কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বৃহত্তম ঈদজামাতের জন্য প্রস্তুত শোলাকিয়া, বন্দুকের গুলি ছুঁড়ে দেয়া হবে জামাত শুরুর সংকেত


 বিশেষ প্রতিনিধি | ৫ জুন ২০১৯, বুধবার, ২:৪৪ | বিশেষ সংবাদ 


ঈদুল ফিতরের বৃহত্তম জামাতের জন্য প্রস্তুত কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ময়দান। এবার শোলাকিয়া ময়দানে ঈদুল ফিতরের ১৯২তম জামাত অনুষ্ঠিত হবে। বিশাল এই জামাতে মুসল্লিদের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য শটগানের গুলি ছুঁড়ে প্রতিবারের মতো এবারো জামাত শুরুর সংকেত দেয়া হবে। রেওয়াজ অনুযায়ী, জামাত শুরুর ৫ মিনিট আগে ৩টি, ৩ মিনিট আগে ২টি এবং ১ মিনিট আগে ১টি শটগানের গুলি ছোঁড়া হয়।

দূর-দূরান্ত থেকে আসা মুসল্লিদের সুবিধার্থে বাংলাদেশ রেলওয়ে এবারো ‘শোলাকিয়া এক্সপ্রেস’ নামে দু’টি বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা করেছে। ভৈরব বাজার-ময়মনসিংহ ও ময়মনসিংহ-ভৈরব বাজার রুটে বিশেষ ট্রেন দু’টি চলাচল করবে।

বিশেষ ট্রেনের একটি ঈদের দিন সকাল ৬টায় ভৈরববাজার থেকে কিশোরগঞ্জের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসবে এবং সকাল ৮টায় কিশোরগঞ্জ পৌঁছুবে। জামাত শেষে ট্রেনটি দুপুর ১২টায় পুনরায় ভৈরববাজারের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে এবং বেলা ২টায় ভৈরববাজার পৌঁছুবে।

অপর ট্রেনটি ঈদের দিন সকাল পৌনে ৬টায় ময়মনসিংহ থেকে কিশোরগঞ্জের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসবে এবং সকাল সাড়ে ৮টায় কিশোরগঞ্জ পৌঁছুবে। এ ট্রেনটিও জামাত শেষে দুপুর ১২টায় কিশোরগঞ্জ থেকে ছেড়ে যাবে এবং বেলা ৩টায় ময়মনসিংহ পৌঁছুবে।

শোলাকিয়ায় এবারের জামাতকে ঘিরে নজিরবিহীন নিরাপত্তার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। প্রথমবারের মতো শোলাকিয়ার নিরাপত্তায় এলিট ফোর্স র‌্যাব ব্যবহার করছে অত্যাধুনিক স্নাইপার রাইফেল। মাঠে স্থাপন করা হয়েছে ৬টি ওয়াচ টাওয়ার। ৮৬টি ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার আওতায় নেয়া হয়েছে ঈদগাহ ময়দান, আশেপাশের এলাকা এবং অলিগলিসহ মাঠ সংলগ্ন চারপাশ।

পুলিশের নিরাপত্তা পরিকল্পনায় এবারো যুক্ত থাকছে ড্রোন। তিনটি ড্রোন উড়বে শোলাকিয়ার আকাশে। থাকছে পাঁচ প্লাটুন বিজিবি। র‌্যাব-বিজিবি ও পুলিশের ১২০০ সদস্যসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দেড় হাজারের মতো সদস্য দিয়ে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেয়া হচ্ছে শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানকে। ঈদগাহ ময়দানের বাইরে, ভেতরে ও প্রবেশ পথে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।

ঈদগাহ ময়দানের প্রবেশপথে স্থাপিত আর্চওয়ে দিয়ে মুসল্লিদের ঢুকতে হবে ঈদগাহ ময়দানে। এর আগে আরো অন্তত কয়েক দফা মেটাল ডিটেক্টরে মুসল্লিদের দেহ তল্লাশি করা হবে। নিরাপত্তার স্বার্থে মুসল্লিদের শুধু জায়নামাজ নিয়ে ঈদগাহে আসার জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তবে বৃষ্টি হলে মুসল্লিরা ছাতা নিয়ে আসতে পারবেন।

শোলাকিয়ার ঈদগাহে সকাল ১০টায় ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে। এবারো জামাতে ইমামতি করবেন, ইসলাহুল মুসলিহীন পরিষদের চেয়ারম্যান মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ।

কিশোরগঞ্জ শহরের পূর্বপ্রান্তে নরসুন্দা নদীর তীর ঘেঁষে অবস্থিত প্রাচীন এবং ঐতিহ্যবাহী এ শোলাকিয়া ঈদগাহ। বাংলার বারো ভূঁইয়ার অন্যতম ঈশা খাঁর ষোড়শ বংশধর হয়বতনগরের জমিদার দেওয়ান মান্নান দাঁদ খান তার মায়ের অসিয়াত মোতাবেক ১৯৫০ সালে শোলাকিয়া ঈদগাহের জন্য ৪.৩৫ একর জমি ওয়াক্‌ফ করেন।

সেই ওয়াক্‌ফ দলিলে উল্লেখ রয়েছে, ১৭৫০ সাল থেকে এ মাঠে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। সে হিসাব অনুসারে, শোলাকিয়া ঈদগাহের বয়স ২৬৯ বছর। প্রতিষ্ঠার ৭৮ বছর পর ১৮২৮ সালে প্রথম বড় জামাতে এই মাঠে একসঙ্গে ১ লাখ ২৫ হাজার অর্থাৎ সোয়ালাখ মুসল্লি ঈদের নামাজ আদায় করেন। এই সোয়ালাখ থেকে এ মাঠের নাম হয় ‘সোয়ালাখিয়া’, যা উচ্চারণ বিবর্তনে হয়েছে শোলাকিয়া।

বৃহত্তম জামাতের হিসাব অনুযায়ী, এ বছর এ ঈদগাহ মাঠে ১৯২তম ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে। কিশোরগঞ্জ মৌজার এ মাঠের মূল আয়তন বর্তমানে ৬.৬১ একর। প্রাচীর ঘেরা শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠে মোট ২২২টি কাতার রয়েছে যেখানে একসঙ্গে দেড় লক্ষাধিক মুসল্লি নামাজ আদায় করেন। এ ছাড়া মাঠে স্থান সংকুলান না হওয়ায় ঈদগাহ সংলগ্ন খালি জায়গা, রাস্তা এবং নিকটবর্তী এলাকায় দাঁড়িয়ে সমসংখ্যক মুসল্লি এ বৃহত্তম ঈদ জামাতে শরিক হন।

ঈদগাহ মাঠ পরিচালনা কমিটির জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী জানান, দেশের বৃহত্তম ও ঐতিহ্যবাহী ঈদজামাতের জন্য শোলাকিয়ায় পুরোপুরি প্রস্তুত। গৃহীত প্রস্তুতির বিবেচনায় ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের অংশগ্রহণে এবারো উৎসবমুখর পরিবেশে সুন্দর ও সুচারুভাবে ঈদ জামাত অনুষ্ঠানের ব্যাপারে আশাবাদ প্রকাশ করেছেন জেলা প্রশাসক।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর