কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শিক্ষা সফরে ইন্দোনেশিয়া যাচ্ছেন কিশোরগঞ্জের সন্তান ইউআরসি ইন্সট্রাক্টর এএইচএম শরীফুল্লাহ


 স্টাফ রিপোর্টার | ১ জুলাই ২০১৯, সোমবার, ২:০৩ | শিক্ষা  


শিক্ষা সফরে ইন্দোনেশিয়া যাচ্ছেন কিশোরগঞ্জের সন্তান নেত্রকোনা জেলার বারহাট্টা উপজেলা রিসোর্স সেন্টারের ইন্সট্রাক্টর এ এইচ এম শরীফুল্লাহ। প্রাথমিক শিক্ষা ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখায় এবং শ্রেষ্ঠ ইউআরসি ইন্সট্রাক্টর ক্যাটাগরিতে প্রতিযোগিতা করে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা পদক-২০১৮ অর্জন করায় তাঁকে ইন্দোনেশিয়ায় এ শিক্ষা সফরের জন্য মনোনীত করা হয়।

গত ১১ জুন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ৭৬০ নং স্মারকের মাধ্যমে এ সরকারি আদেশ (জিও) জারি করা হয়।

এ এইচ এম শরীফুল্লাহ আশা করছেন, জুলাই মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে এ শিক্ষা সফরের জন্য রওনা হবেন এবং এক সপ্তাহ সেখানে অবস্থান করবেন। তাঁর শিক্ষা সফরের বিষয়বস্তু হলো ‘মর্ডান স্কুল ম্যানেজম্যান্ট প্র্যাকটিস’।

তিনি তাঁর পেশাকে ব্রত হিসেবে গ্রহণ করেছেন। প্রাথমিক শিক্ষাকে একটি কাক্সিক্ষত মানে পৌঁছাতে তিনি সদা সচেষ্ট। পেশাগত জীবনে তিনি তাঁর দায়িত্ব অত্যন্ত সুচারুভাবে পালন করে থাকেন। তিনি তাঁর রুটিন দায়িত্বের বাইরেও কীভাবে মানসম্মত ও একীভূত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করা যায়, সে জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

বর্তমানে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক ও অন্যান্য পত্রপত্রিকায় তাঁর গবেষণাধর্মী লেখা নিয়মিতভাবে প্রকাশিত হচ্ছে। প্রবন্ধের মতো গুরুগম্ভীর রচনার মাধ্যমে প্রাথমিক স্তরে মানসম্মত ও একীভূত শিক্ষা নিশ্চিতকরণে নীরবে কাজ করে যাচ্ছেন এই শিক্ষা-গবেষক।

বিভিন্ন কর্মসহায়ক গবেষণায় প্রাপ্ত তথ্য ও চিন্তার বৈচিত্র্যে বিভিন্ন প্রবন্ধ নিয়ে রচিত তাঁর শিক্ষাবিষয়ক তিনটি গ্রন্থ ইতোমধ্যে প্রকাশিত হয়েছে। গ্রন্থগুলো হলো- শিক্ষা-ভাবনা ও অন্যান্য প্রসঙ্গ (২০১৭), শিক্ষা শিক্ষকতা নৈতিকতা (২০১৮) ও শিশুশিক্ষার সাতকাহন (২০১৯)। গ্রন্থগুলো বাংলাদেশের প্রাথমিক শিক্ষাব্যবস্থার গুণগত মান নিশ্চিতকরণে সন্দেহাতীতভাবে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে।

তিনি মানসম্মত ও একীভূত শিক্ষা বাস্তবায়নে নিরবে কাজ করে যাচ্ছেন। অটিস্টিক ও বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশু এবং তাদের শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে তিনি নানাবিধ গবেষণামূলক কাজ করে যাচ্ছেন। এ বিষয়ে আরও ব্যাপক কাজ করার আগ্রহ আছে তাঁর।

তিনি দেশের শীর্ষস্থানীয় জাতীয় দৈনিক ‘সংবাদ’সহ  বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় নিয়মিক শিক্ষাবিষয়ক কলাম লিখে যাচ্ছেন। তিনি একজন দক্ষ প্রশিক্ষকও বটে; বিভিন্ন প্রশিক্ষণে অত্যন্ত সুনামের সাথে প্রশিক্ষকের দায়িত্ব পালন করে থাকেন।

এছাড়াও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের প্রশিক্ষণলব্ধ জ্ঞান ও দক্ষতা শ্রেণিকক্ষে প্রয়োগ, শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ-চাহিদা নিরূপণ, বিদ্যালয়সমূহে শতভাগ মিড-ডে মিল চালু, শিশুদের পঠন ও লিখন দক্ষতা বৃদ্ধিকরণ, শতভাগ স্কুলড্রেস নিশ্চিতকরণ, ডিজিটাল কন্টেন্ট তৈরি ও শ্রেণিকক্ষে এর ব্যবহার নিশ্চিতকরণ, স্থানীয় সহজলভ্য ও ফেলে দেয়া জিনিস দিয়ে শিক্ষা উপকরণ তৈরি, ব্যবহার ও ব্যবহারের পর তা সংরক্ষণ-কৌশল, প্রতিদিন শিশুদের একটি করে বাংলা ও ইংরেজি শব্দ শেখানো ইত্যাদি বিষয়ে শিক্ষকদের সার্বিকভাবে সহায়তা প্রদান করে থাকেন। তিনি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের পেশার প্রতি ইতিবাচক মনোভাব তৈরিতেও সদা সচেষ্ট।

প্রাথমিক শিক্ষাকে একটি শক্তিশালী ভিত্তির ওপর প্রতিষ্ঠিত করতে তিনি দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। তিনি স্বপ্ন দেখেন প্রতিটি প্রাথমিক বিদ্যালয় হবে শিশুদের কাছে স্বপ্নের ঠিকানা: প্রতিটি শিশু ঘুম থেকে উঠে বিদ্যালয়ে যাওয়ার জন্য অস্থির হয়ে যাবে, স্কুল হবে শিশুর কছে ভয়মুক্ত ও আনন্দময়, সকল শিশু নির্ধারিত যোগ্যতাগুলো অর্জন করে সফলভাবে প্রাথমিক শিক্ষা শেষ করবে, সকল শিক্ষক পূর্ব-প্রস্তুতি নিয়ে পাঠপরিকল্পনা ও শিক্ষা উপকরণসহ শ্রেণিকার্যক্রম পরিচালনা করবেন, বাংলাদেশের বহুধাবিভক্ত প্রাথমিক শিক্ষা একদিন এক ধারায় পরিচালিত হবে। তাঁর দৃঢ় বিশ^াস অল্প সময়ের মধ্যেই আমরা সকল শিশুর জন্য মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করতে পারবো।

এ এইচ এম শরীফুল্লাহর স্থায়ী বাসস্থান কিশোরগঞ্জ জেলার সদর উপজেলায়। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি বিবাহিত। স্ত্রী ফেরদৌস আরা বেগম, পুত্র তাসনীম ফেরদৌস শান্ত (সিলেট ক্যাডেট কলেজে অধ্যয়নরত, অষ্টম শ্রেণি) ও কন্যা তৈয়বা শরীফুল্লাহ তোরসা (চতুর্থ শ্রেণি)। কর্মসূত্রে তিনি ইতোপূর্বে ফিলিপাইন ভ্রমণ করেছেন। তাঁর আগ্রহের বিষয় চিত্রকলা ও সংগীত। তিনি বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথেও সম্পৃক্ত আছেন।

দ্বীপরাষ্ট্র ইন্দোনেশিয়ায় শিক্ষা সফরের জন্য মনোনীত করায় তিনি সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞ। তিনি এই শিক্ষা সফর সফলভাবে সমাপনের জন্য এবং সুস্থভাবে দেশে ফিরে আসার জন্য সকলের দোয়া কামনা করছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর