কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে আট পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মবিরতি অবস্থান


 স্টাফ রিপোর্টার | ২ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার, ৮:৪২ | বিশেষ সংবাদ 


রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শতভাগ বেতন-ভাতা, পেনশন প্রথা চালু ও জনপ্রতিনিধিদের সম্মানী ভাতা প্রদানের দাবিতে কর্মবিরতি পালন করে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন কিশোরগঞ্জ জেলার আট পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

জেলা শহরের আখড়া বাজার সেতু সংলগ্ন সৈয়দ আশরাফ চত্বরে মঙ্গলবার (২ জুলাই) সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত পৌরসভা সার্ভিস এসোসিয়েশন-এর ব্যানারে এই কর্মসূচি পালন করা হয়।

অবস্থান কর্মসূচি চলাকালে অনুষ্ঠিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন কিশোরগঞ্জ জেলা পৌরসভা সার্ভিস এসোসিয়েশনের সভাপতি ভৈরব পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী বাদশা আলমগীর।

এতে কিশোরগঞ্জ পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী প্রকৌশলী মো. রফিকুল ইসলাম, জেলা পৌরসভা সার্ভিস এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক কিশোরগঞ্জ পৌরসভার সহকারী হিসাবরক্ষক (পানি শাখা) আনোয়ার হোসেন ভূঁইয়া, সিনিয়র সহ-সভাপতি করিমগঞ্জ পৌরসচিব আনতারুল হক, সহ-সভাপতি পাকুন্দিয়া পৌরসচিব সৈয়দ শফিকুর রহমান, কটিয়াদী পৌরসচিব মো. আলমগীর ও কুলিয়ারচর পৌরসচিব কারার দিদারুল মতিন, যুগ্মসাধারণ সম্পাদক হোসেনপুর পৌরসচিব একেএম হাবিবুল্লাহ, কিশোরগঞ্জ পৌর কর্মচারী সংসদের সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক রোকন প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

এছাড়া কর্মসূচিতে একাত্মতা পোষণ করে কিশোরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মাহমুদ পারভেজ, কাউন্সিলর আরিফুল ইসলাম আরজু ও ইয়াকুব সুমন বক্তব্য রাখেন।

কর্মসূচিতে কিশোরগঞ্জ পৌরসভার সচিব মো. হাসান জাকির বাপ্পী, শহর পরিকল্পনাবিদ জান্নাতুল ফেরদৌস আরা, উপসহকারী প্রকৌশলী ফারুক আহম্মেদ, পৌর কর্মচারী সংসদের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম সহ জেলার আটটি পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অংশ নেন।

আন্দোলনকারীরা জানান, সরকারের বিভিন্ন বিভাগ, দপ্তর, অধিদপ্তর, পরিদপ্তরের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ সরকারের রাজস্ব তহবিল থেকে বেতন-ভাতা ও পেনশন সুবিধা পেয়ে থাকেন। একই ভাবে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের এলজিইডি, ডিপিএইচই, ওয়াসা, সমবায় অধিদপ্তর ও উপজেলা পরিষদসহ অনেক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সরকারের রাজস্ব তহবিল থেকে বেতন-ভাতা ও পেনশন সুবিধা পেয়ে থাকেন।

অথচ জনসেবকের দায়িত্ব পালনকারী সংস্থা স্থানীয় সরকারের মূল প্রতিষ্ঠান পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা ও আনুতোষিক পৌরসভার রাজস্ব তহবিল থেকে প্রদান করা হয়ে থাকে। এতে পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতাদি বেশিরভাগ পৌরসভায় দুই থেকে ৫২ মাস পর্যন্ত বকেয়া পড়েছে। ফলে তারা পরিবার পরিজন নিয়ে অসহায় ও মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

ভিডিও:

 




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর