কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কালপর্বিক ধারাবাহিকতায় কিশোরগঞ্জের সাহিত্য


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ১ জুলাই ২০১৯, সোমবার, ৮:০৮ | সাহিত্য 


কিশোরগঞ্জ জেলায় কে কবে সর্বপ্রথম সাহিত্য রচনায় মনোনিবেশ করেছিলেন তার কোনো সঠিক ইতিবৃত্ত পাওয়া যায় না। যতদূর জানা যায়, সুদূর দ্বাদশ শতাব্দীতে তাড়াইল থানার বোরগাঁও গ্রামে একজন প্রাচীন কবি কাব্যসাধনায় যথেষ্ট ব্যুৎপত্তি লাভ করেছিলেন।

পনের শতকের দিকে দেব-দেবী তথা ধর্মঠাকুর, চণ্ডিমনসা, শীতলা, দক্ষিণা রায় প্রভৃতির প্রশস্তিনির্ভর পাঁচালি গাওয়ার মাধ্যমে এ অঞ্চলে কাব্যচর্চার ব্যাপক প্রসার ঘটতে থাকে। মোটকথা সেই মধ্যযুগে দেবতার স্তুতি এবং পীর-পয়গম্বরদের প্রশংসাসূচক প্রশস্তিগাথার মাধ্যমেই এ জেলার সাহিত্য ভাণ্ডার ক্রমে ক্রমে বিকশিত হয়েছে।

তাড়াইল থানার বোরগাঁও গ্রামের উক্ত নাম না-জানা সাধক কবিকে এ জেলার সর্বপ্রাচীন কবি হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এছাড়া জাওয়ার গ্রামের নারায়ণ দেব ছিলেন কিশোরগঞ্জ জেলার আরেক প্রাচীন কবি। তাঁর রচিত ‘পদ্মপুরাণ’ কাব্যে দেবতার স্তুতি এবং পৌরাণিক উপাখ্যান ‘চাঁদ বেহুলা’র বর্ণনা পাওয়া যায়। নারায়ণ দেবের সঠিক সময়কাল সম্পর্কে কোনো সুস্পষ্ট ধারণা না পাওয়া গেলেও তার বংশলতিকার সূত্র ধরে তাকে ষোড়শ শতাব্দীর প্রারম্ভ সময়ের কবি হিসেবে অনুমান করা হয়ে থাকে। নারায়ণ দেব বাংলা সাহিত্যের পাশাপাশি সে সময় আসামি সাহিত্যেও শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছিলেন।

ষোড়শ শতকের প্রথমদিকে কিশোরগঞ্জ সদর থানাধীন মাইজখাপন ইউনিয়নের পাতুয়াইর গ্রামে দ্বিজবংশীদাস নামে আরেক প্রাচীন কবির আবির্ভাব ঘটে। এই কবিও ‘পদ্মপুরাণ’ নামক বিখ্যাত গ্রন্থ রচনা করেছিলেন। তাঁর অন্যান্য গ্রন্থ হচ্ছে ‘কৃষ্ণর্ণব’, ‘রামগীতা’ ও ‘চণ্ডী’। এছাড়া তিনি ‘মনসার ভাসান’ গেয়েও বিখ্যাত হয়েছিলেন। কবি দ্বিজবংশিদাসের কন্যা চন্দ্রাবতীও কবি হিসেবে প্রসিদ্ধি লাভ করেন। চন্দ্রাবতী ছিলেন বাংলা সাহিত্যের আদি ও তৃতীয় মহিলা কবি। তাঁর লেখা রামায়ণ কাব্য বাংলা সাহিত্যের এক অসাধারণ সৃষ্টি। ‘দস্যু কেনারাম’ পালাটিও চন্দ্রাবতীর আরেক অনন্য রচনা।

সুদূর মধ্যযুগের অমিয় সাহিত্য-রসকে ধারণ করে এ জেলায় কালে-কালে অজস্র কবি-সাহিত্যিকের সৃষ্টি হয়েছে। তাদের সবার বিবরণ লিপিবদ্ধ করতে গেলে এ বিষয়ক একটি পৃথক গ্রন্থ রচনার প্রয়োজন পড়বে। তাই রচনার পরিধি সঙ্কুচিত করার জন্য সুদূর অতীত থেকে একেবারে হাল সময় পর্যন্ত এ জেলার সাহিত্য বিষয়ক চালচিত্র এখানে অতি সংক্ষেপে বিবৃত করার প্রয়াশ নেয়া হচ্ছে।

বলে রাখা জরুরি যে এ লেখায় কিশোরগঞ্জের সকল কবি-সাহিত্যিকের বিবরণ তুলে ধরা হয়েছে- এ রকম দাবি আমি করবো না। অনেকের নামই তথ্যপ্রাপ্তির অভাবে বাদ পড়ে যাওয়া স্বাভাবিক। সুতরাং এ লেখা অবশ্যই পূর্ণাঙ্গ কোনো রচনা নয়।

কিশোরগঞ্জ সদর থানাধীন গোসাইপুর (যশোদল) গ্রামে মাধবাচার্য নামে একজন ভক্তকবি ছিলেন। তাকে চৈতন্যদেবের সমসাময়িক হিসেবে বিবেচনা করা হয় এবং তিনি গুপ্ত বৃন্দাবনেরও সংস্কারক ছিলেন। তার রচিত ‘চণ্ডিমণ্ডল’, ‘গঙ্গামঙ্গল’ ও ‘শ্রীকৃষ্ণবিজয়’ বাংলাসাহিত্যে একটি বিশেষ স্থান দখল করে আছে।

কটিয়াদী থানার বেতাল গ্রামে মতান্তরে ভিটাদিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেছিলেন চৈতন্যভক্ত বৈষ্ণবকবি নিত্যানন্দ দাস। তার রচিত ‘প্রেমবিলাস’ একটি বিখ্যাত রচনা। তার সময়কাল ষোড়শ শতক বলে অনুমান করা হয়। একই থানার বনগ্রাম নিবাসী রামেশ্বর নন্দীর গ্রন্থ ‘অষ্টাদশপর্ব মহাভারত’ একটি উল্লেখযোগ্য সাহিত্যকীর্তি।

রামেশ্বর নন্দীর সমসাময়িক আরেকজন কবির নাম সঞ্জয়। তার জন্মবৃত্তান্ত বা জন্মস্থান সম্পর্কে তথ্য জানা যায়নি। তিনি সম্পূর্ণ ‘মহাভারত’ কাব্য রচনা করেছিলেন। বাজিতপুর থানার শাহপুর গ্রামের কবি অনন্ত রাম দত্ত ‘ক্রিয়াযোগসার’, ‘লবকুশের যুদ্ধ’, ‘নৈশধ’ ইত্যাদি গ্রন্থ লিখে আজও বিখ্যাত হয়ে আছেন।

পাকুন্দিয়া গ্রামের এগারসিন্দুর এলাকার সে সময়কার বিশিষ্ট লেখক ও কবি কৃষ্ণদাস ‘বিষ্ণুভক্তি রত্নাকর’ গ্রন্থের একজন সফল অনুবাদক হিসেবে আজও এ জেলার সাহিত্যসমাজে স্মরণীয়-বরণীয়। নিকলী থানার ধারীশ্বর গ্রামের বিশিষ্ট কবি গঙ্গানারায়ণ ‘ভাস্কর পরাভব’, ‘শুকসংবাদ’, ‘লবকুশের চরিত্র’ ইত্যাদি গ্রন্থ প্রণয়ন করেছিলেন। গঙ্গানারায়ণ শুধু কবিই ছিলেন না; তিনি বাংলা ভাষার প্রথম ইতিহাসপ্রণেতা হিসেবেও বিখ্যাত ছিলেন।

ধারীশ্বর গ্রামের আরেক বিখ্যাত সাধকের নাম জগন্নাথ দাস। তিনি ‘দুর্গা পুরাণ’, ‘নগম’, ‘হারমালা’ ইত্যাদি গ্রন্থের সফল রচয়িতা। কটিয়াদী থানার আরও দু’জন প্রাচীন লেখকের মধ্যে মুমুরদিয়া গ্রামের মুক্তারাম নাগ এবং বৈদ্যরঘুনাথ ছিলেন সমসাময়িককালের দু’জন বিশিষ্ট কবি ও সাহিত্যিক। মুক্তারাম নাগ প্রণীত ‘দুর্গাপুরাণ’, কালিপুরাণ’, ‘পদ্মপুরাণ’, ‘উমার বিবাহ’ এবং বৈদ্য রঘুনাথ প্রণীত ‘স্বরুপচরিত্র’ আজও বাংলাসাহিত্যে বিশেষ স্থান দখল করে আছে।

তাড়াইল থানার দামিহা গ্রামে আরও একজন প্রাচীন কবির সন্ধান পাওয়া যায়, যার নাম মুকুন্দরাম চক্রবর্তী। তার রচিত ‘চণ্ডিমণ্ডল’ মধ্যযুগের বাংলাসাহিত্যের একটি উল্লেখযোগ্য রচনা।

করিমগঞ্জ থানার জঙ্গলবাড়ি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন পূর্ণচন্দ্র রায়। তার প্রকাশিত কাব্যের নাম ‘উচ্ছ্বাস’; প্রকাশ পায় ১৩৩৪ বঙ্গাব্দে। উনবিংশ শতাব্দীর প্রথমদিকে পাকুন্দিয়া থানার দগদগা গ্রামে কবিয়াল কানাই ও কবিয়াল বলাই জন্মগ্রহণ করেছিলেন। এছাড়া সদর উপজেলার আউটপাড়া গ্রামে জন্ম নেন কবিয়াল রামু মালি। আরও দু’জন কবিয়ালের নাম জানা যায়। তারা হলেন রামকানাই ও রামগতি। সমসাময়িককালে তারা কবিগান রচনা ও পরিবেশনায় প্রসিদ্ধি লাভ করেছিলেন।

পাকুন্দিয়া থানার মির্জাপুর গ্রামে জন্ম নেন কবি বিপিন বিহারী বিশ্বাস। কটিয়াদী থানার মসূয়া গ্রামে জন্ম নেন কবি, নাট্যকার ও প্রাবন্ধিক পূর্ণচন্দ্র ভট্টাচার্য। তার প্রকাশিত গ্রন্থের মধ্যে ‘সীতা’, ‘সাবিত্রি’, ‘শ্রীবৎস ও চিন্তা’ এবং ‘হরিশ্চন্দ্র ও শৈব্য’ ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার পাটধা কুঁড়েরপাড় গ্রামে জন্মেছিলেন চারণকবি মিয়া হোসেন বয়াতি। করিমগঞ্জের কাদিরজঙ্গল এলাকায় আরও একজন সাধক কবি জন্ম গ্রহণ করেছিলেন বলে জানা যায়। তার নাম ফকির চান্দ। তিনি একজন মরমী কবি ছিলেন।

মামুজ্জান ফকির নিকলী থানার একজন্য আধ্যাত্মবাদী লোককবি ছিলেন। তিনি প্রচুর লোকসঙ্গীত ও আধ্যাত্মিক চেতনানির্ভর সঙ্গীত রচনা করেছেন। তার সময়কাল অষ্টাদশ শতক বলে কেউ কেউ ধারণা করে থাকেন। তবে তার রচিত গানের কথা ও শব্দের প্রয়োগ দেখে অনুমিত হয় যে, তিনি উনবিংশ শতকের শেষদিকে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

কিশোরগঞ্জ জেলায় লোকসঙ্গীত ও বাউলসঙ্গীত রচনা ও পরিবেশনায় বেশকিছু লোককবি তৎসময়ে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছেন। তাদের মধ্যে সৈয়দ আব্দুল্লাহ, কুমুদ দাস, কানাই নাথ, বলাই নাথ, তারাচাঁন, মহেশ নাথ, যোগেশ সূত্রধর, সুবল সূত্রধর, রামকানাই, মনির উদ্দিন, যোগেশ কর্মকার, কুমুদিনী দাস্যা, ভোলার বাপ, বাছির মিয়া প্রমুখ অন্যতম। এদের প্রায় সকলেই ছিলেন নিরক্ষর ও স্বশিক্ষিত। এই সকল লোককবি কিশোরগঞ্জ জেলার অধিবাসী হলেও তাদের সুনির্দিষ্ট ঠিকানা ও সময়কাল জানা যায়নি।

পরবর্তী সময়ে স্বাধীনতার পূর্বে এবং স্বাধীনতার অব্যবহিত পরে আরও যে সকল লোককবি ও বাউলশিল্পী সঙ্গীত রচনা এবং পরিবেশনায় সুখ্যাতি অর্জন করেন তাদের মধ্যে অন্যতম কয়েকজন হচ্ছেন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ইসমাইল মোল্লা, জালালউদ্দিন, নূরুল ইসলাম, করিমগঞ্জ উপজেলার ফজলুর রহমান, শামছুদ্দিন, আলম শাহ, ফকির চান্দ, আব্দুল মোতালিব, শহীদ মিয়া, মহিউদ্দিন আহমদ মনাই মিয়া, ব্রজেন্দ্র মাস্টার, সানাই মিয়া, আব্দুর রহিম (খেলু পাগলা), তাড়াইল থানার আব্দুল জলিল, নূর মিয়া, আব্দুল মান্নান, তাহের উদ্দিন খান, ইয়াকুব আলী, মকবুল হোসেন, ভৈরব থানার মারফত আলী, কুলিয়ারচর থানার মোক্তার উদ্দিন, কটিয়াদী থানার সিরাজ মিয়া, পাকুন্দিয়া থানার ছানা মিয়া, হোসেনপুর থানার ইউসুফ আলী, ফাইজুল ইসলাম, নিকলী থানার জাকির শাহ ফকির, ইটনা থানার ধীরু ওস্তাদ প্রমুখ।

বিশিষ্ট লোকশিল্পী অখিল ঠাকুর ও অমর চন্দ্র শীল লোকগানের বিশিষ্ট দু’জন গীতিকার। তারা নিজেরা গান লিখে, সুর করে নিজেরাই গেয়ে শোনাতেন। পরেশ ভট্টাচার্য ও মো. আব্দুর রশীদ প্রচুর আধুনিক গানের কৃতী গীতিকার। এছাড়া নারায়ণ সরকার ও মৃণাল দত্ত একসময় গণসঙ্গীত রচয়িতা হিসেবে সুখ্যাতি অর্জন করেছিলেন। মৃণাল দত্ত তার ভরাট কণ্ঠে নিজের লেখা গান নিজের কণ্ঠে অনেক অনুষ্ঠানে গেয়ে শুনিয়েছেন।

হামদ ও নাথ জাতীয় গানের বাণী লিখে গেছেন ডা. আব্দুল বারী মাস্টার। আইয়ুব বিন হায়দারও প্রচুর আধ্যাত্মিক গান লিখেছেন। এছাড়া আব্দুস ছাত্তার মাস্টারও অনেক গান লিখেছেন। ভৈরব থানার সোহরাব হোসেন বিজুও আধুনিক গান লিখে থাকেন। করিমগঞ্জ থানার গোলাম রব্বানী পানু ও সঙ্গীতশিল্পী আবুল হাশেম বেশ কিছু গান রচনা করে গীতিকার হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার নূরুল আউয়াল তারা মিয়া বিষয়ভিত্তিক উদ্বুদ্ধমূলক গান লিখে ও নিজে গেয়ে জনপ্রিয় হয়েছেন। ভৈরব উপজেলার শহীদুজ্জামান স্বপন একজন বিশিষ্ট গীতিকার। তিনি সঙ্গীত বিষয়ক একটি স্বরলিপি গ্রন্থও প্রকাশ করেছেন। ডাক্তার দীন মোহাম্মদ, মোঃ সাইফুল ইসলাম, সিরাজুল মানিক ও বিনয় সরকারও ইদানিং সঙ্গীত রচনায় মনোনিবেশ করেছেন।

হোসেনপুর থানার গলাচিপা গ্রামের বিখ্যাত পুঁথি সাহিত্যিক আব্দুর রহিম মুন্সির ‘গাজী কালু ও চম্পাবতী কন্যার পুঁথি’ ‘আমির হামজা’, ‘শেখ ফরিদ’ ‘সোনাভান’ ‘বিধবার বিবাহবৃত্তান্ত’ ইত্যাদি পুঁথি সমসাময়িককালে খুবই প্রশংসিত হয়েছিল। আব্দুর রহিম মুন্সির ছেলে আব্দুল করিম মুন্সিও পুঁথি সাহিত্যে যথেষ্ট সুখ্যাতি লাভ করেছিলেন। তিনি বিভিন্ন বিষয়ে ৯টি পুঁথি রচনা করেছিলেন বলে জানা যায়।

করিমগঞ্জ থানার দেহুন্দা গ্রামের বিশিষ্ট পুঁথিকার মুন্সি আজিমউদ্দিনও সমসাময়িককালে পুঁথিসাহিত্যে যথেষ্ট সুখ্যাতি অর্জন করেছিলেন। তার রচিত ‘আসরাবেস সালাত’ ও ‘রেসালা-ই-আজিমুদ্দিন হেনাফি’ উল্লেখযোগ্য দু’টি পুঁথি। এছাড়াও এ জেলায় আরও কয়েকজন সফল পুঁথিকারের সন্ধান পাওয়া যায়। তাদের মধ্যে হোসেনপুর থানার হাঁপানিয়া গ্রামের মুন্সি মুমিনউদ্দিন, পাকুন্দিয়া থানার বেলদী গ্রামের মুন্সি হাফেজউল্লাহ, করিমগঞ্জ থানার গুজাদিয়া গ্রামের মোহাম্মদ মুন্সি, কিশোরগঞ্জ সদর থানার ভট্টাচার্যপাড়ার কালীহর বিদ্যালংকার প্রমুখ অন্যতম।

কিশোরগঞ্জ সদর থানার বৌলাই গ্রামের তৎসময়ের প্রখ্যাত উর্দু কবির নাম মাহবুবুর রব (খালেদ বাঙালি)। তিনি ‘আখতার’ নামক একটি উর্দু পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন। এ জেলার অন্যান্য কবি-সাহিত্যিকদের মধ্যে শেফালী নন্দী, সুখলতা রাও, কুলদারঞ্জন রায়, সুখরঞ্জন রায় প্রমুখ অন্যতম।

বাজিতপুর শহরের আলিয়াবাদে জন্মেছিলেন শ্রী দেবেশ চন্দ্র। তিনি একজন আইসিএস ছিলেন। তার প্রকাশিত ভ্রমণকাহিনী ‘রাজোয়ারা’। কটিয়াদী থানার বকজোড়কান্দি গ্রামে ১৯০৯ সালের ১৭ জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন বিশিষ্ট লেখক আশুতোষ ভট্টাচার্য। তাঁর রচিত অনেক বইয়ের মধ্যে কাব্যগ্রন্থ ‘মধুমালা’ (১৩৬৬ বঙ্গাব্দ) উল্লেখযোগ্য।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার সগরা গ্রামে ১৯১২ সালের ২৭ জানুয়ারি জন্ম নেন বিশিষ্ট কমিউনিস্ট নেতা ও লেখক নিবারণ পণ্ডিত। সমসায়িককালে তার রচিত লেখা যথেষ্ট উদ্দীপনার সৃষ্টি করেছিল। সদর উপজেলার মহিনন্দ গ্রামে ১৯১১ সালের ১ জানুয়ারি জন্ম নেন বিশিষ্ট লেখক ও ইতিহাসবিদ নিশীথরঞ্জন রায়।

এছাড়া ইটনা থানার সহিলা গ্রামের অমল হোম, বাজিতপুরের বালিগাঁও গ্রামের অবিনাশ রায়, সদর থানার যশোদল গ্রামের অনুকূল রায়, হোসেনপুর থানার বীর পাইক্সা গ্রামের মৌলভী আজিমউদ্দিন, কুলিয়ারচর থানার তাতারকান্দি গ্রামের আবু হামেদ মুহাম্মদ আলী আনওয়ার, কটিয়াদী থানার বনগ্রাম নিবাসী প্রমথ রায়, করিমগঞ্জ থানার জঙ্গলবাড়ি গ্রামের পালাকার ফজলুল হক প্রমুখ সমসাময়িককালে কৃতী লেখক হিসেবে পরিচিত ছিলেন।

অষ্টাদশ শতকের আরও একজন আরবী ও উর্দু লেখকের নাম জানা যায়। তিনি হচ্ছেন শেখ মুহাম্মদ নজীর। তাঁর উর্দুতে রচিত বইয়ের নাম ‘মসনবী-এ-বিদ্যাসুন্দর’। মৌলানা আমিনুল হক নাসিরাবাদী, মৌলভী সৈয়দ নাজিমুদ্দিন হোসাইন নাদের, প্রমথনাথ রায় প্রমুখও কৃতী সাহিত্যিক হিসেবে সমাদৃত ছিলেন।

কটিয়াদী থানার গচিহাটা গ্রামের সুসাহিত্যিক কেদারনাথ মজুমদার (জন্ম ২৬ জ্যৈষ্ঠ ১২৭৭) ‘ময়মনসিংহের ইতিহাস’, ‘ময়মনসিংহের বিবরণ’ ছাড়াও আরও কিছু গবেষণাধর্মী বই প্রকাশ করেন। ভৈরব থানার কবি ফজলুল হক ওরফে কামধর মিয়া রচিত ‘গ্রীস বিজয়’ কাব্যগ্রন্থটি ১৯২২ সালে প্রকাশিত হয়।

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইতিহাস বিষয়ে অধ্যাপনা করে এবং ভারত সরকার কর্তৃক জাতীয় অধ্যাপক ঘোষিত হয়ে খ্যাতিমান হন এ জেলার ইটনা থানাধীন সহিলা গ্রামের প্রখ্যাত জ্ঞানতাপস ও ইতিহাসবেত্তা ডক্টর নীহাররঞ্জন রায় (জন্ম আনুমানিক ১৪ জানুয়ারি ১৯০৩)। তার কিছু গবেষণাধর্মী বই প্রকাশ পায়। তন্মধ্যে ‘বাঙ্গালীর ইতিহাস, আদিপর্ব’ বিশেষভাবে প্রণিধানযোগ্য।

হোসেনপুর থানার গাঙ্গাটিয়ার প্রখ্যাত জমিদার গিরীশচন্দ্র চক্রবর্তী (যিনি ‘গিরিশ মহারাজ’ নামে খ্যাত ছিলেন) বেশকিছু উপন্যাস, নাটক ও প্রবন্ধ রচনা করেছিলেন। কটিয়াদী থানার চান্দপুর গ্রামের অন্ধ ও নিরক্ষর কবি মুজিবুর রহমান তালুকদার। তার প্রকাশিত বই ‘খোদার দান’ (১ম ও ২য় খণ্ড)।

কুলিয়ারচর থানার কাপাসাটিয়ার কৃতী সন্তান মহারাজা ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী (জন্ম ১৮৮৯)। তিনি ছিলেন ব্রিটিশবিরোধী এক বিপ্লবী পুরুষ। ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে যুক্ত থাকার দায়ে তাকে সুদীর্ঘ ৩০ বছর কারাবাসে থাকতে হয়েছে। তার বিখ্যাত গ্রন্থ ‘জেলে ৩০ বছর ও পাকভারতের স্বাধীনতা সংগ্রাম’ (১৩৭৫ বঙ্গাব্দ)। বইটি ব্রিটিশ সরকার বাজেয়াপ্ত করেছিল। (চলবে)

(জাহাঙ্গীর আলম জাহান, ছড়াকার, প্রাবন্ধিক, ইতিহাস-মুক্তিযুদ্ধ ও লোকসংস্কৃতির গবেষক, প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৪১টি।)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর