কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কালপর্বিক ধারাবাহিকতায় কিশোরগঞ্জের সাহিত্য (পর্ব-৩)


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ৩ জুলাই ২০১৯, বুধবার, ১০:১১ | সাহিত্য 


আবিদ আনোয়ার বিশিষ্ট কবি, গীতিকার, ছড়াকার ও বীর মুক্তিযোদ্ধা। জন্ম ২৪ জুন ১৯৫০ খ্রি. কটিয়াদী থানার চরআলগী গ্রামে। প্রকৃত নাম মো. আব্দুর রহিম। তবে লেখালেখির ক্ষেত্রে আবিদ আনোয়ার নামে পরিচিত। পিতা মো. আজিমউদ্দিন। প্রকাশিত বই ‘প্রতিবিম্বের মমি’ (কাব্য ১৯৮৫), ‘মরা জোছনার মধুচন্দ্রিমা’ (কাব্য ১৯৮২), ‘স্বৈরিনীর ঘরসংসার’ (কাব্য ১৯৯৬), ‘বাংলা কবিতায় আধুনিকায়ন’ (প্রবন্ধ ১৯৯৭), ‘আগলভাঙা পাগল ছড়া’ (ছড়া ১৯৯২) ইত্যাদি।

তিনি বৈজ্ঞানিক গবেষণা ও কারিগরি প্রকাশনার জন্য ১৯৭৯ সালে রাষ্ট্রপতি পদক, সাহিত্যকর্মের জন্য ১৯৯৬ সালে রাইটার্স-এর স্মারক পদক ও সংবর্ধনা এবং ১৯৯৭ সালে সৈয়দ নজরুল পদক লাভ করেন। এছাড়া কিশোরগঞ্জ থেকে লাভ করেন ‘সুকুমার রায় সাহিত্য পদক ও বিশেষ সম্মাননা’।

আবিদ আজাদ গত শতকের সত্তর দশকের একজন প্রতিষ্ঠিত কবি। প্রকৃত নাম মো. হাবিবুর রহমান রেণু। তার বাড়ি কিশোরগঞ্জ সদর থানাধীন চিকনীরচর গ্রামে। ১৯৫২ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তার লিখিত ও প্রকাশিত বইগুলো হচ্ছে যথাক্রমে- ‘ঘাসের ঘটনা’ (কাব্য ১৯৭৬), ‘শীতের রচনাবলী’ (কাব্য ১৯৮৩), ‘আমার স্বপ্নের আগ্নেয়াস্ত্রগুলো’ (কাব্য ১৯৮৭), ‘ছন্দের বাড়ি ও অন্যান্য কবিতা’ (কাব্য ১৯৮৭), ‘তোমার উঠোনে কি বৃষ্টি নামে? রেলগাড়ি থামে?’ (কাব্য ১৯৮৮), ‘আমার কবিতা’ (কাব্য ১৯৮৯), খুচরো কবিতা’ (কাব্য ১৯৯০), ‘আবিদ আজাদের প্রেমের কবিতা’ (কাব্য ১৯৯১) ইত্যাদি। তিনি ‘শিল্পতরু’ ও ‘কবি’ নামক সাহিত্যপত্রের সম্পাদক ছিলেন।

আশুতোষ ভৌমিক ১৩৫৬ বঙ্গাব্দের ২ অগ্রহায়ণ কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলাধীন যশোদল ইউনিয়নের (বর্তমানে বৌলাই ইউনিয়ন) পাটধা কুড়েরপাড় গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম গোবিন্দ চন্দ্র ভৌমিক ও মাতার নাম তরুলতা ভৌমিক। আশুতোষ ভৌমিক একজন সমাজমনস্ক কবি, প্রাবন্ধিক ও সাহিত্য সমালোচক হিসেবে পরিচিত। তার প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থের নাম ‘ঝড়বাদলের দিনের গল্প’ (১৯৭৪)।

১৯৪৮ সালে কিশোরগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন মু আ লতিফ। ছাত্রজীবনে তিনি লেখালেখির সাথে জড়িত ছিলেন। পরবর্তী সময়ে সাংবাদিকতায় সম্পৃক্ত হওয়ার কারণে লেখালেখিতে ছেদ পড়ে। গত এক দশক ধরে তিনি আবার সাহিত্যে সরব হন। তিনি মূলত স্থানীয় ইতিহাস-ঐতিহ্য নিয়ে লেখালেখি করেন। ইতোমধ্যে তাঁর ১০টি বই প্রকাশ পেয়েছে। তন্মধ্যে উল্লেখযোগ্য, স্মৃতির আলোয় কিশোরগঞ্জ (২০১১), কিশোরগঞ্জের নান্দনিক ক্রীড়াঙ্গন (২০১৩), কিশোরগঞ্জের শিল্প সাহিত্য সংস্কৃতি (২০১৭), কিশোরগঞ্জের কীর্তিমানেরা (২০১৭), কিশোরগঞ্জের রাজনীতি ও মুক্তিযুদ্ধ (২০১৭) এবং কিশোরগঞ্জের ইতিহাস-ঐতিহ্য (২০১৮) উল্লেখযোগ্য।

সাইফুল হক মোল্লা দুলু ১৯৬৩ সালে কিশোরগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি মূলত সাংবাদিক ও আয়কর আইনজীবী। পেশাগত দায়িত্ব পালনের অবসরে স্থানীয় ইতিহাস-ঐতিহ্য নিয়ে লেখালেখি করেন। ইতোমধ্যে তাঁর দু’টি বই প্রকাশ পেয়েছে। বই দু’টি হচ্ছে, কিশোরগঞ্জের বীরত্বগাথা (২০১৪) ও কিশোরগঞ্জের যুদ্ধকথা (২০১৮)।

শরীফুল্লাহ মুক্তি ১৯৭২ সালের ১১ ডিসেম্বর কিশোরগঞ্জ শহরের পশ্চিম তারাপাশায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগের ইউআরসি ইন্সট্রাক্টর। শিক্ষার মানোন্নয়ন ও নিবিড় শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে ব্যক্তিগত ভাবনা নিয়ে এ পর্যন্ত তার তিনটি বই প্রকাশ পেয়েছে। বইগুলো হচ্ছে- শিক্ষা ভাবনা ও অন্যান্য প্রসঙ্গ (২০১৭), শিক্ষা শিক্ষকতা নৈতিকতা (২০১৮) এবং শিশুশিক্ষার সাতকাহন (২০১৯)।

১৯৫১ সালের ২২ সেপ্টেম্বর মিঠামন থানার তেলীখাই গ্রামে আইয়ুব বিন হায়দারের জন্ম। তার অনেক বইয়ের মধ্যে ‘একাত্তরের বেদনার্ত কাহিনী’ (মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক ১৯৯৭), একাত্তরের ঘাতক’ (মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক ২০০১),  ‘বিশ্বনবী (স.)’ (জীবনীগ্রন্থ ২০০৩) প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।

আব্দুল কাদির মোহাম্মদী ১৯৫২ সালের ১ জুলাই পাকুন্দিয়া থানার শৈলজানী গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা নাম মরহুম মোহাম্মদ ছফির উদ্দিন এবং মাতার নাম মোছা. নাছিমুন্নেছা। তিনি একজন গল্পকার ও ঔপন্যাসিক। তার প্রকাশিত উপন্যাস ‘বিপর্যয়’ (১৯৭৪) এবং গল্পের বই ‘দুই মহিলার রাজ্য’ (২০০১)।

মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন শাহজাহান একজন বিশিষ্ট প্রাবন্ধিক ও গবেষক। তার পিতার নাম মরহুম হাকিম মাওলানা আব্দুর রশিদ ও মাতার নাম মোছাম্মৎ গুলবদন বেগম। ১৯৫৮ সালের ১৫ জুলাই তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তার প্রকাশিত গ্রন্থ ‘ঈসা খান মসনদ-ই-আলা’ (জীবনী ১৯৯৪), ‘বাংলাদেশের প্রাচীন মসজিদ’ (গবেষণা ২০০১)। মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত তিনি কিশোরগঞ্জ পৌরসভার সচিব হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

শাহ আজিজুল হক ১৯৫৫ সালের ১ মে কিশোরগঞ্জ শহরতলীর ব্রাহ্মণকচুরী গ্রামের পৈতৃক বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম শাহ আব্দুস সামাদ ও মাতার নাম মোছাম্মাৎ আকিদা বানু। একজন প্রগতিশীল রাজনীতিক, সাংবাদিক ও মুক্তচিন্তার লেখক হিসেবে সর্বমহলে তার পরিচিতি রয়েছে। ১৯৮৭ সালে প্রকাশ পায় তার কবিতার বই ‘জেগে উঠি সমগ্র সন্তাপে’। শাহ আজিজুল হক পেশায় একজন আইনজীবী ও পাবলিক প্রসিকিউটর।

অনামিকা রেজা রোজী কিশোরগঞ্জের একজন প্রগতিবাদী সাহিত্যকর্মী। তার পিতার নাম মরহুম মমতাজ উদ্দিন পাটোয়ারী, মায়ের নাম মরহুমা বদরুন্নেছা বেগম এবং স্বামীর নাম অ্যাডভোকেট আয়েদুল হক চৌধুরী। ১৯৫৯ সালের ১ জানুয়ারি তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তার প্রকাশিত কবিতার বই ‘কৃষ্ণশিয়াল’ (১৯৯৩), গল্পের বই ‘রিমির ভালবাসা’ (১৯৯৪) এবং প্রবন্ধের বই ‘যায় না বলা যায় না’ (১৯৯৯)। বর্তমানে তিনি কিশোরগঞ্জে আইন পেশায় নিয়োজিত।

গোলসান আরা বেগম ১৯৬০ সালের ১ মে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার স্বল্পমারিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম মরহুম মো. ইমাম হোসেন, মাতার নাম মরহুমা আমেনা ইমাম এবং স্বামীর নাম ইঞ্জিনিয়ার মো. জসিমউদ্দিন।  তার প্রকাশিত কবিতার বই ‘স্বপ্ন ও স্বপ্নহীনতার মাঝে’ (২০০২) এবং ‘স্বপ্ন ভাঙার মোহনায়’ (২০০৪)। তিনি সদর উপজেলাধীন কালটিয়া (বিন্নাটি) আরএস আইডিয়াল কলেজের অধ্যক্ষ।

মো. নবী হোসেন, পিতা- মরহুম মো. মশ্রব আলী, মাতা- মোছা. মিছিরননেছা। ১৯৫৫ সালের ২ জুন কটিয়াদী উপজেলার বানিয়াগ্রামে মো. নবী হোসেনের জন্ম। একজন ছান্দসিক ছড়াকার, কবি ও প্রাবন্ধিক হিসেবে তার সুখ্যাতি রয়েছে। আশির দশকে ‘শিস দিয়ে যায় অহর্ণিশ’ নামক একটি ছড়াপত্র তার সম্পাদনায় নিয়মিত প্রকাশ পেতো। ১৯৮৩ সালে প্রকাশ পায় তার ছড়াগ্রন্থ  ‘পোড়ামাটির গন্ধে’। ২০০৪ সালে প্রকাশ পেয়েছে তার একটি কবিতার বই ‘স্মৃতির দহনে কষ্টের এপিটাফ’ এবং ছন্দ বিষয়ক প্রবন্ধের বই ‘প্রসঙ্গ: ছড়া কবিতা গান’। মো. নবী হোসেন পেশায় একজন আইনজীবী।

জাহাঙ্গীর আলম জাহান, কিশোরগঞ্জ শহরতলীর কাটাবাড়িয়া গ্রামে তার পৈতৃক বাড়ি। পিতার চাকরিসূত্রে ১৯৬০ সালের ১২ এপ্রিল কুমিল্লার ময়নামতিতে জন্ম। পিতা মুক্তিযুদ্ধে নাম শহিদ মো. জমশেদ আলী এবং মাতা মরহুম লুৎফুন্নেছা বেগম। সাহিত্যের বিভিন্ন বিষয়ে নিয়মিত লেখালেখি করে আসছেন। এ পর্যন্ত তার ৪১টি বই প্রকাশিত হয়েছে। প্রথম বই ‘রাজা মশায় চিৎপটাং’ (ছড়া) প্রকাশ পায় ১৯৮৫ সালে। এরপর তার প্রকাশিত অন্যান্য বইসমূহের মধ্যে ‘নারীবিমুখের বিপন্ন বিলাপ’ (কাব্য ১৯৮৭), ‘রাজাকার রাজা হয়’ (ছড়া ১৯৮৪), ‘রক্তে ভেজা কিশোরগঞ্জ’ (মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক ২০০১) ‘যে কাঁদে কাঁদুক’ (কাব্য ২০০৪), ‘ফুলের দেশে পরীর বেশে’ (ছড়া ২০০৪), ‘কিশোরগঞ্জ জেলার মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস’ (২০১০) ইত্যাদি অন্যতম।

কাজল শাহনেওয়াজ, পিতা আবু বকর সিদ্দিক, মাতা সুরাইয়া সিদ্দিক। জন্ম ১৯৬১ সালের ১ জুন মুন্সিগঞ্জ জেলার লৌহজং থানায় হলেও দীর্ঘদিন যাবৎ কিশোরগঞ্জ শহরে স্থায়ীভাবে বসবাস করার সুবাদে তিনি এ জেলারই কৃতী লেখকে পরিণত হয়েছেন। ৭০ দশকের শেষদিকে তিনি লেখালেখি শুরু করেন। এ পর্যন্ত তার বেশ কয়েকটি বই প্রকাশ পেয়েছে। তন্মধ্যে ‘জলমগ্ন পাঠশালা’ (কাব্য ১৯৮৭), ‘রহস্য খোলার রেঞ্জ’ (কাব্য ১৯৯১) ও ‘কাছিমগালা’ (গল্প ১৯৯৩)। তিনি ‘বিকল্প কবিতা’ এবং ‘ফৃ’ নামক দু’টি সাহিত্যপত্র সম্পাদনা করেছেন। পেশায় কম্পিউটার বিশেষজ্ঞ।

সুমন কায়সার, প্রকৃত নাম নিয়ামত হোসেন রিপন। পিতার নাম হেদায়েত হোসেন, মাতার নাম জুলফি আরা হোসেন। তিনি ১৯৫৯ সালে ময়মনসিংহে জন্মগ্রহণ করেন। পৈতৃক ঠিকানা তাড়াইল থানার দেওয়াটি গ্রাম। তার প্রকাশিত বই ‘অনাদিকাল’ (উপন্যাস ১৯৯৭)।

রহিমা আখতার কল্পনা ১৯৬২ সালে কিশোরগঞ্জ শহরের রথখলার বাসায় জন্ম নেন। একজন কবি, গবেষক ও গল্পকার হিসেবে ইতোমধ্যেই তিনি পরিচিত হয়ে উঠেছেন। তার প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ‘বেনোজলে বেহুলার ভেলা’ (১৯৯৩), ‘পাথর সরিয়ে দাও’ (১৯৯৬), ‘কেউ জানে না’ (১৯৯৯), ‘দাহপর্ব’ (২০০১) এবং গল্পগ্রন্থ ‘পাখিদের পার্লামেন্ট’ (১৯৯৪)। বর্তমানে তিনি বাংলা একাডেমিতে উপপরিচালক হিসেবে কর্মরত। (চলবে)

(জাহাঙ্গীর আলম জাহান, ছড়াকার, প্রাবন্ধিক, ইতিহাস-মুক্তিযুদ্ধ ও লোকসংস্কৃতির গবেষক, প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৪১টি।)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর