কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


তাড়াইল থেকে মাদকের শেকড় উপড়ে ফেলা হবে: ওসি মুজিবুর


 আমিনুল ইসলাম বাবুল | ২ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার, ৮:১৫ | তাড়াইল  


‘মাদক’ একটি জাতীয় সমস্যা। এ সমস্যা সমাধানে সবার সহযোগিতা চাই। তাড়াইলবাসীর সহযোগিতায় মাদক কারবারির সমন্বিত তালিকা ধরে ধরে তাড়াইল থেকে মাদকের শেকড় উপড়ে ফেলা হবে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাঁর ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডিতে দেয়া এক পোস্টে কিশোরগঞ্জের তাড়াইল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মুজিবুর রহমান এ কথা বলেন।

ওসি মুজিবুর রহমান আরো বলেন, মাদক কারবারি, মাদকবহনকারী  ও মাদকসেবীদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। মাদক প্রতিরোধে আইনি ব্যবস্থায় যত কাঠামো আছে তার সর্বোচ্চ প্রয়োগ করবে পুলিশ। তাড়াইল থানার বেশির ভাগ শীর্ষ মাদক কারবারিরা এখন জেলে আছে। চুনোপুটিগুলোকেও বিন্দুমাত্র ছাড় দেয়া হবে না।

মাদককে জাতীয় সমস্যা উল্লেখ করে ওসি মুজিবুর রহমান বলেন, ছাত্র, শিক্ষক, অভিভাবক, রাজনৈতিক নেতা, ধর্মীয় নেতা, মসজিদের ইমাম, সব শ্রেণি পেশার মানুষকে মাদকের শেকড় উৎপাটনের জন্য কাজ করতে হবে। টুইটার, ফেসবুকসহ সব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মাদকের বিরুদ্ধে লেখালেখিতে সোচ্চার হতে অনুরোধ জানান তিনি।

মাদক, জঙ্গি বা অন্য কোন অপরাধীদের সম্পর্কে পুলিশকে সরাসরি অথবা ওসি (তাড়াইল থানা) এর মোবাইল (০১৭১৩ ৩৭৩৪৮২) নাম্বারের মাধ্যমে পুলিশকে তথ্য দেয়ার জন্য তিনি সকল সচেতন নাগরিকদের উদাত্ত আহ্বান জানান। তথ্যদাতার পরিচয় গোপন রাখা হবে বলেও তিনি জানান।

ওসি মুজিবুর আরো বলেন, এই দেশকে আমরা আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য রেখে যাব মাদক ও জঙ্গি মুক্ত দেশ হিসেবে। আমরা চাইব, মাদক কারবারিরা মাদক বিক্রি বন্ধ করবে এবং মাদকসেবীরা সেবন বন্ধ করে দেবে।

জঙ্গি, মাদকাসক্ত, জুয়াড়ি ও মাদক কারবারি যত-ই প্রভাবশালী বা ক্ষমতাধর ব্যক্তি হোক যার বিরুদ্ধে সঠিক তথ্যের ভিত্তিতে অভিযোগ পাওয়া যাবে তাঁকেই আইনের আওতায় আনা হবে।

মাদকবিরোধী অভিযানে স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাদেরও সহযোগিতা নেয়া হচ্ছে। তারাও মাদকের বিরুদ্ধে কাজ করবে। জঙ্গি, মাদকাসক্ত, জুয়াড়ি ও মাদক কারবারির জন্য যারা তদবীর করবেন, তাঁরা চিরদিন আমার বন্ধুত্ব ও ভালবাসা হতে বঞ্চিত হবেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর