কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কালপর্বিক ধারাবাহিকতায় কিশোরগঞ্জের সাহিত্য (পর্ব-২)


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ২ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার, ১০:০১ | সাহিত্য 


বাজিতপুর থানার কবি মাতু মিয়া (প্রকৃত নাম আজিজুর রহমান) বিংশ শতকের প্রথমদিকে ১৯০৯ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তার উল্লেখযোগ্য বই ‘কবিতাঞ্জলি’ ও ‘আল্লাহতালার মুক্তি চাই’ (১৯৮৫)। কিশোরগঞ্জ সদর থানার কাটাবাড়িয়া গ্রামে ১৩০৭ বঙ্গাব্দে জন্মগ্রহণ করেন কবি ছফিরউদ্দিন। তার প্রকাশিত পুস্তকের নাম ‘মুক্তিমন্ত্র’ (১৩৩৭ বঙ্গাব্দ)।

কটিয়াদী থানার বনগ্রামে ১৮৯৭ সালের ২৩ নভেম্বর জন্মেছিলেন নীরোদ সি. চৌধুরী। তাঁর বিখ্যাত গ্রন্থ ‘দ্য অটোবায়োগ্রাফি অব এন আননোন ইন্ডিয়ান’ (১৯৫১)। একই থানার মসূয়া গ্রামে জন্ম নেন প্রখ্যাত শিশুসাহিত্যিক উপেন্দ্রকিশোর রায় চৌধুরী (জন্ম ১২ মে ১৮৬৩)। তার উল্লেখযোগ্য গ্রন্থের মধ্যে ‘গুপিগাইন বাঘা বাইন’, ‘বেচারাম ও কেনারাম’। তার ছেলে সুকুমার রায়ও বিখ্যাত শিশুসাহিত্যিক ছিলেন।

সুকুমার রায়ের বিখ্যাত বইয়ের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘আবোলতাবোল’, ‘খাইখাই’, ‘ঝালাপালা’। সুকুমার রায়ের ছেলে সত্যজিৎ রায় ভারতীয় চলচ্চিত্রে অসাধারণ শিল্পমান সৃষ্টি করে ‘অস্কার’ পুরস্কারে ভূষিত হন। চলচ্চিত্র পরিচালনার বাইরে সত্যজিৎ রায় একজন সুসাহিত্যিক হিসেবেও খ্যাত ছিলেন। তাঁর লেখা বইয়ের মধ্যে ‘স্বয়ং প্রফেসর শংকু’, ‘জয়বাবা ফেলুনাথ’ ‘এক ডজন গপ্পো’ উল্লেখযোগ্য।

বাংলা সাহিত্যের আরেক সুসাহিত্যিক মনিরউদ্দিন ইউসুফ। কিশোরগঞ্জ সদর থানাধীন বৌলাই গ্রামের কৃতী সন্তান ১৯১৯ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। তার বেশকিছু বই ব্যাপক পাঠকপ্রিয়তা পেয়েছে। মহাকবি ফেরদৌসীর ‘শাহনামা’ বাংলায় অনুবাদ করে তিনি বিপুলভাবে প্রশংসিত হন।

ভৈরব থানার শিমুলকান্দি গ্রামের বিশিষ্ট গবেষক ও সাহিত্যিক রেবতীমোহন বর্মণ ১৯০৫ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তার অনেক বইয়ের মধ্যে ‘কৃষক ও জমিদার’ ‘ভারতে কৃষকের সংগ্রাম ও আন্দোলন’ বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার চৌদ্দশত গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন শাহ মো. কেরামত আলী। তার পিতার নাম মুন্সি মো. ইয়াসিন। বয়ঃবৃদ্ধ ও স্বল্পশিক্ষিত এই প্রবীণ লেখকের দুটো বই প্রকাশ পেয়েছে; যথাক্রমে ‘ইসলামী যোগসূত্রে বাংলা বর্ণমালা’ (১৯৭৮) ও ‘প্রিয়ার বাঁশি’ (সঙ্গীত বিষয়ক, ১৯৮৭)।

তাড়াইল থানার ধলা গ্রামের চৌধুরীবাড়িতে ১৯২৩ সালে জন্মগ্রহণ করেন আসাদুর রহমান চৌধুরী। তিনি এআর চৌধুরী নামে সমধিক খ্যাত ছিলেন এবং তিনি ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের একজন সুদক্ষ সচিব। তার প্রকাশিত বই যথাক্রমে- Judicial System of Bangladesh (1979), Reflection of Law and Order (1984), Legislative Drafting a Primer (1983), Wild Thoughts (2001).

এছাড়া বিশিষ্ট সাংবাদিক সৈয়দ নূরুদ্দীন (ধারীশ্বর, নিকলী) ও এসএম রমজান আলী (কিশোরগঞ্জ) এ জেলার বিশিষ্ট কবি ও সাহিত্যিক হিসেবে সমাদৃত হয়েছেন।

হোসেনপুর থানার চর জামাইল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন আবুল কালাম মুহাম্মদ আমিনুল হক। তিনি ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ছিলন। তার রচিত অনেক বইয়ের মধ্যে ‘চিল ময়না দোয়েল কোয়েল’ উল্লেখযোগ্য।

ভৈরব উপজেলার জামালপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও সমাজসেবক ডক্টর আবদুল লতিফ ভূইয়া। লেখক হিসেবেও তার পরিচিতি রয়েছে। তার প্রকাশিত বইসমূহের মধ্যে ‘বাঁচবার পথ একটি’।

এছাড়া সৈয়দ কমরউদ্দিন হুসেইন, সৈয়দ নাজিমুদ্দিন হুসেইন, ফরিদ উদ্দিন মাসউদ, মাওলানা মাহমুদুর রহমান হারুন, মাওলানা শায়খ হাফিজ আমীনুল হক, মাওলানা আব্দুল জলিল, মুহাম্মদ খোরশীদ উদ্দিন, মুহাম্মদ হাবিবুল্লাহ, সুধীর চন্দ্র, রুহুল আমীন খান, শেহাব উদ্দিন আহমদ, ছলিমুল হক খান মিল্কী, মো. আলফাজ উদ্দিন প্রমুখ বিশিষ্ট লেখক হিসেবে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছেন।

ইটনা থানার শিমুলবাঁক গ্রামে ১৩২৫ বঙ্গাব্দে জন্মগ্রহণ করেন তাহেরুদ্দীন মল্লিক। তিনি বিভিন্ন বিষয়ে গবেষণাধর্মী ও স্মৃতিচারণমূলক লেখা লিখতেন। তার প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ‘সমাবেশ’ ‘জানবার মতো’ ‘চেনা মানুষের জারী’ (১৩৯৫ বঙ্গাব্দ), ‘কোরআনের বিষয়বস্তু’ (১৯৯২)।

ভৈরব থানার ভৈরবপুরে ১৯৩২ সালে জন্ম নেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও কথাসাহিত্যিক অধ্যক্ষ মিন্নাত আলী। তার প্রকাশিত বইগুলো হচ্ছে যথাক্রমে ‘মফস্বল সংবাদ’ (১৯৫৮), ‘আমার প্রথম প্রেম’ (১৯৫৯), ‘জাদুঘর’ (১৯৬৯), ‘না বলা কথা’, ‘চেনা ও জানা’ (১৯৮০) ও ‘আমি দালাল বলছি’ (১৯৭৪)। তিনি ১৯৭৫ সালে ছোটগল্পে বাংলা একাডেমি পুরস্কার পেয়েছেন।

পাকুন্দিয়া থানার বিশিষ্ট লেখক ও শিক্ষাবিদ আবুল কাশেম ফজলুল হক। তিনি ১৯৪১ খ্রিষ্টাব্দের ৩১ জুলাই জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম মুহাম্মদ আব্দুল হাকিম। বর্তমানে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক। তার প্রকাশিত গ্রন্থসমূহ হচ্ছে, ‘মুক্তিসংগ্রাম’ (১৯৭২), ‘রাজনৈতিক আদর্শ’ (বার্টান্ড রাসেলের লেখা বইয়ের অনুবাদ ১৯৭৩), ‘কালের যাত্রার ধ্বনি’ (১৯৭৩), ‘একুশে ফেব্রুয়ার আন্দোলন’ (১৯৭৬), ‘উনিশ শতকের মধ্যবিত্ত শ্রেণী ও বাংলা সাহিত্য’ (১৯৭৯), ‘নৈতিকতা: শ্রেয়োনীতি ও দুর্নীতি’ (১৯৮১), মানুষ ও তার পরিবেশ (১৯৮২), ‘যুগসংক্রান্তি ও নীতি জিজ্ঞাসা (১৯৮৫), ‘মাও সে তুঙের জ্ঞানতত্ত্ব’ (১৯৮৭), ‘রাজনীতি ও দর্শন’ (১৯৮৮), ‘বাংলাদেশের প্রবন্ধ সাহিত্য’ (১৯৮৯) ইত্যাদি।

হোসেনপুর থানার জগদল গ্রামে ১৯১১ সালের ১৪ মার্চ জন্ম নেন কবি আজহারুল ইসলাম। তাঁর জীবনের বেশিরভাগ সময় তিনি কিশোরগঞ্জ শহরেই কাটিয়েছেন। আজহারুল ইসলামের উল্লেখযোগ্য বইগুলোর মধ্যে ‘ছায়াপথ’, ‘উত্তর বসন্ত’, ‘মনিরার বিরাগ’ ইত্যাদি অন্যতম।

এ সময়ের বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কথাসাহিত্যিক রাহাত খান। ১৯৪০ সালে তিনি তাড়াইল থানার জাওয়ার গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি সাংবাদিকতার পাশাপাশি বেশকিছু উপন্যাস ও গল্পের বই রচনা করেন। প্রকাশিত উপন্যাসসমূহ হচ্ছে যথাক্রমে ‘এক প্রিয়দর্শিনী’, ‘ছায়া দম্পত্তি’, ‘হে অনন্তের পাখি’, ‘মধ্যমাঠের খেলোয়াড়’, ‘অমল ধবল চাকরি’ ইত্যাদি। তার রচিত ও প্রকাশিত ছোটগল্পের বইয়ের নাম যথাক্রমে ‘অনিশ্চিত লোকালয়’, ‘অন্তহীন যাত্রা’। এছাড়া শিশু- কিশোরদের উপযোগী তার বেশিকিছু সুখপাঠ্য গল্পও রয়েছে। এ রকম একটি গল্পের বইয়ের নাম ‘কিশোরসমগ্র’।

অজয় রায় একজন প্রগতিশীল বাম রাজনীতিক ও লেখক। কটিয়াদী থানার বনগ্রামে ১৯২৮ সালের ২১ ডিসেম্বর তিনি জন্মগ্রহণ করেন। প্রকাশিত অনেক বইয়ের মধ্যে ‘আমাদের রাজনীতি কি এবং কেন’ অন্যতম একটি। ১৯১৮ সালের ১ মে বাজিতপুর থানায় জন্মগ্রহণ করেন বাংলা সাহিত্যের বিশিষ্ট পণ্ডিত অধ্যক্ষ নরেন্দ্র চন্দ্র ঘোষ। তাঁর প্রকাশিত রম্যরচনার বই ‘গরু মার্কা রচনা’ (১৯৮৫) পাঠকসমাজে ব্যাপক সমাদৃত হয়েছিল।

বাজিতপুর থানার প্রয়াত সাহিত্যিক ডিএস ইউসুফ হায়দার। তিনি একজন সুলেখক হিসাবে পরিচিতি পেয়েছিলেন। তার লেখা বইও প্রকাশিত হয়। তিনি বাংলাদেশ সরকারের একজন পদস্থ ও সুদক্ষ আমলা ছিলেন।

জিয়াউদ্দিন আহমদ কিশোরগঞ্জের আরেক বিশিষ্ট সাহিত্যিক। তার বাড়ি পার্শ্ববর্তী নরসিংদী জেলার বেলাব থানার সারদাবাদ গ্রামে হলেও কিশোরগঞ্জ গুরুদয়াল সরকারি কলেজে বাংলা বিভাগের অধ্যাপক হিসেবে চাকরির সুবাদে কিশোরগঞ্জেই স্থায়ীভাবে বসাবাস করেছেন। একজন প্রাবন্ধিক, নাট্যকার ও ঔপন্যাসিক হিসেবে তিনি লব্ধপ্রতিষ্ঠিত সাহিত্যিক। ১৯৬০ সালে প্রকাশ পায় তার লেখা নাটক ‘ছিন্ন আশা’ ও ‘অপরাজেয়’ (ছিন্ন আশা নাটকটি তৎসময়ে ঢাকা বেতারে প্রচারিত হয়)। ‘যে কথার শেষ নেই’ নামক তার একটি উপন্যাস প্রকাশিত হয় ১৯৯৯ সালে। জেলার একমাত্র ত্রৈমাসিক ‘সৃষ্টি’ নামক সাহিত্যপত্রটি দীর্ঘদিন তার সম্পাদনায় প্রকাশ পায়।

গুরুদয়াল সরকারি কলেজের ইংরেজি বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক রফিকুর রহমান চৌধুরী একজন সফল অনুবাদক হিসেবে সমাদৃত হয়েছেন। তার পৈতৃক নিবাস তাড়াইল থানার ধলা গ্রামে হলেও বর্তমানে কিশোরগঞ্জে স্থায়ীভাবে বসাবাস করছেন। তার অনূদিত গল্পের বই ‘ড. জেকিল এবং মি. হাইড’ এবং ‘বারটি বিদেশী গল্প’।

গুরুদয়াল সরকারি কলেজের ইংরেজি বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকের নাম প্রাণেশ কুমার চৌধুরী। ২০১৪ সালে তার দু’টি বই প্রকাশ পেয়েছে; অনুবাদগ্রন্থ ‘বিবিধ রতন’ এবং কবিতার বই ‘কথাকলি’।

শাহ আব্দুল হান্নান ১৯৪০ সালে কটিয়াদী থানার কুড়িখাই গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা শাহ্ আব্দুল মান্নান। প্রকাশিত বই ‘সোশ্যাল ল’জ অব ইসলাম’, ‘ইসলামের অর্থনীতিতে সরকারের ভূমিকা’ ‘নারী সমস্যা ও ইসলাম’  ‘সোভিয়েত ইউনিয়নে ইসলাম’। এছাড়াও তিনি সমসাময়িক সমস্যা, রাজস্ব নীতি, অর্থনীতি এবং ইসলামী ব্যাংকিং বিষয়ে গবেষণামূলক বহু প্রবন্ধ লিখেছেন, যা বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। তিনি বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ সরকারের সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। মো. আবু তালেব, নূরুল আলম, ফারুক মাহমুদ, জাফর সিদ্দিকী, প্রয়াত ডা. এ সাদেক এবং জঙ্গলবাড়ি গ্রামের কিশোর মাসুম লেখক হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন।

হাসনা আরা হাই বিশিষ্ট সাহিত্যিক ও শিক্ষাবিদ। তিনি ১৯৩৩ সালের ২৫ জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। পিতার নাম মৌলভী আব্দুস সালাম এমএ, মাতার নাম মোসাম্মৎ ফাসিহা খানম এবং স্বামীর নাম ডা. আব্দুল হাই।  প্রকাশিত বই ‘বরণী, সূতী ও ফুলেশ্বরীর দেশ তাড়াইল’ ‘সখিনা মদিনা মহুয়া মলুয়ার দেশ’ ও ‘গফরগাঁওয়ের প্রাচীন ইতিহাস’ (সাজেদুল হকের সাথে যৌথভাবে রচিত)। কিশোরগঞ্জ লোকজ সাহিত্য নিয়ে তিনি গবেষণা ও লেখালেখি করে থাকেন।

১৯৩৩ সালের ৩ মার্চ কিশোরগঞ্জ সদর থানাধীন কালটিয়া গ্রামে জন্ম নেন আব্দুল হান্নান। তার পিতার নাম মরহুম আব্দুল মান্নান এবং মাতার নাম মরহুম বাদশার মা। আব্দুল হান্নান একজন আবেগাশ্রয়ী কবি, প্রাবন্ধিক, গল্পকার ও ঔপন্যাসিক হিসেবে পরিচিত। তার প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ‘ছন্দহারা’ (১৯৮৭), ‘ও তুই স্বৈরিণী’ (১৯৯৩), ‘কেটে যাক গ্রহণের কাল’ (২০০৪), প্রবন্ধগ্রন্থ ‘এখানে আকাশ নির্বাক’ (১৯৯৬), উপন্যাস ‘ফিরে এলো না যারা’ (২০০০), ‘অক্ষরে আঁকা জীবনচিত্র’ (২০১৯)। এছাড়া তার আর কিছু বই প্রকাশ পেয়েছে।

বেগম রাজিয়া হোসাইন একজন বিশিষ্ট কবি ও সাহিত্যিক। জন্ম ১৯৩৮ সালের ২ জানুয়ারি। এ পর্যন্ত তার অর্ধ শতাধিক বই প্রকাশ পেয়েছে। প্রকাশিত বইয়ের মধ্যে কাব্যগ্রন্থ ‘ঘুম ভেঙে যায়’, ‘শিকড় সমুদ্র খুঁজছে’, ‘গাঙচিলের ঘর’, ‘ঘাসের নূপুর’ অন্যতম। ২০০৯ সালে তিনি রাষ্ট্রীয়ভাবে বেগম রোকেয়া পদকে ভূষিত হন।

কিশোরগঞ্জ সদর থানার যশোদল ইউনিয়নের ভট্টাচার্যপাড়ায় জন্ম নেন দুর্গাদাস ভট্টাচার্য। একজন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও লেখক হিসেবে তার সুখ্যাতি রয়েছে।

কিশোরগঞ্জ সদর থানার বিন্নগাঁও (বগাদিয়া) গ্রামের বিশিষ্ট সাহিত্যিক, সাংবাদিক ও লোকসাহিত্য সংগ্রাহক মোহাম্মদ সাইদুর। ১৯৪১ সালের ২৮ জানুয়ারি তাঁর জন্ম। লোকসাহিত্যের সংগ্রাহক তথা লোকসাহিত্যের একজন একনিষ্ঠ সাধক হিসেবে তিনি দেশে-বিদেশে বহুলভাবে সমাদৃত ও সংবর্ধিত হয়েছেন। তাঁর রচিত ‘মাধবমালঞ্চি কইন্যা’ (১৯৬৭) ও ‘জামদানী’ দু’টি উল্লেখযোগ্য বই। ‘কিশোরগঞ্জের ইতিহাস’ গ্রন্থের তিনি অন্যতম সম্পাদক।

মাওলানা আতাউর রহমান খান একজন রাজনীতিক ও ধর্মতত্ত্ববিদ হিসেবে পরিচিত হলেও জীবদ্দশায় গবেষণাধর্মী প্রচুর লেখালেখি করেছেন। তার প্রকাশিত বই ‘ইসলামের অর্থনৈতিক ব্যবস্থা’ (১৯৬৬), ‘পুঁজিবাদ সমাজতন্ত্র ও ইসলাম’ (১৯৬৮) এবং জীবনীগ্রন্থ ‘মাওলানা আতাহার আলীর স্মৃতি’ (১৯৯০)।

শাহাবুদ্দিন আহমদ একজন প্রবীণ কবি। তার পৈতৃক বাড়ি নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া থানাধীন চরখিদিরপুর গ্রামে হলেও দীর্ঘদিন যাবৎ কিশোরগঞ্জ শহরেই স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন। তার প্রকাশিত বই ‘পাকগীতিকা’ (১৯৫৯), ‘মুসাফির’ (১৯৯২), ‘আলোর পরশ’ (১৯৯৬), ‘এগারসিন্দুর’ (২০০০), ‘অমিয়বচন’ (২০০১), ‘পথের দিশা’ (২০০৩) ইত্যাদি অন্যতম।

মাওলানা আবুল খায়ের মুহম্মদ নূরুল্লাহ একজন বিশিষ্ট ধর্মতত্ত্ববিদ। ইসলাম ধর্মীয় বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তিনি লেখালেখি করে থাকেন। তার বেশক’টি গ্রন্থ প্রকাশ পেয়েছে। তন্মধ্যে ‘ফাজায়েলে আউজুবিল্লাহ’ (১৯৭১), ‘ফাজায়েলে বিসমিল্লাহ’ (১৯৭১), ফাজায়েলে আলহামদুলিল্লাহ’ (১৯৭১) উল্লেখযোগ্য।

কমান্ডার আব্দুর রউফ ভৈরব থানায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে একজন দুঃসাহসী নৌ-কমান্ডো ছিলেন। উপন্যাস, গল্প ও স্মৃতিচারণমূলক বস্তুনিষ্ঠ বিষয় নিয়ে লেখালেখি করে থাকেন। তার বেশ কয়েকটি বই প্রকাশ পেয়েছে। তন্মধ্যে ‘আগরতলা মামলা ও আমার নাবিক জীবন’ (১৯৯২) উল্লেখযোগ্য।

উপেন্দ্র চন্দ্র বিশ্বাস একজন নিভৃতচারী প্রবীণ সাহিত্যিক ও ঔপন্যাসিক। বাড়ি তাড়াইল থানার নগরকুল গ্রামে। তার প্রকাশিত উপন্যাসের নাম ‘বৈরী প্রবাহে যদি’ (১৯৮১)।

সৈয়দ ওয়াহিদুল ইসলাম পট্টু মিয়া ছিলেন একজন রাজনীতিবিদ। একসময় তিনি সফল নাট্যকার ও নাট্যাভিনেতা হিসেবেও পরিচিত ছিলেন। গত শতকের ষাটের দশকে তার রচিত ৩টি নাট্যগ্রন্থ প্রকাশ পায়। ১৯৫৭ সালে ‘অভিযান’, ১৯৫৯ সালে ‘অগ্নিদাহ’ এবং ১৯৬০ সালে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ছুটি গল্প অবলম্বনে প্রকাশ পায় তার শিশুকিশোর উপযোগী নাটক ‘মন ও মাটি’।

১৯৪২ সালের ১ সেপ্টেম্বর কিশোরগঞ্জ শহরের বত্রিশ (ইসলামপুর) এলাকার পৈতৃক বাড়িতে জন্ম নেন মীর মো. রেজাউল করিম। তার পিতার নাম মীর আবু তাহের এবং মাতার নাম মোছাম্মাৎ আজিজান খাতুন। মীর মো. রেজাউল করিম চারু ও কারুকলা ইনস্টিটিউট, ঢাকা হতে ফাইন আর্টস-এ স্নাতক ডিগ্রিপ্রাপ্ত চিত্রশিল্পী। চিত্রশিল্পের বাইরে তিনি একজন কবি ও লেখক হিসেবে সমাদৃত হয়েছেন। তার প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ‘সূর্যের হাতে হাত’ ও ‘কালের পায়ে নূপুর’।

এম. এ. কাইয়ূম একজন বিশিষ্ট চিত্রশিল্পী হিসেবে সমধিক পরিচিত। গবেষণাধর্মী লেখক হিসেবেও তার পরিচিতি রয়েছে। ১৯৪২ সালের ১ অক্টোবর কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার পাটাবুকা গ্রামের মাতুলালয়ে তার জন্ম। এ পর্যন্ত তার প্রকাশিত গ্রন্থসংখ্যা ৪টি। যথাক্রমে আদিশিল্প: চিরন্তন সংস্কৃতি, লোকশিল্পের লোক-বৈচিত্র্য, রেখাচিত্রে বাঙালি মনীষা এবং মোহাম্মদ সাঈদুর স্মারকগ্রন্থ (যৌথ)। ২৩ মে, ২০১৯ এই কীর্তিমান লেখক ও গবেষক আকস্মিক মৃত্যুবরণ করেন।

করিমগঞ্জ থানার কিরাটন গ্রামে ১৯৪০ সালে জন্ম নেন মহিউদ্দিন খান চৌধুরী। তিনি একজন প্রবীণ কবি ও গীতিকার। তার প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ‘পিরিতির নকশা’ এবং গীতিকবিতার বই ‘যে দেশে মানুষ ঘুমায়’। কিশোরগঞ্জের আঞ্চলিক ভাষায় কাব্যচর্চা করে তিনি যথেষ্ট পাঠকপ্রিয় হন।

বজিতপুর থানার সরিষাপুর গ্রামের বিশিষ্ট গবেষক, নাট্যকার ও সাহিত্যিক মুহম্মদ বাকের। তার প্রকাশিত বই ‘বাজিপুরের কথা’ (১৯৯৫), ‘লৌহিত্যে প্রতিরোধ’ (১৯৯৭), ‘আরব ইতিহাসের মর্মান্তিক অধ্যায়’ (২০০৩) ইত্যাদি। এছাড়া তিনি ‘টাঙ্গাইল জেলার ইতিহাস ও ঐতিহ্য’ (১৯৯৭) নামক গ্রন্থটি সম্পাদনা করেছেন। ‘নাট্যপত্র’ নামক একটি নাট্যসংকলনে (যা মুহম্মদ বাকের সংখ্যা হিসেবে প্রকাশ পায়) তার ৫টি নাটক মুদ্রিত হয়েছে।

জসিম আল হাকিম (প্রকৃত নাম মো. জসিম উদ্দিন) ১৯৩৪ সালে পাকুন্দিয়া থানার কোদালিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম মরহুম আব্দুল হাকিম। তার প্রকাশিত বইগুলো হচ্ছে যথাক্রমে- ‘অস্থির অন্ধকারে’ (কাব্য), ‘আহত তরঙ্গ’ (কাব্য) ও ‘বন্দর’ (কাব্য)। এছাড়া তার গবেষণাধর্মী বইয়ের মধ্যে ‘ম্যানুয়েল ফর রাইটিং রিসার্চ পেপারস’, ‘হাউ টু অর্গানাইজ এ মেডিকেল লাইব্রেরি’ এবং ‘হাসপাতাল রেকর্ড পদ্ধতি’ ইত্যাদি অন্যতম।

মো. আতিকুল্লাহ ঢালী একজন প্রবীণ লেখক। তিনি পার্শ্ববর্তী ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও থানার অধিবাসী হলেও দীর্ঘদিন যাবৎ কিশোরগঞ্জ শহরের হারুয়া এলাকায় স্থায়ীভাবে বসবাস করতেন। জেলা শিক্ষা অফিসার হিসেবে দীর্ঘদিন চাকরি শেষে অবসর গ্রহণের পর তিনি নিয়মিত সাহিত্যচর্চায় মনোনিবেশ করেছিলেন। তার প্রকাশিত দু’টি বই হচ্ছে যথাক্রমে ‘ঘুরে এলাম স্বরূপকাঠি’ (ভ্রমণকাহিনিী, ২০০৪) এবং ‘একুশের ছড়া’ (ছড়া ২০০৪)।

শফিক আলম মেহেদী একজন বিশিষ্ট কবি হিসেবে লব্ধপ্রতিষ্ঠিত। তিনি ১৯৫৩ সালের ২০ মার্চ কটিয়াদী উপজেলার বর্তিহাটা গ্রামে পিতা মো. সুলতান উদ্দিন ভূঁইয়া এবং মাতা হাজেরা বেগম-এর ঔরসে জন্মগ্রহণ করেন। তার প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ‘মাধবী হৃদয়’ (১৯৯৮), ‘মৃত্তিকা’ (২০০২)। তিনি বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের সচিব হিসেবে অবসর গ্রহণ করেন।

জুনাইদুল হক একজন বিশিষ্ট লেখক, প্রাবন্ধিক ও গল্পকার। তার পিতার নাম মরহুম ওবায়দুল হক এবং মাতার নাম হাবিবা খাতুন। তিনি কটিয়াদী উপজেলার বোয়ালিয়া গ্রামে ১৯৫৫ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। প্রকাশিত বই ‘আরও এক বিপন্ন বিস্ময়’ (গল্প, ২০০১) এবং ‘সমকালের জার্নাল’ (প্রবন্ধ, ২০০২)। বর্তমানে তিনি একটি বিদেশি বিমান সংস্থায় চাকরি করছেন।

পাকুন্দিয়া থানাধীন দগদগা গ্রামের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও কবি এএফএম শহীদুল্লাহ্। তার প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ‘শরবিদ্ধ পায়রা’ (১৯৮৯) এবং ‘প্রেমের এপিটাফ’ (১৯৯০)।

ডা. সাহেব আলী পাঠান একজন বিশিষ্ট কবি। তিনি ১৯৪৭ সালের ৮ ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম মরহুম মো. আব্দুল হালিম পাঠান ও মাতার নাম মোছাম্মাৎ বাহারুননেসা ওরফে রোকেয়া বেগম। সাহেব আলী পাঠানের প্রকাশিত কাব্যের নাম ‘আরেক রাজ্যের সীমানায়’ (১৯৮৭)। পেশায় তিনি একজন চিকিৎসক।

পাকুন্দিয়া থানার হোসেন্দী গ্রামে ১৯৫৯ সালের ৬ নভেম্বর জন্মগ্রহণ করেন মন্জুরুর রহমান। তার পিতার নাম মো. রফিকুর রহমান এবং মাতার নাম সাজেদা খাতুন। মন্জুরুর রহমান একজন বিশিষ্ট কবি ও প্রাবন্ধিক হিসেবে সুখ্যাতি অর্জন করেছেন। তার প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ‘এই নীল গ্রহে’ (১৯৯৯), ‘জলসিড়ি ভেঙে পড়ে’ (২০০১), প্রবন্ধগ্রন্থ ‘বৈশাখী মেলা ও অন্যান্য’ (১৯৯৯)। জীবনীগ্রন্থ ‘মোহাম্মদ মতিওর রহমান’ (১৯৯৭) এছাড়া তিনি ‘বাংলা একাডেমী ঐতিহাসিক অভিধান’ (১৯৯৬) সম্পাদনা করেন। বেতার ও টেলিভিশনের একজন আবৃত্তিকার হিসেবেও সুখ্যাতি রয়েছে। তিনি বর্তমানে বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের একজন অতিরিক্ত সচিব।

আল-জাকির একজন লব্ধ প্রতিষ্ঠিত কবি। তিনি কিশোরগঞ্জ শহরের পুরানথানার বাসায় জন্মগ্রহণ করেন। প্রকৃত নাম জাকিরুল ইসলাম চৌধুরী হলেও আল-জাকির নামেই তিনি সাহিত্যচর্চা করে থাকেন। তার প্রকাশিত বইসমূহের মধ্যে ‘হৃৎকলসের জল’ ও ‘আমি নই বৈরী তোমার’ কাব্য দু’টি বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। তিনি বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের অবসরপ্রাপ্ত যুগ্ম-সচিব।

বাজিতপুর থানার সরিষাপুর গ্রামে ১৯৬১ সালের ১ মার্চ জন্মগ্রহণ করেন গোলাম শফিক। তার পিতার নাম মরহুম মোহাম্মদ আব্দুল গণি এবং মাতার নাম মরহুমা উম্মুল খায়ের ফাতেমা। গোলাম শফিক একজন নাট্যকার, গল্পকার এবং প্রাবন্ধিক হিসেবে সুপারিচিত। তার প্রকাশিত নাট্যগ্রন্থের নাম ‘তিনটি পথ নাটক’ (১৯৮৯), এবং গল্পগ্রন্থের নাম ‘টিটিকাকা ও অন্যান্য গল্প’। ‘সুলুকসন্ধান’ নামে তার একটি গবেষণাধর্মী বইও রয়েছে। তিনি বিসিএস (ইকোনোমিক) ক্যাডারের একজন অতিরিক্ত সচিব।

বাজিতপুর থানার একজন মুক্তিযোদ্ধা, কবি ও শিক্ষাবিদের নাম মোহাম্মদ আশরাফ। তিনি সরকারি কলেজের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ। কবিতা, প্রবন্ধ ও নাটক লিখতেন। এ পর্যন্ত তার তিনটি বই প্রকাশ পেয়েছে; যথাক্রমে ‘হৃদয়ের বৃষ্টি ঝরে’ (কাব্য, ১৯৮৩), ‘প্রাকৃতজনের গান’ (কাব্য ২০০০) এবং নাটকের বই ‘আমরা মরিনি’ (১৯৮৪)। (চলবে)

(জাহাঙ্গীর আলম জাহান, ছড়াকার, প্রাবন্ধিক, ইতিহাস-মুক্তিযুদ্ধ ও লোকসংস্কৃতির গবেষক, প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৪১টি।)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর