কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জের সাংস্কৃতিক সংগঠন


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ৩০ জুন ২০১৯, রবিবার, ৯:০৬ | সংস্কৃতি 


মূলত বিংশ শতকের ষাটের দশক থেকে কিশোরগঞ্জের নাট্যশিল্পীরা সাংগঠনিক কাঠামোর আওতায় নাট্য আন্দোলনে যুক্ত হতে শুরু করেন। তখন থেকেই এখানে জোরালোভাবে নাট্য সংগঠন সৃষ্টির প্রবণতা বৃদ্ধি পায়। সে সময় কিশোরগঞ্জ শহরে স্থানীয় সংস্কৃতিবানদের উদ্যোগে গঠিত হয় কল্লোল সমিতি। বিভিন্ন সাংস্কৃতিক ও সামাজিক কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি এ সংগঠন নাটকও মঞ্চায়ন করতো।

স্বাধীনতার পর এ জেলায় (তৎকালীন মহকুমায়) আরও কিছু নাট্য সংগঠন প্রতিষ্ঠিত হয়। এসব সংগঠনের অনেকগুলোই পরে আর টিকে থাকেনি। এ রকম কিছু সংঠন হচ্ছে- বৃহস্পতি নাট্য গোষ্ঠী (কিশোরগঞ্জ), নিকলী থিয়েটার (নিকলী), নাট্য সংঘ (আচমিতা, কটিয়াদী), একতা নাট্য সংস্থা (রশিদাবাদ, কিশোরগঞ্জ), তিমিরদিশারী নাট্য গোষ্ঠী (কুর্শা, নিকলী), সৌখিন শিল্পাঙ্গন (কিশোরগঞ্জ), আমরা ক’জনা নাট্য গোষ্ঠী (কিশোরগঞ্জ), পল্লী থিয়েটার (কিশোরগঞ্জ), কিশোরগঞ্জ নাট্য পরিষদ,  শতদল নাট্য গোষ্ঠী (কটিয়াদী), বালার্ক নাট্য গোষ্ঠী (কটিয়াদী), সমকাল নাট্য গোষ্ঠী (ভৈরব),  টিএন্ডটি নাট্য পরিষদ (কিশোরগঞ্জ), কমিউনিটি থিয়েটার (কিশোরগঞ্জ),  নিকলী নাট্য মঞ্চ (নিকলী), কিশোরগঞ্জ নাট্য সাংস্কৃতিক সংস্থা (কিনাসাস), হিংকু নাট্য গোষ্ঠী (হয়বতনগর, কিশোরগঞ্জ), সুদীপ্ত থিয়েটার (কিশোরগঞ্জ) ইত্যাদি।

কিশোরগঞ্জের সবচেয়ে পুরনো নাট্য সংগঠন হিসেবে একতা নাট্য গোষ্ঠীর কার্যক্রম সর্বাধিক সচল হিসেবে গণ্য। ১৯৮৬ সালে মানস করের নেতৃত্বে মূলত একটি শিশু-কিশোর সংগঠন হিসেবে এই নাট্য গোষ্ঠীর যাত্রা শুরু হয়। প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখন পর্যন্ত সংগঠনের নিরবচ্ছিন্ন কর্মকাণ্ড চোখে পড়ার মতো।

অন্য যে সকল নাট্য সংগঠন বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে এখন পর্যন্ত সক্রিয় আছে সেগুলোর মধ্যে অন্যতম কয়েকটি হচ্ছে- স্বরবর্ণ নাট্য মঞ্চ (স্বনাম), শিকড় নাট্য সম্প্রদায়, প্রতিধ্বনি থিয়েটার, চন্দ্রাবতী থিয়েটার, চর্যাপদ থিয়েটার, মানবাধিকার নাট্য পরিষদ (জেলা শাখা), কাটাবাড়িয়া নাট্য পরিষদ, কিশোরগঞ্জ নাট্য পরিষদ (কিনাম), বাংলাদেশ যাত্রা উন্নয়ন পরিষদ (জেলা শাখা), নবারুণ নাট্য গোষ্ঠী (তাড়াইল), বঙ্গবন্ধু নাট্য গোষ্ঠী (করিমগঞ্জ) এবং কয়েকটি নাট্য সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত কিশোরগঞ্জ থিয়েটার ফোরাম ইত্যাদি।

সাংস্কৃতিক সংগঠন:
সংস্কৃতিচর্চায় কিশোরগঞ্জ যে ঐতিহ্যের সৃষ্টি করেছে তার বড় নিদর্শন হলো যুগে যুগে এখানে গড়ে ওঠা বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের সংখ্যাধিক্য। সংস্কৃতি-পাগল একঝাঁক তরুণ দু’চারজনকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিষ্ঠা করেছে বিভিন্ন নামের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন।

এক বছর কিংবা দু’বছর পর এ ধরনের অনেক সংগঠন এক সময় বিলুপ্ত হয়ে যায়। তবে কিছু কিছু সংগঠন প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখন পর্যন্ত তাদের কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। এ ধরনের সংগঠনগুলোর মধ্যে ঝংকার শিল্পী গোষ্ঠী, ফাল্গুনী শিল্পী গোষ্ঠী, উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী, হাক্কানী শিল্পী গোষ্ঠী, আউল বাউল শিল্পী গোষ্ঠী, দ্বাদশ শিল্পী গোষ্ঠী (করিমগঞ্জ), লোকজ সাংস্কৃতিক সংস্থা, সপ্তক সঙ্গীত একাডেমি, বাংলাদেশ নৃত্যশিল্প সংস্থা (জেলা শাখা), নজরুল সঙ্গীত একাডেমি (পাকুন্দিয়া), পাকুন্দিয়া সাংস্কৃতিক পরিষদ, ওস্তাদ ইসরাইল খান সঙ্গীত নিকেতন (ভৈরব), শাপলা শালুক সাংস্কৃতিক সংসদ (সাদুল্লারচর), প্রভাতী সংসদ (মুকসেদপুর), প্রগতি সংসদ (শ্মশানী, কাটাবাড়িয়া), সারগাম ললিতকলা কেন্দ্র, রিদম শিল্পী গোষ্ঠী, শতাব্দী সঙ্গীত সমারোহ, ইথার ব্যান্ড, শিস সঙ্গীত একাডেমি (কটিয়াদী), সুরবিতান (ভৈরব), ভৈরব শিল্পকলা পরিষদ, কিশোরগঞ্জ সংস্কৃতি কেন্দ্র, একতা নাট্য সংস্থা (রশিদাবাদ),  মেলোডি কালচারাল এসোসিয়েশন (করিমগঞ্জ), ইয়ংম্যানস প্রগ্রেসিভ এসোসিয়েশন (ভৈরব),  কিশোরগঞ্জ শিল্পী সমিতি, স্বরবর্ণ সাংস্কৃতিক মঞ্চ, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক পরিষদ, আবুল হাশেম সাংস্কৃতিক সংগঠন, সপ্তসুর শিল্পী গোষ্ঠী, সুররং একাডেমি, শিল্পীকল্যাণ সমিতি, সপ্তসুর শিল্পী গোষ্ঠী, সুরাঙ্গন সাংস্কৃতিক সংঘ, জলছবি সাংস্কৃতিক সংঘ, বাঙালি ঐতিহ্য মঞ্চ, রংলিপি সাংস্কৃতিক পরিবার, বিশ্বাস সঙ্গীত একাডেমি, সুদীপ সঙ্গীত বিদ্যাবীথি, সপ্তক কালচারাল একাডেমি,  পল্লী সাংস্কৃতিক পরিষদ, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক ফোরাম, ইথার ব্যান্ড, স্কাইলার্ক ব্যান্ড, বিবর্ণ ব্যান্ড, ওয়ার্ডস্ ব্যান্ড ইত্যাদি অন্যতম। এছাড়া ঢাকাস্থ বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরাম-এর জেলা কমিটিও এখানে কার্যকর আছে।

কিশোরগঞ্জে আরও কিছু সাংস্কৃতিক ও নাট্য সংগঠন দীর্ঘদিন যাবত তাদের কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছে। এ সকল সংগঠনের মধ্যে বিজন দাশের নেতৃত্বে  কিশোরগঞ্জ সাংস্কৃতিক পরিষদ (কিসাপ), এটিএম মোস্তফার নেতৃত্বে কিশোরগঞ্জ সাংস্কৃতিক সংস্থা (কিসাস), সৈয়দ নূরুল আউয়াল তারা মিঞার নেতৃত্বে উজিয়াল শিল্পী গোষ্ঠী, মানস করের নেতৃত্বে একতা নাট্য গোষ্ঠী, মাসুদুর রহমান, জাহাঙ্গীর আলম জাহান ও মৃণাল দত্তের নেতৃত্বে প্রতিষ্ঠিত স্বরবর্ণ নাট্য মঞ্চ (স্বনাম) অন্যতম। স্বরবর্ণ নাট্য মঞ্চ ১৯৯৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর এ পর্যন্ত ২১টি নাটকের প্রায় অর্ধশত প্রদর্শনী করেছে।

ওপরে বর্ণিত সংগঠনগুলোর মধ্যে বর্তমানে যেগুলোর কোনো অস্তিত্ব নেই এবং হাজারো প্রতিকূলতা সত্ত্বেও যেগুলো এখনও অস্তিত্ব টিকিয়ে রেখেছে তাদের সবগুলোই কিশোরগঞ্জের সংস্কৃতিকে বিকশিত করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে এবং রাখছে। তাদের মননশীল সংস্কৃতিচর্চাকে কিছুতেই ছোট করে দেখা চলে না। তারা তাদের সাধ্যানুযায়ী বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড দ্বারা মানুষকে নির্মল আনন্দ দিয়ে মানুষের সুকুমারবৃত্তির উন্মেষ সাধনে সহায়তা করেছেন এবং করে চলেছেন।

কৈফিয়ত:
কিশোরগঞ্জের সংস্কৃতি নিয়ে যে আলোচনা ওপরে বর্ণিত হয়েছে এটি পূর্ণাঙ্গ কোনো আলোচনা নয়। এর বাইরেও আরও অনেক সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও সংগঠন হয়তো অনালোচিতই রয়ে গেছে। ভবিষ্যতে অনুসন্ধিৎসু কোনো গবেষক সে বিষয়গুলো উদ্ঘাটনে এগিয়ে আসবেন বলে আশা করা যায়।

তথ্যের উৎস:
১। অধ্যাপক জিয়াউদ্দীন আহমদ-এর জীবদ্দশায় ২০০৬ সালে লেখকের সাক্ষাৎকার।
২। কিশোরগঞ্জের ইতিহাস, সম্পাদক-মোহাম্মদ সাইদুর ও মোহাম্মদ আলী খান।
৩। লোকায়ত কিশোরগঞ্জ, লেখক-জাহাঙ্গীর আলম জাহান, কিশোরগঞ্জ।
৪। ভৈরব: অতীত ও বর্তমান, লেখক-মোহাম্মদ আলী খান।

পরবর্তী ধারাবাহিক: কালপর্বিক ধারাবাহিকতায় কিশোরগঞ্জের সাহিত্য

(জাহাঙ্গীর আলম জাহান, ছড়াকার, প্রাবন্ধিক, ইতিহাস-মুক্তিযুদ্ধ ও লোকসংস্কৃতির গবেষক, প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৪১টি।)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর