেত্রে কখনো কখনো তাঁর অসাবধানতাজনিত দুর্বলতা থাকলেও তিনি নিয়মিত ছড়াচর্চা করে আসছেন। সাহিত্যে বিশেষ অবদানের জন্য তিনি বেশকিছু পদক ও পুরস্কার লাভ করেছেন। ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত কিশোরগঞ্জ আঞ্চলিক ছড়া সম্মেলন উপলক্ষে তিনি লাভ করেন শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্মৃতি পদক ও বিশেষ সম্মানা। তিনি বাংলাদেশ সরকারের একজন অতিরিক্ত সচিব।

সুবীর বসাক: কিশোরগঞ্জ শহরের বত্রিশ মহল্লার কৃতী ছড়ানির্মাতা সুবীর বসাক। সত্তর দশকে ছড়াসাহিত্যে তাঁর গর্বিত উত্থান ঘটে। জাতীয় পত্রপত্রিকায় একসময় নিয়মিত লিখলেও দীর্ঘদিন তিনি ছড়াচর্চা থেকে অনেকটাই দূরে ছিলেন। ইদানিং তিনি আবারও কুশলী হাতে ছড়া নির্মাণে আত্মনিয়োগ করেছেন। সাংবাদিকতায় জড়িয়ে ছড়ার জগত থেকে তিনি অনেকদিন নির্বাসনে থাকলেও সম্প্রতিকালে আবার ছড়া লেখা শুরু করায় স্থানীয় ছড়াকারদের মধ্যে তাঁকে নিয়ে ইতিবাচক প্রত্যাশা সঞ্চারিত হয়েছে। তাঁর ক্ষুরধার ছড়ার ব্যঞ্জনা কিশোরগঞ্জের ছড়াসাহিত্যে নতুন মাত্রা যুক্ত করবে বলে অনেকেই বিশ্বাস করেন। কিশোরগঞ্জ ছড়া উৎসব পরিচালনা পর্ষদ তাকে ২০১৩ সালে সুকুমার রায় সাহিত্য পদক ও বিশেষ সম্মাননায় ভূষিত করে। ২০১৬ সালে কিশোরগঞ্জ ৪র্থ ছড়া সম্মেলনে তিনি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্মৃতি পদকে ভূষিত হন।

মো. নবী হোসেন: কটিয়াদী উপজেলার বানিয়াগ্রামে জন্ম নেন ছড়াশিল্পী মো. নবী হোসেন। আশির দশকে তিনি কিশোরগঞ্জ থেকে নিজের সম্পাদনায় প্রকাশ করতেন মাসিক ছড়াপত্রিকা ‘শিস দিয়ে যায় অহর্নিশ’। ১৯৮৩ সালে তাঁর ছড়াগ্রন্থ ‘পোড়া মাটির গন্ধে’ প্রকাশ পায়। আইন পেশায় জড়িত হওয়ার পরও তিনি ছড়া রচনায় নিবেদিত ছিলেন। পরে নিজ এলাকায় ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে সাহিত্যজগত থেকে নিজেকে গুটিয়ে নেন। এই নিবন্ধকারের নিরন্তর তাগিদে গত ২০০২ সালে আবারও তিনি সাহিত্যক্ষেত্রে সরব হন। তখন প্রকাশ করেন ছন্দ বিষয়ক প্রবন্ধের বই ‘প্রসঙ্গ: ছড়া কবিতা গান’। ২০০৬ সালে প্রকাশ করেন আরও একটি ছড়ার বই ‘টাট্টু ঘোড়ার ডিম’। ২০১৫ সালে প্রকাশ পায় তার আরও একটি ছড়ার বই ‘মাঠের গরু নাটের গুরু। জাতীয় পত্রপত্রিকায় নিয়মিত লিখলেও ইদানিং তিনি আবারও চুপ্সে গেছেন। ছড়াসাহিত্যে বিশেষ অবদান রাখায় ২০১০ সালে ৬ষ্ঠ কিশোরগঞ্জ ছড়া উৎসবে মো. নবী হোসেনকে সুকুমার রায় সাহিত্য পদক ও বিশেষ সম্মাননায় ভূষিত করা হয়। ২০১৪ সালে কিশোরগঞ্জ ছড়াকার সংসদ আঞ্চলিক ছড়া সম্মেলন উপলক্ষে এই ছড়াকারকে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্মৃতি পদক ও বিশেষ সম্মাননায় ভূষিত করে।

আতাউল করিম: ছড়াকার আতাউল করিম-এর প্রকৃত বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলাধীন হোসেনপুর উপজেলার পানান গ্রামে। তার জন্ম ২৬ আগস্ট ১৯৬০ খ্রি.। পিতার চাকরি ও আইন পেশার কারণে ময়মনসিংহ শহরেই তিনি বেড়ে ওঠেন। এলাকার সাথে খুব একটা যোগাযোগ না থাকায় নিজ জেলায় তিনি অপরিচিতই থেকে গেছেন। আতাউল করিম একজন প্রতিষ্ঠিত ছড়াকার হিসেবে নিজের অবস্থানকে সংহত করেছেন। ছড়া ও শিশুসাহিত্য বিষয়ক তার বেশকিছু বইও প্রকাশ পেয়েছে; তন্মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছড়ার বই হচ্ছে, ‘আমেরিকায় হিংটিংছট’ ‘নুন আনতে পান্তা ফুরোয়’ ‘হবু রাজার রাজ্যটাতে’ এবং ‘দু’হাত ভরে সোনার আলোয়’ ইত্যাদি। বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারে দীর্ঘদিন চাকরির পর স্বেচ্ছায় চাকরি ত্যাগ করে বর্তমানে তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন। সেখানেও তার ছড়াচর্চা অব্যাহত আছে। আতাউল করিমের ডাক নাম শফিক।

ফেরদৌস চৌধুরী: তাড়াইল উপজেলাধীন কার্তিকখিলা গ্রামের এক নিবেদিত ও প্রচারবিমুখ ছড়াশিল্পী ফেরদৌস চৌধুরী। তাঁর ছড়া রচনার কৌশল চমৎকার ও ঈষর্ণীয়। এই কুশলী ছড়াশিল্পীর কোনো বই প্রকাশ না পেলেও একসময় জাতীয় পত্রপত্রিকায় নিয়মিত ছড়া লিখতেন। সাম্প্রতিককালেও তাঁর ছড়া বিভিন্ন পত্রিকায় মুদ্রিত হতে দেখা যায়। এই নীরবচারী ছড়া নির্মাতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত। তার প্রকাশিত ছড়ার বই ‘হুক্কাহুয়া সবই ভূয়া’ (২০১৩)। ২০১৪ সালে কিশোরগঞ্জ ছড়াকার সংসদ তাকে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্মৃতি পদক ও বিশেষ সম্মাননায় ভূষিত করে।

জাহাঙ্গীর আলম জাহান: এই নিবন্ধের লেখক জাহাঙ্গীর আলম জাহান। তিনি কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার কাটাবাড়িয়া গ্রামের সন্তান। সাহিত্যের বিভিন্ন বিষয়ে লেখালেখি করলেও তাঁর সাহিত্যচর্চার প্রধান অঙ্গন হচ্ছে ছড়া। এ পর্যন্ত এই লেখকের বিভিন্ন বিষয়ে ৩৯টি গ্রন্থ প্রকাশ পেয়েছে; তন্মধ্যে ছড়াগ্রন্থ ১৬টি। যথাক্রমে ‘রাজা মশায় চিৎপটাং’ (১৯৮৫), ‘মগজ ধোলাই’ (১৯৮৯), ‘রাজাকার রাজা হয়’ (১৯৯৪), ‘বাছাই করা একশ ছড়া’ (২০০২), ‘ফুলের দেশে পরীর বেশে’ (২০০৩), ‘তেড়ে মেয়ে ডা-া’ (২০০৮), ‘ওপেনটি বায়স্কোপ’ (২০০৮), ‘ট্যাক্সো ছাড়া একশো ছড়া’ (২০১১), ‘টুম্পারাণী ঘুমপাড়ানি’ (২০১২), ‘ছড়া কত কড়া রে’ (২০১৩), ‘ছন্দ-ছড়ায় বঙ্গবন্ধু’ (২০১৪), ‘আমি কলা খাই না’ (২০১৫), ‘জনক তুমি কণক-প্রভা’ (বঙ্গবন্ধুকে নিবেদিত ছড়া, ২০১৭), ‘চাঁদের হাসি বাঁধ ভেঙেছে‘ (ছড়া, ২০১৭), ‘কিশোরগইঞ্জা একশো ছড়া’ (আঞ্চলিক ভাষার ছড়া, ২০১৭), ‘দিঘির জলে জোনাক জ্বলে’ (২০১৮, শিশু একাডেমি থেকে প্রকাশিত)। এছাড়াও তিনি ২০১৬ সালে ‘কিশোরগঞ্জের ছড়াকার: নির্বাচিত ছড়া’ শিরোনামে একটি যৌথ ছড়ার বই সম্পাদনা করেছেন। তার সম্পাদনায় ‘আড়াঙ্গি’ ও ‘ছড়াসংক্রান্তি’ নামের দু’ট ছড়াপত্রিকা নিয়মিত প্রকাশ পাচ্ছে। জাতীয় পত্রপত্রিকায়ও নিয়মিত তাঁর ছড়া প্রকাশিত হয়। সাহিত্যের বিচারে তার ছড়া কতটুকু মানসম্মত সে বিচার করবেন অন্যরা।

পারভীন সুলতানা: ১৯৬৩ সালের ১৮ অক্টোবর তাড়াইল উপজেলার জাওয়ার গ্রামের মাতুলালয়ে পারভীন সুলতানার জন্ম। তার পিতার নাম ফজর আলী এবং মাতার নাম রোকেয়া খাতুন। পারভীন সুলতানা একজন দক্ষ ছড়াকার ও কথাসাহিত্যিক হিসেবে নিজের অবস্থানকে সংহত করেছেন। আশির দশকে ময়মনসিংস্থ আনন্দমহন কলেজে অধ্যয়নকালে নাসরিন জাহানের সাথে তিনি যৌথ সম্পাদনায় প্রকাশ করেন ছড়া সংকলন ‘হাওয়াই মিঠাই’। এছাড়াও তার একক ছড়ার বই ‘নানা রঙের ছড়া’ এবং ‘আছে ছড়া মিঠেকড়া’ পাঠক মহলে ব্যাপক প্রশংসিত হয়। কথাসাহিত্যেও তার দক্ষতা ঈর্ষণীয়। ‘পিতৃনক্ষত্রের রাহু’ এবং ‘বরফের ঘর’ শীর্ষক উপন্যাস এবং ‘জলবন্দি কইন্যা’ ‘পাথরে ফুল ফোটানো’ ‘জলের রমণী দেখে মৃত্তিকার খোয়াব’ ও ‘প্ররোচিত কৃষ্ণচূড়ারা’ নামক গল্পগ্রন্থের মাধ্যমে কথাসাহিত্যে তিনি নিজের দক্ষতাকে প্রমাণ করেছেন। জাতীয় বিভিন্ন পত্রপত্রিকায়ও তার লেখা প্রকাশ পেয়ে থাকে। তিনি বর্তমানে ঢাকা সিটি কলেজে বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। পারভীন সুলতানার ডাকনাম রুবি। বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক রাহাত খান তার মামা।

শাহ্ সোহরাব উদ্দিন: হোসেনপুর উপজেলার বাসুরচর ফকিরবাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন নিভৃতচারী কবি ও লেখক শাহ্ সোহরাব উদ্দিন। চাকরিজীবন শেষে দারিদ্র্য ও নিত্য অভাবের সাথে বসবাস করলেও নীরবে-নিভৃতে তিনি সাহিত্যচর্চায় মগ্ন থাকতেন। ইসলাম ধর্ম বিষয়ক তার বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ রচনা রয়েছে। ধর্মীয় চিন্তামূলক প্রবন্ধ ছাড়াও তিনি নিয়মিত ছড়া-কবিতা রচনা করতেন। তার বেশ কয়েকটি বই বেরিয়েছে। তন্মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে ছড়ার বই ‘ছড়ার মালা’। ২০১০ সালে এই প্রতিভাধর লেখক মৃত্যুবরণ করেন।

মিহিরকান্তি রাউৎ: কটিয়াদী উপজেলার এই শিশুসাহিত্যিক দীর্ঘদিন আগে কটিয়াদী ছেড়ে নেত্রকোণায় বসতি স্থাপন করেন। একজন ছড়াকার ও শিশুসাহিত্যিক হিসাবে তিনি ব্যাপকভাবে পরিচিত। বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের এই কর্মকর্তা পেশাগত দায়িত্বের অবসরে এখনও শিশুসাহিত্যের চর্চা অব্যাহত রেখেছেন।

হাসানাত লোকমান: নিকলী উপজেলার সন্তান হাসানাত লোকমান মূলত একজন কবি। তবে ছড়া ও শিশুসাহিত্য রচনায়ও তিনি সিদ্ধহস্ত। তার রচিত কবিতাগুলোতেও ছড়ার ছন্দ খুঁজে পাওয়া যায়। তার প্রকাশিত কবিতার বইসমূহ হচ্ছে- ‘আলোর নদী জলের আকাশ’ (২০১৩), ‘প্রেমের প্রজ্ঞাপন’ (২০১৪), ‘জোছনার বনে নীল বসন্ত’ (২০১৪), ‘অক্ষরের নক্ষত্র দীপাবলী’ (২০১৫), ‘প্রাণপতনের শব্দাবলী’ (২০১৬), ‘তুই’ (২০১৬) ইত্যাদি। পেশায় বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের যুগ্ম-সচিব। কাজের অবসরে তিনি নিয়মিত সাহিত্যচর্চা করে থাকেন।

ফয়সল শাহ্: হোসেনপুর উপজেলার বাসুরচর ফকিরবাড়িতে জন্ম নেন কবি ও শিশুসাহিত্যিক ফয়সল শাহ্। তিনি সাহিত্যের বিভিন্ন শাখায় কাজ করলেও একজন ছড়াকার ও শিশুসাহিত্যিক হিসেবেও খ্যাতি অর্জন করেছেন। বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় তার লেখা শিশু-কিশোর উপযোগী গল্প, কবিতা ও ছড়া প্রকাশ পেয়ে থাকে। বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের উপসচিব ফয়সল শাহ্ পেশাগত দায়িত্বের অবসরে নিবিড়ভাবে সাহিত্যচর্চা করে গেছেন। ২০১৮ সালের ২১ অক্টোবর তিনি অকালে মৃত্যুবরণ করেন।

কাজী শামসুন নাহার: কাজী শামসুন নাহারের জন্ম নওগাঁ জেলায় হলেও বৈবাহিক সূত্রে তিনি কিশোরগঞ্জের অধিবাসী। শহরের পুরাতন কোর্ট রোড এলাকার আলোরমেলায় তার স্বামীর স্থায়ী আবাস। কাজী শামসুন নাহারের ছড়ায় সমকালীন সমাজ যেমন মূর্ত হয়ে ওঠে তেমনি শিশু-কিশোরদের মনোজাগতিক বিষয়ও তার ছড়ার মূল অনুষঙ্গ। এ পর্যন্ত তার বেশ কয়েকটি ছড়ার বই প্রকাশ পেয়েছে। তন্মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘সুর্যের সোনা রোদ’ ‘হাতির নাতির জন্মদিন’ এবং ‘ইতি-মিতি দুই বোন‘। কাজী শামসুন নাহার বর্তমানে ঢাকায় শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত। তার স্বামী সত্তর দশকের বিশিষ্ট কবি আশরাফুল মোসাদ্দেক।

জগলুল হায়দার: ছড়াকার জগলুল হায়দারের পৈতৃক নিবাস জামালপুর হলেও পিতার কর্মসূত্রে তাঁরা কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরবে স্থায়ীভাবে স্থিত হন। সে হিসাবে তাঁকে কিশোরগঞ্জ জেলার ছড়াকার হিসাবেই বিবেচনা করা যায়। জগলুল হায়দার বিভিন্ন বিষয়ে ব্যতিক্রমধর্মী ছড়া লিখে ইতোমধ্যে সুধী পাঠকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। তাঁর বেশ কয়েকটি ছড়ার বইও প্রকাশ পেয়েছে। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘বাংলার মুখ বাংলার মিথ’ ‘টুইন টাওয়ার রুইন টাওয়ার’ ‘রাজনীতি ভাঁজনীতি’ ‘আন্তনেটের ডটকম’ ইত্যাদি। তথ্য-প্রযুক্তি ও কম্পিউটার বিষয়ে মজার মজার ছড়া রচনা করে তিনি সুধী পাঠকদের দৃষ্টি আকর্ষণে সক্ষম হয়েছেন। ছড়া রচনায় উল্লেখযোগ্য অবদান রাখার কারণে ইতোমধ্যে তিনি বেশকিছু পদক ও সম্মাননা লাভ করেছেন। জাতীয় পত্রপত্রিকায় নিয়মিত জগলুল হায়দারের ছড়া প্রকাশ পাচ্ছে। কিশোরগঞ্জ ছড়া উৎসব বাস্তবায়ন পর্ষদ এবং আঞ্চলিক ছড়া সম্মেলন বাস্তবায়ন পরিষদ এই ছড়া লেখককে সুকুমার রায় সাহিত্য পদক ও শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্মৃতি পদকে ভূষিত করে।

মহিবুর রহিম: নিকলী উপজেলার ছাতিরচর গ্রামে জন্ম নেন কবি ও ছড়াকার মহিবুর রহিম। তিনি কবি হিসেবে সমধিক পরিচিত হলেও হালে ছড়া রচনাতেও যথেষ্ট পারদর্শিতা দেখিয়ে চলেছেন। তাঁর প্রকাশিত কোনো ছড়ার বই না থাকলেও সাম্প্রতিক সময়ে তিনি কিশোর কবিতা ও ছন্দোময় বেশকিছু ভালো ছড়া লিখে ছড়াকার হিসেবে নিজের যোগ্যতা প্রমাণ করেছেন। মহিবুর রহিম একজন নিবেদিত গবেষক হিসেবেও বেশকিছু ভালো কাজের উদাহরণ সৃষ্টি করেছেন। ২০১৪ সালে কিশোরগঞ্জ ছড়াকার সংসদ আয়োজিত আঞ্চলিক ছড়া সম্মেলন উপলক্ষে এই লেখক আনুষ্ঠানিকভাবে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্মৃতি পদক ও বিশেষ সম্মাননায় ভূষিত হন।

রোমেন রায়হান: করিমগঞ্জের খৈলাকুড়ি গ্রামে জন্ম নেন তরুণ ছড়াশিল্পী রোমেন রায়হান। আশির দশকের উজ্জ্বল ছড়াকার হিসাবে খুব অল্প বয়সেই তিনি খ্যাতি লাভ করেন। তাঁর ছড়াগ্রন্থ ‘ম্যাঁও’ এবং ‘ছড়াটুন’ যথেষ্ট জনপ্রিয়তা পেয়েছে। রোমেন রায়হানের ‘ভালবাসা মানে পয়সা খরচ, পরীক্ষা ফেল, বাবার ধমক’ গ্রন্থটিকে ঠিক ছড়াগ্রন্থ বলা যায় না। কিশোর কবিতাগ্রন্থ হিসাবে এ বইটিও পাঠকমহলে সমাদৃত হয়। পেশায় চিকিৎসক এই ছড়াশিল্পী চাকরির সুবাদে বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করেন।

হামিদ মেহবুব: কুলিয়ারচর উপজেলার কৃতী ছড়াশিল্পী হামিদ মেহবুব অনেকদিন ধরেই সাহিত্যচর্চা করে আসছেন। কবিতা, গল্প ইত্যাদির পাশাপাশি তিনি নিয়মিত ছড়াও লিখে থাকেন। তাঁর ছড়ায় যথেষ্ট প্রতিশ্রুতি ও পারঙ্গমতা লক্ষণীয়। তাঁর অনেক বইয়ের মধ্যে ছড়াগ্রন্থ ‘পাখি পাকা পেঁপে খায়’ অন্যতম। হামিদ মেহবুব অনেকটাই প্রচারবিমুখ। যে কারণে একজন দক্ষ ছড়াকার হওয়া সত্ত্বেও তাঁর পরিচিতির বলয় ততটা স্ফীত নয়। তবে ছড়া নিয়ে তিনি নিরীক্ষাধর্মী কাজ করে আসছেন। একজন দক্ষ ছড়াকার হিসেবে তিনি খ্যাতি লাভ করেছেন।

মেহেরুবা নিশা: ভৈরবের মেয়ে মেহেরুবা নিশা। খুব অল্প বয়সেই ছড়া লিখে তিনি আলোচনার পাদপ্রদীপে চলে আসেন। শিশুসাহিত্যে তার দক্ষতা ঈর্ষণীয়। ২০০৫ সালে বাংলাদেশ শিশু একাডেমি থেকে প্রকাশ পায় তার শিশু-কিশোর উপযোগী প্রথম বই ‘মেঘের পুতুল’ (গল্প)। এরপর একে একে প্রকাশ পায় ‘মনের রঙিন স্বপ্নগুলো’ (কিশোর কবিতা, ২০০৭), ‘চিচিংচিচিং ফাঁক’ (ছড়া, ২০০৭), ‘কালো বাঁশি’ (গল্প,২০০৯), ‘নামটি পাখির টুনটুনি’ (ছড়াকাব্য, ২০১০), ‘কোকিল গাইবে গান’ (গল্প, ২০১১) ইত্যাদি। ‘বিষণ্ণতার দ্বাদশ অধ্যায়’ শীর্ষক কাব্য-পাণ্ডুলিপির জন্য তিনি দেশের শীর্ষস্থানীয় প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান প্রথমা থেকে ২০১৭ সালে ‘জীবনানন্দ দাশ পাণ্ডুলিপি পুরস্কার লাভ করেন। ২০১৯ সালে এই কবিতার বইটি প্রকাশিত হয়।

অন্যান্য ছড়াকার: স্বাধীনতা-উত্তর সময়ে কিশোরগঞ্জ সাহিত্যাঙ্গনে বেশকিছু প্রতিশ্রুতিশীল ছড়াকারের ব্যাপক উপস্থিতি লক্ষ করা গিয়েছিল। এরা তাদের ছন্দোময় ছড়ার মাধ্যমে স্থানীয় পাঠকমহলে ব্যাপকভাবে প্রশংসিতও হয়েছিলেন। এদের অনেকেই জীবিকার তাগিদে পরে আর ছড়াশিল্পের সাথে বসবাস করতে পারেননি। এ সকল ছড়াকারের মধ্যে তুমুল সম্ভাবনা নিয়ে ঝল্সে উঠেছিলেন অকাল প্রয়াত হালিম আক্কাছ। কিন্তু মৃত্যুর নীল থাবার কারণে আক্কাছের ছড়াসাহিত্য থেকে এ জেলা যেমন বঞ্চিত হয়েছে, তেমনি বঞ্চিত হয়েছে বাংলা ছড়াসাহিত্য। তার মিনি ছড়াগ্রন্থ ‘নামকীর্তন’ মধ্য আশিতে কিশোরগঞ্জের ছড়াসাহিত্যে ছিল একটি উল্লেখযোগ্য সংযোজন।

কিশোরগঞ্জের মেয়ে রহিমা আখতার কল্পনা কবি হিসেবে পরিচিত হলেও ইদানিং তিনি ছড়া রচনায় মনোযোগী হয়ে উঠেছেন। কবিতার পাশাপাশি তার ছড়াতেও পাওয়া যায় নতুনত্বের স্বাদ। বয়সে তরুণ হলেও সাম্প্রতিক সময়ে র.ম. পাশা’র ছড়া যথেষ্ট প্রতিশ্রুতি ও সম্ভাবনা নিয়ে ঝল্স উঠেছে; কিন্তু ছড়া নিয়ে তার নিস্পৃহতা ও অকারণ ঔদাসিন্য তাকে তেমন এগোতে দিচ্ছে না।

কটিয়াদী উপজেলার মেরাজ রাহীম একসময় ভালো ছড়া লিখতেন। কিন্তু তিনি সহসাই ছড়ার উঠোন ছেড়ে নেমে আসেন কবিতার মাঠে। ফলে তার কাছ থেকে এখন আর ছড়ার ফলন পাওয়া যাচ্ছে না।

এছাড়াও কিশোরগঞ্জের হারুন-আল-রশীদ, সৈয়দ এনাম-উল-আজিম, সুভাষ চন্দ্র রায়, সামিউল হক মোল্লা, তানভীর এনায়েত, ছাদরুল উলা, রতন রহমান, মীর হেলাল, শাহ্ মোহাম্মদ মোশাহিদ, আহমাদ ফরিদ, হোসেনপুরের ফরিদ-উজ-জামান পলাশ, তাড়াইলের ছাদেকুর রহমান রতন, করিমগঞ্জের আহমদ আমিন, মোহাম্মদ জালালউদ্দিন, পাকুন্দিয়ার সোলায়মান কবির ও আসিফুজ্জামান খন্দকার, ইটনার মুহাম্মদ শামীম রেজা ও আহমেদ রউফ, মিটামইনের আমিনুল ইসলাম সেলিম, ভৈরবের সাগর রহমান, পাকুন্দিয়ার তাহমিনা নিপা, আব্দুল্লাহ আশরাফ এবং কটিয়াদীর গোলাপ আমিন ও  লিয়ন আজাদ, কিশোরগঞ্জের প্রিয়ন্তিকা পুষ্প, মুশফিকুর রহমান প্রমুখের মধ্যে ছড়া রচনার প্রবল সম্ভাবনা লক্ষ করা যায়।

এ সকল ছড়া লেখক ছড়াকে যেমন খেলাতে জানেন, তেমনি ছড়া নিয়ে খেলতেও জানেন। এরা ছড়া রচনায় মনোযোগী হলে বাংলা ছড়াসাহিত্যে ভালো কিছু ছড়া সংযোজিত হতে পারে।

কিশোরগঞ্জ জেলায় আরও অনেকেই ছড়াচর্চা চালিয়ে যাচ্ছেন। তাদের অনেকের ছড়ায় সম্ভাবনার ইঙ্গিত লক্ষ করা যায়। প্রতিশ্রুতিসম্পন্ন এ-রকম কয়েকজন ছড়াকার হচ্ছেন সালেহ্ আহমেদ (করিমগঞ্জ), সৈয়দ নূরুল আউয়াল তারা মিয়া (কিশোরগঞ্জ), আবদুছ ছাত্তার ভূঞা (কিশোরগঞ্জ), বাঁধন রায় (কিশোরগঞ্জ), বিজন কান্তি বণিক (কিশোরগঞ্জ), আবদুর রব খান (কিশোরগঞ্জ), আফতাব শাহ্ (হোসেনপুর), নাদিরা পারভীন (কিশোরগঞ্জ), জিয়া রহমান (কিশোরগঞ্জ), আমিন আশরাফ (কিশোরগঞ্জ), শফিকুল ইসলাম দুলাল (কিশোরগঞ্জ), শফিকুল ইসলাম উচ্ছ্বাস (কিশোরগঞ্জ), মাহবুবা খান দ্বীপান্বিতা (কিশোরগঞ্জ), জমাতুল ইসলাম পরাগ (কিশোরগঞ্জ), সিরাজুল মানিক (পাকুন্দিয়া), রফিকুল ইসলাম সাজু (বাজিতপুর), শাহজাহান মৃধা (নিকলী), সৈয়দ ফয়জুল আল-আমীন (সৈয়দ শিশির) (কুলিয়ারচর), কাজী নূরুল ইসলাম (নিকলী), আহমেদ তানভীর (কিশোরগঞ্জ), তন্ময় আলমগীর (করিমগঞ্জ), শাহ্জাহান কবির (করিমগঞ্জ), শাহ্ আলম বিল্লাল (হোসেনপুর), তরীকুল হাসান শাহীন (পাকুন্দিয়া),  তামান্না সঞ্চিতা (পাকুন্দিয়া), মোহাম্মদ নূর আলম গন্ধী (পাকুন্দিয়া), কবিরুল ইসলাম (নিকলী) প্রমুখ অন্যতম। এদের অনেকেরই প্রকাশিত ছড়ার বই রয়েছে এবং অনেকের ছড়াই জাতীয় পত্রপত্রিকায় প্রকাশ পেয়ে থাকে।

কিন্তু বই প্রকাশ পাওয়া কিংবা জাতীয় পত্রিকায় ছড়া প্রকাশ পাওয়াই ভালো ছড়ার মানদণ্ড নয়। এজন্য থাকা চাই আন্তরিক সদিচ্ছা ও কমিটমেন্ট। সেইসাথে ছড়াসাহিত্যের অধ্যয়নও জরুরি। অনেকে মনঃক্ষুণ্ণ হলেও বলতে দ্বিধা নেই যে, আমরা ছড়া লিখতে যতটা পাগলপ্রায়, ছড়াসাহিত্য অধ্যয়নে ততটাই নিস্পৃহ। আমাদের এই দৈন্য কাটিয়ে উঠতে আমরা এখনই সচেষ্ট হবো। গতানুগতিক ফর্মে শুধু শব্দের সাথে শব্দের ধ্বনিগত মিল দিলেই সেটি প্রকৃত ছড়া হয়ে যায় না। কিংবা অপ্রয়োজনে ইলাস্টিকের মতো টেনে ছড়ার অবয়ব লম্বা অথবা দীর্ঘ করলেও তা অনেক সময় ছড়ার মর্যাদা না-ও পেতে পারে। ছড়াকে যথাসম্ভব অল্প কথায় শেষ করতে পারাও একটি বিশেষ যোগ্যতার পরিচায়ক। বিনা কারণে টেনে টেনে বাহুল্য কথার ভারে ছড়াকে ভারাক্রান্ত করাও এক ধরনের অযোগ্যতার পরিচায়ক। চিন্তার নবায়ন ও অগ্রায়নে পশ্চাৎপদতা থাকলেও শূন্য দশকে উপর্যুক্ত ছড়া লিখিয়েদের ছড়ায় সম্ভাবনার ইঙ্গিত লক্ষ করা গিয়েছিল।

বলতে দ্বিধা নেই, ছড়া রচনায় তাদের আগ্রহ থাকলেও ছড়ার প্রতি নিবেদিত কমিটমেন্ট না থাকায় তারা সময়ের চাহিদা অনুযায়ী ছড়াকে এগিয়ে নিতে পারছেন না। শিশুসাহিত্যের পথিকৃৎ উপেন্দ্রকিশোর রায় চৌধুরী ও সুকুমার রায়ের উত্তরাধিকার নিয়ে কিশোরগঞ্জ জেলার ছড়ালেখকেরা ছড়ার প্রকৃত বৈশিষ্ট্য হৃদয়াঙ্গম করে ছড়া নির্মাণে আরও বেশি আন্তরিক হবেন সে আশাবাদ অবশ্যই থাকলো।

আগামী পর্ব: কিশোরগঞ্জের পত্রপত্রিকা ও ছোটকাগজ




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর