কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হওয়ার ৩০দিন পর লাশ এলো পাকুন্দিয়ার জুয়েলের


 স্টাফ রিপোর্টার | ২ জুন ২০১৯, রবিবার, ৪:৫০ | প্রবাস 


অভাব অনটনের সংসার। নিজের জমিজমা নেই। অন্যের কাজ করে সংসার চালাতেন। স্ত্রী ও দুই কন্যা সন্তান নিয়ে অর্ধাহারে-অনাহারে দিন কাটাতেন। ধারদেনা করে ৩লাখ ৭০হাজার টাকা দিয়ে মাস দুয়েক আগে পাড়ি জমিয়েছিলেন স্বপ্নের সৌদিআরব। সেখানে গিয়ে কাজ করে টাকা উপার্জন করে ঋণ পরিশোধ করবেন। দুই কন্যা সন্তানকে পড়ালেখা করাবেন। সংসারে স্বচ্ছলতা আনবেন।

সুখে-শান্তিতে দিন কাটানোর এমন সব স্বপ্ন নিয়ে সুখের আশায় গত ২৭ মার্চ সৌদিআরব যান কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার বাহাদিয়া গ্রামের জুয়েল। কিন্তু কে জানতো, মাত্র ৩৬ দিনের ব্যবধানে সেই স্বপ্ন অঙ্কুরেই শেষ হয়ে যাবে! বাড়ি ফিরতে হবে নিথর দেহে কফিনবন্দি হয়ে।

সৌদি আরবের দাম্মাম শহরে আল হাবিব কোম্পানীর অধীনে থাকতেন জুয়েল। এক মাসের মতো কাজ ছাড়া থাকার পর ২ মে প্রথম কাজের জন্য বের হন। কিন্তু বিধিবাম! দাম্মাম থেকে মদিনা যাওয়ার পথে সাকরা নামক স্থানে ভয়াবহ এক সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান জুয়েল। নিহত জুয়েল উপজেলার এগারসিন্দুর ইউনিয়নের বাহাদিয়া গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের ছেলে।

জুয়েলের মৃত্যুর সাথে সাথে মারা যায় শত স্বপ্ন, শত আশা। পরদিন খবর পৌঁছে তাঁর গ্রামের বাড়িতে। শোক বিহ্বল হয়ে পড়ে জুয়েলের পরিবার।

নুসরাত জাহান জ্যোতি (৯) ও ইসরাত জাহান ইভা (৫) নামে দুই কন্যাসন্তান নিয়ে শোকে স্তব্ধ হয়ে পড়েন জুয়েলের স্ত্রী নাজমা বেগম। জুয়েলের বাবা গিয়াস উদ্দিন, মা আমেনা খাতুন ও বোন মিনারা খাতুনসহ পরিবার, আত্মীয়-স্বজনরাও শোকে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েন।

সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হওয়ার এক মাস পর গত বৃহস্পতিবার (৩০ মে) রাত ১২টার দিকে জুয়েলের লাশ ঢাকায় এসে পৌঁছায়। শুক্রবার (৩১ মে) ভোরে তাঁর লাশ গ্রামের বাড়িতে আনা হয়। এ সময় সেখানে এক হৃদয়বিদারক পরিবেশ তৈরি হয়। স্বজনদের কান্নায় ভারি হয়ে ওঠে চারপাশ।

শোকাহত পরিবারকে সহমর্মিতা ও সমবেদনা জানান আশপাশের লোকজন। জুমআ নামাজের পর জানাজা নামাজ শেষে দাফন করা হয় জুয়েলের লাশ।

জুয়েলের স্ত্রী নাজমা বেগম বলেন, ‘অর্ধাহারে অনাহারে দিন কাটিয়েছি, পরিবারের জন্য দুমুঠো ভাতের জোগান দিতে বিদেশ গিয়েছিল, ভাতের জোগানের বদলে লাশ হয়ে ফিরল। বাপের বাড়ি থেকে ধারদেনা করে ৩লাখ ৭০হাজার টাকা সংগ্রহ করে স্বামীকে সৌদিআরব পাঠিয়েছিলাম। অভাবের সংসার, স্বামীর ঋণের বোঝা এখন মাথায়, সব কিছু মিলিয়ে এখন আমার এতিম দুই কন্যা সন্তানের কী হবে?




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর