কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বিশাল মানবিক আয়োজনে হাওরে ঈদ-উপহার ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ


 স্টাফ রিপোর্টার | ৩ জুন ২০১৯, সোমবার, ৪:০১ | বিশেষ সংবাদ 


হাওরে উৎপাদিত ধানের দাম না থাকায় গোটা হাওরের প্রান্তিক ও বর্গাচাষীদের ঈদ আনন্দ ছিল না। কারণ ধান বিক্রি করে ন্যায্যমুল্য না পাওয়ায় এবারের ঈদে স্ত্রী ও ছেলে-মেয়েদের জন্য নতুন জামা-কাপড় ও ঈদে বাড়তি খাদ্য আয়োজনের কোন ব্যবস্থা ছিল না। এই বাস্তবতা উপলব্ধি করে পবিত্র ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে দরিদ্র মানুষের মধ্যে ঈদ-উপহার ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণের এক চমৎকার আয়োজন হয়ে গেল গভীর হাওরের ইটনা ও মিঠামইন উপজেলায়।

আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকাল পত্রিকার যৌথ ব্যবস্থাপনায় দৃষ্টিনন্দন আয়োজনটি সাধারণ ও হাওরের গরীব জনগোষ্ঠির মধ্যে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। গভীর হাওরের  দুই উপজেলায় সুবিধাবঞ্চিত ও অতিদরিদ্র পাঁচশ’ পশ্চাৎপদ নারী-পুরুষের মধ্যে শাড়ি, লুঙ্গি, সেমাই, চিনি দুধ, কিসমিস ও সাবান বিতরণের মধ্য দিয়ে আসন্ন ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নেয়ার এক অন্যরকম আনন্দঘন অনুষ্ঠানে সর্বস্তরের মানুষ যোগদান করে মহতী অনুষ্ঠানকে স্বাগত জানান। পবিত্র রমজানের ২৭তম দিবসে শনিবার (১ জুন) সকালে ইটনা উপজেলা অডিটোরিয়ামে এবং দুপুরে মিঠামইন উপজেলায় রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ অডিটোরিয়ামে  আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও দৈনিক সমকাল এই  অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

ইটনা উপজেলা পরিষদের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান চৌধুরী কামরুল হাসানের সভাপতিত্বে ’ঘরে ঘরে ঈদের খুশী‘ শীর্ষক এই আনন্দঘন আয়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রপতির বড় ছেলে কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য প্রকৌশলী রেজওয়ান আহম্মদ তৌফিক, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যথাক্রমে আল খায়ের ফাউন্ডেশনের কান্ট্র ম্যানেজার তারেক মাহমুদ সজীব, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মো. সাইফুল ইসলাম, সমকালের সহকারী সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম আবেদ, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মুর্শেদ জামান, ইটনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি  মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেন, সমকালের নিজস্ব প্রতিবেদক সাইফুল হক মোল্লা দুলু, সুহৃদ সহ-সভাপতি মো. জহিরুল ইসলাম প্রমুখ।

স্বাগত বক্তব্যে সিরাজুল ইসলাম আবেদ  বলেন, সমকাল সব-সময় সাধারণ মানুষের পাশে থেকে আর্ত-মানবতার সেবায় কাজ করতে আগ্রহী। তারই ধারাবাহিকাতায় আজকের এই মহতী ও মানবিক উদ্যোগে সমকালও অংশীদার হয়েছে। তিনি আল-খায়ের ফাউন্ডেশনকে কৃতজ্ঞতা জানিয়ে কিশোরগঞ্জসহ সারা দেশে এই ধারা ভবিষ্যতেও অব্যাহত রাখবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহম্মদ তৌফিক বলেন, দেশের সবচেয়ে অবহেলিত ও বঞ্চিত এলাকা হাওর। হাওরের বোরো ফসল বা ধান লটারির মতো। কোন বছর গোলায় তুলতে পারে, আবার কোন বছর সমুদয় ফসল মার খেয়ে কৃষক সর্বশান্ত হন। এবার কৃষক ব্রি-২৮ ধান মার খেয়ে কৃষক নিঃস্ব হয়েছেন। আবার অন্যজাতের বোরোর বাম্পার ফলন হলেও বাজারে ধানের দাম নেই। ধান বিক্রি করলে তাদের মন প্রতি ৩৮০ থেকে ৪২০ টাকা লোকসান গুণতে হয়। এ অবস্থায় তাদের মধ্যে এ বছর ঈদুুুুল ফিতরের কোন আনন্দ নেই। কারণ ঈদে নতুন পোষাক নেই, নেই ঈদের জন্য ব্যতিক্রর্মী কোন খাদ্যের সংস্থান। ঈদকে কেন্দ্র আজকের এই মহৎ আয়োজন হাওরের কয়েক’শ মানুষের মধ্যে ঈদের প্রকৃত আনন্দ যোগ করেছে। তাই আল খায়ের ও সমকালকে ধন্যবাদ জানাই। কারণ মানবিক উদ্যোগ হচ্ছে সবকিছুর উর্ধ্বে। আমাদের ধর্ম ইসলামও মানবতার কথা বলেছে। প্রতিবেশীকে অভুক্ত রেখে নিজে ভালো খাওয়ার শিক্ষা ইসলামে নেই। সমকাল এবং আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ইসলামের সেই স্পিরিট নিয়ে পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগে দরিদ্র নারী-পুরুষের মধ্যে ঈদের আনন্দ বিলিয়ে দেওয়ার জন্য  উদ্যোগটি বাস্তবায়ন করায় তাদের কাছে হাওরের জন-প্রতিনিধি হিসেবে আমি কৃতজ্ঞ। সেইসাথে তাদের সবাইকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই।

সভাপতি চৌধুরী কামরুল হাসান বলেন, সরকারের এসডিজি প্রোগ্রামকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি সংস্থাগুলো যদি সমন্বয় রেখে কাজ করে তা হলে দেশ দ্রুত অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছুতে পারবে। দৈনিক সমকাল ও আল-খায়ের ফাউন্ডেশন সেই কাজটি দায়িত্বশীলতার সাথে পালন করছে বলে আমি মনে করি। আজকের এই আয়োজনেও তার প্রতিফলন ঘটেছে।

আল-খায়ের ফাউন্ডেশনের কান্ট্রি ম্যানেজার তারেক আহমেদ সজিব বলেন, বাংলাদেশসহ ৫৪টি দেশে আল-খায়ের ফাউন্ডেশন আর্ত-মানবতায় কাজ করে আসছে। ২০১৬ সালের  চৈত্রের বন্যায় কিশোরঞ্জের হাওরাঞ্চলে সমুদয় বোরা ধান তলিয়ে যাওয়ায় সুহৃদকে সাথে নিয়ে আমরা হাওরের ইটনা উপজেলার বাদলা গ্রামের কোরবানি বঞ্চিত দুস্থদের গরু জবাই করে রান্না করে কোরবানির গোস্ত সবাইকে খাইয়েছি। আল- খায়ের ফাউন্ডেশন মানবিক আবেদনে সব-সময় দরিদ্র জনগণের পাশে থাকে। ভবিষ্যতে আল-খায়ের ফাউন্ডেশন কিশোরগঞ্জে কাজের পরিধি আরও বৃদ্ধি করবে বলে তিনি আশ্বস্ত করেন।

তিনি আরও বলেন, প্রকৃত দুস্থদের মুখে হাসি দেখে সত্যি ভাল লাগছে। সমকালকে নিয়ে আগামীতে কিশোরগঞ্জ জেলার হাওর অঞ্চলসহ গ্রামীণ পর্যায়ে মানবিক কাজ করে দেশের তৃণমূল জনগোষ্ঠীকে এগিয়ে নিয়ে যাবার পাশাপাশি আজকের তরুণ-তরুণীদের মানবিক সচেতনেতা ও মূল্যবোধকে জাগ্রত করাই আমাদের মূল লক্ষ্য।

ঈদ সামগ্রীপ্রাপ্ত ইটনা উপজেলার এলংজুরি গ্রামের সমরুদ, আবনুন্নেছা, জয়সিদ্ধির আবদুর রহমান, মধ্যপাড়া গ্রামের আসমা বানু তাদের প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ফালগুন মাস থেকে বৈশাখে বোরো ধান কাটার পর ধানের দাম না থাকায় অভাবে থাইক্যা থাইক্যা ঈদের খুশি কারে কয় হেইডা ভুইল্লা গেছিলাম। আইজ ঈদ করনের কাপড়-চোপড় আর সেমাই-দুধ পাইয়্যা ঈদের খুশি টের পাইতাছি। যারা এইতা দিছে আল্লা হেরার ভালা করুক।

মিঠামইন উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের আবু সাঈদ (৫৩), ঘোপদিঘী গ্রামের নূরজাহান (৪২), চারিগ্রামের রৌশন আরা (৪৫) সহ উপহারপ্রাপ্ত একাধিক নারী-পুরুষ তাদের আনন্দ-উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে জানান, ম্যালাদিন পরে আইজ মনে অইতাছে আমরারও ঈদ আছে। এইবার পোলাপাইন লইয়া ভালা-মন্দ খাইতে পারবাম।

মিঠামইন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আছিয়া আলম বলেন, নতুন প্রজন্মের ছেলে-মেয়েদের মধ্যে ইন্টারনেট ব্যবহারের প্রবণতা বৃদ্ধি পাওয়ায় তাদের মধ্যে মানবিকতা কমে আসছে। কিন্তু কিশোরগঞ্জ সমকাল সুহৃদ তরুণ ও আল খায়ের ফাউন্ডেশন’র কর্মীদের মধ্যে সেই মানবিকতার আবেদন আমি দেখতে পেয়েছি। আমি আশা করি আল খায়ের ফাউন্ডেশন এই আবেদন সকল তরুণের মধ্যে ছড়িয়ে দিবে। মানবিকতার পাশাপাশি একটি সুন্দর মানবিক দেশ গঠনে এই প্রজন্ম কাজ করবে।

ইটনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম নিজের অংশ থেকে অন্যকে দিতে পারার যে আনন্দ তা পৃথিবীতে বিরল। সেই বিরল আনন্দ লাভের জন্য সমকাল ও আল-খায়ের ফাউন্ডেশন দরিদ্রদের মুখে একটু হাসির ঝিলিক উপহার দিচ্ছে। এটি আমাদের সবার জন্যই নতুন এক শিক্ষা ও নতুন এক আনন্দ বয়ে  এনেছে।

ইটনা থানার ওসি মোহাম্মদ মুর্শেদ জামান বিপিএম বলেন, আজকের এই চমৎকার আয়োজন সবাইকে নাড়া দিয়েছে। যারা সহযোগিতা পেয়েছে, তাদের কারো পায়ে জুতো নেই। তারা নিতান্তই সুবিধাবঞ্চিত। তাই প্রকৃত বঞ্চিতদের ঈদ আনন্দ আয়োজনের জন্য দৈনিক সমকাল ও আল-খায়ের ফাউন্ডেশনকে ধন্যবাদ জানাই।

মিঠামইনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. জাকির রব্বানী, সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শরীফ কামাল সহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। পরিশেষে দুই উপজেলায় পাঁচশ’ দরিদ্র নারী-পুরুষের মধ্যে পৃথক পৃথক ব্যাগে ঈদ উপহার বিতরণ করা হয়। এক অনাবিল ঈদ আনন্দ নিয়ে সবাই ফিরে যান যার যার ঘরে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর