কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


রমজানে মাগফিরাতের অপার সুযোগ


 হাফেজ মাওলানা যুবায়ের আহমাদ | ২৭ মে ২০১৯, সোমবার, ১:১২ | ইসলাম 


রহমত বরকত মাগফিরাত আর নাজাতের বারতা নিয়েই আগমন করে রমজান। রমজান ক্ষমার মাস। বিভিন্ন ইবাদতের মাধ্যমে আল্লাহ বান্দার গুনাহ মাফ করেন। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি রমজান মাস পেল, কিন্তু এই মাসেও তাকে ক্ষমা করা হলো না সে আল্লাহ তায়ালার রহমত থেকে চিরবঞ্চিত ও বিতাড়িত। (মুসতাদরাকে হাকিম: ৪/১৭০)

রমজান জুড়ে শুধুই যেন ক্ষমার আয়োজন। ভালো (নেক) কাজের মাধ্যমে মাফ হয়ে যায় গুনাহ। রোজার শুরুতেই মাগফিরাতের (ক্ষমার) ঘোষণা। যে ব্যক্তি ইমান ও সওয়াবের আশায় রমজানের রোজা আদায় করবে তার পূর্ববর্তী সব গুনাহ মাফ করে দেয়া হবে। (বুখারি: ১/২২; মুসলিম: ১/৫২৩)

তারাবিহ নামাজের মাধ্যমে মাফ হয়ে যায় কিছু গুনাহ। নবীজি (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি খাটি ইমান ও ইখলাসের সঙ্গে রমজানের রাতে (তারাবিহতে) দাঁড়িয়ে যাবে আল্লাহ তার পূর্ববর্তী সব গুনাহ মাফ করে দেবেন।’ (বুখারি: ১/২২; মুসলিম: ১/৫২৩)

লাইলাতুল কদরে মাফ হয় গুনাহ। রাসুলুল্লাহ (সা.) এরশাদ করেন, ‘যে ব্যক্তি ইমান ও সওয়াব লাভের খাঁটি আশায় লাইলাতুল কদরে কিয়ামুল্লাইলে (তাহাজ্জুদে) অতিবাহিত করবে আল্লাহ তার পূর্ববর্তী সব গুনাহ মাফ করে দেবেন।’ (বুখারি: ২/৬৭২; মুসলিম: ১/৫২৩)

ইবাদতের মাধ্যমে মাফ হবে কেবল সগিরা (ছোট) গুনাহ। কবিরা গুনাহের জন্য তওবা জরুরি। ‘তাওবা’ আরবি শব্দ। এর অর্থ হচ্ছে অনুতপ্ত হওয়া এবং ফিরে আসা। কোনো গোনাহের কাজ করার পর অনুতপ্ত হয়ে ভবিষ্যতে আর কখনো তা না করার দৃঢ় সংকল্প করাই তাওবা।

তাওবা একটি প্রতিষেধক। মানুষ মাত্রই ভুল-ত্রুটি হওয়া স্বাভাবিক। মানবমণ্ডলীর পাশাপাশি পৃথিবীতে এসেছে অভিশপ্ত শয়তান। শয়তান মানুষকে বিপথগামী করার মিশন কিয়ামত পর্যন্ত অব্যাহত রাখবে। শয়তানের পাশাপাশি রয়েছে মানুষের প্রবৃত্তি। শয়তান ও প্রবৃত্তির বিষাক্ত ছোবলে আক্রান্ত হয়ে মানুষ জড়িয়ে পড়ে বিভিন্ন পাপ কাজে। শয়তান ও প্রবৃত্তির বিষাক্ত ছোবলে আক্রান্ত মানুষকে বিষক্রিয়া থেকে রক্ষা করতে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন যে প্রতিষেধক দিয়েছেন তাই তাওবা। তাওবাকারীর জন্য ক্ষমার ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে তার জন্য পুরস্কারের ঘোষণাও দিয়েছেন। কোরআনুল কারিমে আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘নিশ্চই আল্লাহ তওবাকারী এবং অপবিত্রতা থেকে যারা বেঁচে থাকে তাদেরকে পছন্দ করেন’।(সুরা বাকারা: ২২২)

খাঁটি তওবার ধাপ তিনটি: ১. গোনাহ ত্যাগ করা। ২. কৃত গোনাহের ব্যাপারে অনুতপ্ত হওয়া। ৩. ভবিষ্যতে গোনাহ না করার দৃঢ় অঙ্গিকার করা। তাওবা করলেই আল্লাহ মানুষের গুনাহ মাফ করে দেবেন। রাসুলে আকরাম (সা.) বলেন: ‘গোনাহ থেকে তওবাকারীর অবস্থা এমন, যেন তার কোনো গুনাহ নেই’। (ইবনে মাজা: ২/১৪১৯)

পবিত্র কোরআনুল কারিমেও এসেছে, আল্লাহ তাওবাকারীর গোনাহ ক্ষমা করে দেন এবং তার গোনাহ গুলোকে সওয়াব দ্বারা বদল করে দেন। আল্লাহতায়ালা বলেন- ‘যারা তওবা করে বিশ্বাস স্থাপন করে এবং সৎকর্ম করে আল্লাহ তাদের গোনাহকে পুণ্য দ্বারা পরিবর্তিত করে দেবেন।’ (সুরা ফুরকান-৭০)

রমজানের দিনগুলো চলে যাচ্ছে। আমরা কি আল্লাহর দরবার থেকে ক্ষমা পেয়েছি? যেভাবে ক্ষমা চাওয়া দরকার ছিল সেভাবে কি ক্ষমা চেয়েছি? আসুন, সাহরি খেতে যখন ঘুম থেকে জাগি তখন একটু আগে জেগে দুরাকাত নফল নামাজ পড়ে আল্লাহর দরবারে হাত তুলি ক্ষমার জন্য। আল্লাহ আমাদের সবাইকে তার ক্ষমার চাদরে আবৃত করুন!




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর