কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে কিশোরকে কুপিয়ে হত্যা, লাশ কাঁধে নিয়ে বিক্ষোভ


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৭ এপ্রিল ২০১৯, বুধবার, ১০:২৩ | কিশোরগঞ্জ সদর 


কিশোরগঞ্জে বৈশাখী মেলায় ঝগড়াকে কেন্দ্র করে সাগর মিয়া নামে ১২-১৩ বছরের এক কিশোরকে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা। মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) রাত ৮টার দিকে শহরের গাইটাল এলাকার পাট গবেষণা ইনস্টিটিউটের রাস্তায় এই নৃশংস হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি ঘটে।

নিহত সাগর মিয়া শহরের হারুয়া সওদাগর পাড়া এলাকার মো. বকুল মিয়ার ছেলে। সে শহরের ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদ এলাকায় কোরআন শরীফ, টুপি ও মোমবাতি বিক্রি করতো।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) দুপুরে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে নিহত সাগরের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হওয়ার পর নৃশংস এই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ ও জড়িতদের বিচার দাবিতে লাশ নিয়ে বিশাল মানববন্ধন এবং বিক্ষোভ মিছিল করেছেন এলাকাবাসী।

মানববন্ধন শেষে দুপুর একটার দিকে হত্যাকারীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও বিচার দাবিতে শহরের হারুয়া এলাকা থেকে বিভিন্ন বয়সী কয়েকশ’ নারী-পুরুষ নিহতের লাশ নিয়ে মিছিল বের করেন। মিছিলটি আখড়াবাজার মোড়ে গিয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ও পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে যেতে চাইলে পুলিশ বাধা দেয়।

এক পর্যায়ে পুলিশী বাধা অতিক্রম করে বিক্ষোভ মিছিলটি পুরাতন স্টেডিয়াম পার হয়ে শহরের বটতলা অতিক্রম করার সময় বিপুল সংখ্যক পুলিশ বাধা দেয়। এ সময় বিক্ষোভকারীরা গুরুদয়াল সরকারি কলেজ সড়কে অবস্থান নেন। পরে কলেজ সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় হারুয়া এলাকায় গিয়ে বিক্ষোভ মিছিল শেষ করেন।

বিক্ষোভকারীরা তাদের সাথে থাকা ব্যানারে সাগর হত্যার জন্য মূল অভিযুক্ত হিসেবে হারুয়া এলাকার আবু হানিফ ওরফে হাছু ডাকাত এবং তার পাঁচ সহযোগী দুদুল, সাফি, বাবু, শহীদ ও জিমেলকে অবিলম্বে গ্রেপ্তার করে ফাঁসির দাবি জানান।

বিক্ষোভ মিছিল শেষে জানাজা ও নিহতের দাফন করা হয়।

এর আগে সাগর হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর রাতেই বিক্ষোভে ফুঁসে ওঠেন এলাকাবাসী। রাত ১২টার দিকে উত্তেজিত এলাকাবাসী হারুয়া চৌরাস্তা মোড়ে জড়ো হয়ে প্রতিপক্ষের বসতবাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালায়।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে হামলাকারীদের ধাওয়া দেয়। এসময় পুলিশের সাথে হামলাকারীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরে লাঠিচার্জসহ ১১ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোঁড়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এছাড়া রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ (প্রশাসন) নাজমুল ইসলাম সোপান।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, শহরের হারুয়া কাতিয়ারচর এলাকায় এলাকায় অবৈধভাবে বসানো একটি বৈশাখী মেলাকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) দুপুরে মেলার আয়োজকদের সাথে সাগরের কথা কাটাকাটি হয়। এ ঘটনার জের ধরে রাত ৮টার দিকে সাগরকে শহরের গাইটাল এলাকার পাট গবেষণা ইনস্টিটিউটের রাস্তায় সন্ত্রাসীরা দা. চাপাতি ও কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে ফেলে রেখে যায়।

এলাকার লোকজন মুমূর্ষু অবস্থায় সাগরকে উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। সেখানে নিয়ে যাওয়ার পথে রাত সাড়ে ৯টার দিকে তার মৃত্যু হয়। পরে লাশ কিশোরগঞ্জে নিয়ে আসা হয়।

কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. আবুবকর সিদ্দিক জানান, পুলিশ রাতেই অভিযান চালিয়ে সন্দেহভাজন চারজনকে আটক করেছে। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে এবং জড়িতদের গ্রেপ্তারে পুলিশ মাঠে কাজ করছে।

এখন পর্যন্ত থানায় মামলা হয়নি জানিয়ে ওসি মো. আবুবকর সিদ্দিক বলেন, মামলার এজাহার পাওয়ার সাথে সাথেই থানায় মামলাটি রেকর্ড করা হবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর