কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের মহাপরিচালক হলেন কিশোরগঞ্জের কৃতী সন্তান হান্নান মিয়া


 স্টাফ রিপোর্টার | ৪ জুন ২০১৯, মঙ্গলবার, ৭:২৮ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জের কৃতী সন্তান বিয়ামের পরিচালক অতিরিক্ত সচিব মো. হান্নান মিয়া প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের মহাপরিচালক হিসেবে যোগদান করেছেন। গত ২৯ মে আগাঁরগাওয়ে অবস্থিত প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়ে মহাপরিচালক হিসেবে তিনি যোগদান করেন। এর আগে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মুহাম্মদ আব্দুল লতিফ স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে তাকে প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের মহাপরিচালক হিসেবে পদায়ন করা হয়।

মো. হান্নান মিয়া কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব উপজেলার মৌটুপী কর্তাবাড়ীর হাজী আব্দুল আহাদ ও আম্বিয়া খাতুনের গর্বিত সন্তান। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ থেকে বিএসএস (অনার্স) ও এমএসএস পাশ করেন। যুক্তরাজ্যের ওয়েষ্ট লন্ডন ইউনিভার্সিটির ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ম্যানেজম্যান্ট এ পিজি ডিপ্লোমা সম্পন্ন করেন।

কর্মজীবনে মো. হান্নান মিয়া গাইবান্ধা জেলার সহকারী কমিশনার ও ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। বগুড়ায় প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট ও শেরপুর জেলার আরডিসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি শাল্লা, সুনামগঞ্জ ও সিলেট এবং জকিগঞ্জ উপজেলায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে সুনামের সহিত দায়িত্ব পালন করেন।

নারায়ণগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, বিসিএস প্রশাসন একাডেমির উপ-পরিচালকসহ সর্বশেষ বিয়াম ফাউন্ডেশনের পরিচালক হিসেবে চাকুরী করেছেন।

সুলেখক মো. হান্নান মিয়া ফৌজদারী মামলা পরিচালনা ও পদ্ধতি, ভূমি আইন প্রয়োগ-পদ্ধতি, এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটের কার্যপদ্ধতি, মুক্তির নৈবেদ্য (মুক্তিযুদ্ধের কাহিনী অবলম্বনে রচিত উপন্যাস) গ্রন্থের প্রণেতা।

প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরে মহা পরিচালক হিসেবে যোগদানের পরেই অধিদপ্তরকে ঢেলে সাজানোর কাজে হাত দিয়েছেন। দেশের প্রত্নস্থল পরিদর্শন করে সংরক্ষিত করার উদ্যোগ নিয়েছেন। তিনি সম্প্রতি সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের আঞ্চলিক পরিচালক কার্যালয় পরিদর্শন করে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের আঞ্চলিক পরিচালক ড. মো. আতাউর রহমান বলেন, আমাদের মহাপরিচালক প্রত্নপ্রিয় একজন ব্যক্তিত্ব। তিনি চট্টগ্রাম ও সিলেটের পুরোনো নিদর্শনগুলো সংরক্ষণের জন্য প্রকল্প দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। এছাড়াও তিনি কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জে অবস্থিত মহাবীর ঈশাখার স্মৃতি বিজড়িত জঙ্গলবাড়ীকে একটি পর্যটন পল্লী ও জাদুঘর হিসেবে ঘরে তোলার উদ্যোগ নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর