কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শেকড়সন্ধানী মোহাম্মদ সাইদুর


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২৫ মে ২০১৯, শনিবার, ৫:৪৭ | ব্যক্তিত্ব 


আপন ঐতিহ্যের শেকড়সন্ধানী লোকঐতিহ্য সংগ্রাহক, প্রখ্যাত লোকতত্ত্ববিদ ও লোকঐতিহ্য সাধক মোহাম্মদ সাইদুর কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বিন্নগাঁও গ্রামে ১৯৪০ সালের ২৮ জানুয়ারি তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা মোহাম্মদ কুতুব উদ্দিন আহমেদ ছিলেন গান বাঁধিয়ে, পুঁথিপাঠেও তার দক্ষতা ছিল। সরকারি প্রচার বিভাগে গীতিকার হিসেবে তিনি চাকরি করতেন। তার মা আনোয়ারা খাতুন (ফুল বানু) এবং পিতামহ আসমত আলী ব্যাপারি। পিতামহ ছিলেন লোকগীতি গায়েন।

লোকসংস্কৃতির পারিবারিক আবহ মোহাম্মদ সাইদুরকে ছোটবেলা থেকেই বাংলার লোকসংস্কৃতি সম্পর্কে উৎসাহী করে তুলে। তিনি মাত্র ১৪ বছর বয়সে ১৯৫৬ সালে মাওলানা ভাসানী আহুত ঐতিহাসিক কাগমারী সম্মেলনে উপস্থিত হন জারিগানের দল নিয়ে।

মোহাম্মদ সাইদুর ২০০৭ সালের ৪ মার্চ ভোর ৩টায় গ্রামের নিজ বাড়িতে দেহত্যাগ করেন। মৃত্যুর পূর্ব মুহূর্ত পর্যন্ত তিনি তাঁর জীবন-পাত্রের সবটুকু নিষ্ঠার সঙ্গে অত্যন্ত নির্মোহভাবে দান করে গেছেন স্থূল কোনো সংসার সুখের জন্যে নয়, অর্থনৈতিক প্রাচুর্যের জন্যেও নয়-দিয়ে গেছেন এ দেশের ফোকলোর চর্চার এক দুর্গম পথে পথে-যে পথ দিয়ে একদিন হেঁটে গেছেন রবীন্দ্রনাথ, চন্দ্রকুমার দে, দীনেশচন্দ্র সেন, মুহম্মদ শহীদুলস্নাহ, আশুতোষ ভট্টাচার্য, মুহম্মদ মনসুরউদ্দীন, জসীমউদদীন প্রমুখ প্রাতঃ প্রণম্যজন।

বাংলা ভাষায় ফোকলোর চর্চার দুর্গম যাত্রাপথের এক অগ্রণী পথিক ছিলেন মোহাম্মদ সাইদুর। তিনি দীর্ঘ ৫০ বছরেরও বেশি সময় এ দেশের লোকসাহিত্য ও লোকশিল্প নিদর্শন সংগ্রহের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে ছিলেন। তিনি এ দেশের লোকসাহিত্যের ওপর গুরুত্বপূর্ণ কাজ করে গেছেন। শিকড় সন্ধান করে এ দেশের সমৃদ্ধ লোকসাহিত্যকে বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরেছেন।

বিন্নগাঁও প্রাইমারি স্কুলে তার প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা শুরু হয়। এরপর তিনি তমালতলা প্রাইমারি বিদ্যাপীঠ, কিশোরগঞ্জ মাইনর স্কুল (র্বতমান পিটিআই) এবং আজিমউদ্দিন হাইস্কুলে পড়াশোনা করেন।

স্কুলে পড়ার সময় তাদের বাড়ির পাশে কাইনজার বিলের অপর পাড়ে এক অন্ধ বৃদ্ধের মধুমালার গান শুনে তিনি মুগ্ধ হন। কোথাও গানের আসর হলেই তিনি সেখানে ছুটে যেতেন। এসব আসরে পুঁথিপাঠ, জারি-সারি, পালাগান, কবিগান খুব মনোযোগ দিয়ে শুনতেন। এছাড়াও আবদুল গনি বয়াতি নামে এক গাড়োয়ান রাতে বাড়ি বাড়ি গিয়ে গল্প শোনাতেন। সাইদুরও মাঝে মধ্যে তার সঙ্গী হতেন।

মোহাম্মদ সাইদুল তার বাবার পুঁথিপত্র ঘেঁটে মৈমনসিংহ গীতিকা পান। মৈমনসিংহ গীতিকা পড়তে গিয়ে তিনি চন্দ্রাবতীর সন্ধান পান। এর সঠিক ইতিহাস জানার আগ্রহে তিনি চন্দ্রাবতীর মন্দিরে এবং ওই এলাকায় কয়েকবার যান। চন্দ্রাবতীর কাহিনীর ঐতিহাসিক সূত্র ধরে অনুসন্ধান করে চন্দ্রাবতীর ভণিতায় কিছু গান লোকমুখ থেকে সংগ্রহ করেন। এই সংগ্রহের ভেতর দিয়েই তার সংগ্রাহক জীবনের সূত্রপাত হয়। কেবল কুষ্টিয়া যাওয়ার ভাড়াকে সম্বল করে কিশোর সাইদুর পঞ্চাশের দশকের শেষের দিকে কুষ্টিয়ার ছেঁউড়িয়ায় ছুটে যান বাউলসম্রাট লালনের সংগ্রহের উদ্দেশ্যে। এভাবেই শেকড়সন্ধানী সংগ্রাহক সাইদুর বড় হয়ে ওঠতে থাকেন।

বাংলা একাডেমির সংগ্রাহক হিসেবে মোহাম্মদ সাইদুর ১৯৬২ সালের জুলাই মাসে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ পান। আগস্ট মাসে প্রথম লোকসাহিত্য সংগ্রহ তিনি একাডেমিতে জমা দেন। চাকরিরত অবস্থায় ১৯৬৮ সালে তিনি ম্যাট্রিক পাস করেন। ১৯৭২ সালে তিনি বাংলা একাডেমিতে স্থায়ী নিয়োগ লাভ করেন। এছাড়া তিনি ঢাকা থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক 'পূর্বদেশ' ও সাপ্তাহিক 'চিত্রালী'র স্থানীয় সাংবাদিক পদে কাজ করেন। এরপর 'কিশোরগঞ্জ বার্তা' সম্পাদনার দায়িত্ব পালন করেন।

বাংলাদেশের প্রতিটি জেলার সাংস্কৃতিক পরিচয় ছিল তার নখদর্পণে। একক প্রচেষ্টায় মোহাম্মদ সাইদুর রচনা করেছিলেন বাংলা মাসভিত্তিক ১২৯৩টি মেলার তালিকা-যাতে মেলার নাম, স্থান ও ঠিকানা, উপলক্ষ, তারিখ, মেলার বৈশিষ্ট্য, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের তথ্য, প্রধান প্রধান পণ্যসামগ্রীর নাম লিপিবদ্ধ রয়েছে। এ দেশের ফোকলোর সংশ্লিষ্ট সকলেই জানতেন কোনো একজন একক ব্যক্তির পক্ষে বাংলাদেশের মেলার তালিকা তৈরির কাজটি সম্পাদনের যোগ্যতা এ দেশে একমাত্র মোহাম্মদ সাইদুরেরই ছিলো।

একক ব্যক্তি হিসেবে তিনি আরো একটি বিশাল গবেষণাকর্ম সম্পাদন করেন একটি গ্রামকে নিয়ে-যা কলাবাড়িয়া গ্রাম-সমীক্ষা নামে পরিচিত। হাজার পৃষ্ঠার ওপরে এই পাণ্ডুলিপিটি তাঁর অসাধারণ কীর্তি হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে। বাংলা একাডেমি ফোকলোর উপবিভাগে জমা রয়েছে তাঁর সম্পাদিত সেই গ্রাম-সমীক্ষার দলিল-যা সম্ভবত এদেশের কোনো সুনির্দিষ্ট গ্রামকে নিয়ে প্রথম ও একমাত্র পূর্ণাঙ্গ গ্রাম-সমীক্ষা।

বাংলা একাডেমি কর্তৃক প্রকাশিত 'জামদানি' গ্রন্থটি তিনি মাঠ পর্যায়ের কাজের ওপরে রচনা করেন। তার সম্পাদনায় বাংলা একাডেমির 'লোকসাহিত্য সংকলন' ৩০তম খণ্ড (শিয়ালের কিসসা), ৪১তম খণ্ড (লোকনাট্য-১), ৪৫তম খণ্ড (আনুষ্ঠানিক গীত); 'বাংলা একাডেমি ফোকলোর সংকলন' ৪৯তম খণ্ড (মুহররম অনুষ্ঠান), ৫১তম খণ্ড (বেড়াভাসান উৎসব), ৬১তম খণ্ড (লোকনাট্য-২), ৬৩তম খণ্ড (লোকনাট্য-৩, যৌথভাবে সম্পাদিত) প্রকাশিত হয়। এছাড়া মোহাম্মদ আলী খান ও মোহাম্মদ সাইদুর যৌথভাবে 'কিশোরগঞ্জের ইতিহাস' রচনা ও সম্পাদনা করেন।

বাংলা একাডেমিতে বিভিন্ন সময়ে আগত বহু বিদেশি ফোকলোরবিদ যেমন- ডক্টর হেনরি গ্গ্নাসি, ডক্টর হারবিলাতি, ডক্টর হেলি উসিকালা প্রমুখ আসেন। বাংলাদেশে গবেষণাকর্ম সম্পাদনে বাংলা একাডেমীর পক্ষ থেকে মোহাম্মদ সাইদুর এসব বিশেষজ্ঞকে সহযোগিতা করেন।

বেঁচে থাকতেই মোহাম্মদ সাইদুর কিংবদন্তি হয়ে উঠেছিলেন। তিনি তার বাড়িতে বিন্নগাঁওয়ে একটি লোকশিল্প জাদুঘর গড়ে তুলেছিলেন। ১৯৭৪ সালে বাংলা একাডেমিতে তার একক লোকশিল্প সংগ্রহ প্রদর্শনী হয়। ১৯৮৮ সালে লন্ডনের হোয়াইট চ্যাপেল আর্ট গ্যালারিতে ওপেন এয়ার প্রদর্শনীতে তার নিজস্ব লোকশিল্প সংগ্রহের প্রদর্শনী এবং ১৯৮৯ সালে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের সঙ্গে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমী আয়োজিত যৌথভাবে 'নকশিকাঁথা প্রদর্শনী' করেছেন।

লোকসাহিত্য যেমন, তেমনি লোকশিল্প সংগ্রহেও তাঁর অবদান শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণযোগ্য হয়ে থাকবে। বাংলা একাডেমি ছাড়াও তিনি লোকশিল্প সংগ্রহে সোনারগাঁও লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন এবং বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরে একটি উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছেন। শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের সাহচর্যে থেকে নকশিকাঁথার এক বিশাল ভাণ্ডার গড়ে তোলেন। পটুয়া শিল্পী কামরুল হাসানও ছিলেন তাঁর গুণগ্রাহী।

মোহাম্মদ সাইদুরের কর্মের স্বীকৃতি হিসেবে বাংলা একাডেমি ২০০১ সালে তাঁকে সম্মানসূচক ফেলোশিপ প্রদান করে। একই বছর জাপানের ফুকুওয়াকা এশিয়ান আর্ট গ্যালারি তাকে সংবর্ধনা দেয়। ২০০২ সালে কারুশিল্পী পরিষদের সম্মাননা লোক ও কারুশিল্পী, লোকসংগীত শিল্পীদের তথ্য প্রদানকারী উত্স হিসেবে তাঁর নামটি সর্বাগ্রে আসে।

মোহাম্মদ সাইদুর মোমেনশাহী গীতিকার পালাগান থেকে ‘মাধব মালঞ্চী কইন্যা’ পালাগানটি নাট্যরূপ দিয়ে মঞ্চস্থ করান। এর শতরজনী মঞ্চ উপলক্ষে কলকাতায় মোহাম্মদ সাইদুরকে মাধব মালঞ্চী কইন্যার সংগ্রাহক হিসেবে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। জাপানের ফুকুওয়াকা এশিয়ান আর্ট গ্যালারি থেকে ২০০১ সালে তাঁকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। ১৯৮৮ সালে আরণ্যক নাট্যগোষ্ঠী লোকনাটক সংগ্রহের স্বীকৃতিস্বরূপ তাঁকে সম্মাননা দেয়।

মোহাম্মদ সাইদুরের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে বাংলা একাডেমির সাবেক মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান বলেছিলেন, ‘লোকঐতিহ্য নিয়ে গবেষণা কিংবা পিএইচডি করতে হলে মোহাম্মদ সাইদুরের দ্বারস্থ হতেই হবে। যাঁর কর্মের প্রতিটি দিক নিয়ে পিএইচডি করা যায়।’

মোহাম্মদ সাইদুর আত্ম-প্রচারণার চেয়ে লোকশিল্পীদের প্রচার-প্রসার ও পৃষ্ঠপোষকতার প্রতিই ছিলেন বেশি সচেষ্ট। বিখ্যাত পালাকার কুদ্দুস বয়াতী ও বাউলশিল্পী কাঙালিনী সুফিয়াসহ আরো অনেক লোকসঙ্গীত-শিল্পীকে তিনি প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে আবিষ্কার করে জাতীর সামনে উপস্থাপন করেন। এ দেশের মানুষ ও তাঁর ঐতিহ্যিক পরিচয়কে তিনি সব সময় দেশবাসীর কাছে বিনয়ের সঙ্গে তুলে ধরবার বাসনা ধরে রেখেছিলেন মনে ও চেতনায়।

এদেশের ফোকলোর প্রেমের ব্রতচারী সাধক মোহাম্মদ সাইদুর বাংলা একাডেমির চাকরি জীবন শেষে মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘরে 'মুক্তিযুদ্ধের স্মারক' সংগ্রহের কাজে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছিলেন। নিভৃতচারী, নিরহংকারী ও প্রচারবিমুখ শিকড়সন্ধানী এই মহান সাধক দেশ-বিদেশে তার অগণিত গুণগ্রাহীর গভীর শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় স্মরণীয় হয়ে থাকবেন অনন্তকাল।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর