কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৬ দফাঃ বাঙ্গালী জাতির মুক্তির সনদ


 ড. আনিছুর রহমান আনিছ | ৭ জুন ২০১৯, শুক্রবার, ১:৩৩ | মত-দ্বিমত 


আজ ৭ই জুন ২০১৯, আজ হতে ৫৩ বছর আগে ১৯৬৬ সালের এই দিনে সে সময়ের অপেক্ষাকৃত ছোট পরিসরের ঢাকা ছিল অগ্নিগর্ভ। লোকসংখ্যা লাখ দশেক। এ দিনটি বাংলার স্বাধিকার আন্দোলনকে স্পষ্টত নতুন পর্যায়ে উন্নীত করে। আর এ ছয় দফার মধ্য দিয়েই বাঙালির স্বাধিকার আন্দোলন স্বাধীনতা সংগ্রামে রূপ নেয়। ছয় দফা আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় আসে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা, ১১ দফা আন্দোলন, ৬৯’র গণঅভ্যুত্থান, ৭০’র নির্বাচন, একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং সর্বশেষ বিশ্ব মানচিত্রে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের অভ্যুদয় ঘটে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৬৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি তাসখন্দ চুক্তিকে কেন্দ্র করে লাহোরে অনুষ্ঠিত সম্মেলনের সাবজেক্ট কমিটিতে ছয় দফা উত্থাপন করেন এবং পরদিন সম্মেলনের আলোচ্যসূচিতে যাতে এটি স্থান পায় সে বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করেন। কিন্তু ওই সম্মেলনে বঙ্গবন্ধুর এ দাবির প্রতি আয়োজক পক্ষ থেকে গুরুত্ব প্রদান করা হয়নি। শেখ মুজিবুর রহমান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে চার মাস দুই দিন আগে ১৯৬৬ সালের ৫ই ফেব্রুয়ারি পশ্চিম পাকিস্তানের রাজধানী লাহোরে সরকারবিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতাদের সম্মেলনে বাঙালির প্রতি বঞ্চনার প্রতিকারের জন্য স্বায়ত্তশাসনের ছয় দফা কর্মসূচি পেশ করেছিলেন। সেখানে উপস্থিত নেতাদের সমর্থন মেলেনি এ দাবির প্রতি। বরং পাকিস্তান ভাঙার অভিলাষ পোষণের জন্য জুটেছিল ধিক্কার, বাঙ্গালী জাতির জীবনে জুটেছিল বঞ্চনা আর নিষ্পেষণ ।

১৯৬৬ সালের এই দিনে ৭ই জুন পূর্ব বাংলার অবিসংবাদিত নেতা , বাঙ্গালী জাতির স্বাধিকারের স্বপ্নদ্রষ্টা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পূর্ব ঘোষিত ৬ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে সারা পূর্ব পাকিস্তান ব্যাপী সর্বাত্মক হরতাল পালন করা হয় । হরতালে পুলিশ গুলি বর্ষণ করলে স্রমিক নেতা মনু মিয়া সহ আরও ১১ জন নিহত হন এবং বহু নেতাকর্মী আহত হন। মুলত ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান রাস্ট্রের জন্মের পর থেকেই পূর্ব পাকিস্তানের জনগনের প্রতি পশ্চিম পাকিস্তানী শাসক চক্রের নানাবিধ বৈষম্যমুলক আচরন এবং তাদেরকে ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত করার প্রতিবাদে প্রথম থেকেই ফুঁসকে উঠতে শুরু করে আজীবন সংগ্রামী পূর্ব বাংলার জনগন।

এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে বীরত্বপূর্ণ অবদান রাখে বাঙ্গালী জাতি এবং ১৯৫৪ সালের নির্বাচনে বিপুল ভোট দিয়ে যুক্তফ্রন্ট কে নির্বাচিত করে পশ্চিম পাকিস্তানী শাসক চক্রকে দাতভাঙ্গা জবাব দেয়। পরবর্তীতে ১৯৬২ সালের শিক্ষা আন্দোলন এবং ১৯৬৬ সালের ৬ দফা আন্দোলনে অগ্রণী ভুমিকা পালন করে স্বাধীনতার বীজ বপনে আরও এক ধাপ এগিয়ে নিয়ে যায় সমসাময়িক পরিস্থিতিকে।

১৯৬৬ সালের ৪ঠা ফেব্রুয়ারী আওয়ামীলীগ নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিরোধী দল গুলোর সম্মেলনে যোগদানের জন্য লাহোরে পৌঁছেন । ৫ই ফেব্রুয়ারী তিনি ৬ দফা সম্বলিত পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের আশা আখাঙ্খার দাবী গুলো সম্মেলন পূর্ববর্তী সাবজেক্ট কমিটিতে উপস্তাপন করেন এবং বঙ্গবন্ধু তাঁর প্রস্তাবসমুহ সম্মেলনের বিষয়াবলীতে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য চাপ প্রয়ুগ করেন কিন্তু সাবজেক্ট কমিটি পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের আশা আখাঙ্খার প্রতীক ৬ দফা দাবী সম্মেলনে উত্থাপন করতে অস্বীকৃতি জানায় ।

পরের দিন ৫ই মে ১৯৬৬, বঙ্গবন্ধু লাহোরে একটি সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তাঁর ৬ দফা প্রস্তাব পেশ করেন যা পশ্চিম পাকিস্তানের সকল সংবাদপত্র ফলাও করে বিস্তারিত সংবাদ প্রচার করে । পশ্চিম পাকিস্তানের বিরুধী দলের নেতৃবৃন্দও ৬ দফার প্রস্তাবগুলো প্রত্যাখ্যান করেন । পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খান বঙ্গবন্ধুর উপর দেশে বিভাজন সৃষ্টির অভিযোগ এনে পাকিস্তান প্রতিরক্ষা আইনের অধীনে ১৯৬৬ সালের ৮ই মে তাঁকে (বঙ্গবন্ধুকে) গ্রেফতার করে এবং প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খান ঘোষণা করেন, ৬ দফার জবাব বাঙ্গালীকে অস্রের মাধমে দেয়া হবে । পরবর্তীতে জেলের অভ্যন্তরে থাকা অবস্থায় বঙ্গবন্ধুকে সম্পূর্ণ পরিকল্পিত ভাবে ‘আগরতলা ষড়যন্ত্র’ মামলায় জড়ানো হয় । ৬ দফা বাস্তবায়ন, ‘আগরতলা ষড়যন্ত্র’ মামলা প্রত্যাহার এবং বঙ্গবন্ধুসহ মিথ্যা মামলায় আটক সকল নেতৃবৃন্দের মুক্তির দাবিতে গর্জে উঠে সারা দেশ।

৬ দফার দাবি গুলি ছিলঃ
প্রথম দফাঃ ১৯৪০ সালের লাহোর প্রস্তাবের ভিত্তিতে পাকিস্তানকে সত্যিকার অর্থে যুক্তরাষ্ট্র রূপে গঠন করতে হবে। এতে সংসদীয় পদ্বতির সরকার ব্যাবস্তা হবে এবং পূর্ব এবং পশ্চিম পাকিস্তানকে পূর্ণ স্বায়ত্ত শাসন দিতে হবে। আইন সভাই হবে সর্বেসর্বা। এই সরকার আইন সভার নিকট দায়ী থাকবে ।

দ্বিতীয় দফাঃ কেন্দ্রীয় সরকারের এখতিয়ার কেবল দেশ রক্ষা ও পররাষ্ট্র এই দুটি বিষয় থাকবে। অবশিষ্ট সকল বিষয় প্রদেশ সমুহের উপর থাকবে ।

তৃতীয় দফাঃ ১) পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের জন্য দুটি সম্পূর্ণ অথচ সহজে বিনিময়যোগ্য মুদ্রার প্রচলন করতে হবে। তবে মুদ্রা বা কারেন্সি কেন্দ্রের হাতে থাকবেনা। আঞ্ছলিক সরকারের হাতে থাকবে। দুটি অঞ্চলের জন্য দুটি স্বতন্ত্র স্টেট ব্যাংক থাকবে। অথবা,
২) পাকিস্তানের দুটি অঞ্চলের জন্য একই মুদ্রা থাকবে। কিন্তু সংবিধানে এমন এক সুনিদ্রিস্ট বিধান থাকতে হবে যাতে পূর্ব পাকিস্তান হতে মুদ্রা পশ্চিম পাকিস্তানে পাচার হতে না পারে ।পাকিস্তানে একটি ফেডারেল ব্যাঙ্ক থাকবে।

চতুর্থ দফাঃ সকল প্রকার ট্যাক্স, খাজনা, কর ধার্য ও আদায়ের তহবিলে আপনাআপনি জমা হয়ে যাবে। এই মর্মে রিজার্ভ ব্যাংক সমুহের উপর বাধ্যতামূলক বিধান শাসনতন্ত্রেই থাকবে। এভাবে জমাক্রিত অর্থ নিয়ে ফেডারেল সরকারের তহবিল গঠিত হবে।

পঞ্চম দফাঃ ১) দুই অঞ্চলের বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের পৃথক পৃথক হিসাব রাখা হবে।
২) পূর্ব পাকিস্তানের অর্জিত বৈদেশিক মুদ্রা পূর্ব পাকিস্তানের এখতিয়ারে এবং পশ্চিম পাকিস্তানের অর্জিত বৈদেশিক মুদ্রা পশ্চিম পাকিস্তানের এখতিয়ারে থাকবে।
৩) ফেডারেশনের জন্য প্রয়োজনীয় বৈদেশিক মুদ্রা দুই অঞ্চল হতে সমান ভাগে অথবা শাসনতন্ত্রের নির্ধারিত হারে আদায় হবে।
৪) দেশজ দ্রব্যাদী বিনা শুল্কে দুই অঞ্চলের মধ্যে আমদানী- রফতানি করা চলবে ।
৫) ব্যবসা বানিজ্য সম্পর্কে বিদেশের সঙ্গে চুক্তি সম্পাদন, বিদেশের ট্রেড মিশন স্থাপন এবং আমদানী- রফতানি করবার অধিকার আঞ্চলিক সরকারের হাতে ন্যাস্ত থাকবে।

ষষ্ঠ দফাঃ আঞ্চলিক নিরাপত্তা ও সংহতি রক্ষায় অঙ্গরাজ্যগুলোকে আধাসামরিক বাহিনি বা আঞ্চলিক সেনাবাহিনী গঠনের ক্ষমতা দিতে হবে। অঙ্গরাজ্যগুলোতে পর্যাপ্ত সামরিক প্রতিস্টান রাখতে হবে।

আওয়ামীলীগের ১৯৬৬ সালের ৬ দফা দাবিই ছিল এই অঞ্চলের (পূর্ব বাংলার ) স্বাধিকার আদায় ও স্বায়ত্বশাসনের দাবী। আইয়ুব খানের শাসনামলে পাকিস্তানে সামাজিক, অর্থনৈতিক , সামরিক ও রাজনৈতিক ক্ষেত্রে যে বিভেদ, পার্থক্য ও ক্রমবর্ধমান হারে যে অন্যায় অবিচার চলছিল ছয় দফা ছিল এর এক বলিষ্ঠ প্রতিবাদ। ছয় দফার ভিত্তিতে বাঙ্গালীর স্বায়ত্তশাসনের দাবি ক্রমান্বয়ে স্বাধিকারের দাবিতে রূপান্তরিত হতে থাকে।

এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৬৯ সালে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের ১১ দফার ( ৬ দফার অন্তর্ভুক্তিকরনের মাধ্যমে) ভিত্তিতে সারা পূর্ব বাংলা ব্যাপী তীব্র গন আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে যার ব্যাপকতা পশ্চিম পাকিস্তানেও বিস্তৃত হতে শুরু করে। তীব্র গন আন্দোলনের মুখে নতিস্বীকার করতে বাধ্য হয় আইউব খান। দেশের অবস্থা খারাপের দিকে যাচ্ছে দেখে জাতীয় সমস্যাবলী আলোচনার ১৯৬৯ সালের ১লা ফেব্রুয়ারী সকল বিরুধী রাজনৈতিক দলকে নিয়ে আলোচনায় বসার আহবান করেন। কিন্তু শেখ মুজিবুর রহমান তখনও ‘আগরতলা ষড়যন্ত্র’ মামলায় আটক ছিলেন। মামলা প্রত্যাহার না করলে শেখ মুজিব আলোচনায় যোগ দিতে অস্বীকৃতি জানান।

সারা দেশব্যাপী দুর্বার আন্দোলনের মুখে আইয়ুব খান পূর্ব বাংলার গভর্নর মুনায়েম খান কে বরখাস্ত করেন এবং ২২ ফেব্রুয়ারী (১৯৬৯) আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা প্রত্যাহার করা হয়। শেখ মুজিবুর রহমান সহ সকল রাজবন্দী মুক্তি লাভ করেন। মুক্তিলাভের পর মুক্ত সকল রাজবন্দীদেরকে রেসকোর্স ময়দানে সম্বর্ধনা দেয়া হয়। ডাকসুর ভিপি তোফায়েল আহমেদের সভাপতিত্বে অনুস্টিত সভায় বাঙ্গালী জাতির অবিসংবাদিত নেতা শেখ মুজিবুর রহমান কে ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধীতে ভূষিত করা হয়।

সেদিনের সেই জনসভা থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলার আপামর জনগনের প্রতি তার অকৃতিম ভালবাসার কথা ব্যক্ত করেন।

মুলত ছয় দফাই বাঙ্গালী জাতীর মুক্তি সনদ যার ধারাবাহিকতায় সারা বাঙ্গালী জেগে উঠে স্বাধিকার আদায়ের আন্দোলনে আর তারই ফলশ্রুতিতে ১৯৭০ সালের সাধারন নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিপুল বিজয় এবং বাঙ্গালীর বুকে স্বাধিকার আদায়ের যে লাল টগবগ রক্ত বইছিল তারই সফল প্রয়াস ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং ১৬ই ডিসেম্বরের চুড়ান্ত বিজয়ের মাধ্যমে অর্জিত লাল সবুজ পতাকার স্বাধিন সার্বভৌম আজকের বাংলাদেশ।

লেখকঃ ড. আনিছুর রহমান আনিছ, আইন গবেষক , মানবাধিকার কর্মী এবং রেডিও উপস্থাপক।
আহবায়কঃ সর্ব ইউরোপীয় বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন ।
রাজনৈতিক কর্মী কিশোরগঞ্জ- ৩ (করিমগঞ্জ- তাড়াইল) নির্বাচনী এলাকা । (Email: anisphd@yahoo.com)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর